নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • শ্মশান বাসী
  • আহমেদ শামীম
  • গোলাপ মাহমুদ

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

এখানে রয়েছে মিথ্যে মেধা বহনকারী একদল ছাত্র নামে অছাত্রের দল


আমি বরাবর'ই কোটা সংস্কারের পক্ষে ছিলাম, এখনও আছি। তবে বাতিল নয়,এ নিতান্তপক্ষেই সরকারের এক কালো ও নির্মম সিদ্ধান্ত। সবার আগে যা কলঙ্কীত করেছে মুক্তিযোদ্ধা পরিবার'কে।

তাইবলে, যারা এই প্রতিবাদ'কে প্রশ্নবিদ্ধ করার আপ্রাণ চেষ্টা করেছে তাদের পক্ষে ছিলাম না।
আমি দেখেছি অহিংস আন্দোলনের নাম ধারণ করে হাতে বাঁশ,লাঠি ও লৌহ পদার্থ বহন করে বারবার শো-ডাউন করতে।
দেখেছি মুখোশ পরে বারবার উস্কানি মূলোক বক্তব্য দিতে,এবং এই বক্তব্য'কে কোন কিছু না ভেবেই সায় দিতে সাধারণ কোমলময়ি ছাত্রছাত্রী বৃন্দ।
বারবার বলেছিলাম এর ভেতরে লুকিয়ে আছে বিষাক্ত সাপ।সেই সাপের বিষের প্রকট আঘাতে আজ এই অবস্থা।

ভেবেছিলাম আজকে যারা বৈষম্য বিরুধী আন্দোলনে আন্দোলিত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর,কিন্তু পরে দেখতে পেলাম-
এখানে রয়েছে মিথ্যে মেধা বহনকারী একদল ছাত্র নামে অছাত্রের দল।
তার পরিচয় দিয়েছে বিভিন্ন প্ল্যাকর্ডে,রাস্তায় বিরূপ ও কুরুচিপূর্ণ লেখা ছেপে।
এবং এখন বুঝতে পারছি সেখানে সত্যই লুকিয়ে ছিল জামাত,শিবিরের অনেক নেতা কর্মি'রা।
রীতিমত সাংবাদিকদের সাথে ব্রিফিং পর্যন্ত করেছে।

এছাড়া আর যে বিষয়'টি সব থেকে বেশি মস্তিষ্কে আঘাত করেছে সেটি হল, নিজেদের যারা মেধার জাহাজ বলে আখ্যা দিয়ে রাজ পথে নেমেছে মেধার সঠিক মুল্য হাতিয়ে নেয়ার জন্য, তারাই নিজেদের মেধা না খাটিয়ে গুজবে কান দিয়ে একেরপর এক অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরি করে'ছে।
তারা একটা বার মেধা খাটালেন না মতিয়া চৌধুরী আসলে কী বলতে চেয়েছিলেন!
তারা একবার অনুধাবন করলেন না রগ কাটা সেই মেয়ে'টি কথা বলে কী করে!
মাথা ফাটা ব্যাক্তির ভুয়া মৃত্যুর খবর শুনে কেউ এরা একটু মেধা খাটানোর সময় নিলো না!
অতএব, এ দ্বারা প্রমাণিত হয় এই সময়ে, এই একুশ শতকে আসলে কোন ধরনের মেধাবান ছাত্র-ছাত্রী'রা ঢাকা বিশ্ববিদ্যলয়ে অধ্যায়ন করে।
সত্যি কথা বলতে আমার ভীষন লজ্জা লাগছে।

একটু অতীতের দিকে তাকাই,
নিশ্চয় সুন্দরবন রক্ষার আন্দোলনের কথা মনে আছে!
তখন কিন্তু এদের কারও টিকি খুঁজে পাওয়া যায় নি।
কারন সুন্দরন ছিল শুধু আমাদের বাপের সম্পত্তি।
এছাড়া, চলমান যে ধর্ষন,পাহাড়ি'দের নির্যাতন ঘটছে তার সেই নির্মম,বর্বর ঘটনার প্রতিবাদ তো দূরের কথা একটা ফেসবুকে পোষ্ট পর্যন্ত করে না এরা।
কারণ এগুলো করলে এদের মান যাবে,শ্রম যাবে।
এর থেকে ভালো ঘরে বসে বি সি এস পরিক্ষার জন্য বই পড়লে কাজ হবে।
কিন্তু এটা ভাবে না, সুন্দরবন তথা দেশ ধ্বংস করে ফেলছে, আর দেশ যদি ধ্বংস হয়ে যায় থাকবো কোথায়,বাঁঁচবো কী করে!
পাসের বাড়ি'র পূর্ণিমা সরকার ধর্ষন হচ্ছে, পাহাড়ে গুলি চলছে, শ্রেণীহীন মানুষের খাবার কেড়ে নিচ্ছে এগুলো তারা দেখে না।
কারণ দেখে লাভ নাই।

যাক তারা এবার দারুন ভাবে লাভবান হয়েছেন,আর যারা লসের পাল্লা ঝুলান দিয়ে আছে তারা এবার মাঠে আসবে।
আসবে ১০ ভাগ নারী, ৩০ ভাগ অভাগা মুক্তিযোদ্ধা, ৫ ভাগ প্রতিবন্ধী, পাহাড়, জেলার মানুষেরা।
তখন নিশ্চয় এদের প্রতিহত করার জন্য পুলিশ নয়, নিয়োগ দেয়া হবে ৪৪ ভাগ মেধাবান ছাত্রছাত্রী'দের।
ধন্যবাদ
-- টিটপ হালদার

বিভাগ: 

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

মগজ
মগজ এর ছবি
Offline
Last seen: 1 week 6 দিন ago
Joined: সোমবার, জুলাই 18, 2016 - 4:21অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর