নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • দ্বিতীয়নাম
  • আবু মমিন
  • মাহিন রহমান সাকিফ
  • রবিঊল
  • পৃথু স্যন্যাল

নতুন যাত্রী

  • রবিঊল
  • কৌতুহলি
  • সামীর এস
  • আতিক ইভ
  • সোহাগ
  • রাতুল শাহ
  • অর্ধ
  • বেলায়েত হোসাইন
  • অজন্তা দেব রায়
  • তানভীর রহমান

আপনি এখানে

কবিতা

ভরা থাক


অন্তরসারশূন্য হয় না আধার
কিছু না কিছু গুণানুপাতে
অস্তিত্ব ভরা থাকে

পাঁজরের ভেতর যাত্রায়
মহীমা সজ্জা
দূর থেকে চেনা জানা পথিক সম্রাট

ভেবেছিল কিছু হবে না
যা হয়েছে তাতেও দূরদর্শী
সমগ্রের মোহ ভোরে
সবাই মিলে কত সূর্য।

শূন্যতা ।।


অনেক দিন ধরে পৃথিবীতে ভালবাসা ছিলোনা হয়তো,
হয়তো গভীর ঘুমে ছিল গাছপালা, পাখি সব ।
অথবা বহু দিন ধরে আমরা বন্দী হয়ে আছি।

পৃথিবীর সমস্ত তাপ উত্তাপ শুষে নিয়ে মাটিও নীরব।
তাই কারো মনে সারা নেই, শুধু দিক্বিদিক ছুটে চলা;পথ ভোলা!

অনেক দিন ধরে পৃথিবীতে কিছুই ছিলোনা !!

ব্যথিত খুনির প্রতি, সাইকিক প্রতিকার; সুইসাইড ফ্যাক্ট


যেটা তুমি করতে পারো, তা হল একটা চরিত্র সৃষ্টি করলে আর তাকে দিয়েই খুনটা করালে। খুনের পর তুমি নিজেই খুনিকে ফাঁসি দিয়ে দিলে। প্রতিটা খুনের আগে একটি করে চরিত্র সৃষ্টি করলে, নিজের ভিতরেই, আর খুনের পর তাকে ফাঁসি দিলে।

পেশা হিসেবে নেয়াটা একটা সহজ প্রথা; এটা সহজেই ভাবতে পারো, টিকে থাকার জন্য মানুষ যেকোন কিছু করতে পারে, করেও;

মধ্যবিত্ত


আমি মধ্যবিত্ত হিসেব করি, কাজের আগে কাজের বাদে,
আকাশ দেখার ইচ্ছে হলে তাকাই ছাদে ... ।
আকাশ দেখতে টাকা যে লাগেনা তা খুব জানি,
কিন্তু হিসেব করতে করতে, পুষিয়ে নেয়া খানি -
অভ্যাস এখন আমার ।প্রয়োজন না থাকলেও তাই -
হিসেব করে, হিসেব করে, হিসেব করে বেড়াই ।
এই যেমন কাল, কলম কিনতে গিয়ে কিনে আনি রিফিল ।
এমনটা করারও কি কোনো প্রয়োজন আছিল্ ?
না, তবুও যদি অভ্যাসটা হয় ছিন্ন ?...
তবে হ্যাঁ, স্বপ্ন দেখার ব্যাপারটা পুরো ভিন্ন,
স্বপ্ন দেখি, খুব দেখি, দেখতে দেখতে, দেখে ফেলি - আমরা সবাই গাছ,
প্রাণে সূর্যের আঁচ !

ও মেয়ে, এটা তোমার মানবাধিকার!


ও মেয়ে এদিকে এসো,
শুনো আমার অপ্রিয় কিছু কথা,
তুমি কি স্বাধীন হতে চাও?
তোমার ও কি ইচ্ছে করে অবাধ্য ছেলের মতো চারিদিকে ঘুরতে ফিরতে?
তোমারও কি ইচ্ছে করে ছেলের মতো আড্ডা দিয়ে রাত বিরাতে ঘরে ফিরতে?
তোমার ও কি ইচ্ছে করে মুষ্টিবদ্ধ হাত উঁচিয়ে রাজপথে আন্দোলনে যোগ দিতে?
তোমার ও কি ইচ্ছে করে জিন্স টিশার্ট পড়ে ছেলের মতো ধাপিয়ে বেড়াতে?

তো চুপ কেন?
শুরু করে দাও!

২৩ শতকের এক নবীন কবির ভাবনা


এদেশের অনলাইনে একদল ব্লগার ও অনলাইন এক্টিভিস্ট জম্ম নিয়েছে। তাঁরা নতুন যুগের সুচনা করতে চায়। তাঁরা নতুন কিছু জম্ম দিতে চায়। কিন্তু এদেশের ধর্মান্ধরা তাঁদের ভাষা বুঝেনা, তাঁদেরকে ধর্মান্ধরা শত্রু মনে করে। তারা ব্লগার ও অনলাইন এক্টিভিস্টদের ভীন গ্রহের এলিয়েন ভাবে, ধর্মান্ধরা অস্তিত্ব সংকটের আশায় তাঁদের ভয় পায়। ভীত কাপুরুষ ধর্মান্ধরা তাই মাঝে মাঝে হত্যা করে তাঁদেরকে বিলীন করে দিতে চায়।

আজি এই বৃষ্টি ভেজা


আজি এই বৃষ্টি ভেজা গোধূলি লগনে,
মন মোর দোলে ক্ষণে ক্ষণে।
দক্ষিনা বাতাসের ঢেউয়ে
ভাবনারা যায় কোথা মিলিয়ে।।

আজি আকাশে ভাসিছে কালো মেঘের ভেলা
তারি পানে চাহিয়া কাটিল যে মোর বেলা।
শ্রাবণ বালিকা নাচিয়া চলে;
তারই সাথে মন মোর দোলে।
রিমঝিম রিমঝিম সূরে
ভাবনারা যায় কোথা মিলিয়ে।।

আজি মনের কোনে জাগিছে স্মৃতি;
পুরোনো সেই ভুলে যাওয়া গীতি।
ভুলে যাওয়া সে রাগিনী
আজ তোলে হৃদয়ে প্রতিধ্বনি;
হারানো সে সূরের ঢেউয়ে
ভাবনারা যায় কোথা মিলিয়ে।।

২৩/৮/১৬ইং

হে ধরণী, আমরা অবিচলঃ তীর্থের কুহকের কবিতাগুচ্ছ (২)


অবিচল , ও ধরণী, আমরা অবিচল -

নিপীড়নে দারিদ্র্য এসে দুয়ারে হাজির
খাদ্যশস্য নেই বরাদ্দ আমাদের জন্য কোন
আবহমান এ অবক্ষয় যেন সামাজিক আখ্যান ।

তরুণদের একটি প্রস্তাবনা ছিল
শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ থেকে জবাবদিহিতা হোক শুরু
সরকার কেন জনবিরুদ্ধ রাজনৈতিক দাবার চালে-
জনতাকে আবদ্ধ করেছে শেকলে ।

যদি আমরা দাড়াতে পারি- নির্ভয় চিত্তে
আওয়াজ উঠবে বজ্রকন্ঠে-
রাজনৈতিক ধনতন্ত্রের পাপাচার –ধ্বংস ও মৃত্যুর ব্যালট নিয়ে আসে ।

অবিচল, হে ধরণী, আমরা অবিচল
অবিচল, হে ধরণী, আমরা অবিচল।

সাম্য-স্থল


নোঙর তুলিয়া তরণী বাহিয়া বিমূর্ত স্বচ্ছ মনে,
চলিলাম অদ্য নিগুর অজ্ঞাত ভূতল অন্বেষণে!!
এ রথ চলিছে মম কল্পনায় মম চেতনাতে বহে,
গঠন করবো সে দেশ মম এই ভূ-খণ্ডেতে রহে।
অভিলাষী মন, যপে প্রতিক্ষণ করে মন ও প্রভু,
মম অভিলাষ তথায় যেন শোষক না হয় কভু!
নিরস্তিত্ব রবে তত্র শ্রেণী ভেদাভেদ, দরিদ্র-বুর্জুয়া,
বিরাজমান রবে তত্র কেবলি সাম্য সুরেলা ধুয়া।
একি ভূতলে, উল্লাসে মেতে একত্র সব মানবে বসি,
দৃষ্টিপাত করবো সবেই সম ভাবে গগণ-রবি-শশী।
লড়াকু নয় তত্র যে আল্লা, যিশু, জেহোবা, ভগবান,
সব রয় একত্রে হিন্দু, বুদ্ধ, ইহুদি, মুসলিম, খ্রিস্টান!

বিদায় হে ভুল প্রেম


বিদায় হে ভুল প্রেম,বিদায় তোমাকে
আহা!তোমার গলায় যে মিথ্যার অলংকার ঝোলানো থাকে
তা আর আমাকে আকৃষ্ট করবেনা কোন দিন
বিদায় হে প্রাণঘাতী শত্রু আমার,আমি আজ শত্রুবিহীন
তুমি এক হিংসুক বালক যার কাছ থেকে শ্রদ্ধা ও বিনয়
পেয়ে এসেছি এতদিন,তুমি সাধুবেশে পাকা চোর অতিশয়
হঠাৎ সত্য ভেবে তোমার যে পথে গেছি হেটে চোখ বুজে
তা ছিল ভুল ও কণ্টকাকীর্ণ, শুধু জঞ্জাল পেয়েছি খুঁজে
তুমি এক বিশ্বাসঘাতক মন্দির যাতে ধর্মের নেই ছায়া
বড়ং তা অপকর্মে পূর্ণ,বিদায় হে ভুল প্রেম, তোমার মায়া
কিছুতেই আমাকে আর মোহাচ্ছন্ন করতে পারেনা

পৃষ্ঠাসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর