নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 9 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • গোলাম রব্বানী
  • বিকাশ দাস বাপ্পী
  • অনন্য আজাদ
  • নুর নবী দুলাল
  • আব্দুল্লাহ্ আল আসিফ
  • মোমিনুর রহমান মিন্টু
  • মিশু মিলন
  • সত্যর সাথে সর্বদা
  • রাজিব আহমেদ

নতুন যাত্রী

  • ফারজানা কাজী
  • আমি ফ্রিল্যান্স...
  • সোহেল বাপ্পি
  • হাসিন মাহতাব
  • কৃষ্ণ মহাম্মদ
  • মু.আরিফুল ইসলাম
  • রাজাবাবু
  • রক্স রাব্বি
  • আলমগীর আলম
  • সৌহার্দ্য দেওয়ান

আপনি এখানে

বনের খুনির চেয়ে মনের খুনিই বড় খুনি


আপনারা রাস্তায় ভিখারী দেখেননি এমন বাঙালি হয়তো অনলাইনে খুঁজে পাওয়া যাবে না৷ ভিক্ষা বিষয়টা পেটের জন্য করা যখন কাজ পাওয়া যায়না, যখন খাদ্যের অভাব হয়, যখন আপন মানুষটাকে বাঁচিয়ে রাখতে উপায় থাকেনা, যখন মানুষ কোন উপায় বা রাস্তা আর চোখে দেখেনা তখন করে বা সেখান থেকে উৎপত্তি৷

এই দূর্বলতা, দারিদ্রতা, অসহায়ত্বকে পুঁজি করেছে বারংবার মানুষ৷ "মানুষ মানুষের জন্য" কথাটি হয়েছে সেই পুঁজির শ্লোক বা স্লোগান৷ অবস্থা এমন হয়েছে যে ইচ্ছা করেই কেউ ভিক্ষা করে, কেউ সেটা পেশা হিসেবে নিয়েছে, কেউ অভ্যাসে পরিণত করেছে, কেউ কমিটি করে সেটা প্রভাব বিস্তার করেছে, কেউ পঙ্গু না হলেও পঙ্গু সেজে যাচ্ছে, কেউ ছোট হতে রাস্তায় নামিয়ে দিচ্ছে শিশুকে আর পঙ্গু করছে আগামী আর কেউ সত্যি সত্যিই রাস্তা হারিয়ে হাহাকার করছে৷

মনের পঙ্গুত্বের চেয়ে বড় পঙ্গু আর নেই বোধ করি৷ আজ ফেবুতে চলছে মানবতার আরেক পুঁজি৷ কেউ শীতার্তদের নামে টাকা তুলে মেরে দিচ্ছে, কেউ বন্যাত্বদের নামে টাকা তুলে নিজেরা ফুর্তি করছে অনুষ্ঠান করছে, সংসার চালাচ্ছে এমনকি নেটের বিলটাও দিচ্ছে ভিক্ষার টাকায়, যেটা এসেছিলো সেবা কিংবা সহায়তার নামে৷ কেউ রোগের কথা বলে মেরে দিচ্ছে টাকা, কেউ অভাবের কথা বলে নিয়ে মেরে দিচ্ছে টাকা৷

এতে হয়তো কিছুদিনের আয়েশ বিলাসিতা হচ্ছে হবে কিন্তু কতদিন? কতদিন একটার পর একটা বিশ্বাস ভেঙ্গে খাওয়া হবে? যেদিন বিশ্বাসের কোটা শুন্য হবে, মানুষ আর বিশ্বাস করবে না, ফ্রি-তে পেতে পেতে আর কাজ করার জন্য মন ছুটবে না, সেদিন কি হবে? সেদিন সত্যি সত্যিই যদি বিপদ আসে, তবে টাকাতো কেউ দেবেই না বরং সেদিন অনেকে প্রতারক প্রতারক বলে নানা প্রমাণ হাজির করবে যাতে দুই একজন দেবার লোক থাকলে তারাও মন ফিরিয়ে নেয়৷

আপনি মানুষের বিশ্বাস নিয়ে নয় বরং কিছু অসহায় মানুষের পেট নিয়ে খেলেছেন৷ কেননা আপনার প্রতারণার কারণে যে মানুষগুলো সত্যই বিপদমুখি তারা হারাবে শেষ আশ্রয়টাও৷ গরীব অক্ষম লোকদের বাঁচার শেষ মুখেও লাতি মারছেন খুব সহজে৷

আপনারা হয়তো বুঝতে পারছেন না, কত জগন্য নোংরা কাজটা আপনারা করছেন৷ শুধু তাই না, আপনারা মানুষ হতে টাকা তুলে যা করছেন বা করেছেন তাতে কত জীবন কত মৃত্যু নিয়ে যে খেলা করছেন তা নিজেরাই জানেন না৷ এতটা নির্বোধ না হয়ে একটু চিন্তা করলে সব পাবেন৷

আপনারা হয়তো বুঝতে পারছেন না আসলে অসহায়ত্ব কাকে বলে!? আমি বুঝি! কেন বুঝি জানেন? কারণ আমি নিম্নবিত্ত হতে উঠে আসা কেউ৷ আমার মা অসুস্থ হয়ে ছোট ছোট তিনটা বাচ্চা শিশু রেখে মারা গেছেন৷ কেন গেছে জানেন? অভাবে! অভাব টাকার, অভাব মানুষের দয়া, মায়া, করুণার৷ শুধু মাত্র কারো পকেটে হাত দিতে হয় বলে কেউ হাসপাতালে নেবার ব্যবস্থা করেনি, কেউ ডাক্তার নিয়ে আসেনি, কেউ টাকা তুলেনি৷ মরার আগে যারা পকেটে হাত দেয়নি, মরার পর তারাই কত সুনাম, কত আপসোস, কত দুঃখ প্রকাশ, কত কান্না করেছে৷ নিজের হাতে আগুন জ্বালিয়ে দিয়েছি অবহেলার একটা মেয়েকে৷

হয়তো আপনারা সেটাই করছেন৷ কারো এক রাতের ব্যবধানে হারিয়ে যাওয়াকে ডেকে আনছেন মানুষের বিশ্বাস মেরে৷ বিশ্বাস মরলে যে মানুষ মরে বোধে উঠছেনা, সেই বোধে না উঠাকে তুলে দিচ্ছেন খাল পাড়ের কাষ্ঠে নয়তো পুতে দিচ্ছেন মাটির তলায়৷ অনেক বিশ্বাসের কবর দিয়ে আর চিতা জ্বালিয়ে দিচ্ছেন৷ এটাও এক ধরণের খুন৷ হাতিয়ার দিয়ে মারা মানে একটা সংখ্যা মেরে ফেলা আর বিশ্বাসে বিষ দিয়ে মানবতা মারা মানে একটা জাতি মেরে ফেলা৷ বনের খুনির চেয়ে মনের খুনি বড়৷ মনের খুনি অগনিত খুন করে শুধু বুঝা যায় না কতটা খুন হলো দিনের পর দিন৷

যাহোক, আপনারা যে যেখানে যাকে টাকা দেন না কেনো, ভালো করে খোঁজ খবর নিয়ে দিন৷ শুধু গ্রহীতার নয়, দাতার দোষও আছে৷ মানবতার জন্য কখনো পিছ পা হবেন না, শুধু ভালো করে জেনে সামনে আগান৷

বেশি ভালো হয় মাধ্যম না করে যদি নিজে দেখে শুনে যাচাই করে দেয়া যায়৷ নিজে না হলেও নিজের লোক দিয়ে৷ আর শীত বস্ত্রের জন্য অমুক শহর তমুক শহরে যেতে হয়না কিংবা বিকাশ করে দিতে হয়না৷ আপনার চোখ থাকলে আপনার পাশেই আছে৷ আপনি একজনকে দিলে আমি একজনকে দিলে শীতার্ত বলতেই পাওয়া যাবে না৷ নিজে কিনছিতো দুটো কিনলাম একটা গরীবকে দিলাম ব্যস৷ আমিতো কোটিপতি না যে ১ লাখ মানুষকে দেব! একজনকে দিই?

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

কাঙালী ফকির চাষী
কাঙালী ফকির চাষী এর ছবি
Offline
Last seen: 10 ঘন্টা 13 min ago
Joined: শুক্রবার, ডিসেম্বর 29, 2017 - 2:02পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর