নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 6 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • লুসিফেরাস কাফের
  • কাঙালী ফকির চাষী
  • সুখ নাই
  • কাঠমোল্লা
  • মিশু মিলন
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী

নতুন যাত্রী

  • সামসুল আলম
  • এস. এম. মাহবুব হোসেন
  • ইকরামুজ্জামান
  • রবিউল আলম ডিলার
  • জহুরুল হক
  • নীল দীপ
  • ইব্রাহীম
  • তারেক মোরশেদ
  • বাঙলা ভাষা
  • সন্দীপন বিশ্বাস জিতু

আপনি এখানে

কুরআন অনলি রেফারেন্স: (২১) মুহাম্মদ এর আল্লাহর বৈশিষ্ট্য - তিন


ইসলাম নামক মতবাদের একান্ত প্রাথমিক ও অত্যাবশ্যকীয় শর্ত হলো "বিশ্বাস (ইমান)!" মুহাম্মদ ও তার আল্লাহর প্রতি বিশ্বাস। ইসলামের এই প্রাথমিক ও অত্যাবশ্যকীয় সংজ্ঞা অনুযায়ী যে-ব্যক্তি বা জনগোষ্ঠী স্বঘোষিত আখেরি নবী হযরত মুহাম্মদের (সাঃ) ও তার প্রচারিত বাণী ও মতবাদে বিশ্বাসী নয়, তাঁরাই বিপথগামী, লাঞ্ছিত, পথভ্রষ্ট এবং অনন্ত শাস্তির যোগ্য। মুহাম্মদ তার স্ব-রচিত ব্যক্তি-মানস জীবনীগ্রন্থ (Psycho-biography) কুরআনে অত্যন্ত দ্ব্যর্থ-হীন ভাষায় অসংখ্যবার বিভিন্নভাবে তা ঘোষণা করেছেন ।

মুহাম্মদের ভাষায় তার অল্প কিছু উদাহরণ: [1] [2]

৬:১৫৭ (সূরা আল আন-আম) - "অত:পর সে ব্যক্তির চাইতে অধিক অনাচারী কে হবে, যে আল্লাহ্র আয়াত সমূহকে মিথ্যা বলে এবং গা বাঁচিয়ে চলে। অতি সত্ত্বর আমি তাদেরকে শাস্তি দেব।"

৭:৩৬ (সূরা আল আ’রাফ) - "যারা আমার আয়াতসমূহকে মিথ্যা বলবে-- তারাই দোযখী এবং তথায় চিরকাল থাকবে।"

৭:৪০-৭:৪১ - "নিশ্চয়ই যারা আমার আয়াতসমূহকে মিথ্যা বলেছে এবং এগুলো থেকে অহংকার করেছে --আমি এমনিভাবে পাপীদেরকে শাস্তি প্রদান করি। তাদের জন্যে নরকাগ্নির শয্যা রয়েছে এবং উপর থেকে চাদর। আমি এমনিভাবে জালেমদেরকে শাস্তি প্রদান করি।"

৭:১৪৭ - "বস্তুত: যারা মিথ্যা জেনেছে আমার আয়াতসমূকে এবং আখেরাতের সাক্ষাতকে, তাদের যাবতীয় কাজকর্ম ধ্বংস হয়ে গেছে।"

৭:১৮২-১৮৩ - "বস্তুত: যারা মিথ্যা প্রতিপন্ন করেছে আমার আয়াতসমূহকে, আমি তাদেরকে ক্রমান্ময়ে পাকড়াও করব এমন জায়গা থেকে, যার সম্পর্কে তাদের ধারণাও হবে না। বস্তুতঃ আমি তাদেরকে ঢিল দিয়ে থাকি। নিঃসন্দেহে আমার কৌশল সুনিপুণ।"

৯০:১৯-২০ (সূরা আল বালাদ)- "আর যারা আমার আয়াতসমূহ অস্বীকার করে তারাই হতভাগা। তারা অগ্নিপরিবেষ্টিত অবস্থায় বন্দী থাকবে।"

৩৪:৫ (সূরা সাবা)- "আর যারা আমার আয়াত সমূহকে ব্যর্থ করার জন্য উঠে পড়ে লেগে যায়, তাদের জন্যে রয়েছে যন্ত্রনাদায়ক শাস্তি।"

৩:৪ (সূরা আল ইমরান) -"নি:সন্দেহে যারা আল্লাহর আয়াতসমূহ অস্বীকার করে, তাদের জন্যে রয়েছে কঠিন আযাব। আর আল্লাহ হচ্ছেন পরাক্রমশীল, প্রতিশোধ গ্রহণকারী।"

৬৪:১০ (সূরা আত-তাগাবুন) - "আর যারা কাফের এবং আমার আয়াতসমূহকে মিথ্যা বলে, তারাই জাহান্নামের অধিবাসী, তারা তথায় অনন্তকাল থাকবে। কতই না মন্দ প্রত্যাবর্তনস্থল এটা।"

>>> কুরআনের ওপরে বর্ণিত বর্ণনায় যা সুস্পষ্ট তা হলো, মুহাম্মদের প্রচারিত মতবাদে অবিশ্বাসী প্রতিটি মানুষই গুনাহগার, পথভ্রষ্ট ও অনন্ত শাস্তির যোগ্য! কারণ, তাঁরা কাফির। এই কাফিরদের উদ্দেশে বর্ণিত মুহাম্মদের অসংখ্য অমানবিক বাণী, হুমকি-শাসানী-ভীতি-অসম্মান, দোষারোপ, প্রতিহিংসা ও বীভৎস শাস্তির বর্ণনা কুরআনের পাতায় পাতায় বর্ণিত আছে। মক্কা ও হিজরত (সেপ্টেম্বর ২৪, ৬২২ সাল) পরবর্তী প্রাথমিক মদিনা সময়ে মুহাম্মদের এ সকল হুমকি-শাসানী-ভীতি-তাচ্ছিল্য ছিল পরোক্ষ! কারণ, সেই মুহূর্তে মুহাম্মদ ও তার অনুসারীরা ছিলেন দুর্বল। সঙ্গত কারণেই শুধু দু'-একটি বাণী ছাড়া (যেমন, ৭২:২৩) সে মুহূর্তে অবিশ্বাসীদের উদ্দেশ্যে মুহাম্মদ তার বানী ও কর্মকাণ্ড সংযত রেখেছিলেন “শুধু আল্লাহ-কে" অবিশ্বাস করার পরিণতির সীমারেখায়। সে মুহূর্তে মুহাম্মদ নিজেকে যে ভাবে জাহির করতেন তা হলো:

“দ্বীনের ব্যাপারে কোন জবরদস্তি বা বাধ্য-বাধকতা নেই (২:২৫৬); --তুমি কি মানুষের উপর জবরদস্তী করবে ঈমান আনার জন্য? (১০:৯৯); --তুমিতো শুধু সতর্ককারী মাত্র (১১:১২); --আপনি তাদের উপর জোরজবরকারী নন (৫০:৪৫); --আপনি তো কেবল একজন উপদেশদাতা, আপনি তাদের শাসক নন (৮৮:২১-২২); ---তোমাদের ধর্ম তোমাদের জন্যে এবং আমার ধর্ম আমার জন্যে (১০৯:৬)” - ইত্যাদি।

অন্যদিকে, মদিনায় শক্তিমান মুহাম্মদের সে নির্দেশ শুধু আল্লাহ-কে অস্বীকারকারীদের উদ্দেশেই সীমাবদ্ধ থাকেনি। পরিবর্তিত হয়েছে “মুহাম্মদ-কে” অমান্য কারীর বিরুদ্ধেও! আল্লাহ ও রসূলের যে কোন একজনকে শুধু অবিশ্বাসই নয়, তাদের মধ্যে সামান্য তারতম্য করলেই 'অনন্ত আযাব!

অল্প কিছু উদাহরণ:

৫৮:২০ - "নিশ্চয় যারা আল্লাহ ও তাঁর রসূলের বিরুদ্ধাচারণ করে, তারাই লাঞ্ছিতদের দলভূক্ত।"

৪:১৪ (সূরা আন নিসা) - "যে কেউ আল্লাহ্ ও রসূলের অবাধ্যতা করে এবং তার সীমা অতিক্রম করে তিনি তাকে আগুনে প্রবেশ করাবেন। সে সেখানে চিরকাল থাকবে। তার জন্যে রয়েছে অপমানজনক শাস্তি।“

৪:১৫০-১৫১ (সূরা আন নিসা) – “যারা আল্লাহ্ ও তার রসূলের প্রতি অস্বীকৃতি জ্ঞাপনকারী তদুপরি আল্লাহ্ ও রসূলের প্রতি বিশ্বাসে তারতম্য করতে চায় আর বলে যে, আমরা কতককে বিশ্বাস করি কিন্তু কতককে প্রত্যাখ্যান করি এবং এরই মধ্যবর্তী কোন পথ অবলম্বন করতে চায়। প্রকৃতপক্ষে এরাই সত্য প্রত্যাখ্যাকারী। আর যারা সত্য প্রত্যাখ্যানকারী তাদের জন্য তৈরী করে রেখেছি অপমানজনক আযাব।"

৫৮:৫ (সূরা আল মুজাদালাহ) - "যারা আল্লাহর তাঁর রসূলের বিরুদ্ধাচরণ করে, তারা অপদস্থ হয়েছে, যেমন অপদস্থ হয়েছে তাদের পূর্ববর্তীরা। আমি সুস্পষ্ট আয়াতসমূহ নাযিল করেছি। আর কাফেরদের জন্যে রয়েছে অপমানজনক শাস্তি।"

কী শাস্তি?
যারা মুহাম্মদের প্রচারিত বানী ও মুহাম্মদের (স্বঘোষিত 'আল্লাহর রসুল') কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধাচরণ করবে, তাদের জন্য কী শাস্তি অপেক্ষা করছে তা ঘোষণার পূর্বে মুহাম্মদ "বনী-ইসরাইলের প্রতি" তার আল্লাহর কি নির্দেশ ছিল তার উপমা হাজির করেছেন। আর সেই উপমাটি হলো:

৫:৩২ (সূরা আল মায়েদাহ) - "এ কারণেই আমি বনী-ইসরাইলের প্রতি লিখে দিয়েছি যে, যে কেউ প্রাণের বিনিময়ে প্রাণ অথবা-পৃথিবীতে অনর্থ সৃষ্টি করা ছাড়া কাউকে হত্যা করে সে যেন সব মানুষকেই হত্যা করে। এবং যে কারও জীবন রক্ষা করে, সে যেন সবার জীবন রক্ষা করে। তাদের কাছে আমার পয়গম্বরগণ প্রকাশ্য নিদর্শনাবলী নিয়ে এসেছেন। বস্তুতঃ এরপরও তাদের অনেক লোক পৃথিবীতে সীমাতিক্রম করে।"

>>> এই উপমা হাজির করার পরেই মুহাম্মদ তার বিরুদ্ধবাদীদের বিরুদ্ধে যে অমানুষিক নৃশংস শাস্তির নির্দেশ জারী করেছেন তা হলো তার পরের বাক্য,

৫:৩৩ (সূরা আল মায়েদাহ):

“যারা আল্লাহ ও তাঁর রসূলের সাথে সংগ্রাম করে এবং দেশে হাঙ্গামা সৃষ্টি করতে সচেষ্ট হয়, তাদের শাস্তি হচ্ছে এই যে, তাদেরকে হত্যা করা হবে অথবা শূলীতে চড়ানো হবে অথবা তাদের হস্তপদসমূহ বিপরীত দিক থেকে কেটে দেয়া হবে অথবা দেশ থেকে বহিষ্কার করা হবে| এটি হল তাদের জন্য পার্থিব লাঞ্ছনা আর পরকালে তাদের জন্যে রয়েছে কঠোর শাস্তি|”

"ইসলাম কখনোও ‘নিরীহ’ মানুষ হত্যা সমর্থন করে না!"

ইসলাম যে অন্যান্য ধর্মাম্বলীদের প্রতি কী পরিমাণ সহনশীল, তা প্রমাণ করার প্রচেষ্টায় তথাকথিত মোডারেট ইসলামী পণ্ডিত ও অপণ্ডিত ও কিছু অমুসলিম তথাকথিত বুদ্ধিজীবী লেখক, সাংবাদিক ও কলাম লেখকরা কারণে-অকারণে মক্কা ও প্রাথমিক মদিনা সময়ের কুরআনের ওপরে বর্ণিত গৎবাঁধা সহনশীল বাণীগুলোই ইনিয়ে বিনিয়ে উদ্ধৃত করেন বারংবার। আর "ইসলাম কখনোও ‘নিরীহ' মানুষ হত্যা সমর্থন করে না" - এই উদ্ভট দাবীটি প্রমাণ করার প্রচেষ্টায় তারা 'কুরআনের' যে বানীটি প্রায় সব ক্ষেত্রেই হাজির করেন তা হলো ওপরে বর্ণিত সূরা আল মায়েদার ৩২ নম্বর আয়াতটির খণ্ডিত অংশ। যেখানে,

(১) তারা মুহাম্মদের এই বানীটির প্রথম অংশ, "এ কারণেই আমি বনী-ইসরাইলের প্রতি লিখে দিয়েছি" অংশটি করেন গোপন! কুরআনের এই বানীটি যে বনী-ইসরাইলের প্রতি আল্লাহর নির্দেশের ঐতিহাসিক বর্ণনা, মুহাম্মদের প্রতি কোন নির্দেশ নয়, তা তারা ঘুণাক্ষরেও প্রকাশ করেন না।

(২) তারা শুরু করেন, "যে কেউ প্রাণের বিনিময়ে প্রাণ অথবা-পৃথিবীতে অনর্থ সৃষ্টি করা ছাড়া কাউকে হত্যা করে সে যেন সব মানুষকেই হত্যা করে। এবং যে কারও জীবন রক্ষা করে, সে যেন সবার জীবন রক্ষা করে" অংশটি থেকে। এই চাতুরীর মাধ্যমে তারা বিভ্রান্ত করেন ইসলাম ও কুরআন অজ্ঞ সাধারণ মুসলমান ও অমুসলমানদের।

(৩) একই সাথে তারা মুহাম্মদ ও তার অনুসারীদের প্রতি আল্লাহর নির্দেশ সম্বলিত পরের বাক্যটি (৫:৩৩), "--তাদেরকে হত্যা করা হবে অথবা শূলীতে চড়ানো হবে অথবা তাদের হস্তপদসমূহ বিপরীত দিক থেকে কেটে দেয়া হবে অথবা দেশ থেকে বহিষ্কার করা হবে" করেন গোপন!

(৪) সর্বোপরি ইসলামের পরিভাষায় 'নিরীহ' শব্দটি যে মুহাম্মদের বাণী ও কর্ম-কান্ডে' অবিশ্বাসী কোন মানুষের জন্যই প্রযোজ্য নয়, তা তারা ঘুণাক্ষরেও প্রকাশ করেন না। ইসলাম নামক মতবাদে অবিশ্বাসী প্রতিটি মানুষই যে গুনাহগার, পথভ্রষ্ট ও অনন্ত শাস্তির যোগ্য, তা কুরআনে অত্যন্ত সুস্পষ্ট!

কিসের প্রয়োজনে তাদের এই চতুরতা তা বোঝা যায় অতি সহজেই। সাধারণ সরলপ্রাণ ইসলাম বিশ্বাসী ও অবিশ্বাসী মানুষদের বোকা বানানোর প্রয়োজনেই তা তাদের করতে হয়েছে অতীতে, করতে হচ্ছে বর্তমানে ও ভবিষ্যতেও তা তাদের করতে হবে। যতদিন 'ইসলাম' টিকে থাকবে।

(চলবে)

তথ্যসূত্র ও পাদটীকা:
[1] কুরআনেরই উদ্ধৃতি ফাহাদ বিন আবদুল আজিজ কর্তৃক বিতরণকৃত তরজমা থেকে নেয়া। অনুবাদে ত্রুটি-বিচ্যুতির দায় অনুবাদকারীর।
http://www.quraanshareef.org/
[2] কুরানের ছয়জন বিশিষ্ট ইংরেজি অনুবাদকারীর ও চৌত্রিশ-টি ভাষায় পাশাপাশি অনুবাদ: https://quran.com/

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

গোলাপ মাহমুদ
গোলাপ মাহমুদ এর ছবি
Offline
Last seen: 1 week 4 দিন ago
Joined: রবিবার, সেপ্টেম্বর 17, 2017 - 5:04পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর