নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 7 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • গোলাম রব্বানী
  • বিকাশ দাস বাপ্পী
  • অনন্য আজাদ
  • নুর নবী দুলাল
  • আব্দুল্লাহ্ আল আসিফ
  • মোমিনুর রহমান মিন্টু
  • মিশু মিলন

নতুন যাত্রী

  • ফারজানা কাজী
  • আমি ফ্রিল্যান্স...
  • সোহেল বাপ্পি
  • হাসিন মাহতাব
  • কৃষ্ণ মহাম্মদ
  • মু.আরিফুল ইসলাম
  • রাজাবাবু
  • রক্স রাব্বি
  • আলমগীর আলম
  • সৌহার্দ্য দেওয়ান

আপনি এখানে

জিহাদি ত্রিভূজ


ডেভিড উড হল একজন আমেরিকান খ্রীষ্টান প্রচারক যিনি মূলত মুসলমাদের কাছেই খ্রীষ্টধর্ম প্রচার করেন, ইউটিউবে তার কমপক্ষে ৬০০ টি ভিডিও আছে যার প্রায় সবিই ইসলাম নিয়ে, যার মোট দর্শক সংখ্যা ৪ কোটির উপর, ডেভিড উড যুক্তরাষ্ট্রের ফোর্ডহাম বিশ্ববিদ্যলয় থেকে দর্শনে ডক্টরেট ডিগ্রি নেন। ইসলাম নিয়ে তার অনেক ভিডিওর একটি হল The Jihad Triangle
ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন
আমি সে ভিডিওটির অনুবাদ করে দিলাম মূল ভিডিওটি দেয়া থাকবে প্রয়োজনে চেক করে দেখতে পারেন।


রেখা হলো একমাত্রা বিশিষ্ট তবে আপনি যদি কতগুলো রেখা এক সাথে ঠিকভাবে ভাবে জুড়ে দেন তাহলে তা দ্বিতীয় মাত্রা পায়, যা একমাত্রা বিশিষ্ট রেখার তুলুনায় জটিল হয়। মানুষ হল জটিল প্রানী আমরা আমাদের সিদ্ধান্ত অনেক পৃথক বিষয় থেকে পেতে পারি, জিনগত ভাবে, শৈশবের স্মৃতি কারনে, অনুভুতির কারনে, বিশ্বাসের কারনে, বা কামনার কারনে। আমরা যা কিছু করি তার অনেক বিষয় গুলোকে সহজেই ব্যাখ্যা করা যায় না সুতরাং মাত্র একটি কারন দেখিযেই কোন বিষয় কে বুঝতে চাইলে তা প্রাই ভুল পথে নিয়ে যায়।

জিহাদের কথা ধরুন, জিহাদ কি কারনে হয়?
দারিদ্রতা? যদি তাই হয় তাহলে কি আমরা মুসলিম অমুসলিম নির্বিশেষে সব দারিদ্রকে জিহাদ করতে দেখবো?

জিহাদের জন্য কি ইসলাম দায়ি? যদি তাই হয় তাহলে যারা ইসলামে বিশ্বাস করে তারা সবাই জিহাদি হতো না?

এক মাত্রার ব্যাখ্যা আমাদের জিহাদের কারন সম্পর্কে সঠিক তথ্য দেয় না কারন এটি একটি কারনের দ্বারা ঘটে না।

জিহাদ তিনটি কারনের দ্বারা ঘটে, এই তিনটি মাত্রা যদি একসাথে না হয় তাহলে জিহাদ হয় না। যখন এই তিনটি মাত্রার যোগ ঘটে তাকে আমরা জিহাদি তৃভুজ বলি।


প্রথম মাত্রা- ইসলামে বিশ্বাস,
আপনাকে জিহাদি হতে গেলে বিশ্বাস করতে হবে যে আল্লাহ ছাড়া কোন মাবুদ নেই, এবং মুহাম্মদ তার নবী এবং আপনাকে আল্লাহ ও মুহাম্মদের শিখানো পথে জীবন জাপন করতে হবে। কারন আপনি যদি আল্লাহকে বিশ্বাস না করেন তাহলে জিহাদ করবেন না আপনি অন্য কোন কারনে সংগ্রাম করতে পারেন তবে তা জিহাদ হবে না।


দ্বীতিয় মাত্রা- ইসলামিক জ্ঞান,
আপনি ইসলামে বিশ্বাস করতে পারেন এটি না যেনে যে আল্লাহ বলেন যে তাদের সাথে যুদ্ধ করো যারা আল্লাহুকে বিশ্বাস করে না ( সূরা ৯ আয়াত ২২৯) বা মুহাম্মদ ঘোষনা করেছে যে আমাকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে যুদ্ধ করতে যতক্ষন তারা না বলে যে আল্লাহ ছাড়া কোন মাবুদ নেই (সহি আল বুখারী ৬৯২৪ ইংরেজি ভলিউম) যখন আমি এই ধরনেই নির্দেশের কথা পশ্চিমা মুসলমানদের বলি, তারা সাধারনত জানেই না যে আমি কি বলছি, যদিও আমি আল্লাহ ও মুহাম্মদের উদ্রিতি দিচ্ছি। কিন্তু জিহাদিরা এ ধরনের উদ্রিতির কথার সাথে পরিচিত, জিহাদিরা শুধু নামে মুসলমান না তারা জানে যে তাদের নির্দেশ দেয়া আছে যে তারা যেনে সংঘাতের মাধ্যমে অবিশ্বাসীদের বস করো।

তৃতীয় মাত্রা, বাধ্যতা,

পৃথিবী এমন মানুষে ভারা যারা এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তুলেছে যারা তাদের পছন্দ অনুযায়ী জীবন যাপন করে। কিন্তু কিছু মানুষ আছে যারা একটিু ভিন্নভাবে তৈরি তারা এমন কাজ করতে দ্বিধা করে না যা তারা ঠিক বলে বিশ্বাস করে যা তার পরিনতি যাই হউক না কেন আপনি তাদর হত্যা করতে পারেন তবুও তারা এটি করবেই। এই ধরনের মানুষ যখন কোন উত্তম বিশ্বাসের সাথে যুক্ত হয় তারা অনুসরনীয় ব্যক্তি হিসেবে তৈরি হয় এরা এমন মানুষ হিসেবে তৈরি হয় যারা নিজেদের জীবন অন্য মানুষের তরে বিলিয়ে দেন। কিন্তু এই ধরনের মানুষ যখন ইসলাম ও আল্লাহর নির্দেশের সাথে যুক্ত হন তখন তার ফলাফল হয় ইসলামের নোংরা শিক্ষার বাধ্যতায় যেমন,”হে নবী, কাফেরদের সাথে যুদ্ধ করুন এবং মুনাফেকদের সাথে তাদের সাথে কঠোরতা অবলম্বন করুন। তাদের ঠিকানা হল দোযখ এবং তাহল নিকৃষ্ট ঠিকানা” সূরা ৯ আয়াত ৭৩।

শুধু মাত্র ইসলামে বিশ্বাস জিহাদি তৈরি করে না, শুধু ইসলামিক শিক্ষার জ্ঞানই জিহাদি তৈরি করে না। শুধু মাত্র নিজের বিশ্বাসে বাধ্যতাই কাউকে জিহাদি করে গড়ে তোলে না। তৃতীয় মাত্রাটি ছাড়া এর যেকোন দুটি মাত্রার যোগফল আপনাকে জিহাদ দেবে না।


আপনি ইসলামে বিশ্বাস করতে পারেন এবং আপনার ইসলামিক বিশ্বাসের প্রতি প্রচন্ড রকমের বাধ্যতা থাকতে পারে কিন্ত ততক্ষন প্রর্যন্ত আপনি জিহাদ করতে পারবেন না যতক্ষন না আপনি জানেন যে আল্লাহ ও মুহাম্মদ জিহাদের নির্দেশ দিয়েছে।


আবার আপনি ইসলামে বিশ্বাস করতে পারেন, আবার এটিও জানেন যে আল্লাহ ও মুহাম্মদ জিহাদের নির্দেশ দিয়েছেন, কিন্তু আপনি আপনার বিশ্বাসের প্রতি বাধ্য না থাকেলে জিহাদ করবেন না।


আবার আপনি জানতে পারেন যে আল্লাহ ও মুহাম্মদের শিক্ষা কি, এবং আপনি আপনার বিশ্বাসের জন্য জীবন দিতে পারেন, কিনত্ত আপনি ইসলামে বিশ্বাস করেন না তাহলেও আপনি জিহাদ করবেন না।

যখন আমরা এটি বুঝবো যে জিহাদি হবার জন্য তিনটি মাত্রার সবকটিই প্রয়োজন তখন আমার ইসলমের হিংস্র সংঘাত সম্পর্ক সাধারন প্রশ্নগুলির উত্তর দিতে শুরু করতে পারবো। উদাহরন হিসেবে বলা যায়, আমরা প্রায়ই প্রশ্ন শুনি ইসলাম যদি হিংস্র হবে তাহেলে আমরা কেন এতো অহিংস্র মুসলমান দেখি?
কারন হল অধিকাংশ পশ্চিমা মুসলমানদের তিনটি মাত্রার মাত্র একটি আছে,


তাদের ইসলামের প্রতি বিশ্বাস আছে, কিন্তু তার জানে না যে ইসলামের শিক্ষা কি, আর আপনি যদি তাদের বলেনও যে ইসলামের শিক্ষা কি তারা এই শিক্ষার প্রতি বাধ্য নয় কারন তারা এটি পছন্দ করে না। আমি জখন পশ্চিমা মুসমাদের সাথ কথা বলি তা সাধারনত এভাবে হয়, তারা বলে ইসলাম হল শান্তির ধর্ম, আমি তখন কোরান থেকে কিছু আয়াতের উল্লেখ করি, তখন তারা বলে যে আমি এই আয়তগুলোর প্রসঙ্গ এরিয়ে গেছি, তখন আমি তাদের উক্ত আয়েতের প্রসঙ্গ বিস্তারিত ভাবে বলি তারা তখন আমাকে বলে আমার ইসলামভিতি আছে, এবং আমার সাথে কথা বলে কোন লাভ নেই। খেয়াল করুন যখন এদের সামনে আল্লাহর নির্দেশ ও প্রসঙ্গ পরিষ্কার ভাবে তুলে দেয়া হয় তখনও আনেক মুসলাম তা পালন করবে না কারন তারা তাদের বিশ্বাসের প্রতি বাধ্য নয় তারা সবসময় একটি মাত্রা পিছিয়ে থকাবে।

আরেকটি বিষয় হল, জঙ্গি তৈরি হবার বিষয়টি, আমরা কতোবার শুনি যে, ছেলেটি এতো ভদ্র আমরা জানিনা যে সে কিভাবে আই, এস, এর মতো জঙ্গিগোষ্ঠীর সাথে যোগ দিল। বিষয়টি আসলে খুবিই সহজ, হয়তো সে এই তিনটি মাত্রার যে কোন একটি তার আছে. হয়তো সে মুসলিম হিসেবে বড় হয়েছে, নয়তো সে ইসলাম গ্রহন করেছে, যেভাবেই হউক, প্রর্থম মাত্রাটি যোগ হলে,

জঙ্গিবাদের উৎহাদিত করা ব্যক্তিরা বাকি দুটি মাত্রা যোগ করেত কাজ শুরু করতে পারে। তুমি মনে করো আল্লাহু চায় যে আমরা বির্ধমিদের সাথে শান্তিতে বসবাস করি, তুমি এই শিক্ষা বির্ধমিদের কাথ থেকে পেয়েছো আল্লাহুর কাছ থেকে নয়, আমাকে দেখাতে দাও যে আল্লাহু আসলে কি শিখিয়েছেন,


তারপরে দ্বিতীয় মাত্রাটি ঠিকভাবে যুক্ত হবার পরে জঙ্গিবাদ প্রচার করা ব্যক্তিরা তৃতীয় মাত্রাটি অর্থাৎ বাধ্যা যোগ করবার জন্য কাজ শুরু করে। তুমি মনে করো যে তুমি ইচ্ছেমতো আল্লাহর শিক্ষা থেকে তোমার পছন্দ মতো এটা ওটা বাছাই করে পালন করতে পারো যেন আমাদের ধর্ম হলো দুপুরের খাবেরের তালিকায় খাদ্য নির্বচনের মতো। আল্লাহ চান পুরোপুরি আত্মসমর্পণ, আরা তুমি যদি পুরোপুরিভাবে আত্মসমর্পণ না করো তাহলে তুমি প্রকৃত মুসলমান নও তাহলে তুমি দোজখে যাবে। আনেক যুবক মুসলমান আছে তারা জঙ্গিবাদের এসব প্রচারকদের কোন কথা শুনবে না কোন ভাবেই তার ইসলামের প্রতি বাধ্য হবে না, কিন্তু কিছু ব্যক্তিরা তাদের ব্যগ গোছাবে এবং পরর্বতি তুরষ্কের বিমানটিতে উঠবে যারা আর কখনো ফিরবে না।


এখন এটি কি আমি না বিষয়টি আসলেই সহজ? যা আলচনা করলে একটি ৫ বছরের শিশুও বুঝতে পারে, আর যদি একটি ৫ বছরের শিশু এটি বুঝতে পারে কেন আমাদের রাজনৈতিক ব্যক্তি ও গণমাধ্যম কেন জিহাদের বিষয়ে এতটা ধন্ধে আছে? বিষয় হচ্ছে রাজনৈতিক ব্যক্তি ও গণমাধ্যম গুলোর এরকম হবার পিছনে আরো একটি আকার কাজ করছে যাকে আমি বলি, অষ্টভুজের মেরুডন্ডহীনতা, তবে আমার মনে হয় একদিনের জন্য যথেষ্ট জ্যামিতি হয়েছে।

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

মাইকেল অপু মন্ডল
মাইকেল অপু মন্ডল এর ছবি
Offline
Last seen: 1 week 2 দিন ago
Joined: বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী 2, 2017 - 4:17অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর