নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • কাঙালী ফকির চাষী
  • দ্বিতীয়নাম
  • বেহুলার ভেলা
  • অাব্দুল ফাত্তাহ

নতুন যাত্রী

  • সুশান্ত কুমার
  • আলমামুন শাওন
  • সমুদ্র শাঁচি
  • অরুপ কুমার দেবনাথ
  • তাপস ভৌমিক
  • ইউসুফ শেখ
  • আনোয়ার আলী
  • সৌগত চর্বাক
  • সৌগত চার্বাক
  • মোঃ আব্দুল বারিক

আপনি এখানে

এ শিকল ভাঙ্গবে কবে?


ক্ষমতার লোভে,অহংকারে জ্বালানো অশান্তির আগুন জ্বালিয়েছে দুনিয়াটাকে গোলাম করা বিশ্ব-বর্বরতার প্রতিনিধি,ধারক-পোষক আর নায়ক সেই শক্তিশালী বিশাল দানব । দাউ দাউ করে জ্বলছে সেই অগ্নি চর্তুদিকে—

দরজা-জানালা ক্রমশ বন্ধ হয়ে আসছে । অন্যায়ের বিরুদ্ধে , ধ্বংসের বিরুদ্ধে, বে-লাগাম অসভ্যতার বিরুদ্ধে, রক্তক্ষয়ী স্থায়ী যুদ্ধের বিরুদ্ধে সমাজের সংঘবদ্ধ প্রতিবাদ আর প্রতিরোধ ঝিমিয়ে পড়েছে । রাজনীতির এ দল, সে দল যারা “আমরা-ওরা”য় বিভক্ত – তাদের নিজেদের গায়ে আচড় পড়লে মারমুখী মিছিল বের করে । কিন্তু সমাজ “সাইলেন্ট মেজরিটির” ভূমিকায় অবতীর্ণ হয় । অবাক হয়ে ধ্বংসাত্বক কান্ড দেখেও না দেখার ভান নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটে বসে থাকে । অথবা কেউ কেউ বড়জোর রকে,চায়ের দোকানে,আড্ডায় কিছুক্ষণ মেতে ওঠে । তারপর নিঃশব্দের অভ্যাসে হেলান দিয়ে দৈনন্দিনতায় ভাসতে থাকে । পরিস্থিতি এরকম হবার কথা নয় । বছর কয়েক আগেও বিবেক আর তারুণ্য কোথাও কোন অঘটন ঘটলেই মাঠে ময়দানে ঝড় তুলতো,জড়ো হয়ে কন্ঠে ধ্বিক্কারের ধ্বনি জুড়ে দিতো । উদাহরন হিসেবে বলতেই পারি রাজাকার আলবদরদের ফাসির দাবিতে উত্তাল শাহবাগের কথা । আজ যেভাবে দেশে-বিদেশে ধর্মের নামে,রাজনীতির নামে,ক্ষমতা দখলের নামে নিরন্তন সভ্যতার গায়ে অসভ্যতার থাবা পড়ছে আর এসব অন্যায়কে বৃহত্তর সমাজ তাদের ক্ষোভ আর আক্রোশ কে অনায়াসেই হজম করছে । নিকটত্ম অতীতেও কখনো এরকম দেখা যায় নি । এই নিস্তেজ ,এই গড়িমসির কারন কি?

হতাশ, চিন্তার অবসাদ?
নাকি সংঘবদ্ধ হিংসায় আক্রান্ত হবার ভয় ।
আসলেই আমাদের ভয়টা কোথায়?
অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলার নাকি ন্যায়ের পক্ষে মাথা তুলে দাড়াবার । নাকি ন্যায় প্রতিষ্ঠায় মুখে কুলুপ এঁটে অন্যায় কে প্রশ্রয় দেয়ার রীতিকে । যে রীতি আদিকাল হতে আমাদের ঘাড়ে বসে আছে সমাজপতিদের সাজানো নিয়ম হয়ে । কবে মুক্ত হবো আমরা সেই মিথ্যার আর অসত্য নিয়মের বেড়াজাল থেকে ।
আমরা কবে বলতে শিখবো ?

শত অন্যায় হজম করতে করতে আজ আমরা একটি বোবা জাতিতে পরিনত হচ্ছি । আমাদের মুখের ভাষা ফিরিয়ে আনতে হবে । যা অন্যায় ,অসত্য তার বিরুদ্ধে কথা বলতে হবে । আপনি ভাবছেন আপনি একা বললেই সব সমাধান হয়ে যাবে নাকি?

আসলে তা নয় ,শুধু আপনি একা বললেই সব সমাধান হবে না বা সমাধান আসবে না । তবে আপনার বলার কারনে আরো দশজন কথা বলার ,আপনার পাশে দাড়াবার ,অন্যায়ের বিরুদ্ধে মাথা তোলবার সাহস পাবে, আর সেই স্বঞ্চারিত সাহস আর কন্ঠের শক্তি নিয়ে সামনে এগিয়ে আসবে ।

কবে জেগে উঠবে আমাদের বিবেক ,চিন্তা-চেতনা,মনুষ্যত্ব । সমাজপতিদের চাপিয়ে দেয়া শত শত অন্যায়,অ-বিচার আরো কতো জনম হজমের জড়িবুটি গিলে একে একে হজম করতে থাকবো আমরা । একটি বারও কি অন্যায় কে অন্যায় আখ্যায়িত করে কন্ঠের স্বর নিচু থেকে উচুতে তুলবো না ?

আমাদের স্বর উচু করতেই হবে সমাজপতিদের চাপিয়ে দেয়া অন্যায়,অ-ন্যায্য সিদ্ধান্তের প্রতি,জুলুমের বিরুদ্ধে । দীর্ঘদিনের চাপিয়ে দেয়া অন্যায়ের হাতকড়া, পায়ের শিকল ভাঙ্গতেই হবে আমাদের । আঘাতে আঘাতে চুরমার করতে হবে অন্যায়ের সকল দেয়াল ।

কেননা অন্যায় দেয়ালের ওপাড়ে ন্যায়ের সূর্য তার দীপ্তি ছড়াতে ব্যাকুল । যে ন্যায়ের আলোয় আলোকিত হবে গোটা দেশ,সমাজ,গোটা জাতি । এ অন্যায়ের শিকল আমাদের ভাঙ্গতেই হবে ভাঙ্গতেই হবে ।
এসব প্রশ্ন তুললাম এই জন্য যে, আমরা বেঁচে আছি , আমরা ভাবছি, আমরা সাহস হারাই নি । ঘা-ঘোর নির্বিশেষের “আমরা” কে দ্রুত,আরো দ্রুত জাগিয়ে তোলার আজান ফুঁকতে হবে । লাউড স্পীকারে নয় । অন্ধকার আর স্তব্ধতার সীমা আছে । তারা চুপ করে আসে ,ভাঙচুর কে,ভাঙ্গন কে প্রশ্রয় দেয় । আধারে দৈত্যর সঙ্গী হয় । কিন্তু প্রভাতের আলো কিংবা মশাল যখন জ্বলে ওঠে তখন ওরা আর দৈত্যরা ভয় পায় । আমারা ঐ ভয় প্রতিদিন রাস্তায়,সমাবেশে,গৃহকোণে জাগিয়ে রাখি আসুন ।

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

মোঃ মেহেরুল ইসলাম
মোঃ মেহেরুল ইসলাম এর ছবি
Offline
Last seen: 2 weeks 6 দিন ago
Joined: মঙ্গলবার, মার্চ 28, 2017 - 4:57অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর