নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মুফতি মাসুদ
  • নুর নবী দুলাল
  • আবীর নীল
  • নরসুন্দর মানুষ

নতুন যাত্রী

  • চয়ন অর্কিড
  • ফজলে রাব্বী খান
  • হূমায়ুন কবির
  • রকিব খান
  • সজল আল সানভী
  • শহীদ আহমেদ
  • মো ইকরামুজ্জামান
  • মিজান
  • সঞ্জয় চক্রবর্তী
  • ডাঃ নেইল আকাশ

আপনি এখানে

একজন ইয়াবা সেবনকারী ভয়ংকর হয়ে উঠার সাতটি ধাপ



গবেষক আর চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের মতে একটা ইয়াবা সেবন কারীর সাতটা ধাপ আছে৷

প্রথম ধাপ- প্রথম ধাপে সিগারেটের মতই বন্ধুর আড্ডা, পার্টি, বিভিন্ন হৈ হুল্লোরে বা মানসিক চাপ হতে ধোঁয়া টানতে ইচ্ছে করে এবং সঙ্গ দোষে তাই করে৷ সেবন করে মনে হয় বেশ প্রশান্তির অনুভূতি৷ তখন তারা যাই করে ভালো লাগে, ক্ষুধা নেই ক্লান্তি নেই৷ মনে হতে থাকে ব্রেন সার্ফ৷ আর বেড়ে যায় হৃদ কম্পন, মেটাবলিজম সহ ব্লাড প্রেসার৷

দ্বিতীয় ধাপ- দুই ধাপে ইয়াবা সেবনকারীরা নিজেদের স্মাট এবং বেশ যুক্তবাদী মনে করে, সে যাই বলে তাই ঠিক আর অন্যরা যেন সব মূর্খ আবাল৷ মনে করে অন্যরা কিছুই জানেনা৷ তাদের যদি মিছিলে নিয়ে চিল্লাতে দেয়া হয় তারা সারাদিন চিল্লাবে আর ভাববে তারাই সংগ্রামী অন্যরা প্রতিবন্ধী৷

তৃতীয় ধাপ- তৃতীয় ধাপে বলা হয়েছে তারা গুরুত্বহীন কোন কাজকে মনোযোগের সহিত করতে থাকে৷ তাদের ব্রেনে বিকলাঙ্গ হয় এবং ভাবতে শুরু করে কেউ তাদের মেরে ফেলবে, ভয় কাজ করতে থাকে দিনের পর দিন আর ভেতরে ভেতরে সৎ বোধ কমে হিস্র অবোধ হতে থাকে৷ তারা হয়ে উঠে প্রচুর সন্দেহ প্রবণ৷ বেশি উত্তেজনা ভেতরে কাজ করার ফলে ইযাবা সেবন কারীরা কারণে অকারণে আরো বেশি ইয়াবা সেবন করতে থাকে৷ এসময় তাদের শারীরিক মানসিক দুই দিকই উত্তেজক থাকে৷

চতুর্থ ধাপ- চতুর্থ ধাপে এসে তারা ভয়ংকর হয়ে উঠে৷ তাদের মধ্যে তৈরী হয় শুন্যতার৷ তারা পরিবার হতে আলাদা হতে থাকে৷ তারা তখন একা থাকতেই বেশি পছন্দ করে৷ তারা আসক্ত হয়ে যা তা বলে বসে, করে বসে৷

পঞ্চম ধাপ- পঞ্চম ধাপে তারা আর ঘুমাতে চাইলেও পারেনা৷ তাদের শারীরিক শক্তি নষ্ট হয়ে যায়৷ ব্রেনের যে বিশ্রাম তা আর দিতে পারেনা৷ ফলে বেশি বেশি ঘুমের ট্যাবলেট খেতে শুরু করে কিন্তু কাজ দেয় না৷ একদিকে ইয়াবা অন্যদিকে ঘুমের ট্যাবলেট তার ভেতর মেরে বসে৷

ষষ্ঠ ধাপ- ষষ্ঠ ধাপে এসে তারা খুব দূর্বল হয়ে পড়ে৷ শরীর আর নিতে পারে না৷ টানা তিন চারদিন বেহুঁষ হয়ে পড়ে থাকে ঘুমে৷ টেনে তোলা যায়না৷ টেনে তুলে কিছু করালেও তারা বলতে পারেনা, মাথা কাজ করেনা৷

সপ্তম ও শেষ ধাপ- সপ্তম ধাপে এসে তারা শুধু মুক্তি চায়৷ লোক হতে, পরিবার হতে, জীবন হতে, মাদক হতে৷ কিন্তু মুক্তি আর পায় না৷ তাদের আত্মহত্যার প্রবণতা তখন তুঙ্গে৷ তারা আর বুঝতে পারেনা কি করছে৷ এমনকি খুন ধর্ষণ ও যখন তখন করতে পারে, নিজেও হাসতে হাসতে মরতে পারে৷

ইয়াবার যে রাসায়নিক পদার্থ শুধু ব্রেন অকেজো করেনা, করে মাথা হতে নিয়ে চোখ, ফুসফুস, হৃদযন্ত্র, কিডনি, লিভার সব৷ এই ভয়াবহতার জন্যই বিশ্বে ইয়াবা নিষিদ্ধ সত্তরের পর থেকে৷ থাইল্যান্ডে খুন ধর্ষণ বিকার হয়ে দাড়িয়েছিলো৷ আসক্ত ব্যক্তি যেকোন সময় রক্তপাতের মত অঘটন ঘটাতে পারে৷ ধনী পরিবারের দুলালরা সহ ঐশী মেমো এরা এমনি এমনি পিতা মাতাকে মারধর, খুন, লুট, গুম করেনি, করেছে এই ইয়াবারই কারণে৷ গত বছর একটা মেয়ে লাইভে এসে বলেছিলো তার বাবা তাকে ধর্ষণ করে এবং মা ধর্ষণে সাহায্য করে৷ পরে জানা গিয়েছিলো ইয়াবায় আসক্ত মেয়েটা, তার বাবা মা তাকে প্রচুর ভালোবাসত৷ কোন অপূর্ণতা রাখেনি শুধুমাত্র ইয়াবা সেবনে বাঁধা দেয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই রকম নোংরামী, হয়তো তারাও খুন হতে পারত ঐশীর মা বাবার মত৷ ইয়াবা এমনই এক ভয়াবহতার নাম৷ বর্তমানে যদি শুনেন টেকনাফে অমুক জন দরদি, তাহলে জানবেন ইয়াবা দরদি কারণ টেকনাফে ইয়াবা সেবার নামই হলো জনসেবা৷ আবেগ নয় বিবেক ঢালুন৷ এক লাশ দেখেছেন কিন্তু লাশের পাহাড়ে চোখ রাখেননি বিবেক দিয়ে তাই এত আবেগ৷ বদিকে যদি এবার ছেড়ে দেয় তবে এটা হবে৷ লাশের উৎসব৷ বদি হলো বাংলাদেশের আসল ক্যানসার৷

বিভাগ: 

Comments

জ্ঞানহীন মহামানব এর ছবি
 

lokkhon gulo amar dekha besh kichu nari purusher sathe mile jacce... Sad Sad

জ্ঞানহীন মহামানব

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

কাঙালী ফকির চাষী
কাঙালী ফকির চাষী এর ছবি
Offline
Last seen: 3 দিন 11 ঘন্টা ago
Joined: শুক্রবার, ডিসেম্বর 29, 2017 - 2:02পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর