নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • শ্মশান বাসী
  • আহমেদ শামীম
  • গোলাপ মাহমুদ

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

আলেম সমাজকে বাস্তব শিক্ষায় শিক্ষিত করে তুলতে হবে



বাংলাদেশ সরকারের সামনে সবচেয়ে বড় চেলেঞ্জ হল মৌলবাদ ও জঙ্গি দমন। বাংলাদেশে কুসংস্কারাচ্ছন্ন ও ধর্মীয় গোড়ামীতে বিশ্বাসী লোকের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে। তারাই মূলত জঙ্গিবাদ ধারণাকে জিহাদি ধারনা মনে করে এবং তা রীতিমত প্রকাশ্যেই জনমানসে প্রচার করে বেড়ায়। তাদের বিশ্বাস আইএস, বোকা হারাম এবং স্বদেশীয় হেফাজত-জামায়াতে ইসলামীর মত সংগঠনগুলো ইসলামী সংগঠন। এসব ধর্মান্ধ মানুষের ধারনা আইএস এবং বোকা হারামের লোকগুলো অনবরত ইসলামকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য যুদ্ধ করে যাচ্ছে। তারা জঙ্গি নয়, বরং তারা মুজাহিদ।

কিন্তু বিভিন্ন সময়ে আইএস এবং বোকা হারমের মসজিদে হামলা, রোজা না রাখার জন্য ঝুলিয়ে মারা, তিউনেশিয়ার হোটেলে হামলা করে মুসলমান মারা, নিজের গায়ে বোমা বেঁধে লোকালয়ে তা বিস্ফোরণ করা, এগুলো কোন ইসলাম প্রতিষ্ঠা? এগুলো কোন ধর্মের মধ্যেই পড়ে না। এগুলো হল ব্যক্তিগত ক্রোধ বা ক্ষমতার জন্য সংগ্রাম করা। ইসলাম শান্তির ধর্ম। কোনো জঙ্গিবাদকে ইসলাম সমর্থন করে না।

এখন প্রশ্ন হল, বাংলাদেশের ধর্মীয় গোড়ামী বা জঙ্গিবাদের ধারণা সৃষ্টি হয় কোথা থেকে? পরিপার্শ্বিক অবস্থা এবং সাম্প্রতিককালের ঘটনাগুলো বিশ্লেষণ করলেই বোঝা যায় আসলে বাংলাদেশের আইএসের উৎপত্তি আমাদের মসজিদ মাদ্রাসাগুলোতে। বিশেষত কওমী মাদ্রাসাগুলোতে।

মসজিদ ও মাদ্রাসায় যেসব হুজুর বা আলেমগুলো নিয়োগ দেয়া হয় তাদের ৯০% শুধু মুখস্ত বিদ্যায় পারদর্শী এবং হুজুগে বিশ্বাসী। তাদের মধ্যে আধুনিক বাস্তবসম্মত জ্ঞানের যথেষ্ট অভাব রয়েছে।

তারা প্রতি শুক্রবারই জুমাবাদ মুসলমানদের উপর নির্যাতন এবং জিহাদের গুরুত্ব তুলে ধরে। এ কারনেই শুক্রবারই হামলাগুলো বেশি হয়। এই তথাকথিত আলেমগন কখনই স্বীকার করে না যে.. মুসলমানদের বর্তমান অবস্থার তারা নিজেরাই দায়ী। পশ্চিমা দেশপ্রীতি এবং অধিকতর উন্নত মুসলমান দেশ পশ্চিমা দেশের এজেন্ট হিসেবে কাজ করা হল মুসলমান নির্যাতনের প্রধান কারন।

কিন্তু তথাকথিত আলেমগন কখনই এগুলো আলোচনা করে না। তাই আলেম সমাজকে প্রকৃত ও বাস্তব শিক্ষায় শিক্ষিত করতে হবে। এবং মসজিদ মাদ্রাসাগুলোকে ধর্ম মন্ত্রনালয়ের অধীনে এনে আলেম প্রশিক্ষণ এবং মন্ত্রনালয় থেকে আলেম ও ইমাম নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিতে হবে, যাচাই-বাছাই করতে হবে। যে সকল মসজিদ মাদ্রাসাগুলো এই আইনের আওতায় আসতে অস্বীকার করবে সেগুলোকে অনতিবিলম্বে বন্ধ করে দেওয়া সহ যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে।

খোরশেদ আলম, লেখক ও গবেষক
@M.KhurshadAlam

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

খোরশেদ আলম
খোরশেদ আলম এর ছবি
Offline
Last seen: 2 দিন 11 ঘন্টা ago
Joined: বুধবার, এপ্রিল 27, 2016 - 3:00পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর