নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 2 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • মিশু মিলন

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

একজন মুসলিম সন্তানকে জীবনের শুরু থেকেই ধর্মটাকে শেখানো হয়।


একজন মুসলিম সন্তানকে জীবনের শুরু থেকে শেখানো হয় বিশ্বাস করতে, যুক্তি ও বিবেক-বুদ্ধি ব্যবহার করতে নয়।শেখানো হয় ইসলামের নামে যা কিছু বিশ্বাস করতে শেখানো হয় তা তাকে দৃড় ভাবে বিশ্বাস করতে হবে, তা নিয়ে কোন প্রশ্ন তো দূরের কথা তার সত্যতা নিয়ে মনের মধ্যে বিন্দুমাত্র সন্দেহ আনলেও তার ঈমান থাকবেনা।যে যত বেশি বিশ্বাস করতে পারল তার ঈমান তত বেশি পাকা।অতএব মুসলমান থাকতে হলে বিশ্বাসকে জোর করে আটকে রাখতে হবে।
এরপরও মানবরচিত কুরআনের মানবোচিত দূর্বলতা যে সকল ক্ষেত্রে প্রকাশ পেয়ে যায় এবং যখন আর এ বিশ্বাসবাদীরা লাজওয়াব হয়ে যায় তখন বলে যে এ সকল খটকাদ্বায়ক বিষয় এড়িয়ে চলা উচিত। এর অর্থ কি দাড়াল? যেখানেই ধরা খাচ্ছে সে বিষয়টিকে খটকাদ্বায়ক শিরোনামে আটকিয়ে বাকি বিষয়গুলো নিয়ে নিজ মনে আত্মতৃপ্তিতে ভুগতে থাকে।
আপনি যখন উক্ত মিথ্যা দ্বারা বিভ্রান্ত হওয়া লোকদের উদ্ধারে এগিয়ে আসেন এবং যুক্তি দিয়ে মিথ্যার গোমর ফাস করেন তখন মিথ্যা দ্বারা চরমভাবে আক্রান্ত কিছু ব্যক্তি এবং উক্ত ধর্ম যাদের অর্থোপার্জনের মূলমাধ্যম তারা হৈ চৈ শুরু করে যাতে করে আপনি সত্যে প্রকাশ করতে না পারেন।
ধরুন,আপনি কুরআন মানব রচিত ধর্ম তার প্রমান আপনি দিবেন এবং ইসলাম মানবতার জন্য কি কি ক্ষতি করছে তা থেকে মানুষকে সচেতন করবেন এজন্য একটি জনসমাবেশ বা সম্মেলন আয়োজনের ঘোষনা দিলেন-এরপর লক্ষ্য করুর প্রতিক্রিয়া।
যেহেতু আপনার কথা যুক্তি দ্বারা মোকাবেলা করার শক্তি তাদের নেই এবং তারাও পুরোনিশ্চিত যে কুরআনের চ্যালেঞ্জ প্রকাশ্য গ্রহণ করতে দিলে তাদের সব গোমর ফাক হয়ে যাবে এবং সত্য প্রকাশিত হবে, অতএব এটাকে যেভাবেই হোক বন্ধ করতে হবে। এক্ষেত্রে তারা যে কৌশল অবলম্বন করে তা হল নিম্নরুপ:
১. কাফের-মুরতাদদের ঠাই নেই, ফাসি চাই দিতে হবে।
২. পবিত্র ধর্মের অবমাননা সহ্য করা হবে না (প্রকৃতপক্ষে এটাঅবমাননা ছিলনা, সত্য মিথ্যা পার্থক্য করার জন্য কুরআনের সত্যতার চ্যলেঞ্জ গ্রহণ মাত্র)
৩. ধর্মানুভূতিতে আঘাত সহ্য করা হবে না (আর্থ্যাৎ আপনি যদি ভূল কিছুও শিখে থাকেন, তার শ্রেষ্ঠত্বই শুধু গাইতে হবে, অন্যাথায় ধর্মানুভূতিতে আঘাত লাগবে)
৪. যিনি কুরআনের চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করলেন তাতে বিভিন্নভাবে ব্যক্তিগত আক্রমন করে তার ইমেইজকে জনসমাজের কাছে খাটো করবে।
৫. সাধারণ লোকদের এর পিছনে লেলিয়ে দিয়ে ধর্মীয় হট্টগোল তৈরি করবে।
লক্ষ্য করুন, কুরআন মানব রচিত কিতাব তা প্রমান করতে কাউকে এগিয়ে আসতে দেবে না। অথচ তারা যখন বক্তব্য দেয় বা বই লেখে তখন বড় গলায় বলে যে ১৪০০ বছরেও কেউ কুরআনের ভূল ধরতে পারেনি।বিষয়টি এমন যে আমি আবোল-তাবোলে বিশ্বাস করলাম এবং যে ব্যক্তি তা আঙ্গুলি নির্দেশ করতে গেল আমি তার গলা টিপে চুপ করিয়ে দিলাম। এরপর বললাম দেখ আমার বাণী কত মহান যে কেউ এর ভূল ধরতে পারে না।

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

রবিউল আলম ডিলার
রবিউল আলম ডিলার এর ছবি
Offline
Last seen: 1 week 2 দিন ago
Joined: বুধবার, এপ্রিল 25, 2018 - 1:32পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর