নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • রাজিব আহমেদ
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • হৃদয় মজুমদার

নতুন যাত্রী

  • মানিক হোসেন
  • রাজিব আহমেদ
  • রাজু তালুকদার
  • ড. এফ জাহান
  • মোঃ যীশুকৃষ্ণ
  • পাহাড়ী_রেডওয়াইন
  • প্রবাসী ছেলে সোহেল
  • নাগিব মাহফুজ খান
  • বুক্কু চাকমা
  • মাষ্টার মশাই

আপনি এখানে

প্রবন্ধ

কাসিম বিন আবুবাকার ও ইসলামি আগ্রাসন!


বেশকিছুদিন যাবত বিশ্ববাসির কাছে বাংলাদেশকে একটি সাম্প্রদায়িক দেশ হিসেবে তুলে ধরার অপপ্রয়াশ অব্যাহত রয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় হটাত করে কাসেম বিন আবুবাকারের ইসলামি সাহিত্য নিয়ে এএফপির বিশাল প্রতিবেদন যেটা অন্যান্য আন্তর্জাতিক মাধ্যমেও এসেছে। কিন্তু বাংলাদেশের মূলধারার মিডিয়াতে তিনি উপেক্ষিত ছিলেন। এটা সত্যি যে তিন দশকের বেশি সময় যাবত তার সাহিত্য কর্ম প্রকাশিত হয়েছে এবং তিনি যথেষ্ট জনপ্রিয় গ্রামীণ পাঠকদের কাছে বিশেষভাবে মাদ্রাসা পড়ুয়াদের কাছে। যদিও গত ২ বসর যাবত তার কোন লেখা প্রকা

বিদ্রোহী সাঁওতালের ললাটে পরাধীনতার রাজটিকা;আর কতকাল ?


বৃটিশ শাসনআমলের অগ্রভাগে ভারতীয় উপমহাদেশে আর্যগণিত কোন সুসভ্য জাতিই শক্তিশালী ঔপনিবেশিক শক্তির বিরুদ্ধে অস্ত্র উঠানোর সাহস পায়নি। সাঁওতাল বীর বাবা তিলকা মাঝি (মুরমু) ও তাঁর সৈন্যবাহিনী সে সাহস প্রথম দেখিয়েছিল ১৭৭১-১৭৮৪ খ্রিষ্টাব্দে নিজ ভাষা, মাতৃভূমি ও স্বাধীনতার জন্যে সংগ্রাম করে। বীর তিলকার বিদ্রোহের মাধ্যমে ব্রিটিশরা সাঁওতালদেরকে চিহ্নিত করে উপমহাদেশের একমাত্র সজাগ শত্রুু হিসেবে। সাঁওতালদের আন্দোলনকে চিরতরে স্তব্ধ করে দেবার জন্যে তারা অভিনব, আকর্ষণীয় ও লোভনীয় মরণ ফাঁদ তৈরি করেন। শুরুর দিকে সাঁওতালরা সেই ফাঁদে পা না দিলেও বৃটিশরা ছলে বলে কৌশলে সাঁওতালদের কে সে টোপ গিলাতে বাধ্য করে। স্বাধীণ ভারতে অপরাপর ভারতীয় জাতিরা তাই উন্নতির শিখরে পৌঁছালেও সাঁওতালরা আজও অণগ্রসর জীবন-যাপণ করছে। মরণ ফাঁদের মায়াচ্ছন্ন পরিবেশের নাগপাঁশ থেকে নিজেদের কে তারা মুক্ত করতে পারছে না। সাঁওতালদের নিজস্ব কৃষ্টি, গণতান্ত্রিক বিচার পদ্ধতি, ধর্মীয় শক্তি ও মনোবল সব আজ ধোঁয়াশার কুন্ডলীতে আবদ্ধ। সেই মরণ ফাঁদটি কি ছিল ? কেনইবা বৃটিশরা এই ফাঁদটি প্রস্তুত করতে বাধ্য হয়েছিলেন। এই প্রবন্ধে একজন সচেতন সাঁওতাল হিসেবে সে সত্যটুকু তুলে ধরার প্রায়াশ করছি মাত্র।

প্রাসঙ্গিক লেনিন



ভ্লাদিমির ইলিচ উলিয়ানভ লেনিন ১৮৭০ সালে ২২শে এপ্রিল জার শাসিত রাশিয়ার সিমবির্স্ক শহরে জন্ম গ্রহণ করেন। তাঁর পারিবারিক নাম ছিল ভ্লাদিমির ইলিচ উলিয়ানভ। ভল্গা নদীর তীরবর্তী সিমবির্স্ক নামক ছোট শহরটি রাজধানী সেন্ট পিটার্সবার্গ থেকে ১,৫০০ মাইল দুরত্বে অবস্থিত ছিল।

পৃষ্ঠাসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর