নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • নগরবালক
  • শ্মশান বাসী
  • মৃত কালপুরুষ
  • গোলাপ মাহমুদ

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

কোরানের আলোকে ইসলামের ইতিহাস (১২)


আঁদি ওল্ড টেস্টামেন্ট আরামিক ভাষায় লিখিত। এখানে আরামিক ভাষা সম্পর্কে একটু বলে রাখা ভাল। আরামিক , আরবি ও তথাকথিত হিব্রু সমগোত্রিয়। আরামিক ও ডান থেকে বামে লেখে। এই সব ভাষায় লিখিত রুপগুলি স্বরবর্ণ বা ভাওয়েল ছাড়া লেখা হয়। এইজন্য এই সব ভাষাকে নীরব (silent) ভাষা বলা হয় এবং লিখিত রুপটি অনুচ্চারিত (unvocal). স্বরবর্ণকে ঐ ভাষার লোকজন স্বর্গীয় উচ্চারন মনে করত বিধায় লেখার সময় স্বরবর্ণ ছাড়া লিখত। এই চর্চা এখনো বিদ্যমান। আঁদি কোরান ও স্বরবর্ণ (জের, যবর , পেশ) ছাড়া লিখিত। কোরানে এই স্বরবর্ণ ও আয়াতের ক্রমিক নং অনেক পরে ইচ্ছানুযায়ী ঢোকানো হয়েছে। এখনো আরবি বই , সংবাদপত্র স্বরবর্ণ ছাড়াই লেখা হয়। স্বরবর্ণ না থাকার সুবিধা নিয়ে যাজকরা ওল্ড টেস্টামেন্টকে এই আরামিক থেকে গ্রীক ভাষায় অনুবাদের সময় ইচ্ছাকৃতভাবে অনেক জায়গার নাম , গোত্রের নাম পরিবর্তন করে। ধারনা করা হয় এর পিছনে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য বিদ্যমান ছিল। তৎকালীন গ্রীক ও ব্যাবিলিয়নীয় সম্রাজ্যের সাথে বনী ইস্রাইলিদের সম্পৃক্ত করার লক্ষেই তারা এই কূটচাল চালে।

আজকে বাইবেলের ওল্ড টেস্টামেন্টের বাংলা , ইংরেজি , ফরাসি সহ পৃথিবীর যত ভাষায় অনুবাদ পাওয়া যায় , সবই গ্রীক সেপ্টুজিয়ান বাইবেল থেকে অনুবাদ করা হয়েছে। আরামিক বাইবেল থেকে নয়। ফলে প্রায় আড়াই হাজার বছর আগে ৭০জন যাজক অনুবাদের সময় বৃহত্তম যে জালিয়াতিটা সেপ্টুজিয়ান বাইবেলে ঢুকিয়ে দিয়েছিল , সেটাই বর্তমানের সব বাইবেলে বিদ্যমান। এরাই ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে সর্ব প্রথম বাইবেলে বর্ণীত মিসরিমের অনুবাদ করেন ইজিপ্ট। সেই থেকেই গ্রীক বাইবেলের কল্যানে সারা পৃথিবীর খৃষ্টান ও ইহুদীরা ইজিপ্টকে মিশর/Misr নামেই চেনে। সাধারনত কোন দেশ বা জায়গার নাম অনুবাদ করার সময় অপরিবর্তিতই থাকে বা উচ্চারনের সুবিধার জন্য সামান্য কিছু পরিবর্তন হয় যার সাথে আদি নামের মিল থাকে। যেমন 'ঢাকা' ইংরেজিতে Decca , কলিকাতা-calcutta। কিন্তু দেখুন মিসরিমের/Misrim সাথে ইজিপ্টের /Egyptus কোনই মিল নেই। সম্পুর্ন ভিন্ন দুটি নাম।

আরামিক বাইবেলের যেখানেই মিসরিম/Misrim লেখা আছে , সেখানেই গ্রীক বাইবেলে অনুবাদ করা হয়েছে ইজিপ্ট /Egyptus । এখন দেখি আরামিক বাইবেল থেকে একটি আয়াত (Genesis 21:21):

‎וישׁב במדבר פארן ותקח־לו אמו אשׁה מארץ מצרים

আরামিক আরবির মতোই বাম থেকে ডানে লেখা হয়। আন্ডারলাইন করা শেষ শব্দটিই হলো মিসরিম।

প্রথম বর্ণ "מ" 'মেম' উচ্চারিত হয় 'ম'
২য় বর্ণ "צ" 'ত্সেড' উচ্চারিত হয় 'স'
৩য় বর্ণ "ר" 'রেশ' উচ্চারিত হয় 'র'
৪র্থ বর্ণ "י" 'ইয়োড' উচ্চারিত হয় 'ই'
৫ম বর্ণ "ם" এটাও 'মেম' বা 'ম' (শব্দের শেষে থাকলে এভাবে লেখা হয়)
একসাথে করলে পাই- 'মিসরিম' ( আঁদি আরবি কোরানের মতোই কোন স্বরবর্ণ নেই)

এখন দেখুন এর অনুবাদ গ্রীক ভাষায় করা হয়েছে Αἰγύπτου.
প্রথম বর্ণ : "A" “আলফা”, উচ্চারিত হয় “a”.
২য় বর্ণ: "ἰ" “আয়োটা”, উচ্চারিত হয় “i”.
৩য় বর্ণ: "γ" “গামা”, উচ্চারিত হয় “g”.
৪ট্থ বর্ণ: "ύ" “উপসিলন”, উচ্চারিত হয় “i”or “y”
৫ম বর্ণ: "π" “পাই”, উচ্চারিত হয় “p”.
৬ষ্ঠ বর্ণ: "τ” “টাউ”, উচ্চারিত হয় “t”.
৭ম বর্ণ: "ο" “অমিক্রন”, উচ্চারিত হয় “o”.

এখন একসাথে করলে পাই- A-i-g-i(y)-p-t-o (ইজিপ্টো).

তাহলে আমরা দেখলাম প্রিয় পাঠক কিভাবে অনুবাদের সময় পরিচিত নয় এমন একটি দেশের নাম 'মিসরিম/মিশর' কে পরিবর্তন করে ইজিপ্ট করা হয়েছে। ইজিপ্টের মতো ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন সভ্যতার একটি দেশকে একদল ইহুদি যাজক নিজেদের হাতে পবিত্র বাইবেল লিখে কলমের এক খোচায় ছিনতাই করল। মিসরিমকে ইজিপ্টে পরিবর্তন করার পরে রাতারাতি ইজিপ্ট হয়ে গেল বনী ইস্রাইলের ঐতিহ্যের অংশ , মুসা ও ফেরাউনের নাট্যমঞ্চ।

এই যাজকরা মেসোপটেমিয়ার চালদিয়ানদের সাথে ও একি ধরনের জালিয়াতি করেছে , যখন আরামিক বাইবেলের ইব্রাহিমের জন্মস্থান 'উর-কাসদিম'কে গ্রীক সেপ্টুয়াজিন্ট বাইবেলে অনুবাদ করেছে 'উর-কালেডেওন'। ফলে ইব্রাহিমের জন্মস্থানকে পরিবর্তনের মাধ্যমে তারা প্রাচীন ইরাকের উপর তাদের দাবী ও প্রতিষ্ঠা করেছে। এভাবেই পরবর্তিতে এই সাম্রাজ্যবাদী অনুবাদ ফিলিস্তিনের উপরে নিজেদের দাবী প্রতিষ্ঠিত করেছে এই বলে যে, এটাই বাইবেলে বর্ণীত ইস্রাইলকে 'গড'এর দেয়া প্রতিশ্রুত ভূমি এবং এই ফিলিস্তিনেই ছিল সুলায়মানের রাজত্ব। এবং তারা আজকের দিনে এটাই করেছে আমেরিকার সাথে , যেমনটি আমরা শুরুতে জোসেফ স্মিথের গল্পে দেখিয়েছি।

পৃথিবীতে যখনই কোন পরাশক্তির আবির্ভাব ঘটেছে (গ্রীস, রোম, ব্যাবিলন , আমেরিকা) , তখনই সম্ভাব্য জালিয়াতরা বাইবেলের দোহাই দিয়ে , স্বর্গীয় পবিত্রতার নামে এই সকল দেশ ও তাদের সম্পদের উপরে ইহুদিদের দাবী প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করেছে এবং একি সাথে তারা নিজেদেরকে পৃথিবীর মানুষের সামনে নিজেদেরকে বঞ্চিত অবিচারের শিকার বলে উপস্থাপন করে থাকে। তাদের এই মিথ্যা , জালিয়াতি উদ্ঘাটনে কোন চিন্তাবীদ , প্রত্নতাত্বিক মুখ খুললে , তার উপরে 'এন্টিসেমেটিক' তকমা লাগিয়ে তার মুখ বন্ধ করে থাকে।

কল্পনা করুন প্রিয় পাঠক, টলেমিক গ্রীকরা যখন জানল তারা এমন একটি দেশ শাসন করছে , যেখানে বাইবেলে বর্ণীত প্রাচীন ইস্রাইলিরা , মুসা ও ফেরাউন বাস করত , তখন তারা পৃথিবীব্যপী সকল বাইবেল অনুসারীদের মতোই কি রকম গর্ব অনুভব করেছে। এই জালিয়াতি টলেমিক রাজবংশ ও ইহুদি উভয়কে লাভবান করেছে।

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

ফারুক
ফারুক এর ছবি
Offline
Last seen: 2 months 2 weeks ago
Joined: বুধবার, জুলাই 29, 2015 - 9:16অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর