নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • শাম্মী হক
  • সলিম সাহা
  • নুর নবী দুলাল
  • মারুফুর রহমান খান
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী

নতুন যাত্রী

  • চয়ন অর্কিড
  • ফজলে রাব্বী খান
  • হূমায়ুন কবির
  • রকিব খান
  • সজল আল সানভী
  • শহীদ আহমেদ
  • মো ইকরামুজ্জামান
  • মিজান
  • সঞ্জয় চক্রবর্তী
  • ডাঃ নেইল আকাশ

আপনি এখানে

কোরানের আলোকে ইসলামের ইতিহাস (৫)


মুহাম্মদের সময় আরবের মানুষ নীল নদের দেশকে যে কিব্‌ত নামে জানত , তা আমরা আরো জানতে পারি মারিয়া আল-কিবতিয়া এই নামের মাধ্যমে। ইসলামি গল্প অনুযায়ী মুহাম্মদকে নীল নদের দেশ থেকে মারিয়া নামের একটি দাসী উপঢৌকন হিসাবে পাঠানো হয়েছিল , যাকে পরে মুহাম্মদ বিয়ে করেছিলেন। মারিয়ার দেশের নাম অনুসারে তার টাইটেল বা নামকরন করা হয় আল-কিবতিয়া।

তাহলে কোরানে বর্নীত মিস্‌র/ মিশর দেশ বা জায়গাটি কোথায় এবং এই নামটিই বা কোথা থেকে আসলো ? এর উত্তর খুঁজে বের করা আমাদের প্রধান উদ্দেশ্যগুলোর একটি।

এখন পর্যন্ত আমরা দেখলাম মুহাম্মদের সময় আরবের লোকেরা নীল নদের দেশকে কিব্‌ত নামে জানত। তাহলে কবে থেকে আরবের লোকেরা এবং সেই সাথে বিশ্বের মুসলমানরা নীল নদের দেশকে কিব্‌তের বদলে মিস্‌র/মিশর নামে মেনে নিল?

কোরানে মিস্‌র নামটি এসেছে মুসা ও ফেরাউনের আবাসভূমির নাম হিসাবে। স্বভাবতই মিস্‌র কোথায় , এর জবাব ইহুদিদের কাছ থেকে জানা সম্ভব এবং মুসলমানরা সেই কাজটিই করেছে। ফলস্বরুপ ইহুদিরা খৃঃপূঃ ৩০০ সালে কিব্‌তকে মিশর বলে চালিয়ে দেয়ার জালিয়াতি সফলভাবে মুসলমানদের মন মানসে ঢুকিয়ে দিতে সমর্থ হয়েছে। কোরানের মিস্‌র কোথায় সেটা জানতে হলে আমাদের জানতে হবে আনুমানিক ৩০০০বছর পূর্বে মুসার সময় নীল নদের দেশকে সেদেশের মানুষ কি নামে জানত এবং ঐ সময়ে সেই দেশের শাসকের নাম বা টাইটেল ফেরাউন ছিল কিনা?

( বিঃদ্রঃ- একজন প্রশ্ন করেছেন ফেরাউন বা মিস্‌র কোথায় এটা জেনে লাভ কী?
এটা জানার মাধ্যমে আমরা জানতে পারব কিভাবে ইসলামের ইতিহাস বিকৃত হয়েছে , কিভাবে আমরা কোরান থেকে দুরে সরে গিয়েছি। যে জেরুসালেম নিয়ে আমরা আজ জীবণ দিচ্ছি , সেই জেরুসালেমে বা বর্তমানের মিশরে মুসা বা ইব্রাহিম কখনো পদার্পন করেনি। যে মক্কা মুসলমানদের পবিত্র ভূমি , যেখানে মসজিদুল হারাম অবস্থীত , কোরানের আয়াত বিশ্লেষন করলে মনে হয় সেই মক্কায় মুহাম্মদ জন্মানো দুরে থাক কখনো পা ও ফেলেনি। যদিও পরকালে মুক্তির জন্য এগুলো জানা আবশ্যক নয় , তবে নিজের কৌতুহল মেটাতে এবং কোরান যে সত্য সে বিশ্বাস দৃঢ় করতে এই জ্ঞান সাহায্য করবে।)

প্রাচীন সময়ের নীল নদের অববাহিকা

ইজিপ্ট গবেষকরা প্রাচীন ইজিপ্টের ইতিহাসকে দুই ভাগে ভাগ করেছেনঃ ঐতিহাসিক যুগ ও রাজবংশের যুগ। ঐতিহাসিক যুগে এই ভূমি ছোট ছোট স্বাধীন রাজ্যে বিভক্ত ছিল। পর্যায়ক্রমে একিভূত হতে হতে দুটি বড় রাজ্যে পরিনত হয়। ভিতরের অংশগুলো নিয়ে গঠিত হয় আপার ইজিপ্ট , নীল ব-দ্বীপ সহ উপকূলীয় অঞ্চল নিয়ে লোয়ার ইজিপ্ট। এই অবস্থা চলতে থাকে ৩০২০ খৃঃপূঃ পর্যন্ত , যখন রাজা নারমার প্রথমবারের মতো আপার ও লোয়ার ইজিপ্টকে এক করতে সমর্থ হন এবং শুরু হয় রাজবংশের যুগ। নারমার থেকে শুরু হয়ে একে একে ৩০টি রাজপরিবার ইজিপ্ট শাসন করে এবং এই শাসন শেষ হয় ৩৩২ খৃঃপূঃ আলেক্সান্ডার দি গ্রেট কর্তৃক ইজিপ্ট জয়ের মাধ্যমে। শুরু হয় টলেমি যুগ।

ঐতিহাসিক যুগে দেশটি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অংশে বিভক্ত ছিল বিধায় ঐতিহাসিক ও প্রত্নতাত্ত্বিকরা এই নীল ব-দ্বীপের কোন নাম খুজে পায়নি। রাজা নারমার সকল অঞ্চলকে নিয়ে এক দেশ বানানোর পরে এই দেশের নাম দেন কেমেট বা কেমে , যা হিয়েরোগ্লাফিক বর্ণে লেখা। (হিয়েরোগ্লাফিক বর্ণে লেখা নাম নিচে দেয়া হলো) কেমেট অর্থ - কাল ভূমি। কেউ কেউ "খেমে" উচ্চারন ও করেন। সেই সময়ের অধিবাসীদের ডাকা হতো "Remetch en Kemet" / কাল ভূমির লোক।

পরবর্তিতে এই দেশটির নাম নিয়ে ঐতিহাসিক ও প্রত্নতত্ববিদদের মাঝে মত পার্থক্য আছে। কারো মতে বিখ্যাত দেবী " প্তাহ " র নাম অনুসারে দেশটির নাম হয় " হেট-কা-প্তাহ" অর্থাৎ প্তাহর কার রাজত্ব। কোন কোন বিশেষজ্ঞ মনে করেন এই নামটি পুরো দেশের নয় , বরং রাজধানি মেম্ফিস ও পার্শবর্তি এলাকার নাম। আবার ৩য় এক পক্ষ মনে করেন নীল নদ রেড সীর সবচেয়ে নিকটবর্তি হয়েছে যেখানে , সেই অঞ্চলের নাম এটি।

আমাদের ও মনে হয় সম্ভবত "হেট-কা-প্তাহ" নামটিই সঠিক , কারন এটারি গ্রীক অপভ্রংশ Aegyptos/ ইজিপ্ট। যাই হোক না কেন , আমরা ৩টি নাম পেয়েছি এপর্যন্তঃ- "কেমেট , খেমে ও হেট-কা-প্তাহ"। যার একটির ও সাথে "মিস্‌র/মিশর" নামের মিল নেই। বরং কিব্‌তের মিল পাওয়া যায়। হেট-কা-প্তা >Aegypto>ইজিপ্ট> ই-গিপ্ত>গিপ্ত>কিব্‌ত।

নীল নদ অববাহিকায় পারস্য/ইরানি শাসন

দুটি ভিন্ন সময়ে ইরানিরা এই দেশ শাসন করেছে। প্রথমবার ৫২৫ খৃঃপূঃ থেকে ৪০৪ খৃঃপূঃ পর্যন্ত ৫জন ইরানি রাজার অধীনে এই দেশ শাসিত হয়েছে , যাদের শেষ জন ছিলেন রাজা দ্বিতীয় দারিউস। দ্বিতীয়বার তারা শাসন করে ৩৪১ খৃঃপূঃ থেকে ৩৩২ খৃঃপূঃ পর্যন্ত এবং এই শাসনের অবসান ঘটে আলেক্সান্ডার দি গ্রেটের বিজয়ের মাধ্যমে। ইরানিদের শাসন আমলের এমন কোন রেকর্ড বা প্রত্নতাত্বিক নিদর্শন পাওয়া যায় নি যাতে জানা যায় ইরানিরা দেশটির নাম পরিবর্তন করে মিস্‌র বা সাদৃশ্য কোন নাম রেখেছিল।

গ্রীক ও রোমান শাসন

টলেমিক যুগ শুরু হয় ৩৩২ খৃঃপূঃ লাগোস (১ম টলেমি) পুত্র রাজা টলেমির নীল অববাহিকার শাসনভার গ্রহনের মাধ্যমে এবং শেষ হয় রোমান সম্রাট আগস্টসের বিজয় দিয়ে ৩০ খৃঃপূঃ। গ্রীক ও রোমানরা কিছু কিছু শহর ও অঞ্চলের নাম পরিবর্তন করেছে তাদের জন্য উচ্চারনের সুবিধার্তে । যেমন বৃটিশরা বাংলাকে করেছে বেঙ্গল , কলিকাতাকে ক্যাল্কাটা , ঢাকাকে ড্যক্কা ইত্যাদি, তেমনি গ্রীক ও রোমানরা মেম-নোমেরকে মেমফিস এবং দেশটির নাম হেট-কা-প্তাহ থেকে Ae-gyp-tus /ইজিপ্ট করেছে। এবং তখনকার যত মানচিত্র পাওয়া যায় সব তাতেই এই Ae-gyp-tus বিদ্যমান। কোথাও মিস্‌র/মিশর নেই। এমনকি মিশর নামে কোন ছোট খাট শহরের নাম ও নেই। প্রাচীন দুটি মানচিত্র দিলাম , দেখুন তখন থেকে এখন পর্যন্ত পশ্চিমারা নীল নদের দেশকে ইজিপ্ট বলেই জানে। এমন কি কম গুরুত্বপূর্ণ পার্শবর্তি দেশ লিবিয়ার নামের ও কোন পরিবর্তন হয় নি। তাহলে কবে থেকে মুসলমানরা বিখ্যাত এই দেশ ইজিপ্ট/কিব্‌ত কে মিস্‌র /মিশর বলা শুরু করল?

মজার ব্যাপার হলো বর্তমানকালে পশ্চিমা দেশের লোকের সাথে আলাপকালে স্বতস্ফুর্তভাবে বলবে আমি ইজিপ্সিয়ান (কিব্‌তি) আবার সেই একি লোক আরবের লোকের কাছে বলবে আমি মিছ্‌রি। কখনো কি ভেবে দেখেছেন ইজিপ্সিয়ান খৃষ্টানদের কেন কপ্টিক (কিব্‌তি) খৃষ্টান বলে? এদের সাথে গ্রীক রাশান ও অন্যান্য খৃষ্টানদের বিশ্বাস বা ধর্মীয় রীতি নীতিতে কোন পার্থক্য নেই। আবহমান কাল থেকে চলে আসা এদের জাতীয় পরিচিতি তুলে ধরতেই কপ্টিক নামকরন।

আমরা দেখলাম আঁদিকাল থেকে মুহাম্মদ পরবর্তি সময় পর্যন্ত নীলনদের দেশকে সকলে কিব্‌ত/ইজিপ্ট নামেই জানত। আল্লাহ নিশ্চয় কোরানের মাধ্যমে ইজিপ্টের নাম পরিবর্তন করে মিস্‌র রাখেন নি , এমনটি হলে কোরানে তার উল্লেখ থাকত। এমন ও তো হোতে পারে , সম্ভবত আল্লাহ মিস্‌র দিয়ে ইজিপ্ট নয় , অন্য কোন দেশ বোঝাচ্ছেন।

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

ফারুক
ফারুক এর ছবি
Offline
Last seen: 3 months 2 weeks ago
Joined: বুধবার, জুলাই 29, 2015 - 9:16অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর