নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 7 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • রবিউল আলম ডিলার
  • নুর নবী দুলাল
  • মিশু মিলন
  • মৃত কালপুরুষ
  • দ্বিতীয়নাম
  • সত্যর সাথে সর্বদা
  • সাইকোপ্যাথিক রোগী

নতুন যাত্রী

  • রবিউল আলম ডিলার
  • আল হাসিম
  • মাহের ইসলাম
  • এহসান মুরাদ
  • ফাহিম ফয়সাল
  • সানভী সালেহীন
  • সাঞ্জানা প্রমী
  • অতৃপ্ত আত্বা
  • মনিকা দাস
  • আব্দুল্লাহ আল ম...

আপনি এখানে

শিটহোল কান্ট্রিজ, পাশ্চাত্য সভ্যতার উৎকর্ষ ও আধুনিক ক্রীতদাস



একসময় কর্মসূত্রে কেনিয়ান এক অফিসারের সাথে পরিচয় ও বন্ধুত্ব হয়। নাম ছিল চিলেম্বু। ইয়োসেপ চিলেম্বু। জোসেফ বলত না, ইয়োসেপ ধরণের কিছু একটাই উচ্চারণ করত। ওর দুই গালেই গভীরভাবে কাটা দাগ ছিল, যেন কেউ ধারালো ছুরি দিয়ে টেনে নকশা করে দিয়েছে। কথায় কথায় জানতে পারি ওই দাগ ছিল ওর ট্রাইবের পরিচয়। আর নানা গোত্রে শিশু জন্ম নেবার পরপরই নিজেদের গোত্রের এমন চিহ্ন দিয়ে দেয়া নাকি খুব কমন একটা ব্যাপার, যার শুরু ইউরোপিয়ান কলোনিয়াল যুগের সূচনার পরপর। ইউরোপিয়ানরা এসে ক্রীতদাস বানাতে আফ্রিকান শিশুদের চুরি করে বা আফ্রিকানদেরই টাকা দিয়ে অপর গোত্রের শিশু চুরি করাতো। এরা চলে যেত অন্য কোথাও, হয়ত আফ্রিকারই কোনো খামারে, ইউরোপে অথবা আমেরিকা মহাদেশের সুবিস্তৃত কলোনীগুলোয়।

চিলেম্বুর থেকে জানতে পারি, কোনো শিশু চুরি যাবার পরে কখনো ফিরে এলে বা দেখা পেলে যাতে সনাক্ত করা যায়, সেজন্য নানা গোত্র নিজেদের মুখে পার্মানেন্ট উল্কি কিংবা ট্যাটু এঁকে দিতে থাকে। একসময় এই ব্যাপারটাই ঐতিহ্যের মত হয়ে যায়। একেক গোত্রের সদস্য হিসেবে পরিচয় জানাতে একেক নকশায় মুখে ক্ষত করে চিহ্ন এঁকে দেয়া। চিলেম্বুর গোত্রের নাম আমার মনে নাই। তবে এরাও তো মানবজাতির সদস্য। মানুষ হিসেবে একজন ইউরোপিয়ান, একজন ভারতীয় বা একজন আরবের সমান অধিকার তাদেরও থাকবার কথা ছিল। শিক্ষার অভাব, সভ্যতায় অনগ্রসর হলেও তারা অবশ্যই ছিল পূর্ণ মানব মানবী।

মানবজাতির ইতিহাস হানাহানির ইতিহাস, হিংসার ইতিহাস, সময়ে অসময়ে জমিন মানুষের রক্তে লাল হবার ইতিহাস, স্বার্থ উদ্ধারে সকল ন্যায়নীতি বর্জনের ইতিহাস। প্রাচীন আমলের কথা বাদ দেই, গত শতকের বড় যুদ্ধগুলোর দিকে তাকালেই দেখি যে এর কারণগুলো মূলত ছিল অনৈতিক ও জাতিগত স্বার্থ উদ্ধার। জার্মানরা জার্মান জাতির জন্য পর্যাপ্ত জমি ও বাসস্থান নিশ্চিত করবার পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সূচনা করেছিল অন্যায়ভাবে পোল্যান্ড দখলের মাধ্যমে যার সহযোগী ছিল রাশিয়া, জাপান সাম্রাজ্য বিস্তারে জানা ইতিহাসে সবচেয়ে নৃশংসপন্থার আশ্রয় নিয়েছিল। আমেরিকা ভিয়েতনামে নিজেদের প্রভাববলয় ঠিক রাখবার জন্য লক্ষ লক্ষ টোন বোমা ফেলেছিল। শুধু বোমাই নয়, কৃষিকাজের সামর্থ্য যাতে নষ্ট হয় সেজন্য হাজার হাজার টন রাসায়নিক ছড়িয়ে দেয় শস্যক্ষেত্রে। বাংলাদেশে পাকিস্তানীদের লক্ষ লক্ষ মানুষ হত্যা নির্যাতনের কথা বাদ দেই, ওরা ছিল ভীন জাতি। নিজ জাতির লোকেরাও নিজেদের প্রতি কেমন নৃশংস হতে পারে তার উদাহরণ কম্বোডিয়া। অল্প জনসংখ্যার দেশ কম্বোডিয়ায় নিজের দেশের খেমাররুজরা ক্ষমতা দখলে নেবার পর লক্ষ লক্ষ মানুষকে নির্যাতন করে, না খাইয়ে মেরে ফেলে। আদি কৃষিভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠার নামে যারা শিক্ষিত ছিল, জ্ঞান বিজ্ঞানে যাদের দক্ষতা ছিল, তাদের মেরে ফেলে। আরবরা এই সময়ে উপরে উপরে মনে হতে পারে ফিলিস্তিনিদের জন্য অনেক দরদ রাখে। কিন্তু ১৯৬৭ সালের যুদ্ধে জায়গা হারাবার আগপর্যন্ত প্যালেস্টাইনের ওয়েস্ট ব্যাংক ছিল ট্রান্স-জর্দানের দখলে, গাজার দখল ছিল মিসরের সাথে। তখন কি ফিলিস্তিনিরা নিজেদের নিয়ন্ত্রণ করতো? দখল হাতছাড়া হবার পর এখন ফিলিস্তিনীদের অধিকার নিয়ে, তাদের আলাদা রাষ্ট্রের জন্য আরববিশ্ব সোচ্চার। যখন অধিকারে ফিলিস্তিনের বেশ অনেকটা অংশই ছিল, তখন অন্তত সেটুকুতেই স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনের জন্য তারা কিছু করে নি। জাতিসংঘ রেজোলুশ্যন না মেনে ইসরাইলের জন্ম হতে না হতেই হামলা করে যুদ্ধে হেরে গিয়ে শুরুতেই ইসরায়েলের যতটুকু আকার থাকবার কথা ছিল, তারচেয়ে অধিক আয়তনের ইসরাইল গড়ে দেয়। মধ্যপ্রাচ্যে ইসরায়েলের সবচেয়ে বড় বন্ধু যে সোউদি আরব, সেটা এখন গোপন কিছু না। মানবজাতির ইতিহাসে মানবতার স্বার্থে জাতিগত স্বার্থ ত্যাগ করে শান্তির পথ বেছে নিয়েছে কোনো শাসক, এমন উদাহরণ হয়ত আছে। কিন্তু এখন ভেবে একটাও মনে করতে পারছি না।

পৃথিবীতে প্রাকৃতিক সম্পদে সবচেয়ে সমৃদ্ধ মহাদেশ আফ্রিকা মহাদেশ। বিশাল অঞ্চল উর্বর, খনিজের অভাব নেই, আয়তন বিশাল, আবহাওয়া উত্তর আফ্রিকা বাদ দিলে বাদবাকি অঞ্চলের জন্য খুবই চমৎকার। কিন্তু গত কয়েক শতাব্দি ধরে সভ্যজাতির মানুষেরা তাদের লুটেপুটে খাচ্ছে। ধর্মান্তরিত করা বাদে তাদের প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত করবার উদ্যোগ খুব কম। উল্টো পশ্চিমা শক্তিগুলো প্রতিটা দেশের হনিজ ও অন্যান্য সম্পদে নিজেদের দেশের নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখবার জন্য সব পক্ষকেই অস্ত্র সাহায্য দেয়। নিজেরা নিজেরা মারামারি করে, সম্পদ চলে যায় ইউরোপ আমেরিকায়। এখন চায়নাও ঢুকে গেছে। অল্প কয়টা দেশ বাদে পুরো আফ্রিকার জন্য আরও অনেকদিন আলোকময় ভবিষ্যত দেখছি না।

আরেকটা গল্প বলি। একটা কোর্সে সবসময় গ্যাঞ্জাম লেগে থাকা আফ্রিকান কোনো দেশের এক অফিসারের সাথে পরিচয় ছিল। দেদারছে টাকা উড়াতো। মদ, নারী এসব ছিল নেশার মত, কিছু কেয়ারও করত না। আমি জিজ্ঞেস করি, তোমাদের দেশের অবস্থা তো আমাদের থেকে ভাল না। সরকার তোমাদের এত টাকা দেয়? গল্পে গল্পে জানতে পারি, ওর বাবা এক গোত্রপ্রধান। কিছু না করেই তাদের টাকা দেয় বা বিশাল অংকের ভাতা দেয় বিদেশী শক্তি। কোন ধরনের মানবিক ও শিক্ষাগত যোগ্যতা না থাকবার পরেও যে সে একটা পদ দখল করে আছে, তা তাদের টাকা দিয়ে কিনে রাখা প্রভূদের আশির্বাদে। তাদের মধ্যে থেকে অমানুষ, অযোগ্যদের বেছে নিয়ে অনুগত করে রাখে ভোগ বিলাসের ব্যবস্থা করে। আর গোত্রপতিদের দেবতা মনে করা বাদবাকি মানুষেরা থাকে জোম্বির মত, এরা আধুনিক ক্রীতদাস।

প্রায় ফাউ লিথিয়াম, ফাউ টাংস্টেন, কপার এসব তুলে নিয়ে শতগুণ বেশি দামে বিক্রি করবার মত অঢেল ভান্ডার শিটহোল কান্ট্রিগুলোতেই কেন যে এত বেশী!? ট্রাম্প কিছু দেশকে শিটহোল কান্ট্রি বলেছিলেন। সৌদিরা, ইরানীরা এখন যেমন ইয়েমেনের মানুষকে মানুষ মনে করে না। ট্রাম্পের একটা ব্যাপার ভাল, উনার মধ্যে ভনিতা নাই। অকপট ভিলেন উনি। উনি এবং বিশ্বের নানা উন্নতদেশের মহান অনেক নেতা কেবল এটা জানেন না, তাদের ঘরে যে আধুনিক কমোড আজকাল দেখা যায়, সেটা দূরের কথা, সামান্য প্যানের ব্যবস্থা করাও বিলাসিতা হয়ে দাঁড়াবে যদি এই শিটহোল কান্ট্রিগুলোতে দিক থেকে তারা তাদের নজর সরিয়ে নেন।

Comments

নুর নবী দুলাল এর ছবি
 

আপনার পোস্টগুলোতে ছবি মুল পোস্টে এড না করে শুধুমাত্র শর্টভিউতে এড করেন কেন? এর ফলে পোস্ট শেয়ারের ক্ষেত্রে পোস্টের সাথে ছবিটি শো করে না।

 
আমি অথবা অন্য কেউ এর ছবি
 

এই ব্যাপারটাই তো জানতাম না যে শেয়ার করতে গেলে ভিতরে ছবি না দিলে ছবি দেখায় না। এরপর থেকে দিবনে।

মরতে মরতে ভুল হয়ে যাবে, শেষ নিঃশ্বাসে রয়ে যাবে পাপ। আমি তো নাদান, আমি যে বান্দা খারাপ...

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

আমি অথবা অন্য কেউ
আমি অথবা অন্য কেউ এর ছবি
Offline
Last seen: 12 ঘন্টা 52 min ago
Joined: শুক্রবার, জুন 17, 2016 - 12:11অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর