নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মাহের ইসলাম
  • ড. লজিক্যাল বাঙালি
  • নুর নবী দুলাল
  • প্রত্যয় প্রকাশ
  • কাঙালী ফকির চাষী

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

একজন শিক্ষককে মাথায় মল ঢেলে লাঞ্চনা৷


জানি ধর্মপন্থীগণ ছিঃ ছিঃ আর বিধর্মী কিংবা ধর্মহীনরা অনেকেই মনে মনে খুশি হয়েছেন আর কারণ খুঁজছেন৷ আমার কাছে শ্যামল কান্তি যেমন শিক্ষক তেমনি এই মাদ্রাসার শিক্ষকও৷ আমরা আগেও যেমন শ্যামল কান্তির পক্ষে ছিলাম এখনও তাই আছি শুধু রথ বদল হলো ধর্মান্ধদের৷ তারা তখন বিপক্ষে ছিলো বলে এই নয় আমরা তাদের মত মাথায় গোবর নিয়ে চলবো৷ এটাও হতে পারে একটি শিক্ষা৷ যেমন সেদিন আমাদের খারাপ লাগা দেখে তাদের আনন্দ হয়েছিলো, আজ আমরা তাদের মন্দ লাগাতে সাথি হলাম৷

হ্যাঁ ৯৯.৯৯ ভাগ হুজুরই খারাপ, কেউ স্বীকার করুক আর না করুক তবে সবাই জানে হুজুররা কেমন! এইসব ধর্মীয় গুরু এমন হবার পেছনে যেমন মানুষের ভক্তি নামক ন্যাকামোর পশ্রয় তেমনি সাধারণ নষ্ট হবার পেছনে থাকে এই ধর্মীয় গুরুদের হাত৷ মানুষ মানুষকে দাম দেয়না, দেয় দাড়ি টুপি পৈতা পাঞ্জাবী, গেরুয়া বস্ত্র, সাদা বস্ত্রকে যেভাবে নারীকেও কাপড়ে মূল্যায়ন করে শ্রেষ্ঠ নোংরামী করার মনকে পশ্রয় দেয়৷ লজ্জা সম্মান পোষাকে বলা মানুষ কিভাবে জ্ঞানী হয় বুঝিনা ! যেখানে মানুষের চেয়ে পোষাকের মূল্য বেশি সেখানে লোভের কাছে মানুষ তুচ্ছ এটাই স্বাবাবিক৷

কোন সাম্প্রদায়িক প্রতিষ্ঠানই আমার পছন্দ নয় কারণ এতে সাম্প্রদায়িক চেতনা বাড়ে আর ঘটে সাম্প্রদায়িক হামলার মত দূর্ঘটনা৷ আমি বিশ্বাস করি মানুষ মানুষের জন্য, আমি বিশ্বাস করিনা সম্প্রদায় সম্প্রদায়ের জন্য বা ধর্ম যার যার সম্প্রীতি সবার৷ আমাকে প্রায়ই বলতে শুনিা- আপনি কোন আঘাত পেয়েছেন তাই ধর্ম হারা হয়েছেন, ধর্ম ছেড়েছেন৷ এটা একদমই মূর্খামীর প্রশ্ন৷ আঘাত আমি পাইনা, বরং আমি আঘাত হতে সরতে আগামিকে সতর্ক করছি৷ আঘাত আমি পাইনা, আঘাত পায় ধর্ম সম্প্রদায়গণ৷ এই যে তারা আজ মাথায় মল ঢালছে বলে আঘাত পাচ্ছে, মূর্তি ভাঙলে পাচ্ছে, একজন আরেকজনকে ফাঁসিয়ে দিচ্ছে তাদেরই ধর্মীয় স্তম্ভের উপর ছবি বানিয়ে৷ যা নয় তা ভাবছে আর ফাঁসাচ্ছে, কেউ সত্য বললে আঘাত পাচ্ছে, ধর্মকে কঠিন বলছে আবার একটু বাতাসেই অনুভূতি নড়বড় হচ্ছে৷ ধর্মীয় গুরুদের সম্মান করছে আর ধর্ষণে ধার্মিক ভুগছে৷ হ্যাঁ আমরা আঘাত পাই, আর সেটা কোন মাটির মূর্তি ভাঙলে নয়, মানুষ ভাঙলে৷ সেটা কোন ধর্মকে অবহেলায় নয়, মানুষকে অবহেলা করলে, পোষাকের নামে জ্ঞান মগজকে অবহেলা করলে, তুচ্ছ করলে, হত্যা করলে৷ ধর্মকে আমি ছাড়িনি, ধর্ম আমি মানুষকে হত্যা করে আমাকে ছেড়ে দিয়েছে নিজেরা বড় হয়ে৷

দেখলাম মা দিবস উপলক্ষ্যে বিকল্প ধারার এক রাজনীতিবিদ পোষ্ট দিয়েছেন- ছেলের উপার্জনের ১৫% যেন মা বাবার ফান্ডে যায় সে আইন করা দরকার৷ হাজারো কমেন্টে মগজ খুঁজে পাচ্ছিলাম না৷ সবাই বলছে ধর্মীয় শিক্ষা বাড়াতে হবে৷ আর কত বাড়ালে মনে হবে পুরো বাংলাদেশ মসজিদ মাদ্রাসা!? উনি বেরিস্টার সত্য কিন্তু প্রস্তাব পুরুষ তান্ত্রীক৷ উনি ভুল করেও বলেননি সন্তান৷ কারণ সন্তান হলে পুরুষ নারী দুটোই হয় আর নারী যদি চাকরী করে, উপার্জন করে, তাদের ঘরে দাসী হবে কে? মা দিবসে নাম মাত্র মা আর সম্মান তাও করুণার৷

স্বশিক্ষা না হলে প্রতিষ্ঠান দিয়ে ব্যবসা ছাড়া কিছু হবে না, না জ্ঞান না নৈতিকতার প্রসার৷ বরং অবক্ষয় হবে৷ কাজী নজরুল মক্তবের শিক্ষক হয়েও স্বশিক্ষিত বলেই বের হয়েছেন, বের হয়ে পেয়েছেন নাস্তিক উপাধী৷ যাই হোক জমি দখল নতুন নয়, এক সময়হয়েও রাস্তা বানাতে মসজিদ পড়লেবানাতে তা না উঠালেও মন্দির তুলতে সমস্যা হতো না, তাতে ধার্মিক মারত, ধার্মিকের মনই মরত৷ সম্প্রদায়ের মধ্যে যে দূর্বলতা, তার ঘর বাড়ি হারিয়েছে হারাচ্ছে৷ না পেলে নিজেরা নিজেদের দখল করবে এটাই স্বাভাবিক৷ শয়তান নাই তবু ঢিল মারে অন্ধকারে, অভ্যাসটা কিন্তু যায়না৷

আমরা পারি খুশি হতে কারণ আমাদের নিয়ে তাদের হিংসা কালের পর কাল৷ শ্যামল কান্তির বেলায় বিচার করা হয়নি আজ যারা করেছে তাদের আটক করেছে৷ এটার নিন্দার ধরুন আমরা খুশি হতে পারতাম এখন কেমন লাগছে বলে! কিন্তু পারছিনা কারণ আমরা মানুষকে মূল্যায়ণ করি৷ সে মন্দিরের ব্রাহ্মণ নাকি ভিক্ষু, নাকি মসজিদের হুজুর কিংবা গীর্জার পাদ্রী তা আমাদের বিষয় নয়, আমাদের বিষয় মানুষকে মূল্যায়ন৷ শ্যামল কান্তি হোক বা এই আজকের লাঞ্চিত মাদ্রাসার শিক্ষক, আমরা শিক্ষাগুরুর প্রতি অন্যায়ের বিরোধী আজ ও আগামীর৷ বলবো না হে প্রভূ জ্ঞান দাও, সেই প্রভূ দিতে পারলে কথাই ছিলোনা, এমন ঘটনার ও জন্ম হত না, শুধু বলবো এবার তোরা মানুষ হ.........

Comments

নুর নবী দুলাল এর ছবি
 

এই কাজ যদি আজ কোন নাস্তিক বা ভিন্ন ধর্মের কেউ করত তাহলে বায়তুল মোকারমের সামনে মোল্লা ও ধার্মিকদের ইসলামী বিপ্লব শুরু হয়ে যেত।

 
কাঙালী ফকির চাষী এর ছবি
 

হ্যাঁ মিথ্যে না, শুধু বিপ্লব নয় হয়তো মেরেই ফেলত৷

Kangaly Fokir Chasii

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

কাঙালী ফকির চাষী
কাঙালী ফকির চাষী এর ছবি
Online
Last seen: 1 ঘন্টা 27 min ago
Joined: শুক্রবার, ডিসেম্বর 29, 2017 - 2:02পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর