নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 2 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • নগরবালক

নতুন যাত্রী

  • আরিফ হাসান
  • সত্যন্মোচক
  • আহসান হাবীব তছলিম
  • মাহমুদুল হাসান সৌরভ
  • অনিরুদ্ধ আলম
  • মন্জুরুল
  • ইমরানkhan
  • মোঃ মনিরুজ্জামান
  • আশরাফ আল মিনার
  • সাইয়েদ৯৫১

আপনি এখানে

হিন্দু-মুসলমান বিবাহ এবং অনর কিলিং


মুসলমান সাজিয়ার সাথে প্রেম করার জন্য হিন্দু অঙ্কিত সাক্সেনাকে তার প্রেমিকার ভাই এবং বাবা দিল্লীর রাস্তায় সবার সামনে কুপিয়ে খুন করেছে। লোকেরা সেই দৃশ্য মোবাইলে তুলতে ব্যস্ত ছিল-কেউ এগিয়ে আসেনি তাকে বাঁচাতে। স্পষ্টতই তিন বছর আগে ফেব্রুয়ারী মাসে ঢাকার বুক ফেয়ারে অভিজিত রায়ের খুনের ঘটনা মনে এল। সেও খুন হয়েছিল প্রকাশ্যেই-কেউ এগিয়ে আসে নি। সবাই দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখেছে।

হিন্দু-মুসলমান প্রেমের ঘটনায় ফ্যামিলির হাতে খুন, অনার কিলিং ভারত-বাংলাদেশে স্বাভাবিক ঘটনা। প্রতি সপ্তাহেই ঘটে। হিন্দু -মুসলমান যুবক খুন হয়। মাঝে মাঝে মোমবাতি মিছিল হয়। হলে হবে কি? যেখানে ভারতের রাজনীতি, মিডিয়া ব্যস্ত হিন্দু-মুসলমান আলাদা সম্প্রদায় এই দ্বিজাতি তত্ত্বের পুঃনপ্রতিষ্ঠায়, সেখানে সাম্প্রদায়িকতার বিশাক্ত ছোবলে অসংখ্য প্রেমিক প্রেমিকার প্রাণ যাবে-তা আর আশ্চর্য্য কি!

প্রাচীন ভারতের গোষ্ঠি অবশ্য ছিল, কিন্ত "ধর্মীয় পরিচিতির" ভিত্তিতে গোষ্ঠী -এই ধারনা ভারতে এসেছে ইসলামের মাধ্যমে। বৃটিশ আমলে তা পরিপোক্ত ধারনা নেয়। প্রাচীন ভারতে "ধর্ম" মানে মানুষের ব্যক্তিগত উত্তরোনের জায়গা। ধর্মের মাধ্যমে গোষ্ঠি বানানো ব্যপারটা মধ্যপ্রাচ্যের-প্রথমে ইহুদি, পরে খ্রীষ্ঠান এবং ইসলাম ধর্মের রাজনৈতিক অভিলাষের মধ্যে দিয়ে বিজয়ী গোষ্ঠিগুলির রাজনৈতিক এবং সামাজিক নীতি একেশ্বরবাদি ধর্ম হিসাবে প্রতিষ্ঠা পায়। বিজিত জনগণ অবশ্য সেই গোষ্ঠিবাজির ধর্মকে সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের সুপ্রীম ইচ্ছা বলেই আফিম সেবনে রত। কিছু কিছু ক্ষেত্রে তা অধিক পাকে কোকেন হিরোয়িন হয়ে সন্ত্রাসবাদির ও জন্ম দেয়।

মেয়ের বিয়ে নিয়ে গোষ্ঠিতে গোষ্ঠিতে সংঘর্ষ ইতিহাস জুরে। প্রাচীন ভারতের রীতিনীতির প্রামান্য যদি মহাভারত হয়, তাহলে কিন্ত পরিস্কার প্রাচীন ভারতে, মেয়ের ইচ্ছার বিরুদ্ধে বিয়ে দেওয়ার রীতি ছিল না।

মহাভারতে পিতার ইচ্ছার বিরুদ্ধে কন্যাহরণ করে বিয়ের উদাহরন অনেকগুলো- এর মধ্যে বিখ্যাত দুটি অবশ্য কৃষ্ণের রুক্কিনী হরন এবং অর্জুনের সুভদ্রাহরণ। এই দুই ইলোপ এপিসোড মাইক্রোস্কোপের তলায় ফেললে দেখা যাবে, প্রাচীন ভারতে বিয়ের ক্ষেত্রে মেয়ের ইচ্ছাকে সর্বদাই গুরুত্ব দেওয়ার রীতি ছিল।

এই দুটি বিখ্যাত ইলোপের ঘটনার সাথে জড়িত দ্বারকা রাজ্য এবং তার দুই রাজকুমার বলরাম এবং বাসুদেভ কৃষ্ণ। দ্বারকা একই সাথে বন্দর এবং নগর রাষ্ট্র। বন্দর নগররাষ্ট্রগুলি পৃথিবীর ইতিহাসে শুধুই মালামালের আমদানী রপ্তানীর জন্য বিখ্যাত ছিল না- সেখানে দেশ বিদেশের বণিকেরদের মধ্যে দর্শন এবং সাংস্কৃতিক আদানপ্রদান ও হত। খুব স্বাভাবিক কারনে দ্বারকাবাসীরা মভাভারতের যুগে "প্রগ্রেসিভ" এক জনগোষ্ঠি।

কৃষ্ণ রুক্ষিনীর কাছ থেকে পত্র পেলেন তার পিতা বিদর্ভরাজ ভিষ্মক , শিশুপালের সাথে তার বিবাহ স্থির করেছেন-কিন্ত রুক্কিনী ভালোবাসেন কৃষ্ণকেই। সুতরাং কৃষ্ণ যেন তাকে উদ্ধার করেন।

রুক্ষিনীকে নিয়ে বিদর্ভ থেকে পালানো সহজ ছিল না। রুক্কিনীর সাথে শিশুপালের সম্মন্ধ নিয়ে বিদর্ভরাজের কাছে এসেছেন স্বয়ং জরাসন্ধ্র । মগধরাজ জরাসন্ধ্র তখন গোটা ভারতের রাজচক্রবর্ত্তী সম্রাট হওয়ার অভিলাসী। ছেদির যুবরাজ শিশুপাল জরাসন্ধ্রের ডানহাত। সেই যুগে অন্য রাজ্যকে, স্বীয় ক্ষমতার ছত্রতলে আনার দুটোর উপায় ছিল- যুদ্ধ অথবা বিবাহ। রাজকন্যারা ছিলেন রাজনীতির বোরে। জরাসন্ধ্র তখন সব থেকে শক্তিশালী সম্রাট এবং তিনি বিদর্ভকে নিজের ক্ষমতার বৃত্তে আনার জন্য শিশুপাল ও রুক্কিনীর বিয়ে ঠিক করলেন। সেই রাজনৈতিক বিয়ে ভেঙে কেউ যদি রুক্কিনীকে হরণ করে, তার ব্যাকলাশ কিহবে, তা সহজেই অনুমেয়। জরাসন্ধ্রের রক্তচক্ষু, দ্বারকার মতন এক ক্ষুদ্র নগররাষ্ট্রের জন্য আপদ ত বটেই!

বলরাম সবই জানতেন। রুক্কিনীর পত্র দেখা মাত্র ঠিক করলেন তিনি বিদর্ভ আক্রমণ করবেন । ঠিক হল কৃষ্ণ রুক্কিনীকে মন্দির থেকে রথে তুলে পালাবেন। বলরাম বিদর্ভের রাজধানী অবরোধ করে রাখবে, যাতে কোন সেনা কৃষ্ণের পেছনে না আসতে পারে।

এই পর্বে বলরামের একটা উক্তি মহাভারতে খুবই উল্লেখযোগ্য- বিদর্ভরাজকে সভ্যতা সেখানো দরকার! অর্থাৎ যেসব গোষ্ঠি তাদের কন্যাকে স্বয়ংবরের সুযোগ দেয় না, তাদের অসভ্য বললেন বলরাম!

কিন্ত এই বলরামই আবার অর্জুনকে খুন করতে উদ্যোত হলেন যখন শুনলেন অর্জুন তার বোন সুভদ্রাকে নিয়ে পালিয়েছে! অর্জুন দ্বারকায় এসেছিলেন সন্নাস্যীর ছদ্মবেশে। বলরাম কৃষ্ণের ছলনা না বুঝে সুভদ্রাকে পাঠিয়েছিলেন সেই তরুন সন্ন্যাসীর পদসেবা করতে। পাশাপাশি চলছিল সুভদ্রার সাথে দুর্যোধনের বিয়ের তোরজোর। কারন দুর্যোধন ছিলেন বলরামের প্রিয়তম শিষ্য। তার সাথে হস্তিনাপুর যুবরাজ। যখন শুনলেন অর্জুন সুভদ্রাকে নিয়ে পালিয়েছে, বলরাম সঙ্গে সঙ্গে ইন্দ্রপ্রস্থে পর্যন্ত ধাওয়া করে অর্জুন বধের হুঙ্কার দিলেন!

কি আশ্চর্য্য এই বলরাম! যিনি ইচ্ছার বিরুদ্ধে কন্যার বিবাহের জন্য বিদর্ভরাজকে অসভ্য বলেছিলেন, তিনিই কিনা নিজের বোনের হরনকারী অর্জুনের বিরুদ্ধে হাতিয়ার তুললেন? যদিও কৃষ্ণ বলরামকে নিরস্ত করেন!

কিন্ত এখনো অব্দি ভারতের হিন্দু মুসলমানদের আচরন সেই বলরাম লেভেলেই। যখন তাদের নিজের ধর্মের ছেলেরা অন্য ধর্ম থেকে কন্যা আনছেন-তখন সেটি সভ্যতা, উচ্চমার্গ। যখন নিজের ধর্মের মেয়েটি অন্য ধর্মে বিয়ে করতে উদ্দ্যত, তাহা লাভ জিহাদ। ত, সেই লাভ জিহাদের রাস্তাত চওড়া করে খুলে দিয়েছেন স্বয়ং বাসুদেভ কৃষ্ণ! অর্জুন যখন জানলেন সুভদ্রা তাকে ভালোবাসেন ( এবং তিনিও সুভদ্রার প্রেমে বিভোর) , কিন্ত তার বিবাহ দুর্যোধনের সাথে- কৃষ্ণের কাছে মার্গ দর্শন চাইলেন পার্থ। কৃষ্ণ বল্লেন এই ক্ষেত্রে ক্ষত্রিয় মার্গ একটিই ! সুভদ্রাকে নিয়ে পালাও! রথ পাঠিয়ে দিচ্ছি!

অদ্ভু! যতই মহাভারত এবং প্রাচীন ভারতের ইতিহাস নিয়ে ঘাঁটি-একটা ব্যপার বেশ পরিস্কার এবং স্পষ্ট। প্রাচীন ভারতে যেটুকু ধর্মীয় স্বাধীনতা এবং উদারতা ছিল, বর্তমানে তা নেই। ফলে শুধু ধর্মে ধর্মেই না, অন্য জাতে, অন্য গোষ্ঠিতে বিয়ে করার জন্যও খুন হচ্ছে অসংখ্য তরুন তরুনী।

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

বিপ্লব পাল
বিপ্লব পাল এর ছবি
Offline
Last seen: 1 week 4 দিন ago
Joined: শুক্রবার, জুন 30, 2017 - 6:01অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর