নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • সরকার আশেক মাহমুদ
  • সজল-আহমেদ
  • নরসুন্দর মানুষ

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

প্রসঙ্গ : খালেদা, মওদুদ সম্পর্কে ড. হুমায়ুন আজাদ



“খালেদা জিয়াকে আমি দুবার দেখেছি, দু-বারই একই জায়গায় :
বাইরে-বিপ্লবী, ভেতরে-স্বৈরতন্ত্রের অনুচর। একটি সাপ্তাহিকের ইংরেজি নববর্ষের পানোৎসবে। খালেদা জিয়াকে দেখার মধ্যে বিশেষ সুখ আছে। ওই উৎসবটি ছিলো সুপরিকল্পিত, তাতে জড়ো করা হতো দেশের গুরুত্বপূর্ণ দেবতা ও দানবদের; তাতে একনায়কের সারমেয় আর গণতন্ত্রের বাঘেরা পরম বান্ধবের মতো গল্প করতে করতে পান করতো। সেখানে খালেদা জিয়াও আসতো। সে এলে হঠাৎ ময়লা হয়ে উঠতো ছোটো-বড়ো পর্দার নানা রঙ করা রূপসীরা, তাদের কারো মুখে ছুলি বা ব্রণের দাগ স্পষ্ট হয়ে উঠতো, কাউকে মনে হতো অত্যন্ত খর্ব : তাদের চারপাশের ভিড় ক’মে যেতো । তখন সারা প্রাঙ্গণে এক জায়গায়ই দেখা যেতো সৌন্দর্য । তবে ওই সৌন্দর্যকে ঘিরে থাকতো কয়েকটি কলঙ্ক, কয়েকটি সুবিধাবাদী প্রহরী। পাহারা দিতো তাকে; ওই দৃশ্য দেখে আমার বিউটি ও বিস্টের কথা মনে পড়তো । খালেদাকে ঘিরে থাকতো যারা, তারা আগে থেকেই ছিলো দেশের কলঙ্ক, পরে আরো কলঙ্কিত হয় । তারা এমনভাবে তার চারপাশে দাঁড়িয়ে থাকতো, মনে হতো তারা দাঁড়িয়ে নেই, দাঁড়াতে পারছে না, তারা প’ড়ে আছে খালেদার স্যান্ডেলের নীচের ঘাস ও মাটির অনেক নীচে ।
:
একবার আমি খালেদাকে একটি গল্প শোনাতে চাই । তখন চারপাশে ভীষণ সাড়া প’ড়ে যায়, যেনো একটা মহাদুর্ঘটনা ঘটতে যাচ্ছে, যা ঘটলে পৃথিবী খান-খান হয়ে যাবে, মানুষের কোনো ভবিষ্যৎ থাকবে না, বা বাঙলাদেশে গণতন্ত্রের সমস্ত সম্ভাবনা চিরকালের জন্যে নষ্ট হয়ে যাবে । সে মুহূর্তেই আমি বুঝতে পারি আমাদের চারপাশ গণতন্ত্রের জন্যে কতো অনুপযুক্ত ও অপ্রস্তুত, প্রভু ও অনুচরের সম্পর্ক ছাড়া তারা আর কোনো সম্পর্কের কথা ভাবতেও পারে না । সেখানেই স্পষ্ট হয়ে ওঠে যে, তার চারপাশের লোকেরা তাকেও উত্তীর্ণ করেছে একনায়কের স্তরে, যাকে শুধু তোশামোদ করা যায়, যার সাথে স্বাভাবিক গল্প করা যায়না । আমি খালেদাকে বলি, ‘আপনার সাথে আমরা কিছু কথা বলবো; তবে আপনার এ-লোকজনেরা একটু দূরে গেলে ভালো হয়।’ খালেদা জানতে চায়, ‘কেন?’ আমি তাকে জানাই তাকে একটি গল্প শোনাবো তার চারপাশের লোকগুলো সম্পর্কে এবং ওই গল্পের একটি চরিত্রের নাম জিয়াউর রহমান । আমি সেদিন গল্পটি বলতে পারিনি, কেননা খুব উত্তেজিত হয়ে লাফালাফি শুরু করে মওদুদ নামে খালেদার একটি প্রহরী। যাকে আমি দূরে গিয়ে দাঁড়াতে বলেছিলাম । গল্পটি খালেদা সেদিন শুনলে, তার পাশের মওদুদ জাতীয়দের ভার তাকে বইতে হতো না ।...”
__________________________________________________
বাঙলাদেশি গণতন্ত্রের প্রথম ও শেষ দান : গরিব গ্রহের সবচেয়ে রূপসী প্রধানমন্ত্রী! "মাতাল তরণী" - ড. হুমায়ুন আজাদ

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

ড. লজিক্যাল বাঙালি
ড. লজিক্যাল বাঙালি এর ছবি
Offline
Last seen: 17 ঘন্টা 43 min ago
Joined: সোমবার, ডিসেম্বর 30, 2013 - 1:53অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর