নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 6 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • নগরবালক
  • শ্মশান বাসী
  • মৃত কালপুরুষ
  • গোলাপ মাহমুদ
  • সজীব সাখাওয়াত

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

একজন অসম্ভব রকমের সফল সৃষ্টিকর্তার গল্পঃ


গল্পটি সামান্য বড় হলেও একবার পড়ে দেখুন। অনেক কিছু শিখতে পারবেন। গল্প সাধারণত প্যারাগ্রাফ আকারে লিখা হয় তবে আমি আজ পয়েন্ট আকারে লিখবো ঘটনার ধারাবাহিকতা যাতে আপনাদের বুঝতে সুবিধা হয়। তো শুরু করা যাক,

১। একদা এক মহান সৃষ্টিকর্তা ঠিক করলেন তাঁর এমন কিছু অনুসারী তৈরী করবেন যারা অন্যায় কাজ করার ক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও তাঁর ইবাদত করবে। যেই ভাবা সেই কাজ! তিনি বিশাল এক বিষ্ফরণের মাধ্যমে আমাদের এই ইউনিভার্স ক্রিয়েট করলেন। সেই বিস্ফোরণ কে বলা হয় 'বিগ ব্যাং'।

২। বিগ ব্যাং এর মাধ্যমে তৈরী হলো লক্ষ কোটি গ্যালাক্সি। সেই লক্ষ কোটি গ্যালাক্সির মাঝে একটা গ্যালাক্সি যার নাম ছায়াপথ। সেই ছায়াপথের মাঝে আছে আরো লক্ষ কোটি নক্ষত্র। এদের মাঝে তিনি একটা নক্ষত্র সৃষ্টি করলেন যার নাম হলো সূর্য।

৩। সূর্য সৃষ্টির আরো ৫০ মিলিয়ন পর সেই সূর্যকে কেন্দ্র করে ঘুরে এমন এক গ্রহ সৃষ্টিকরলেন যার নাম দিলেন 'আদ-দুন-ইয়া' বা পৃথিবী! আমাদের পৃথিবী!

৪। পৃথিবী সৃষ্টির আরো চার বিলিয়ন বছর পর তিনি ঠিক করলেন সেই পৃথিবী নামক গ্রহে তার সেই স্পেশাল অনুসারীদের পাঠাবেন। যাই হোক, ইউনিভার্স সৃষ্টির সাড়ে চৌদ্দ বিলিয়ন(১৪,৫০০,০০০,০০০) বছর পর তিনি ফাইনালি আদম নামক এক জীব সৃষ্টি করলেন তাও নিজ হাতে। আগে যা বানিয়েছেন তার সবই ঝাঁড়-ফুঁক করে।

৫। বানিয়ে তাকে সাথে সাথে পৃথিবীতে প্রেরণ না করে জান্নাতে রেখে দিলেন! কিন্তু বানিয়েছিলেন পৃথিবীতে পাঠাবেন বলে। যাই হোক সেই দিকে না যাই, অনেক নাটক বনিতা করে আদম কে তিনি জান্নাত থেকে দুনিয়ায় পাঠালেন। সাথে তার সেক্সপার্টনার হাওয়া কে দিয়ে দিলেন।

৬। তারপর দুনিয়ায় এসে আদম হাওয়া ভালবাসায় মগ্ন হয়ে পড়লো। ফলাফল হিসেবে বিবি হাওয়া প্রতিবছর জোড়ায় জোড়ায় বাচ্চা দিতে থাকলেন। কিন্তু সমস্যা হলো সেই বাচ্চা দের বিয়ে দিবেন কাদের সাথে, তারা তো সকলে একই পরিবারের সদস্য। আবার নাস্তিক-বুল্গার দের মত বিয়ে না করে যৌনকর্ম করাও যাচ্ছেনা।

৭। তখন সৃষ্টিকর্তা নতুন এক বার্তা প্রেরণ করে এই সমস্যার সমাধান করলেন। বার্তাটা কি? ভাইবোনের মধ্যে বিয়ে দিয়ে দাও! অর্থাৎ সাড়ে ১৪ বিলিয়ন বছরের পর সৃষ্টিকর্তার মাথা থেকে এই বুদ্ধি বের হলো যে ইন্সেস্ট সেক্সের মাধ্যমে মানব জাতির বৃদ্ধি পাবে। বাহ!

৮। ভাইবোনে বিয়ে হলো। বাচ্চা হলো। তাদের আবার বাচ্চা হলো। কিন্তু মানুষ বড়ই খারাপ। এক সময় তাঁকে ভুলে মানুষ অন্যান্য দেব-দাবী বা উপাস্য পূজা শুরু করলো। এতে সৃষ্টিকর্তা খুবই ব্যাথিত হয়ে আবার নতুন নবী পাঠিয়ে তাদের সতর্ক করলেন। কিন্তু মিশন ফেইল্ড।

৯। আবার নতুন নবী পাঠালেন, মিশন আবারো ফেইল হলো। এভাবে একের পর এক নবী তিনি পাঠিয়েই গেলেন আর মানুষ তাকে পাত্তা না দিয়ে পাপ কাজ করেই গেলো।

১০। অবশেষে তিনি খুবই বিরক্ত হয়ে নুহ নামের এক নবী পাঠালেন। সেই ব্যাক্তি ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ফ্লপ খেলো। ৯০০ বছরে মাত্র ভালো মানুষ বানাইতে পারলো মাত্র ৪০ জন! যেখানে নাস্তিক দের পোষ্ট পড়ে প্রতিবছর হাজার হাজার মানুষ ধর্ম ত্যাগ করে! সৃষ্টিকর্তার এই অপমান সহ্য হইলো না, রাগে-দুঃখে-ক্ষোভে তিনি ঠিক করলেন সব ধুয়ে মুছে পরিষ্কার করে আবার নতুন করে আবাদ করবেন। ব্যস, যেই ভাবনা সেই কাজ। সারা দুনিয়ায় গায়েবি পানি দিয়ে ডুবিয়ে দিলেন। খালি বাঁচিয়ে রাখলেন নুহ আর তার অনুসারী দের।

১১। কিন্তু বেচারা সৃষ্টিকর্তার প্ল্যান এবারো ফেইল্ড। মানুষ আবারো যেই সেই হয়ে গেলো। আবারো তাকে ভুলে গেল। কিন্তু রাব্বুল আলামিন হতাশ হলেন না। তিনি প্ল্যানে হালকা পরিবর্তন আনলেন। নবী তো পাঠালেনই সাথে পাঠালেন একটা বিশেষ বই পাঠালেন যেটা অনুসরণ করে মানুষ ভালো হতে পারবে। কিন্তু বজ্জাত মানুষ তাও ভালো হইলোনা। একের পর এক তিনি কিতাব+নবী পাঠাইতে লাগলেন আর আর মানুষ তা বিকৃত করে ফেলে আবার নিজের কাজ নিজে করতে লাগলো । এই প্রসেস বহুদিন চলার পর, ১২৪০০০ নবী, ১০৪ টা কিতাব, বিলিয়ন বিলিয়ন বছরের ইনভেস্টম্যান্ট যখন কোনো কাজেই আসলো না তিনি ঠিক করলেন, এনাফ ইজ এনাফ!
আগে যা হবার হয়েছে, এটাই লাস্ট এটাই ফাইনাল খেলা। এবার সৃষ্টিকর্তা খুব সিরিয়াস মুড অন করলেন।

১২। এরপর তিনি তাঁর পেয়ারা(নট গোয়াবা) বন্ধু, তাঁর বিশেষ এজেন্ট, দোজাহানের নয়ন মনি, সর্ব প্রথম মহাকাশ ভ্রমণকারী, ১৩ বিবির স্বামী, বিদ্যাঅর্জন ছাড়াও জ্ঞানের খনি, বিশেষ বিজ্ঞানী জনাবে মোহাম্মদ মোস্তফা(সাঃ) কে পৃথিবীতে পাঠাইলেন সাথে দিয়া দিলেন কোরান। এবার মানুষ ভাল না হইয়া যাইবি কই।

১৩। ৪০ বছর পর নবী মোহাম্মদ যখন বুঝতে পারলেন তিনি নাকি(!) নবী, এবার তিনি সেই মহান ফ্লপ সৃষ্টিকর্তার বাণী প্রচার করা শুরু করেন। কিন্তু তিনিও অন্যান্য নবীর মত ১৩ বছর ভীষণ রকমের ফ্লপ খেলেন! তারপর তিনি ঘোষণা দিলেন তরবারীর ছায়াতলে জান্নাত!
আর পায় কে, মাইর হলো সব চেয়ে বড় ঔষধ!

এই ভাবে সেই সফল সৃষ্টিকর্তা সাড়ে ১৪ বিলিয়ন বছরের প্রচেষ্টায়, লক্ষাধিক নবী প্রেরণের পর তিনি পৃথিবীতে তিনি মাত্র ২০% লোককে তার অনুসারি বানাতে সক্ষম হলেন। সকলে মিলে জোড়ে হাততালি দিয়ে বলি সুবাহানাল্লাহ! কিন্তু ২০০৫ সালে নির্মিত ইউটিউবের ইউজার সংখ্যা নাকি তার ফলোয়ার দের দ্বিগুণ! কি নাপাকি কথা বার্তা! ইহুদি-নাসারারা ষড়যন্ত্র না করলে নিশ্চিত ভাবে ইউটিবের ইউজার তার চেয়ে কম থাকতো। আপনারা কি জানেন সেই সৃষ্টিকর্তার নাম কি?

যাইহোক কবিতো আর এমনি বলেন নাই 'একবার না পারিলে দেখো শতবার!' সকলে মিলে সেই সৃষ্টিকর্তার জন্যে দোয়া করবেন যাতে অদূর ভবিষ্যতে তিনি ৫০% ফলোয়ার বানাতে পারেন! আমরা তার উত্তর-উত্তর সাফল্য কামনা করি।

বিভাগ: 

Comments

আদনান বিন সাবিত এর ছবি
 

এটাই আমার প্রথম ব্লগ। ইস্টিশন-ব্লগে লিখতে পেরে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছি।

 
সাহাবউদ্দিন মাহমুদ এর ছবি
 

হুম, অসাধারণ লিখেছেন অল্প সময়ের মধ্যে পৃথিবীর উৎপত্তি নিয়ে ইসলামের ভুল ধারণা তুলে ধরা হয়েছে। ১০/১১/১২/১৩ থেকে শেষ পর্যন্ত অসাধারণ ছিল যদিও হাস্যকর। কিন্তু আপনার এই লেখার মধ্যে বাস্তবতা লুকিয়ে আছে। সব মিলিয়ে অসাধারণ!!

Shahabuddin

 
আব্রাহাম রাশেদ এর ছবি
 

চমৎকার!

 
সুপ্ত শুভ এর ছবি
 

ইস্টিশন ব্লগে স্বাগতম।

 
আদনান বিন সাবিত এর ছবি
 

ধন্যবাদ

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

আদনান বিন সাবিত
আদনান বিন সাবিত এর ছবি
Offline
Last seen: 3 months 3 weeks ago
Joined: বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 4, 2018 - 12:37পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর