নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

শিডিউল

ওয়েটিং রুম

There is currently 1 user online.

  • নুর নবী দুলাল

নতুন যাত্রী

  • আমি ফ্রিল্যান্স...
  • সোহেল বাপ্পি
  • হাসিন মাহতাব
  • কৃষ্ণ মহাম্মদ
  • মু.আরিফুল ইসলাম
  • রাজাবাবু
  • রক্স রাব্বি
  • আলমগীর আলম
  • সৌহার্দ্য দেওয়ান
  • নিলয় নীল অভি

আপনি এখানে

ঈসলাম; আধুনিকতা না অবসোলিট অতীত, বোরকা/হিজাব সাপেক্ষ?


সাহিত্যিকের জন্য মিথ্যা লিখতে পারাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। শুধু সত্য লিখে কখনো সাহিত্য রচনা করা যায় না। মিথ্যা ঘটনা বানানো তেই সাহিত্যিকের স্বার্থকতা।
তাহলে, আমরা যদি সাহিত্য পছন্দ করি, সে যুক্তিতে বলা যায় সব মিথ্যাই খারাপ না। কিছু মিথ্যা আছে যা সময়সাপেক্ষ, এবং একই সঙ্গে খুবই জরুরী।
আচ্ছা, এই মিথ্যা লিখতে গিয়ে কী সাহিত্যিকের মিথ্যা বলাটা, প্রাত্যহিক জীবনে, প্যাথলজিকাল হয়ে দাঁড়ায়? তার জীবনে কী প্রেডিক্যামেন্ট ক্রিয়েট করে? সত্য বলতে পারায় সমস্যা তৈরি করে?
আচ্ছা, সে অন্য প্রসঙ্গ। সে নিয়ে অন্য কোন একদিন লেখা যাবে ক্ষণ।

এখন, উপরে কিন্তু প্রমাণিত, যে Lies are necessary, when truth is too hard to believe.
এই যুক্তিতে, পৃথিবীতে প্রথম সৃষ্টিকর্তার আবিষ্কার মিথ্যার অংশ হলেও, সাহিত্য রচনা হলেও, সেটা ছিল প্রয়োজনীয়, মানসিক শান্তি পাওয়ার জন্য।
কল্পনা করে নেয়া যায় যে আদিকালে মানুষ প্রকৃতির হাতে খুব অসহায় ছিল, প্রাকৃতিক বিভিন্ন দুর্যোগের ব্যাখ্যা এবং সেগুলো কোন ভাবে প্রতিহত করতে না পেরে ম্যান ইন দ্য স্কাই বানায় কেউ একজন, বুদ্ধিমান সে মানতেই হবে, অবুঝ মানবজাতিকে সামান্য মানসিক শান্তি প্রোভাইড করার জন্য।
সেটা ছিলো সময়সাপেক্ষ প্রয়োজন।
কিন্তু পরে সৃষ্টিকর্তার ভাগাভাগি করা, তেত্রিশ কোটি দেব দেবী বা আল্লাহ/ইশ্বর/জেহোবা নাম দিয়ে, সে আসলে ক্ষমতা দখলের কুটকৌশল ভিন্ন কিছুই না।
সে প্রসঙ্গও তোলা থাক, আবার কোন এক দিন।

কিন্তু এখন যেহেতু প্রকৃতির হাতে আর আমরা তেমন অসহায় নই, সেই ম্যান ইন দ্য স্কাই এর কোন উপযোগিতা এখন আর নেই।

একই রকম, আরবের রুক্ষ পরিবেশে ত্বক বাচানোর জন্য হলেও হয়ত বোরকার প্রয়োজনীয়তা ছিল, বা সেই সমাজে যখন নারী জন্মালেই কবর দেওয়ার রীতি ছিল, যেই সমাজে নারীকে যৌনবস্তু ভাবা হত, তখন প্রোটেক্ট করার অংশ হিসেবে হয়ত বোরকার দরকার ছিলো, কিন্তু এখন কী আর সেটা উপযোগিতা বহন করে?

উদাহরণ দেই,
একদিন বাসে করে ফিরছি, বাসে উঠার পর দেখলাম একটা সিটই ফাকা, কিন্তু পাশে বসে আছে এক হিজাবী আপু। তো আমি তার জীবন দর্শন, পর পুরুষে স্পর্শ না করা, সেটা সম্মান করে দাড়িয়েই রইলাম, বসলাম না।
দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ভাবছি, আচ্ছা আমি যদি পাশে গিয়ে বসতাম তিনি কি বিরক্ত হতেন? গায়ে যেন টাচ না লাগে সেটার জন্য সটকে যেতেন?
আমি কি নারী পুরুষ ভাগাভাগি করছি? না তো, অন্য কোন স্বাভাবিক পোশাকের মেয়ে হলে তো আমি কখনোই এমন ভাবতাম না।
তাহলে প্রথম দেখায়ই একটা নারীকে আমি অস্বাভাবিক রকম ব্যাকডেটেড ভেবে নিচ্ছি। আমার এই রকম ভাবা প্রোভোক করছে কে?
পোশাক। হিজাব।
আচ্ছা, অন্যরকম ও তো হতে পারে, যে মেয়েটা চুল বাচানোর অংশ হিসেবে হিজাব পরে, বা পরিবারের এম্বারগো হিসেবে হিজাব পরে, কিন্তু মনে মনে আধুনিক, তাহলে?
সে আবার আমাকে নিচুমনের ভাববে না? ভাববে না যে ছেলেটা কেমন গাইয়া, মেয়ের পাশে বসে না? বা ভাববে না যে সে হয়ত অসুন্দর তাই তার পাশে আমি বসি নি?

তাহলে বলুন, একটা মাত্র পোশাক, আমার আপনার যে কারো সম্পর্কে কেমন একটা বাজে ধারণা ক্রিয়েট করছে, সেটার উপযোগিতা কোথায়?

কী বললেন? নারীর খোলা অংগ দেখলে আপনার পুংদণ্ড নড়াচড়া করা শুরু করে? তাবু হয়ে যায়?

তাহলে একটা বুদ্ধি দেই।

সাইক্রিয়াটিস্টরা, যদিও সামান্য বিতর্কিত, একটা সিস্টেম প্রয়োগ করে খুব দ্রুত পারসোনালিটি চেঞ্জ করানোর ইচ্ছায়। শক থেরাপি।
ব্যাপারটা এমন যে, ধরেন আপনার সাইকোলজিকাল একটা খারাপ দিক আছে যে সবাইকে হেয় করা, তো সাইক্রিয়াটিস্ট করবেন কী আপনার সোশ্যাল গ্যাদারিং এ উপস্থিত হয়ে আপনার সাথে, আপনার শরীরে আগে থেকেই একটা শক দেয়ার মেকানিজম থাকবে, যার সুইচ থাকবে সাইক্রিয়াটিস্টের হাতে, আপনি কোন হেয়কর মন্তব্য আপনার বন্ধুদের দিকে ছুড়লেই খাবেন "শক"।

তো আপনারা এক কাজ করেন, এই থেরাপি কাজে লাগান। পুংদণ্ডে শক দেয়ার একটা মেকানিজম লাগিয়ে ঘুরুন না সাতদিন, যখনই দেখবেন যে কাউকে দেখে পুংদণ্ড নড়াচড়া শুরু করছে, সাথে সাথে দিন একটা শক লাগিয়ে। অবশ্য নিজের কাছে নিজে সত্য থাকতে হবে এক্ষেত্রে। দেখবেন সাত দিন পর আর আপনার পুংদণ্ড হুদাই খাড়ানো বন্ধ করে দিছে!

আচ্ছা, কিডিং এপার্ট, আপনাদের মতে ইসলাম হইলো আধুনিক ধর্ম, তাই না? এই আধুনিক কোন সেন্সে বলেন? সবার পরে আসচে তাই?
বুঝেন না আপনারা, আধুনিক মানে হইলো সময়ের সাথে বদলে যাওয়া, ১৪০০ বছর আগের নিয়ম ধরে পরে থাকা না। ১৪০০ বছর আগে ইসলাম আধুনিক বলা হইছিলো কারণ সে তখন সময়ের সাথে দরকারী চেঞ্জ আনছিলো, কিন্তু যেগুলা এখন অবসোলিট। এখন ওই অবসোলিটগুলারে ধইরা রাখতে গেলে আপনারা মুমিন হন নাই, আবার কাফের হইয়া গেছেন।

ভাইব্বা দেখেন, তখনকার দিনে প্রয়োজনীয় পরিবর্তন যদি আধুনিক বলা হয়, আজ ওই পুরান জিনিস ধইরা রাইখা কেমনে নিজেরে আধুনিক দাবী করেন?

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

সূর্যসন্তান
সূর্যসন্তান এর ছবি
Offline
Last seen: 13 ঘন্টা 49 min ago
Joined: রবিবার, নভেম্বর 5, 2017 - 2:09পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর