নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

শিডিউল

ওয়েটিং রুম

এখন 0 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

নতুন যাত্রী

  • আমি ফ্রিল্যান্স...
  • সোহেল বাপ্পি
  • হাসিন মাহতাব
  • কৃষ্ণ মহাম্মদ
  • মু.আরিফুল ইসলাম
  • রাজাবাবু
  • রক্স রাব্বি
  • আলমগীর আলম
  • সৌহার্দ্য দেওয়ান
  • নিলয় নীল অভি

আপনি এখানে

আসাদ নুরের গ্রেপ্তারে যেইসব নারীবাদী ও অন্যান্য প্রগতিশীল ব্লগাররা চুপ, তাদের উদ্দেশে বলছি--


আসাদ নুরের গ্রেপ্তারে যেইসব নারীবাদী ব্লগার ও অন্যান্য প্রগতিশীল ব্লগাররা অদ্ভুত রকম চুপ, তাদের উদ্দেশে বলছি---

এই কয়দিনে আমি খুবই হতাশ হয়েছি, ভিডিও ব্লগার আসাদের ব্যাপারে আমার পরিচিত অনেক ব্লগারদের নিরব অবস্থান দেখে। যারা অন্যায় দেখে চুপ থাকতে পারেনা, যারা রাষ্ট্রের অবিচার দেখলেই অভিরাম গলার রগ ফুলিয়ে চেঁচাতে থাকেন, তারা কিভাবে ব্লগার আসাদ নুরের বাক স্বাধীনতার বেলায় অদ্ভুত রকম চুপ হয়ে আছে? আসাদ ব্লগ জগতে নতুন বলে? সেই তাদের মতো ফেমাস নয় বলে? কেউ কেউ বলছেন, ধুর আসাদ এটা আবার কে? আসাদ নুরকে তো চিনিনা, কোন আসাদ? আবার কেউ কেউ বলছেন আসাদ নুর সম্পর্কে কথা বলার নাকি রুচি হচ্ছে না। আবার অনেকে বলছেন, আসাদ নুর একজন উগ্র নাস্তিক। আবার এটাও বলছেন যে, আসাদ একজন নারী নির্যাতনকারী। আচ্ছা ধরে নিলাম, আসাদ নুর নারী নির্যাতনকারী। আসাদ তার প্রিয়জনের উপর অভিমানের বাধ ভেঙ্গে যাওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে হাত তুলেছে। এই হাত তোলা সভ্য সময়ে অবশ্যই এটা অপরাধ। অবশ্যই এটা ভায়োলেন্স! এটা কোনো ভাবেই এড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ নেই। আচ্ছা আসাদ যদি নারী নির্যাতনকারী হয়েও থাকে, সেই ইস্যুকে কেন্দ্র করে আসাদ নুরের বাক স্বাধীনতার পক্ষে না থাকা, তার পক্ষে অবস্থান না নিয়ে চুপ করে এড়িয়ে যাওয়া এটা আমাদের কতোটুকু দায়িত্বজ্ঞাণের পরিচয়? কিছু নারীবাদীকে দেখছি তারা দিনশেষে শুধুমাত্র নারীবাদীর বিষয় নিয়ে অন্ধ মোহে আচ্ছন্ন থাকেন। দিনশেষে নারীবাদীরই প্রতিনিধিত্ব করেন। আর কোত্থাও মানুষের বাক স্বাধীনতা লঙ্ঘিত হচ্ছে সেই খবর তারা রাখেন না বা রাখতে চান না। তারা নারীবাদের বিষয় নিয়ে ভুত হয়ে পড়ে থাকতে চান। এতে তাদের মানুষ ও সাম্যের কথা বাদ দিলে শুধু নারীবাদের অবস্থানটাই ফুটে উঠে। ফুটে উঠে শুধুমাত্র নারীবাদের বন্দনা!

সেদিন আসলে আসাদের সাথে তার গার্লফেন্ডের কি হয়েছিল? কেন আসাদ তার প্রেমিকার গায়ে হাত তুলেছিল? আজ সারাদিন (গত কাল) সকাল থেকে বিকেল অব্দি সমস্ত তথ্য উপাত্ত জানার জন্য কলকাতার দুয়েক জনের সাথে কথা বলে জানতে পেরেছি, হ্যাঁ আসাদ তার গার্লফ্রেন্ডের উপর হাত তুলেছে। এটা আমার দৃষ্টিতে অবশ্যই আসাদ অপরাধ করেছে। একটা সভ্য সমাজে কেউ কারো উপর হাত তোলার নৈতিক অধিকার রাখেনা। কিন্তু কেন হাত তুলেছে সেটাও একটু (এখানে আবার ধুম করে মনে করে বসবেন না, আমি ইনিয়ে বিনিয়ে নারী নির্যাতনের পক্ষে অবস্থান নিচ্ছি) শুনুন--- এপাড় থেকে নিরাপত্তার জন্য ওপাড়ে চলে যাওয়া আসাদের সাথে কলকাতায় যে মেয়েটির সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল দীর্ঘ ৬ মাস ধরে। আসাদের সাথে এক সাথে থাকার, এক সাথে খাওয়ার যে কমিটমেন্ট হয়েছিল মেয়েটির, সেই কথা আসাদ ধরে রাখলেও মেয়েটি কথা রাখেনি। মেয়েটির সাথে প্রেম প্রণয় নিয়ে চলছিল আসাদের জীবন যাপন। একদিন একরাতে আসাদ ঘরে ফিরে দেখে তার প্রিয়জনটি অন্য আরেকজন পুরুষকে বিছানায় শোয়াইয়ে তার হাত পা টিপে দিচ্ছে। আবার অন্তরঙ্গ হয়ে গ্লাসে মদও ঢেলে দিচ্ছে। পরে আসাদ জানতে পারে, পুরুষটি আসলে কেউ নয়, এই পুরুষটি তার প্রিয়জনেরই সাবেক স্বামী! এতেও আসাদের সমস্যা হয়নি। কারণ দুজন মানব-মানবী যখন একটি সম্পর্কে চুক্তিবদ্ধ হয়, তখন সেই তার চুক্তিবদ্ধ মানুষকে না জানিয়ে আরেকজনের সাথে শারিরীক.... জড়ায় তখন সেখানে নৈতিকতার মৃত্যু হয়। আর আসাদ এটাই বলতে চেয়েছিল, এটা অনৈতিক। এতে তার প্রিয়জনটি তেলে বেগুনে জ্বলে উঠল। আসাদ তার প্রেয়সীর কাছে তাৎক্ষণিক হয়ে গেল অসহনীয়! শুধু তাই নয়, আসাদকে সেদিন রাতে তার প্রেয়সী ও প্রেয়সীর স্বামী মিলে যে অপমানগুলো করেছেন, তা একটা সুস্থ মানুষের ধারণ করা সম্ভব নয়। আসাদ আশ্রিত, আসাদকে করুণা করে থাকতে দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশের প্রতিটি মুসলমানরা কুত্তা শুয়োর দিয়ে জম্ম। সব্বাই কাঙালীর বাচ্চা। এইসব নোংরা জগন্য বর্ণবাদী আচরনগুলো আসাদকেই লক্ষ্য করেই বলেছিল আসাদের প্রেয়সী। সেখানে শুধু আসাদের প্রেয়সী নয়, সাথে যোগ দিয়েছিল আসাদের প্রেয়সীর সাবেক স্বামীও। এটা প্রতিবাদ করতেই গিয়েই বাধে হাতাহাতি। তারপর রুপ নেই মারামারিতে। এতেই হয়ে গেল আসাদ নারী নির্যাতনকারী! ভাবি মানুষ কতোটা ইতর ও হিংস্র হলে একজন দেশান্তরিত ছেলের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে তার জীবন নিয়ে যা খুশি তা খেলে? ছি! ঝগড়া এখানেই থেমে থাকেনি। সেইদিন রাতে আসাদকে বের করে দেয়া হয়েছিল। আসাদ আশ্রয় নিয়েছিল বাংলাদেশ থেকে নিরুপায় হয়ে চলে যাওয়া আরেক মুফতির কাছে। যিনি কয়েক মাস আগেই ঘোষনা দিয়ে ইসলাম ত্যাগ করে নাস্তিক হয়েছিলেন। সেই মুফতিকে ফোনে বলা হয় যে, না আসাদের প্রেয়সী তার বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে কোনো অভিযোগ করেনি। কি নির্মম দুর্বলতার সুযোগ নেয়া! কে বলে শুধু প্রকৃতির কাছে মানুষ অসহায়, তার চেয়ে তো বেশি অসহায় দেখছি মানুষ মানুষের কাছে। শেষমেষ একজন দেশান্তরিত নির্বাসিত তরুনের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে পুলিশের হুমকি দেয়া! ভাবা যায়? আমি আবারও বলছি, এখানে কাউকে হেয় প্রতিপন্ন করা এটা আমার লেখার উদ্দেশ্য নয়। আমার আসাদের ব্যক্তিগত ঘরের ঝগড়া-ঝাটি তুলে এনে তার প্রেয়সীকে ছোট করার উদ্দেশ্য এই লেখার নয়। এটা আসাদের মুক্তির জন্য সকল নারী, নারীবাদী ও অন্যান্য প্রগতিশীল ব্লগারদের জোড়ালো সমর্থন আদায়ের জন্য একটা চেষ্টা মাত্র।

এখানে আমি লক্ষ্য করেছি, অনেক নারী, নারীবাদী ব্লগাররা আসাদের মুক্তির ব্যাপারে অদ্ভুত রকম চুপ। তারা আসাদের ব্যাপারে একদম নিরব ভুমিকা পালন করছেন। বিষয়টা এমনো হতে পারে আসাদ কলকাতায় থেকেই তার প্রেমিকাকে নির্যাতন করেছে বলে এই অজুহাতে তারা আসাদের মুক্তির ব্যাপারে এড়িয়ে যেতে পারে। আচ্ছা সেই নারী নির্যাতন করেছে বলে, তার বাক স্বাধীনতার অধিকারের জন্য আমরা প্রতিবাদ করবো না এটা কেমন তরো কথা? এটা কেমন তরো আমাদের অবস্থান? না না এখানে আবার আসাদের প্রেমিকার প্রতি হাত তোলাটা ন্যায় বলে আমি মনে করছি না। এই নিয়েও তর্কালোচনা হতে পারে। এতে আসাদ কতো অপরাধী তাও বলা যেতে পারে। আবারও বলছি, একটা সভ্য সমাজে কেউ কারো উপর হাত তোলার নৈতিক অধিকার রাখেনা। হোক না সেই জগন্য প্রতারক কোনো নারী, তবুও। নারী, নারীবাদীদের নিয়ে আমি যে ধারণা পোষণ করছি তাও যথাযথ সঠিক নাও হতে পারে। আমার কথা হল, একজন কোরানের বিরুদ্ধে অনেক কিছু বলতে পারে, সেই অনেক কিছু সমালোচনা করার অধিকার রাখে। এটা তার বাক স্বাধীনতা। এই জায়গায় এসে আমরা দ্বিমত পোষন করি কি করে? চুপ থাকি কি করে? এতে আমাদের মুক্তচিন্তার অস্তিত্ব যে ঠুনকো এটাই তো প্রকাশ পায়। তাই না?

আজ থেকে আড়াই বছর আগে সহিংস চাপাতিধারী ইসলামিস্টরা যখন এদেশে প্রতি মাসে মাসে ব্লগার অভিজিৎ রায়, ওয়াশিকুর রহমান বাবু ও অন্তত বিজয় দাশকে নির্মম নৃশংসভাবে হত্যা করছিল, তখন আমি এদেশে মুক্তমনা নাস্তিক অবিশ্বাসীদের নিয়ে একটা সংগঠিত প্লাটফর্ম গড়ে তোলা খুব জরুরী মনে করি। আর এই নিয়ে আমি প্রথম পরামর্শ চাইতে যাই বাংলাদেশের এক জার্মান প্রবাসী ব্লগারের কাছে। তার কাছে জানতে চেয়ে আমি দুইবার মেসেজ করি। তিনি এমনভাবে আমাকে উত্তর দিলেন যে, যেন আমি তার কাছ থেকে টাকা ধার চেয়েছি। তিনি বলেছিলেন, এগুলি যে কোত্থেকে আসে যত্তসব! আমি এখানে তার নাম উল্লেখ করছি না। তিনি আবার মুক্তচিন্তার জগতে নিজেকে একটু ভাসুর ভাসুর পর্যায়ের মনে করেন তো সেজন্য আমি সেই ভাসুরের নাম বলছি না। সেই সময় "সকল মুক্তমনা নাস্তিক অবিশ্বাসীদের প্রতি আমার প্রস্তাব" শিরোনামে যে লেখাটা লিখেছিলাম সেই লেখার লিংক এখানে দিলাম---
https://istishon.com/?q=node/28083

---অবশেষে বলি, আসাদ নুরের মুক্তির লড়াইটা এটা কোনো মুক্তচিন্তকের ব্যক্তির নয়, লড়াইটা এখন সামগ্রিক মুক্তচিন্তার লড়াই। মুক্তচিন্তার অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার লড়াই। এটা আমাদের বাক স্বাধীনতার অধিকার রক্ষার লড়াই। আমরা যদি মনে করি আসাদ নুরকে উগ্র নাস্তিক ভেবে, ভুল বুঝে নারী নির্যাতক ভেবে তার মুক্তির জন্য চিৎকার না করি, তার বিষয়ে এড়িয়ে চলি, তাহলে আমরা আগামীতে মুক্তিচিন্তার পথ চলাটুকু ধীরে ধীরে নিজেরাই কন্ঠকাকীর্ণ করে তুলবো। আসুন না সবাই এক বৃত্তে এসে সমস্বরে আওয়াজ তুলি----

চাওয়া একটাই, দাবী একটাই,
ভিডিও-ব্লগার আসাদ নুরের মুক্তি চাই!

Comments

নুর নবী দুলাল এর ছবি
 

আসাদের লড়াই ছিল সামগ্রিক। কিছু অনাকাঙ্খিত কারণে আজ আসাদ হয়ে গেছে চুতরাপাতা। অথচ আসাদ গ্রেফতার হয়েছে সামগ্রিক লড়াইয়ের অপরাধে। আজ আমরা সুশীল সেজে আসাদের অনৈতিক গ্রেফতারের বিপক্ষে কথা বলছি না। সত্যিই দুঃখজনক।

 
অপ্রিয় কথা এর ছবি
 

সেটাই তো দুলাল ভাই

 
অপ্রিয় কথা এর ছবি
 

সেটাই তো দুলাল ভাই

 
রাজর্ষি ব্যনার্জী এর ছবি
 

সত্যটা তোমাকে বলেছিলাম অপ্রিয়, আর তুমি সেটা ব্যাক্ত করেছ, আমি তোমার কাছে কৃতজ্ঞ | মানুষের জানা দরকার ছিল| আমি বলতে পারিনি , কেননা, আমি বললে, মানুষে ভাবত রাজর্ষিদা, আসাদের অন্ধ সমর্থক |

..........
রাজর্ষি

 
mohammad muktamona এর ছবি
 

আমি জানতাম আসাদ বিমান বন্দরে এসেছিলো কারুর পরামর্শে। এখন দেখছি তাকে কতোটা মানসিক নির্যাতন করা হয়েছিলো। কিন্তু তার টাইম লাইনে দেখুন, সে তো বলছে সে ঢাকায় এসে মানব বন্ধন করেছে, তার জন্য আইনজীবি নিয়োগ করেছে, আসাদকে জেলমুক্ত করতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কিছু বোঝা যাচ্ছে না। আমার মনে হয় , তার ব্যক্তিগত জীবন নয়, তার ব্লগার জীবন নিয়েই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, কাজেই সেটাই মুখ্য । এখন সকলের তার পাশে দাঁড়ানো উচিত। https://www.change.org/p/prime-minister-of-bangladesh-help-facilitate-re... লিঙ্কে অন্তত একটা সাইন করুন।

 
সীমান্ত এর ছবি
 

57 ধারা নিপাত যাক। সকল মুক্তমনাদের একই প্লাটফর্মে আসা উচ্তি।কেউ অন্যায় করলে যেমন তার বিচার হওয়া উচিত। তাই বলে যে ৫৭ ধারার যাতাকলে পিষ্ট হোক এটা কোন কালেই কাম্য নয়। আসাদ মুক্তি পাক।

 
পার্থিব এর ছবি
 

মেয়েটির সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল দীর্ঘ ৬ মাস ধরে। আসাদের সাথে এক সাথে থাকার, এক সাথে খাওয়ার যে কমিটমেন্ট হয়েছিল মেয়েটির, সেই কথা আসাদ ধরে রাখলেও মেয়েটি কথা রাখেনি। মেয়েটির সাথে প্রেম প্রণয় নিয়ে চলছিল আসাদের জীবন যাপন। একদিন একরাতে আসাদ ঘরে ফিরে দেখে তার প্রিয়জনটি অন্য আরেকজন পুরুষকে বিছানায় শোয়াইয়ে তার হাত পা টিপে দিচ্ছে। আবার অন্তরঙ্গ হয়ে গ্লাসে মদও ঢেলে দিচ্ছে। পরে আসাদ জানতে পারে, পুরুষটি আসলে কেউ নয়, এই পুরুষটি তার প্রিয়জনেরই সাবেক স্বামী! এতেও আসাদের সমস্যা হয়নি। কারণ দুজন মানব-মানবী যখন একটি সম্পর্কে চুক্তিবদ্ধ হয়, তখন সেই তার চুক্তিবদ্ধ মানুষকে না জানিয়ে আরেকজনের সাথে শারিরীক....

আহ! নাস্তিকদের জীবন কত মধুময়!! নাস্তিক হইতে আমারও মুনচায়!!!

 
r.karim এর ছবি
 

সমযোতায় আসেন, তর্ক কোন কিছুর সমাধান হতে পারে না। আল্লাহ আসাদ কে হেদায়ত দান করুণ।

 
সুপ্ত শুভ এর ছবি
 

পাকিস্তানের মত একটা কট্টরপহ্নি ইসলামী দেশে নাস্তিকদের সংগঠন Atheists & Agnostic Alliance Pakistan (AAAP) আছে ....যেটা ২০১২ সালে প্রতিষ্টিত হয়, কিন্তুু দুঃখজনক হলেও সত্যি বাংলাদেশে নাস্তিকদের অধিকার নিয়ে কথা বলার মতো কোনও সংগঠন নেই!
মুফাসসিল ইসলাম, আসিফ মহিউদ্দীন ভাইদের এই ব্যাপারে উদ্যোগে নেয়া উচিত।

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

অপ্রিয় কথা
অপ্রিয় কথা এর ছবি
Offline
Last seen: 1 week 3 দিন ago
Joined: শনিবার, ডিসেম্বর 24, 2016 - 2:15পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর