নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

There is currently 1 user online.

  • বেহুলার ভেলা

নতুন যাত্রী

  • চয়ন অর্কিড
  • ফজলে রাব্বী খান
  • হূমায়ুন কবির
  • রকিব খান
  • সজল আল সানভী
  • শহীদ আহমেদ
  • মো ইকরামুজ্জামান
  • মিজান
  • সঞ্জয় চক্রবর্তী
  • ডাঃ নেইল আকাশ

আপনি এখানে

ভিসা ক্যান্সেল


আমাদের ইউনিভার্সিটিতে বায়োকেমিস্ট্রি ডিপার্টমেন্ট এর ছোট ভাই আরমান।বিদেশে এ-লেভেল আর ও-লেভেল শেষ করে এই দেশে আসে।পুরা ফ্যামিলি-ই শিফট।তার আব্বা ছাড়া।আমাদের ইউনিভার্সিটিতে আসার পর তারে যতটা নাহ তার ডিপার্টমেন্ট চিনে,তার চেয়ে বেশী চিনে আমাদের ডিপার্টমেন্ট এর পোলাপান।আমাদের সাথে আড্ডা দেওয়া থেকে শুরু করে সব কিছু।তার একটা সমস্যা ছিল,সে বাংলায় কথা বলতে জানলেও বাংলিশ লেখা ছাড়া বাংলা লেখা পড়তে পারতো নাহ।সে ক্লাসে স্যারদের কাছে হইত অপদস্থ।কারণ,আমাদের অনেক শিক্ষক বাংলায় লেকচার দেন।আরমান অনেক সময় বুজতও নাহ।ডেইলি পেইন দিত,স্যারদের নামে।আমি একদিন তারে রাগ করে বলে দি,"তুমি মিয়া বাংলা প্রতিবন্ধী" এটা গত বছরের ঘটনা।

প্রচণ্ড হাবাগোবা টাইপ ছেলেটা কি বুজলও কে জানে,জার্মান অ্যাম্বাসীতে গিয়ে ডিরেক্ট ভিসা অ্যাপ্লাই করে আসে।পেয়ে যায় ভালো একটা সাবজেক্ট,"জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং"।
ভিসা আসার অপেক্ষায় ছিল।একদিন বলল,ভাই আপনার যে সিজিপিএ,এই দেশে থ্যাইক্যা মরেন ক্যান????বিদেশ যান।আমি তারে রিপ্লাই দিলাম,আরমান আমার ইচ্ছা আসে আমি গেম ইঞ্জিনিয়ারিং না হয় অটোমোটিভ ইঞ্জিনিয়ারিং এর উপর পড়ালেখা করব।আগে বিএসসিটার ফাইনাল এর রেজাল্ট আউট হোক।
গত কয়েকদিন আগে সে আমাকে আবার রিমাইন্ড দে।ভাই,অ্যাপ্লাই করেন।আমি লিঙ্ক দিতাসি।আমি তারে বললাম,আরমান আমি আমার স্কলারশিপ ফিরাই দিসি।আমি দেশে থাকতে চাই।দেশে পড়ালেখা করব।দেশ ছেড়ে যাব নাহ।এই হাবা আবার কি বুজসে কি জানি?????????

গত কয়েকদিন জামাল-খান চত্বর আমি আর আরমান মিলে শ্লোগান দি।আমি টায়ার্ড হলে এই হাবা আবার ধরে।একুশে ফেব্রুয়ারির দিন আসে সারপ্রাইজ,সে আমাকে দুই পৃষ্ঠার একটা চিঠি লিখে।শুদ্ধ বাংলায়।আমি দেখে পুরা থ।লিখলও-->মায়ের ভাষা শিখেছি,মায়ের ভাষা লিখেছি।

কাল মসজিদের ভেতর সাধারণ মুসল্লিদের ভেতর প্রথমে যে ব্যক্তিটি প্রতিরোধ গড়ে তোলে সে এই আরমান।বাক-বিতণ্ডা করে সোজা সন্ধ্যার ভিতরে আম্মাকে রাস্তার মোড়ে যাবে বলে সোজা চলে আসে জামাল-খান।হাবাটা দেখি ইদানীং মিছা কথাও শিখসে।
এরপর শ্লোগান ধরে,হই হই রই রই............

বাসায় যাওয়ার আগে টং এর দোকানে বসলাম চা আর সিগারেট খাইতে।আরমান নিলো স্টার-লাইট।আমি বললাম,ক্যানও।বৃদ্ধ আর তর্জমার ইশারায় হাবাটা বোঝালও,ঘরে ফেরার টাকা নাই।খেয়েদেয়ে ঘরে ফেরার সময় পিছন থেকে,শুভ বলল ভাই আরমান ভিসা ক্যান্সেল করে দিসে।
আমার চোখ আর..................

Comments

আশরাফুল করিম চৌধুরী এর ছবি
 

হুম। সবাই যদি এরকম হতো।

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

স্টিভেন ডি চন্দন
স্টিভেন ডি চন্দন এর ছবি
Offline
Last seen: 4 years 6 months ago
Joined: শনিবার, ফেব্রুয়ারী 9, 2013 - 2:40পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর