নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 7 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • ড. লজিক্যাল বাঙালি
  • সুবর্ণ জলের মাছ
  • দীব্বেন্দু দীপ
  • মো.ইমানুর রহমান
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • নুর নবী দুলাল

নতুন যাত্রী

  • বিদ্রোহী মুসাফির
  • টি রহমান বর্ণিল
  • আজহরুল ইসলাম
  • রইসউদ্দিন গায়েন
  • উৎসব
  • সাদমান ফেরদৌস
  • বিপ্লব দাস
  • আফিজের রহমান
  • হুসাইন মাহমুদ
  • অচিন-পাখী

আপনি এখানে

ব্যক্তিগত কথাকাব্য

জীবন


মানুষের জীবন সুন্দরতম, প্রতিটি মুহুর্ত তার অমূল্য, প্রতিটি মুহূর্ত তার কিভাবে সদ্ব্যবহার করতে পারা যায় সেটাই তার প্রধান চিন্তা হওয়া উচিত ------
এটাই মনুষ্যত্ব.

------- লেনিন

গুরু


গুরু শব্দটা মনে এলেই আমার কেমন অদ্ভুত লাগে, হাসি পায়, আবার দম বন্ধও হয়ে আসে । যাক, অতো কথা বলে লাভ নেই, ক্ষতি আছে, জানিনা কেন খাতা গুলোয় মার্জিন দেয়া থাকে, মার্জিন তুলে দিলেওতো অনেক গাছ বাঁচে । যাক, গুরু নিয়ে লিখতে বসেছি গাছ টেনে লাভ নেই ।

পশু যদি হয় মানুষ, সে কি মানুষ?


পশুত্ব, মনুষ্যত্ব দুটোই মানুষের ভিতরে সুপ্ত। যে কোন অবস্থাতেই পশুত্বকে দমিয়ে মনুষ্যত্ব জাগ্রত করে রাখাই মানব জীবনের সার্থকতা । যে নিজের ভিতর পশুত্বকে চিনতে পারে সে অন্যের কাপুরুষতাও ধরতে পারে, ধরিয়ে দিতে পারে। শুধু নিজের জন্য নয় মানব জাতির কল্যানের জন্য নিজেকে চেনা জরুরী।
একটা কুকুর সুজোগ পেলেই খোলা খাবারে মুখ দিবে, মানুষ নয়।
কাপুরুষই নারী জাতির উপর ছোবল মেরে নারীর দোষ দিবে, পুরুষ নয়।
তেমনি বক ধার্মিক মাত্রই নিজের লালসা চরিতার্থে ধর্মের দোহাই দিবে , ধার্মিক নয়।
ধর্মের শাস্তি ধর্মই দিবে, মানুষ দিলে প্রমান হয় সেই মানুষের ধর্ম ধর্মই নয়।

মানুষ কি? জানতে হবে...


হরিনকে বাঘ খায়, বাঘ মরলে শকুনে খায়। পুঁটিমাছ বোয়ালে খায়, বোয়ালকে কুমিরে খায়। বাস্তুসংস্থানে বন্য জগৎ টিকে থাকে। এটাই তাদের নিয়ম। কিন্তু
মানব সমাজ যদি জংলা পশুর নীতিতে চলে তাহলে তা হবে বিভ্রাট, ব্যতিক্রম, বিভতস্ব। মানুষ অন্য প্রানীর থেকে আলাদা এবং উন্নত কারন, মানুষের মাঝে আছে বিবেক, যা আর কোন সৃষ্টিতে নেই। মানুষ যত বেশি বিবেক জাগ্রতকারী হবে পৃথিবীতে তত বেশী সুন্দর এবং শান্তি বজায় থাকবে। আর বিবেক বর্জিত ক্রোধ, হিংসা, পেশিশক্তির দর্শনে জর্জরিত সমাজ সে তো পশুরই, সে খানে সব কিছু হতে পারে। যা বিবেকবানের সমাজে "না"।
...
তাই

আমার গণিত চর্চা এবং কিছু ব্যর্থতাঃপর্ব-১


ক্লাস নাইনে উঠেই স্যার একদিন ব্লাকবোর্ডে ত্রিকোণমিতির ২০/২২ টা সূত্র লিখে দিয়ে বললেন আগামী দিন এই সূত্রগুলো দেখে আসবে, প্রয়োজনে মুখস্থ করে ফেললে আরো ভালো। এত দিন গুটিকয়েক সূত্র নিয়ে ছিল কারবার, যা কিনা বীজগণিতের প্রাথমিক কিছু সূত্র, মনেই থাকত। কিন্তু এবার সূত্রের পরিমাণ এত বেশী যে রীতিমত মাথায় চাপ পড়ল। তাছাড়া পরিমিতিরও এক গুচ্ছ সূত্র আছে। যাই হোক, অন্য বন্ধুরা যখন মুখস্থের ধুয়ো তুলল আমি তখন অন্য পথ খুঁজতে লাগলাম।

নিজের জন্য নোট - ১ (ডায়েরি এবং প্রেম)



সেই অপরিণত বয়সেই অনেকবার মনে করেছি বলা যায়, তোকে আমার পছন্দ। ভাবতাম বলি, আমার তোকে পছন্দ কিন্তু চুমু খাওয়া যাবে না, চুমু খেলে বাচ্চা হয়। সন্তান কিভাবে হয় এটা প্রথম জানি সম্ভবত ক্লাস সেভেনের পর। কিন্তু অল্প কয়বছর পর চলে যায় কল্যাণপুর। আমি ক্লাস এইট কিংবা নাইন পর্যন্ত ডায়েরীতে মাঝে মাঝেই ওর কথা লিখতাম, সেগুলোও পড়ছিলাম কিছুদিন আগে। আমার শ্যামা মেয়েতে অবসেশন শুরু মনে হয় তখন থেকে। আফসোস, জীবনে এরপর আরও কতবার প্রেমে পড়লাম, প্রেমে পড়ে হাত-পা ভাঙলাম, আহত নিহত হইলাম, কিন্তু শ্যামা মেয়ের সাথে খাপে খাপ হইল না কখনো।

পৃষ্ঠাসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর