নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • সরকার আশেক মাহমুদ
  • সজল-আহমেদ
  • নরসুন্দর মানুষ

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

নিঝুম মজুমদারের উগ্র জাতীয়ত্তাবাদ ও সেনাবাহিনীদের গুণগান।


প্রথমে বলে রাখি নিঝুম মঝুমদার একজন ধুর্ত ব্যক্তি ,এবং উগ্র জাতীয়তাবাদী বাঙালি সাম্প্রদায়িক মানুষ। উনাকে বারে বারে বলা হচ্ছে যে কমেন্ট অপশন সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেবার জন্য,জবাবে বলেছেন- কে নাকি পর্ণ মুভি সাইট কমেন্টে দিয়ে দিয়েছেন। সেই থেকে উনি আর সবার জন্য উন্মুক্ত রাখেন না ,হাস্যকর একটা যুক্তি দেখালেন। এতবড়ো একটা ঘটনাকে মিথ্যা বানোয়াট বলে প্রচারে নেমেছেন,কিন্তু কাউকে কথা বলার সুযোগ দিবেন না ! উনি নিজেই দাবী করলেন, ঘটনাটা মিথ্যা, অমনি হয়ে গেলো । নিজে আইনের লোক হয়েও ভুলে গেলেন নাকি অপরাধীরও অধিকার আছে ডিফেন্ডস করার জন্য। না, উনি ভুলেও এটা করবেন না, কারণ উনার ভালো জানা আছে উনার দৌর কতটুকু। নিঝুম মঝুমদারের ১০-১১ মিনিটের লাইভের ভিডিওটা দেখলাম। কথায় কথায় 'এই নিঝুম মজুমদার,মঝুমদার' করেন। ভাইরে, আপনি কে? আপনি কোথাকার হাওয়ার মঝুমদার , জাতীয় মানবাধিকার কমিশন কী আপনাকে দায়িত্ব দিয়েছে ধর্ষণের ঘটনাকে তদন্ত করার জন্য ,নাকি স্থানীয় থেকে আপনাকে প্রতিনিধি করা হয়েছে ঘটনাকে তদন্ত করার জন্য । বারে বারে দাম্ভিকতা দেখিয়ে বলছেন আমার তদন্তে, আমার তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে যে,দুই মারমা কিশোরী ধর্ষণ ও যৌন হামলার শিকার হননি । সবগুলো মিথ্যা অপপ্রচার, সেনাবাহিনীদের ভাবমুর্তি ক্ষুণ্ণ করার জন্য।

আপনার তদন্তে যখন প্রমাণিত হয়েছে,তাহলে জাতীয় মানবাধিকার কর্মীদের কী দরকার তদন্তে নামার জন্য, আপনার রিপোর্টগুলো জমা দিয়ে দেন না। ব্যস হয়ে গেলো ঝামেলার মিটমাট ।

মজুমদার সাহেব ! আপনার হয়ত জানা নেই গত ১৫ই ফেব্রুয়ারি সেনাবাহিনী ও পুলিশের নেতৃত্বে রাঙামাটি সরকারি হাসপাতাল থেকে ধর্ষন ও যৌন হামলার শিকার হওয়া দুই মারমা বোনকে জোর করে উঠিয়ে নেয়া হয়েছে, এমনকি ঐদিন রানী ইয়েন ইয়েন ও ভলান্টিয়ারদেরকেও মারধর করা হয়েছে। রানী ইয়েন ইয়েন কোনক্রমে প্রাণে বেঁচে যায় ঐদিন। দুই বোনকে তুলিয়ে নিয়ে কোথায় রাখা হয়েছে, কেউ জানে না। পরদিন রাঙামাটির এসপি ভিক্টিমদের ছবি আপলোড করে ফেইসবুকে একটি পোস্ট দেয় ভিক্টিমদের কোথায় রাখা হয়েছে। তখনই মানুষ জানতে পারে যে সাবেক জেলা পরিষদের সদস্য আওয়ামী লীগের নেতা অভিলাষ তঞ্চংখ্যার ঘরে রাখা হয়েছে দুই বোনকে। এর পর থেকে দুই বোনকে নিরপত্তা বেষ্টনীতে রাখা হয়েছে,যা কেউ যোগাযোগ করতে পারেন নি।কেউ যোগাযোগ রাখতে পারছে না,এমনকি স্থানীয় প্রধিনিধিরাও যোগাযোগ করতে পারেন নি। আজো কি ঐ আওয়ামী লীগ নেতার বাসায় রাখা হয়েছে,তাও কেউ বলতে পারছে না।

এখন কথা হচ্ছে,আপনি ভিক্টিমদের বাবার সাথে কার মাধ্যমে,কিসের মাধ্যমে কথা বলতে পারলেন।এর থেকে বোঝা গেলো না, আপনি সেনাবাহিনীদের সাহচর্যে ভিক্টীমের পরিবারের সাথে কথা বলে নিয়েছেন। লাইভে এসে তো অনেক ঝাঁজ ঝাড়লেন, ভিক্টিমের বাবার সাথে কথা হয়েছে,বাবা বলেছে তাঁর মেয়েদের ধর্ষণ করা হয়নি । মজুমদার সাহেব, আপনি কি ভিক্টিমদের বাবার সাথে বাংলা ভাষায় কথা বলেছেন, নাকি মারমা ভাষায় কথা বলেছেন ,নাকি কোন বাঙালি অথবা পাহাড়ি দালাল দিয়ে দোভাষীর কাজটা সেরেছেন। একথাটা বলছি, কারণ আপনার হয়ত জানা নেই,ভিক্টিমদের বাবা বাংলা ভাষায় কথা বলতে পারেন না ,পারেন না! এটা আগে হয়তে জানা ছিল, মনে হয় শুধু আপনি জানেন না যে বাবাটা বাংলা ভাষায় কথা বলতে পারেন না। তাই যেকোন মিথ্যা ঘটনা সাজাতে চাইলে পুর্বের ঘটনাগুলো নিয়ে খবরাখবর নেওয়া উচিত, টেক মাই ভ্যালুয়েবল অ্যাডভাইস! আপনি তো সেখানে ব্যর্থতার পরিচয় দিলেন। আচ্ছা, মেনে নিলাম ভিক্টিমের পরিবার আপনাকে বলেছে যে, তাঁদের মেয়ে ধর্ষণ হয়নি, কিন্তু আপনার সেন্স কী এতো দুর্বল যে সেনাবাহিনী ও প্রশাসনের হেফাজতে থেকে কোন ভিক্টিমের পরিবার আপনার সাথে আলাপ করবে সেনাবাহিনী ও প্রশাসনের বিরুদ্ধে । আপনার সেন্স এত দুর্বল কেন, এই সেন্স নিয়ে কিভাবে ওকালতি করেন ।

নিজেকে দাবী করেছেন,আপনার ওপর ভরসা রাখতে ভিক্টিমের বাবাকে ,নিজেই নিজে পরিচয় দিলেন আপনি সেনাবাহিনীর কেউ নয়,ভরসা রাখতে পারেন । কিন্তু আপনি যে সেনাবাহিনীর কেউ নয়, তা ভরসা রাখার কী গ্যারান্টি আছে , কী প্রমাণ দিতে পারবেন আপনি যে সেনাবাহিনীর পেইড এজেন্ট নয় ! কয়েকদিন আগে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী,ডিজিএফআই'রা আপনার চোখে চক্ষুচূল ছিল, এদের নিয়ে অনেক লেখালিখি করেছেন। পাহাড়িরা এদের কেন ভয় পায় এসব নিয়ে স্ট্যাটাসের পর স্ট্যাটাস প্রসব করেছেন, আজ হঠাৎ কোন পুকুরে মুখ ধোয়ে এসেছেন যে, সেনাবাহিনীরা অমনি রাতারাতি দেশপ্রেমিক,দেশের বন্ধু,মানুষের বন্ধু বনে গেলো। সেনাবাহিনীরদের নিয়ে কান্নায় বুক ফেটে যাচ্ছে আজকাল, পাহাড়িরা আমাদের সোনার ছেলেদের ওপর মিথ্যা অপবাদ লাগিয়ে দেয় ,পাহাড়িরা দেশটাকে টুকরো টুকরো করে ফেললো , এগুলো কি ভাই ! এর থেকে প্রমাণ হয় না আপনার সততা কতটুকু নড়েবড়ে, আপনার সততার মানদণ্ড কতটুকু বিক্রিত । পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়িদের নিয়ে লিখতে চাইলে লিখুন,কিন্তু সঠিক ইতিহাস জেনে লিখুন। এই ইতিহাসে মিশিয়ে আছে পাহাড়িদের চোখের জল, রক্তের স্রোত ,স্বজন হারানোর বেদনা।

সবশেষ বলবো,আমার মত ক্ষুদ্র মানুষেও,যে মানুষকে জিজ্ঞেস করলে ১০ টি লেখকের নাম দিতে পারবো না ,সে মানুষ আপনার মতন বিজ্ঞ মানুষের লেখার বিরুদ্ধে কলম ধরতে পারে ,তা আপনার নিজের মানদণ্ডটা কোথায় গিয়ে পৌঁছেছে তা নিজের বিবেকের কাছে প্রশ্ন রেখে দিলাম, কারন মানুষের সবচেয়ে বড় আদালত হচ্ছে নিজের বিবেক !

ধন্যবাদ, ভালো থাকবেন ,আপনার দ্রুত শুভ বুদ্ধির উদয় হোক।

বিভাগ: 

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

বিশ্ব চাকমা
বিশ্ব চাকমা এর ছবি
Offline
Last seen: 1 week 6 দিন ago
Joined: বুধবার, নভেম্বর 1, 2017 - 6:24অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর