নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মুফতি মাসুদ
  • নুর নবী দুলাল
  • আবীর নীল
  • নরসুন্দর মানুষ

নতুন যাত্রী

  • চয়ন অর্কিড
  • ফজলে রাব্বী খান
  • হূমায়ুন কবির
  • রকিব খান
  • সজল আল সানভী
  • শহীদ আহমেদ
  • মো ইকরামুজ্জামান
  • মিজান
  • সঞ্জয় চক্রবর্তী
  • ডাঃ নেইল আকাশ

আপনি এখানে

একরামুল নয়! আওয়ামির গোস্ত আওয়ামি খাচ্ছে



আওয়ামির গোস্ত যখন আওয়ামি খাচ্ছে তখন দেশজুড়ে চলছে আবেগের ঢল৷ এই সুযোগটা হাত ছাড়া করার নয়, স্বৈরাচারী আওয়ামী সরকারকে ধরার৷ দেশে কখন কোন সরকারের বেলা আইন ছিলো? আমার দেখা সেনা শাষণ এক এগারই বেস্ট ছিলো৷ সে সময়টায় কে কি করেছে জানিনা তবে আমরা ঘরের দরজা খোলা রেখে ঘুমিয়েছি আর ঘুমায়নি গুন্ডা পান্ডার দল৷ তারা গুলি করত না, ধরে হাড়ে হাড়ে মারত৷ মারতে দেখেছি তাদেরকেই যারা গরীব মারত৷

আপনি একরামুল হত্যার অডিওটা শুনেছেন? হ্যাঁ শুনেছি! একবার নয় বার বার টেনে টেনে শুনেছি কিন্তু ন্যাকা কান্না করিনি৷ যে গেলো সেত গেলোই৷ "আব্বু তুমি কাঁদছো কেন" আমার স্বামি দোষী না" এসব বাক্য নিয়ে আবেগী বিজ্ঞাপন করিনি৷ বাপ হারা সন্তান আর স্বামি হারা স্ত্রীই জানে কষ্ট কী! হ্যাঁ একদম সত্য৷ আর এমন সত্য বারংবার লুপ্ত হয়েছে যখন নাকি আওয়ামী বিএনপি জামাত হেফাজত জাতীয় পার্টির একরামুলরা রাজনীতির মাঠে ক্ষমতার জন্য খেলে৷ সম্পত্তির জন্য বাপে পুতে, ভাইয়ে ভাইয়ে রক্তারক্তি হয় আর আওয়ামীর সাথে আওয়ামীর একরামুলের হবেনা তাতো নয়৷ একরামুল হত্যায় আওয়ামীরইতো ক্ষতি হবার কথা কিন্তু আওয়ামী কেন বলছে এরকম দু একটা মরবে?

রাজাকারের ফাঁসির আগে ও পরে তাদের পরিবার ও তাদের কথোপকতনগুলো তদারকি করেন, দেখবেন "বাবা তুমি কাঁদছো কেন"র মত অসংখ্য আবেগী বাক্য বের হবে৷ বের হবে কাদের মোল্লারা ছিলো সৎ মানুষ, তারা শহীদ হেমন তেমন৷ কিন্তু তারাই কারো ঘর পুড়িয়েছে, কারো বাপকে মেরেছে, কারো স্ত্রী মেয়েকে ধর্ষণ করিয়েছে৷ তাদের সন্তানরা যখন বাপ হারানোর জন্য কাঁদবে তখন আপনার আবেগ হতে পারে, কিন্তু তাদের জন্য যারা দিনের পর দিন ভুগলো তাদের মন জল পায়৷

আপনি ক্রসপায়ারের বিরুদ্ধে দাড়ান, আপনি এই পরিকল্পিত হত্যার বিরুদ্ধে দাড়ান সেটা আপনার নাগরিক দায়িত্ব ঠিক আছে৷ কিন্তু আবেগ কাঁদো কাঁদো ন্যাকামী না করলেও চলে৷ একরামুলের পরিবার রাজনৈতিক পরিবার তাদের পাশে দাড়ানোর মানুষ অনেক কিন্তু একটা একরামুল হতে এরকম হাজারো সাধারণ পরিবার ভুগে যখন তাদের কান্না কান পর্যন্ত পৌঁছায় না৷ কাউন্সিলরের স্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন করার ক্ষমতা ভুক্তভুগি সাধারণের স্ত্রীর নেই, সেজন্য কেউ শুনেনও না৷ বড়দের ঘরে রাতে বাতি জ্বলে আর দরিদ্রের ঘরে রাতেও আঁধার, আলো কেড়ে নেয় যারা তাদের জন্য সবাই কাঁদে৷

কেউ বলতে দেখলাম একরামুলের বুকের গুলি সতের কোটি মানুষের বুকে লেগেছে৷ কেউ বলছে রোগির চিকিৎসা না করে রোগীই যদি মেরে ফেলা হয় তবে চিকিৎসার প্রয়োজনীয়তা কি? সতের কোটির বাহিরে কি সরকার পরিবার? একরামুল কি এডিক্টেড? এত রঞ্জিত করার প্রয়োজন কি? বলতে পারেন তাদের না মেরে বিচারের আওতায় এনে সাজা দেয়ার কথা, ক্রসপায়ারের নামে যেন হত্যা করা না হয়৷ আপনার ঐ বাবা তুমি কাঁদছো কেন তখনও বের হতে পারে যখন বাবাকে জেলে নেবে, যখন যাবজ্জীবন দেবে৷ আমার স্বামি কোন দোষ করেনি বাক্যটা স্ত্রীর মুখ হতে ঠিক একই কারণে বের হতে পারে৷ মূল ধরে টানলে কি হয় রঞ্জিত না করে!?

এখানে এটা পরিবারের মাঝে ভাগ ভাটোয়ারা নিয়ে কিংবা পারিবারিক রেষ হতে পরিকল্পিত হত্যা৷ নইলে আওয়ামীকে হত্যা করলে আওয়ামী ছেড়ে দেবে এ কথা কল্পনাতেও হবেনা যেখানে সাধারণ মানুষ আর ধর্ম নিয়ে তাদের রাজনীতি৷ অনেকে বলছে সৎ মানুষ! আরে ভাই আপনি কিভাবে জানলেন সৎ মানুষ? রাজনৈতিক নেতা আবার সৎ? কক্সবাজারে ছোট হতে বড় নেতা সবাই মাদক ব্যবসা, খুন, অস্ত্র, লুট এসবের সাথে জড়িত৷ জড়িত না হলে, ভয়ের নাম না হলে কক্সবাজারে সে নেতাও নয়, তার বেল নাই৷ আপনি RAB সন্ত্রাসিদের গুলির শব্দে সতের কোটি টানেন, কিন্তু রাজনীতির নেতা নামের সন্ত্রাসিরা মেরে যখন পৃষ্ঠা উল্টে দেয়, তখন সতের কোটি কই থাকে? বলছেন বিচারের আওতায় আনতে কিন্তু এদিক ঢুকে ওদিক বেড়িয়ে যাবে৷ এই বিচার প্রথা আওয়ামীর জানা কারণ তারা এই বিচার ব্যবস্থার ধারক বাহক, বাহক অন্য দলেরাও৷ হয়তো সামনে আওয়ামীর অন্ধকার বলে সুঁচ যাতে ফাল না হয় সে কারণে একেবারে শেষ করলো এমনোত হতে পারে, হতে পারে এটা অন্য দলের কাজ কিংবা আইনের কোন অফিসারের বাঁচার রাস্তা কিংবা নেতার যতক্ষণ না সঠিক তদন্ত হবে৷ রামু সহিংসতায় ভিক্ষু সংঘপ্রিয় বলেছিলো আমরা জানি কে কি করেছে, ভোটে তার জবাব দিবো৷ মন্দির উঠলো তারপরও যখন অনিশ্চিত তখন রোহিঙ্গার প্রবেশ৷ মাদকের তীর যখন বদির দিকে সে সৌদি গেল হজ্ব করতে, একদিকে একরামুলের পরিবারের হাহাকার অন্যদিকে একই গন্ডির বদির সৌদি হতে ফটো খিচানি৷ যোগ বিয়োগ গুন ভাগ সব অসমান্তরাল৷ আমার কিছু হলে আমার বোনের জামাই মামাত খালাত আত্মীয়দের ভাবছেন কোন প্যারা নেই? এমন ভাবার কারণ নেই৷

একরামুলের বিরুদ্ধে অনেক আগের মাদকের মামলা ছিলো, সেরকম না জানা অনেক সন্তানের হাহাকার কি নেই? নেতা এমনি এমনি বনেত যায়নি, খুনো এমনি এমনি হয়নি, শুধু মাদকের নামে চালানো মাত্র৷ বাংলাদেশের বড় বড় নেতার আগের ইতিহাস খোঁজ করলে দেখবেন এক সময়ের ডাকাত অন্য সময়ের এক বাক শক্তিধর নেতা৷ হাজী আলহাজ্ব সমাজসেবী গরিবের বন্ধু এসব লাগানো মাত্র৷ ব্যবধান আগে নিজের এলাকা সহ আশ পাশের এলাকা ডাকাতি করত, পরে সমগ্র বাংলাদেশের সাধারণের টাকা ডাকাতি করে, চুরি করে৷

আমি যেমন একরামুল হত্যার অডিও শুনে অবাক হইনি তেমনি অবাক হইনি এই নিয়ে রাজনীতি করতে দেখে৷ এটা নতুন নয়৷ একরামুলরা নিরীহ মারার সময় চুপ থাকে, ক্ষমতার জন্য দলের পক্ষে সাফাই গায়, ধর্মের নামে খ্যাতির নামে হাজারো পরিবারের সন্তানের জল ঝরায়, ঝরিয়ে পশ্রয় দেয় আর নিজের গর্ত খঁুড়ে৷ যখন আজাদ অভিজিতরা মরে তখন লাশকেই ছি ছি করে, ভালো হলো বলে সুনাম জপে৷ তো তাদের লাশের ব্যবস্থাতো তারাই করলো নাকি!?

শুনলাম শাহবাগে প্রতিবাদ মিছিল হবে৷ শুনে খুশি হলাম একটা অডিও নাড়া দিয়েছে আবার৷ সে রকম অসংখ্য ডাক হবার কথা ধর্ষিতার বেলায়, ধর্ষণ করে হত্যার বেলায়৷ কিন্তু আপসোস! হয় না৷ প্রতিবাদ না হলে বুঝি দেশে প্রতিবাদে ভয়, বার বার না হলে বুঝি আমরা প্রত্যক্ষ পরোক্ষ সবাই ধর্ষক, খুনিও৷ আদালত বলুন আর আইন সেটা যখন টাকা আর ক্ষমতার হাতে তখন ক্রসফায়ার হলেও কি, আদালতে গেলেও কি? যাকে মারার মারবে শুধু দু একটা নেতা বাকীগুলো সাধারণ নিরীহ৷ বড় বড় দাঁতাল হাঙর থাকবে গভীর সমুদ্রে ধরা ছোঁয়ার বাইরে৷ সাধারণ মাছ গিলবে মাঝে একটা বড় মাছ৷ মন্ত্রীদের কথা ঠিকই আছে, একটা দুটো মরবে তবে তা অপরাধী, বাকীগুলো নিরীহ৷ কথাটা একটু উল্টো আরকি!!

রাষ্ট্রের জন্য অশনি সংকেত বলা পত্রিকার রিপোর্টার বোধয় আগে স্বর্গে ছিলো৷ তা না হলে একরামুল হত্যার পর অশনি দেখে কেনো? ব্লগার আর নিরীহ মানুষ, বিধর্মী হত্যা গুম, লুট, ধর্ষণ, ধর্ষণ করে মেরে ফেলার সময় তারা দেশে কি ছিলেন না? নাকি ঐ লাশের পরিবার নেই বা তাদের কান্নার ধরণে কষ্ট ছিলোনা? আজ হঠাত অবাক হয়ে আকাশ থেকে পড়লো মনে হয়? এটাতো নতুন কিছু নয়৷ গর্ত খুঁড়তে খুঁঁড়তে পা পিচলে পড়া মাত্র৷ অশনির ঘন্টাতো আগেই বেজে গেছে৷ এটাতো সংস্কার বলা যায়, চলছিলো..... তো চলছে৷

বিভাগ: 

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

কাঙালী ফকির চাষী
কাঙালী ফকির চাষী এর ছবি
Offline
Last seen: 3 দিন 11 ঘন্টা ago
Joined: শুক্রবার, ডিসেম্বর 29, 2017 - 2:02পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর