নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • শহরের পথচারী
  • দীব্বেন্দু দীপ
  • অলীক আনন্দ
  • মিশু মিলন

নতুন যাত্রী

  • তা ন ভী র .
  • কেএম শাওন
  • নুসরাত প্রিয়া
  • তথাগত
  • জুনায়েদ সিদ্দিক...
  • হান্টার দীপ
  • সাধু বাবা
  • বেকার_মানুষ
  • স্নেহেশ চক্রবর্তী
  • মহাবিশ্বের বাসিন্দা

আপনি এখানে

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

কর্ণ-আমাদের কর্ণ সব ধরনের শব্দও শুনতে সক্ষম নয়,চক্ষু ও সব ধরনের আলোক তরঙ্গ দেখতে সক্ষম নয়, ২৯(৩)


কর্ণ-আমাদের কর্ণ সব ধরনের শব্দও শুনতে সক্ষম নয়,চক্ষু ও সব ধরনের আলোক তরঙ্গ দেখতে সক্ষম নয়, ২৯(৩)

আপনারা ২৭-১ পর্বে জানতে পেরেছেন শব্দ তরঙ্গ কী ভাবে উৎপত্তি হয় ও কীভাবে তা আমাদের কর্ণ কুহরে পৌছায়।(চিত্র-১)

এরপর ২৮-২ পর্বে জানতে পেরেছেন বায়ুমন্ডলীয় শব্দ তরঙ্গ কী ভাবে কর্ণ সুড়ঙ্গ দিয়ে কর্ণ-পর্দার বহি-তলে পৌছে তবলার পর্দার ন্যায় তরঙ্গ উৎপাদন করে।

আপনাদের মনে রাখতে হবে শব্দ হল একটা তরঙ্গ আকারের শক্তি মাত্র। আর একটি শব্দ আমরা তখনি শুনতে ও এর ধারনা পাইতে পারি যখন এই তরঙ্গ টা মস্তিস্কের শ্রুতি কেন্দ্র (চিত্র-৩)পর্যন্ত নির্বিঘ্নে পৌছাইতে পারবে।

চিকনগুনিয়া এটেনশন



যাদের হুট করে জ্বর হইসে। সাথে হালকা র‍্যাস দেখা যায়, হাড়ের জয়েন্টে বা মাংসপেশিতে প্রচন্ড ব্যথা হইতেসে তাদের জন্য টিপস.....
১- কোন ধরনের এন্টিবায়োটিক চিকনগুনিয়ায় জন্য বিপদজনক। না জেনে ওষুধ খাবেন না।
২- প্রচুর ফ্লুইড খান। মানে পানি খান। ডাব খেলে ভাল। আর তরল খাবার।
৩- জ্বর ব্যথা কমাতে প্যারাসিটামল খেতে পারেন। পেইনকিলার খেতে হলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিন।
৪- ফুল রেস্টে থাকুক। যতটা সম্ভব বিশ্রাম চিকনগুনিয়া দ্রুত সারতে সাহয্য করবে।

পাহাড়ে 'নাকি' শ' দেড়েক প্রাণী মাটি চাপা পড়েছে?


বাঙালিদের কাছে উপজাতীরা ঊনমানুষ।

ডিসকোর্স: পাহাড় তো চাকমা মাগীদের থাকার জায়গা। পাহাড় তো কুমিল্লা, নোয়াখালি, চাঁদপুরের সেটেলারের ছাতার তলায় 'হলিডে হোমস'। ঢাকার নব্য ধনীর দুলালদের কাছে প্রথম ল্যাসভাগাস। রাজনীতিকদের 'গোঁদের উপর বিষ ফোঁড়া'।

প্রতিবছর জুন-জুলাইয়ে পাঁচ ছয় বার প্রবল বৃষ্টিপাত হয়। প্রত্যেকবার বৃষ্টিতে মাটির পাহাড়ের মাথায় পানি জমে। দ্বিতীয় সপ্তাহে সেই জমে থাকা পানি চিটাগাং শহরের উপর দিয়ে গিয়ে সমুদ্রে পড়ে। দ্বিতীয় বা তৃতীয় সপ্তাহের দিকে হয় ভূমিধ্বস।

সরকারের জবাবদিহিতা উন্নয়নে এবার ইলেক্ট্রনিক হাজিরা


বর্তমান গণতান্ত্রিক সরকার তার প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনায় জবাবদিহিতার মান উন্নয়নের আওতায় এবার সব মন্ত্রণালয়ের দাপ্তরিক কার্যক্রমে গতি আনার লক্ষ্যে ইলেক্ট্রনিক ডিজিটাল হাজিরা পদ্ধতি চালু করতে যাচ্ছে। এরই মধ্যে প্রাথমিক পর্যায়ে তিন মন্ত্রণালয়ে ইলেক্ট্রনিক হাজিরা কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। এই পদ্ধতিতে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অফিসে হাজিরা মনিটরিং করা হবে। এতে কেউ বিলম্বে অফিসে হাজির হলে সেটিরও রেকর্ড থাকবে। ইলেক্ট্রনিক হাজিরা পদ্ধতিতে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাজের জবাবদিহিতা নিশ্চিত হবে বিধায় জনমানসে ক্রমশঃ সরকারের প্রতি আস্থার উন্নয়নও ঘটবে। পাশাপাশি প্রশাসনের কার্যক্রম আরো গতিশীলতা আসায় দেশের রাজ

কর্ণ-যে ভাবে আমরা শব্দ শুনতে পাই, বহি কর্ণ,পর্ব-২৮(২


কর্ণ-যে ভাবে আমরা শব্দ শুনতে পাই, বহি কর্ণ,পর্ব-২৮(২)
আপনারা ২৭-১ পর্বে জানতে পেরেছেন শব্দ তরঙ্গ কী ভাবে উৎপত্তি হয় ও কীভাবে তা আমাদের কর্ণ কুহরে পৌছায়।(চিত্র-১)
এর পরে কী ঘটে?
এরপর এই শব্দ তরঙ্গকে কর্ণের ৩টি কক্ষকে অতিক্রম করতে হয়্। এগুলী হল-
১)বহি কর্ণ (EXTERNAL EAR)
২)মধ্য কর্ন (MIDDLE EAR)
৩)আভ্যন্তরীন কর্ণ (INNER EAR)চিত্র-২
তারপর কী ঘটে?

জাকির নায়েকের বিজ্ঞান পর্যালোচনা


সূর্য সম্পর্কে জাকির নায়েকঃ
প্রাচীনকালে মানুষ মনে করত Sun stationary এটা ডাহা মিথ্যা কথা।তারা Geo-centric মহাবিশ্ব নিয়ে এই আর্টিকেলটা পড়ে নিতে পারেন।লিংকঃ https://en.m.wikipedia.org/wiki/Geocentric_model

জাকির নায়েকের বিজ্ঞান পর্যালোচনা


সূর্য সম্পর্কে জাকির নায়েকঃ
প্রাচীনকালে মানুষ মনে করত Sun stationary এটা ডাহা মিথ্যা কথা।তারা Geo-centric মহাবিশ্ব নিয়ে এই আর্টিকেলটা পড়ে নিতে পারেন।লিংকঃ https://en.m.wikipedia.org/wiki/Geocentric_model

স্যাপিয়েন্সঃ মানবজাতির সংক্ষিপ্ত ইতিহাস by Yuval Noah Harari পর্ব ১ঃ বুদ্ধিমত্তার বিপ্লব - তৃতীয় অধ্যায়


তবে আদিম আরণ্যকদের জীবনে গোত্রের সাথে গোত্রের এই সম্পর্কেটাকে খুব বেশি গুরুত্ব দেওয়া যাবে না। যদিও একই উপজাতির অন্য গোত্রের সাথে মিলে স্যপিয়েন্সরা মাঝে মাঝে শিকার করতো, যুদ্ধ করতো, উৎসব করতো, কিন্তু তাদের বেশিরভাগ সময়ই কাটত নিজেদের গোত্রের ভেতরে। বাণিজ্য সীমাবদ্ধ ছিল সৌখিন জিনিষপত্রের মধ্যে, যেমন শঙ্খ, রঙ, রঙ্গিন পাথর ইত্যাদি। তারা নিজেদের ভেতরে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য বিনিময় করত, অথবা তাদের জীবন আমদানীকৃত পণ্যের ওপর নির্ভর করত, এরকম কোন নজির নেই। রাজনৈতিক সম্পর্ক থাকলেও সেটা খুব একটা শক্ত ছিলনা। মাঝে মাঝে হয়ত যৌথ সভা হতো, তবে কোন স্থায়ী রাজনৈতিক কাঠামো ছিল না। সে সময়কার সাধারণ একজন লোক হয়ত মাসের পর মাস গোত্রের বাইরের কারো সাথে কথাই বলত না। সারা জীবনে সে বড়জোর কয়েকশ’ লোকের দেখা পেতো। সারা বিশ্বে স্যাপিয়েন্স জনসংখ্যার ঘনত্ব ছিল খুবই কম। কৃষি বিপ্লবের আগে সারা পৃথিবীর মোট জনসংখ্যা ছিল কায়রো শহরের বর্তমান জনসংখ্যার চেয়ে কম।

slide8

গরু, শূয়োর নিয়ে বাধ্যবাধকতা কি শুধুই ধর্মীয় কারণে?


ভারতের চাষাবাদ ব্যবস্থা এখনও হালটানা বলদের উপর নির্ভরশীল, তাঁর উপর অনেক দরিদ্র পরিবারের হালের বলদ নেই, আবার যাদের আছে তাঁদের গুলো যদি অসুস্থ হয়ে পড়ে বা বিক্রি করে দেয় তখন একসময় পরিবারগুলো নিঃস্ব হয়ে পথে বসার উপক্রম হবে। এভাবে অনেক পরিবার তাঁদের ভিটেমাটি হারিয়েছে কিংবা অন্যের জমিতে বর্গা চাষ করতে বাধ্য হয়েছে।

পৃষ্ঠাসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর