নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মাহের ইসলাম
  • ড. লজিক্যাল বাঙালি
  • নুর নবী দুলাল
  • প্রত্যয় প্রকাশ
  • কাঙালী ফকির চাষী

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

স্পিনোজাকে সমাজ থেকে বহিষ্কার



বাইরের জগত থেকে নিজিকে গুটিয়ে নেয়া এবং অন্তর্জগতে ক্ষুব্ধ ১৬৩২ সালে জন্ম নেয়া একজন যুবকের পূর্বাপর মানসিক অবস্থা মোটামুটি এগুলোই ছিল যাকে ১৬৫৬ সিনেগগ একবার ধর্মদ্রোহিতা এবং ঈশ্বরকে কটুক্তির অভিযোগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করেছিল। সিনেগগের রাবাই জিজ্ঞাসা করলেন, স্পিনোজা, এটা কি সত্যিই, তুমি নাকি তোমার বন্ধুদের বলে বেড়াচ্ছো সমস্ত পৃথিবীটাই ঈশ্বরের মস্তবড় শরীর যা নাকি এই জগতের পদার্থ দিয়েই তৈরি? ফেরেশতারা নাকি বিভ্রান্ত কল্পনা মাত্র? আর আত্মা নাকি শুধুই জীবন এবং ওল্ড টেস্টামেন্টে নাকি অমরতার বিষয়ে কিছুই বলা হয় নি?

স্পিনোজা কী উত্তর দিয়েছিলেন জানি না কিন্তু এটা জানি সিনেগগ স্পিনোজাকে প্রস্তাব দিয়েছিল স্পিনোজা যদি সিনেগগের প্রতি নিদেনপক্ষে লোক দেখানো হলেও আনুগত্য স্বীকার এবং তার পৈত্রিক ধর্মবিশ্বাস মেনে চলে তাহলে তাকে বছরে ৫০০ ডলার বৃত্তি দেয়া হবে। কিন্তু স্পিনোজা এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন। ঠিক সেই ১৬৫৬ সালের ২৭ জুলাই তারিখেই তখনকার ইহুদিরা গভীর বেদনা নিয়ে স্পিনোজার সাথে সব ধরণের সামাজিক সম্পর্ক ছিন্ন করে এবং ব্যথিতচিত্তে হিব্রু রীতিনীতি থেকে বহিষ্কার করে। চিৎকার করে কর্কশ কণ্ঠে দীর্ঘ সময় ধরে স্পিনোজাকে অভিশাপ দিয়ে যে লেখাটা তাকে পড়ে শোনানো হয় তখন ক্ষণে ক্ষণে প্রতিধ্বনিত হতে লাগল। সিনেগগে উৎসবের শুরুতে দেখা যাচ্ছিল উজ্জ্বল বাতি, জ্বলছিল জ্বলজ্বল করে, অভিশাপ ঘোষণার সাথে সাথে নিভিয়ে দেয়া হলো একটা করে বাতি যতক্ষণ না পর্যন্ত শেষ বাতিটা নিভে যায়। ইহুদিধর্ম এবং হিব্রু সংস্কৃতি থেকে বহিষ্কারের ফলে প্রাতিষ্ঠানিকভাবেই বিলুপ্ত হয়ে গেল স্পিনোজার ধর্মীয় জীবন। তখন সিনেগগের সভাসদগণ নীরবে নিরেট অন্ধকারে স্থান ত্যাগ করলেন।

কী প্রক্রিয়ায় সিনেগগ স্পিনোজাকে সমাজচ্যুত করে ভ্যান ভ্লোটেন তার বিশদ ধারণা দেনঃ
সিনেগগের রাবাই পর্ষদ শয়তানের ইচ্ছার কথা এবং বারুখ ডি স্পিনোজার কৃতকর্ম সুনিশ্চিতভাবে জেনেই বিভিন্ন উপায়ে চেষ্টা করেছেন তাকে খারাপ কাজ থেকে বিরত করতে এবং শয়তানের কবল থেকে ফিরিয়ে আনতে অনেক প্রলোভন দিয়েছেন। কিন্তু যেহেতু রাবাই পর্ষদ কোনাভাবেই তাকে সুপথে আনতে পারল না, উপরন্তু তারা প্রতিদিন ধর্মদ্রোহিতার আরো ধারালো যুক্তির সম্মুখীন হতে লাগল যেন স্পিনোজার থেকে অব্যাহতি পেলেই বাঁচে। তার ঔদ্ধত্যের কারণেই ধর্মদ্রোহিতা প্রচার পাচ্ছে এবং চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ছে। স্পিনোজার উপস্থিতিতেই অনেক মানুষ উৎসাহ নিয়ে স্পিনোজার বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেয় যে তাদের সামনেই স্পিনোজা ধর্মদ্রোহিতার কথা বলেছে। ধর্মদ্রোহিতার অভিযোগে স্পিনোজাকে গ্রেফতার করা হয়। রাবাই পর্ষদ প্রধানের সামনে স্পিনোজার বিরুদ্ধে আনিত বিস্তারিত অভিযোগ উপস্থাপন করা হলো। রাবাই পর্ষদ স্থির সিদ্ধান্তে উপনীত হন যে, স্পিনোজার কথা হলো শয়তানের জবানবন্দী এবং ইজরায়েলের মানুষের সাথে তার সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করা হলো এবং আজ থেকে সে অভিশপ্ত স্থানে বাস করবে অভিশাপের বোঝা নিয়ে।

ফেরেশতাদের বিচার এবং রাবাইদের সাব্যস্ত সাজা অনুযায়ী আমরা এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি যে গভীর বিরক্তি এবং হতাশা নিয়ে অভিশাপ দিচ্ছি এবং বারুখ ডি স্পিনোজাকে সমাজ থেকে বহিষ্কার করছি। এই সমগ্র পবিত্র ইহুদি সম্প্রদায়ের সম্মতিতে এবং ছয়শত তেরটি লিখিত জীবনাচরণের বিধি সংবলিত পবিত্রগ্রন্থের উপস্থিতিতে স্পিনোজাকে অভিশাপ দিচ্ছি ঠিক যেভাবে এলিশা বিদ্রুপকারী বালকদেরকে অভিসম্পাত করেছিলেন। বিধির বিধানে যত অভিসম্পাত আছে সব বর্ষিত হোক তার উপর। স্পিনোজার সারাদিন অভিশপ্ত হোক, অভিশপ্ত হোক সে রাতভর, অভিশাপে জর্জরিত হোক সে ঘুমের মধ্যে, অভিশপ্ত হোক সে দিনের শুরুতে, অভিশপ্ত হোক সে বাইরে প্রতিটি পদক্ষেপে, অভিশপ্ত হোক সে বাড়িতে ফিরে। প্রভু ঈশ্বর নিশ্চয় তার প্রতি আর ক্ষমাশীল হবেন না এবং তাকে স্বীকৃতও দেবেন না। এই মুহুর্ত থেকে ঈশ্বরের রাগে এবং ক্ষোভে স্পিনোজা জ্বলেপুড়ে বিনাশ হয়ে যাক। বিধানে লেখা আছে যত অভিশাপ নিরবধি বর্ষিত হোক তার উপর এবং পৃথিবী থেকে তার নাম নিশানা মুছে যাক। আমাদের সদাপ্রভু ত্রাণকর্তা যেন শয়তানের কবল তাকে রক্ষা করেন এবং ইজরায়েলের সমস্ত গোত্রকে। ঈশ্বরের বিরুদ্ধাচরণ করার জন্য স্বর্গে রক্ষিত শাস্ত্রের বিধানানুসারে তার পাপ পরিমাপ করা হোক এবং এখানে তোমরা যারা প্রভু ঈশ্বরের অনুগত তারা সবাই আজকে নিরাপদ।

তখন সিনেগগে উপস্থিত সবাইকে এই মর্মে সাবধান করে দেয় যে, কেউ যেন স্পিনোজার সাথে মৌখিক বাক্যালাপ না করতে পারে, এমনকি কেউ তার সাথে লিখিত যোগাযোগ রাখতে পারবে না, কেউ তাকে কোন সামাজিক সেবা ও সুযোগ দেবে না, কেউ তার সাথে একই ছাদের নিচে বসবাস করতে পারবে না, তার শরীরের চারপাশে চার কিউবিট বা ছয় ফুটের ধারেকাছে কেউ ঘেঁষতে পারবে না। সে মুখে বললে অন্য কেউ তার কথা লিখেও দিতে পারবে না এবং সে নিজের হাতে কিছু লিখতেও পারবে না।

সিনেগগের গুরুস্থানীয়গণ যে মুখরোচক পরিস্থিতির সম্মুখীন হলেন তার জন্য আমরা যেন অতিদ্রুত তাদেরকে বিচার করে না ফেলি। নিশ্চিতভাবেই বলা যায় বিচারকগণ স্বধর্মের বিরুদ্ধাচরণ করার অভিযোগে স্পিনোজার বিচার করতে গিয়ে নিজেদেরকে বিচারকের আসনে বসিয়ে স্বস্তিতে ছিলেন না। কারণ ঠিক একই অভিযোগে তাদেরকে স্পেন থেকে নির্বাসনে পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু তারা হল্যান্ডের আতিথেয়তার প্রতি কৃতজ্ঞতাবোধে স্পিনোজাকে সমাজ থেকে বহিষ্কার করলেন কারন বিচারকগণ মনে করলেন সে খ্রিস্টান ধর্মের রীতিনীতিকে আঘাত করেছে এবং খ্রিস্টান ধর্মকে আঘাত করে সে আসলে ইহুদিধর্মকেই আহত করেছে। ক্রিস্টান প্রোটেস্ট্যান্ট তখন বর্তমানের মত উদার এবং দার্শনিক বান্ধব হয়ে ওঠেনি। ধর্মযুদ্ধ প্রতিটি গোষ্ঠীকে দলে উপদলে বিভক্ত করে চিরতরে যুদ্ধের পরিখার মধ্যে বসিয়ে দিয়েছে, যুদ্ধ মিশে গেছে ধর্মের রীতির সাথে নিবিড়ভাবে। ধার্মিকদের রক্ত ঝরানো প্রতিরক্ষায় ধর্ম আজ ফুলে ফলে পল্লবিত শাখায় শাখায়। ডাচ সরকার যখন ইহুদি সম্প্রদায়ের কাছে প্রশ্ন করবে খ্রিস্টান সহনশীলতা আর সুরক্ষার প্রতিদানে এই কী পুরষ্কার, এক প্রজন্ম আগে ইউরিয়েল একোস্টা এবং তারপরেই স্পিনোজার তিরস্কার? তদুপরি বয়োঃজ্যেষ্ঠরা সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত নিয়েছে আমস্টারডামে ইহুদিদের ছোট্টদলকে তারা সর্বান্তকরণে একত্রিত রাখবে, বিভক্তির হাত থেকে রক্ষা করবে এবং সর্বোপরি নিজেদের মাঝে একতা বজায় রাখবে। এভাবেই চলছিল সারাবিশ্বে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ইহুদিদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার লড়াই। যদি তাদের নিজেদের রাজ্য থাকত, থাকত যদি তাদের নিজস্ব বিচারিক আইন, থাকত যদি তাদের নিজস্ব ধর্মনিরেপেক্ষ শক্তি ও সামর্থ, থাকত যদি নিজেদের বিচার ব্যবস্থা ও কাঠামো, থাকত যদি তাদের নিজেদের আত্মসংহতি আর বহির্বিশ্বের কাছে স্বতন্ত্র সম্মান তাহলে হয়ত তারা আরো সহনশীল হতে পারত। কিন্তু ইহুদিদের কাছে ধর্মই তাদের দেশপ্রেম এবং একইসাথে বিশ্বাস। সিনেগগ তাদের কাছে সামাজিক এবং রাজনৈতিক মিলনস্থান একইসাথে ধর্মীয় সংস্কৃতি চর্চা ও উপাসনালয়। এমতাবস্থায় বাইবেলের যথার্থতা নিয়ে প্রশ্ন করে স্পিনোজা চিরপরিযায়ী, ভাগ্যবিড়ম্বিত ইহুদিদের প্রত্যাশিত পিতৃভূমিতে আঘাত করেছে। এরকম পরিস্থিতিতে স্পিনোজার এহেন দুষ্কর্মকে সিনেগগের সাধুরা মনে করলেন স্বজাতির সাথে বিশ্বাসঘাতকতা এবং খ্রিস্টানদের সহনশীলতাকে আঘাত করার মানে হলো আত্মহত্যার নামান্তর।

কারো হয়ত সাহসীকতার সাথে ঝুঁকি নেয়া উচিৎ ছিল, চিন্তা করা উচিৎ ছিল। কিন্তু একজন মানুষের পক্ষে অন্য একজন মানুষকে সঠিকভাবে মুল্যায়ন করা অতি দুরূহ কাজ। কাজটি এমন যেন নিজেকে অন্যের অবস্থায় বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া। সম্ভবত আমস্টারডামের সমস্ত ইহুদি সম্প্রদায়ের ধর্মীয় নেতা মেনাশেহ বেন ইজরায়েল সিনেগগ এবং বহিষ্কৃত দার্শনিকের মধ্যে পারস্পারিক শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের জন্য একটা বন্ধুত্বপূর্ণ উপায় খুঁজে বের করেছিলেন। ঠিক সেই সময়ে ইহুদিদের জন্য ইংল্যান্ডের দরজা খুলে দিতে ইংল্যান্ডের সামরিক অধিকর্তা এবং রাজনৈতিক নেতা অলিভার ক্রমওয়েলের কাছে সুপারিশ করতে গ্রেট রাবাই তখন ছিলেন লন্ডনে। ভবিতব্যে হয়ত এটাই নির্ধারিত ছিল স্পিনোজা সমগ্র পৃথিবীর অধিকারে চলে যাবেন।

[ উইল ডুরান্টের 'স্টোরি অফ ফিলোসফি' বইয়ের স্পিনোজা অধ্যায়ের ধারাবাহিক অনুবাদ। আজ প্রকাশিত হলো "স্পিনোজাকে সমাজ থেকে বহিষ্কার" ]

বিভাগ: 

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

লুসিফেরাস কাফের
লুসিফেরাস কাফের এর ছবি
Offline
Last seen: 4 ঘন্টা 57 min ago
Joined: সোমবার, জুন 27, 2016 - 9:59অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর