নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মৃত কালপুরুষ
  • নুর নবী দুলাল
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী

নতুন যাত্রী

  • সামসুল আলম
  • এস. এম. মাহবুব হোসেন
  • ইকরামুজ্জামান
  • রবিউল আলম ডিলার
  • জহুরুল হক
  • নীল দীপ
  • ইব্রাহীম
  • তারেক মোরশেদ
  • বাঙলা ভাষা
  • সন্দীপন বিশ্বাস জিতু

আপনি এখানে

কবি ইমরুল কায়েসের কন্যা নবী মুহাম্মদের বিরুদ্ধে কুরআন নকল করে লেখার অভিযোগ করেছিলেন


আরবের শ্রেষ্ঠ কবি ইমরুল কায়েসের কন্যা তার বাবার কবিতা চুরির অভিযোগ এনেছিলেন কুরআনের বিরুদ্ধে। আগেও এটা নিয়ে লিখেছিলাম। এই বিষয়ে বিস্তারিত লেখার অনুরোধ পেয়ে আবার লিখছি।

ঘটনা হচ্ছে, কবি ইমরুল কায়েসের কন্যা একদিন নবী মুহাম্মদের কন্যা ফাতিমার মুখে কিছু কবিতার মত লাইন আবৃত্তি শুনে রাগান্বিত হয়ে বললেন, আরে এটা তো আমার বাবার কবিতা! আমার বাবার কবিতা চুরি করে তোমার বাবা আল্লার নামে বেহেস্ত থেকে আয়াত আনার কথা প্রচার করে…। Ibn Warraq লিখেছেন,

‘We are told that Fatima, the Prophet’s daughter, was one day repeating as she went along the above verse. Just them she met the daughter of Imra’ul Qays, who cried out “O that’s what your father has taken from one of my father’s poems, and calls it something that has come down to him out of heavn”; and the story is commonly told amongst Arabs until now (The Origins of the Koran: Classic Essays on Islam’s Holy Book, by Ibn Warraq, page 235-236)

। বইটি’র পিডিএফ ভার্সন ইন্টারনেটে থেকে পড়ার জন্য এখান ক্লিক করুন।

এই ঘটনা সমসাময়িক আরবে ব্যাপাকভাবে আলোচিত হয়েছিলো এবং মানুষের মুখে মুখে রটে গিয়েছিলো কেননা ইমরুল কায়েস ছিলেন আরবের শ্রেষ্ঠ কবিদের একজন। তার কবিতা কাবাঘরের দেয়ালে ঝুলিয়ে রাখা হত। যে কোন শ্রেষ্ঠ কীর্তিকে আরবরা তাদের ঈশ্বরের মন্দিরের দেয়ালে সেঁটে রেখে সন্মান জানাতো। ইমরুল কায়েসের এই কবিতা চুরির ঘটনা ধামাচাপা দিতে ব্যাপক প্রচারণা চালানো হয় যে, নবী মুহাম্মদ যখন কুরআানের মত অনুরূপ সুরা লিখে আনার চ্যালেঞ্জ করেছিলো তখন কুরাইশরা তাদের শ্রেষ্ঠ কবি ইমরুল কায়েসকে ডেকে এনেছিলো কুরআনের মত করে সুরা লিখে আনতে। দাবী করা হয় ইমরুল কায়েস চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে পরাজিত হয়ে স্বীকার করেন কুরআনের মত করে কোন মানুষের পক্ষে সম্ভব নয়… ইত্যাদি। অথচ ইমরুল কায়েস মারা গিয়েছিলেন নবী মুহাম্মদের জন্মে ৫ বছর আগে! ৫০১ খ্রিস্টাব্দে জন্ম নেয়া এই আরব যাযাবর কবি মারা যান ৫৬৫ সালে। আর নবী মুহাম্মদ জন্ম নেন ৫৭০ খ্রিস্টাব্দে!

প্রাক-ইসলামী যুগে আরবরা ছিলো সাহিত্য অনুরাগী। কবিরা পেত সবচেয়ে প্রতিভাবান হিসেবে স্বীকৃতি। কায়েসের কবিতায় নারী দেহের অপার সৌন্দর্য, তার গোপন অভিসার, প্রেম এসবই ফুটে উঠত তার কাব্য রসে। আরবরা সাহিত্য শিল্পের এই রস আস্বাদন করাটা ইসলাম প্রতিষ্ঠার পর নিষিদ্ধ বর্জিত হিসেবে ভাবতে বাধ্য হয়। ইমরুল কায়েস সম্পর্কে মুহাম্মদ বলেছিলেন, যে সমস্ত কবি দোযগের আগুনে পুড়বে তার মধ্যে ইমরুল কায়েস অন্যতম। অথচ কুরআনের যতটুকু কাব্যিক নির্যাস তা ইমরুল কায়েস থেকে নকল করা যা সরাসরি কবি কন্যা চুরির অভিযোগ করেছিলেন কুরআনের বিরুদ্ধে…।

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

সুষুপ্ত পাঠক
সুষুপ্ত পাঠক এর ছবি
Offline
Last seen: 5 দিন 4 ঘন্টা ago
Joined: শনিবার, ডিসেম্বর 21, 2013 - 3:33অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর