নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

শিডিউল

ওয়েটিং রুম

There is currently 1 user online.

  • মিঠুন বিশ্বাস

নতুন যাত্রী

  • ফজলে রাব্বী খান
  • হূমায়ুন কবির
  • রকিব খান
  • সজল আল সানভী
  • শহীদ আহমেদ
  • মো ইকরামুজ্জামান
  • মিজান
  • সঞ্জয় চক্রবর্তী
  • ডাঃ নেইল আকাশ
  • শহিদুল নাঈম

আপনি এখানে

কিতাবে নারীর মাহাত্ম্য কার্যতঃ পুরুষের কর্তৃত্ব


ইসলামী চিন্তাবিদ, মোল্লা মৌলবিরা সারাক্ষন প্রচার করে, ইসলামই নারীকে সর্বোচ্চ সম্মান দেখিয়েছে, আর তার সমর্থনে তারা দেখায় একটা হাদিস যাতে বলা আছে - মায়ের পায়ের নীচে সন্তানের বেহেস্ত। কিন্তু সমস্যাটা হচ্ছে , সন্তানের সাথে মায়ের সম্পর্ক নারীর সম্মানের মাপকাঠি না, স্বামী বা ভাই এর সাথে স্ত্রী বা বোনের সম্পর্কটাই হলো নারীর সম্মানের মাপকাঠি। দুনিয়ার সব ধর্মেই মা- এর স্থান সন্তানের কাছে অতি উচ্চে। তবে নারীকে প্রহার করা যদি সম্মান দেখানোর মাপকাঠি হয়, তাহলে ইসলাম এক্ষেত্রে নিশ্চিতভাবেই নারীকে মহা সম্মান দেখিয়েছে।

স্ত্রীকে প্রহার করাই যেহেতু নারীদের প্রতি সম্মান দেখানোর মাপকাঠি , ঠিক সেই কারনেই মুসলিম প্রধান দেশগুলোতে নারী নির্যাতনের হার অতি উচ্চ। কারন পুরুষরা জানে স্ত্রীদেরকে প্রহার করার অধিকার তার আছে, আর তাই সামান্য কারনে স্ত্রীদেরকে অনেক সময় তারা বেধড়ক পিটায়, কোন রকম অনুভূতি বা দয়া মায়া ছাড়াই।

কোরান খুব সুস্পষ্টভাবে বলেছে নারীর মধ্যে অবাধ্যতার সন্দেহ হলেই তাকে পিটান যাবে। অবাধ্য হওয়ার দরকার নেই, শুধুমাত্র সন্দেহ হলেই পিটান যাবে। যেমন --

সুরা নিসা-৪:৩৪:পুরুষেরা নারীদের উপর কৃর্তত্বশীল এ জন্য যে, আল্লাহ একের উপর অন্যের বৈশিষ্ট্য দান করেছেন এবং এ জন্য যে, তারা তাদের অর্থ ব্যয় করে। সে মতে নেককার স্ত্রীলোকগণ হয় অনুগতা এবং আল্লাহ যা হেফাযতযোগ্য করে দিয়েছেন লোক চক্ষুর অন্তরালেও তার হেফাযত করে। আর যাদের মধ্যে অবাধ্যতার আশঙ্কা কর তাদের সদুপদেশ দাও, তাদের শয্যা ত্যাগ কর এবং প্রহার কর। যদি তাতে তারা বাধ্য হয়ে যায়, তবে আর তাদের জন্য অন্য কোন পথ অনুসন্ধান করো না। নিশ্চয় আল্লাহ সবার উপর শ্রেষ্ঠ।

আয়াতে বলেছে প্রহার করতে, মৃদু বা জোরে বলে নি। সুতরাং যার যেমন ইচ্ছা প্রহার করতে পারে। কেউ মৃদুও প্রহার করতে পারে, কেউ প্রচন্ড আঘাতও করতে পারে। উক্ত আয়াতের বিধান মেনেই মুহাম্মদের সাহাবিরা তাদের স্ত্রীদেরকে পিটাতো। যেমন -

পোষাক-পরিচ্ছদ অধ্যায় ::সহিহ বুখারী :: খন্ড ৭ :: অধ্যায় ৭২ :: হাদিস ৭১৫
মুহাম্মদ ইব্ন বাশ্শার (রা)......। ইকরামা (রা) থেকে বর্ণিত। রিফা’আ তার স্ত্রীকে তালাক দেয়। পরে আবদুর রহমান কুরাযী তাকে বিবাহ করে। ‘আয়েশা (রা) বলেন, তার গায়ে একটি সবুজ রঙ্গের উড়না ছিল। সে ‘আয়েশা (রা)-এর নিকট অভিযোগ করলেন এবং স্বামী প্রহারের দরুন, নিজের গায়ের চামড়ার সবুজ বর্ণ দেখালো। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) যখন এলেন, আর স্ত্রীলোকেরা একে অন্যের সহযোগিতা করে থাকে, তখন আয়েশা (রা) বললেন : কোন মু’মিন মহিলাকে এমনভাবে প্রহার করতে আমি কখনও দিখিনি। মহিলাটির চামড়া তার কাপড়ের চেয়ে অধিক সবুজ হয়ে গেছে।

আরবের নারীদের চামড়া ফর্সা, সুতরাং প্রহারের কারনে সেই চামড়া সবুজ হয়ে গেছে।

সুনান আবু দাউদ :: বিবাহ অধ্যায় ১২, হাদিস ২১৪৬
ইবন আবূ খালফ ও আহমাদ ইবন আমর ইবন সারহ্ -ইয়াস ইবন আবদুল্লাহ্ ইবন আবূ যুবরা হতে বর্নিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ্ (সাঃ) ইরশাদ করেন, তোমরা আল্লাহর দাসীদেরকে প্রহার করবে না। তখন উমার (রা) রাসূলুল্লাহ্ (সাঃ) - এর খিদমতে উপস্থিত হয়ে বলেন, স্ত্রীরা তাদের স্বামীদের সাথে অবাধ্যতা করছে। তখন তিনি তাদেরকে মারধর করতে অনুমতি প্রদান করেন।

দয়াল নবী মুহাম্মদ নিজেও উক্ত বিধান অনুসরন করে তার স্ত্রীকে প্রহার করতেন , প্রহার করত তার অন্যতম সাহাবী হযরত ওমর। সেসব দেখা যাক হাদিসে ---

জানাযার বিবরন ::সহিহ মুসলিম :: খন্ড ৪ :: হাদিস ২১২৭
আব্দুল্লাহ ইবনে কাসির ইবনে মুত্তালিব থেকে বর্নিত। তিনি মুহাম্মাদ ইবনে কায়েস (রা)কে বলতে শুনেছেন, আমি আয়েশা (রা) কে বর্ননা করতে শুনেছি। তিনি বলেন, --------------- তিনি বললেন, তুমিই সেই কালো ছায়াটি যা আমি আমার সামনে দেখেছিলাম। আমি বললাম, জী হ্যা। তিনি আমার বুকে সজোরে একটা থাপ্পর মারলেন, যাতে আমি ব্যাথা পেলাম। অতঃপর তিনি বললেন, তুমি কি ভেবেছ আল্লাহ ও তার রাসুল তোমার প্রতি অবিচার করবেন?-------------
(অনেক বড় হাদিস, তাই সংক্ষেপে)

সুনানু ইবনে মাজাহ্ :: হাদিস ১৯৮৬, নিকাহ বা বিবাহ অধ্যায়
আশআস ইবনু কায়েস (রহ.) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি এক রাতে ‘উমার <-এর বাড়িতে মেহমান হলাম। মধ্যরাতে ‘উমার < তার স্ত্রীকে প্রহার করতে উঠলেন। আমি তাদের দু’জনের মাঝে প্রতিবন্ধক হলাম। অতঃপর ‘উমার < শয্যা গ্রহণ করে আমাকে বলেন, হে আশআস! তুমি আমার থেকে একটি বিষয় মনে রাখবে যা আমি রসূলুল্লাহ ﷺ -এর নিকট শুনেছি। স্বামী তার স্ত্রীকে প্রহার করলে এ ব্যাপারে জওয়াবদিহি করতে হবে না, বিতর সলাত না পড়ে ঘুমাবে না। রাবী বলেন, আমি তৃতীয় কথাটি ভুলে গেছি।

স্ত্রীদের এভাবে মারধর করলে কোন অপরাধ হবে না। কারন এর জন্যে ইহজগত ও পরজগত কোথাও তার বিচার হবে না। যেমন ---

সুনান আবু দাউদ :: বিবাহ অধ্যায় ১২, হাদিস ২১৪৭
যুহায়র ইবন হারব -উমার ইবনুল খাত্তাব (রা) নবী করীম (সাঃ) হতে বর্ণনা করেছেন যে, কোন ব্যক্তিকে ( দুনিয়াতে) তার স্ত্রীকে মারধর করার ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে না।

এই কারনেই কোন মুসলিম দেশে স্ত্রীকে মারধর করলে তার কোন বিচার হয় না, তার বিরুদ্ধে কোন মামলা হয় না, এবং একই সাথে স্ত্রীরাও ধরে নেয় স্বামীর চড় থাপ্পড় বা মারধর তাদের জন্যে আল্লাহ কর্তৃক নির্ধারিত। এমনও কিছু মুমিনা নারী আছে, যারা মনে করে, স্বামী যদি একটু আধটু মারধর না করে, তাহলে সে প্রকৃত স্বামীই না।
হয়ত এখনই কিছু মুমিন এসে হাদিস দেখিয়ে বলবে , হালকা ভাবে প্রহার করতে বলছে, বা কোন হাদিস দেখিয়ে বলবে নারীদেরকে প্রহার করতেই বলে নি। সে ক্ষেত্রে বলতে হবে কোরানে শুধু প্রহার শব্দটা লিখেছে, সুতরাং হালকা বা জোরে যে কোন ভাবেই প্রহার করা যাবে, তাতে কোনই সমস্যা নেই। একই সাথে যদি কোন হাদিসে বলা থাকে যে নারীকে প্রহার করা যাবে না , তাহলে বুঝতে হবে, এই হাদিস জাল, কারন কোরানে বলছে প্রহার করতে, কিন্তু হাদিসে বলছে প্রহার না করতে, সে ক্ষেত্রে কার বানী গ্রহন করতে হবে? নিশ্চিতভাবেই কোরানের বানী, তাই না?

কোরানের সূত্র : http://www.quraanshareef.org/
হাদিসের সূত্র: www.sunnah.com

Comments

কাঠমোল্লা এর ছবি
 

মুমিনা নারীরা মেনে নিয়েছে যে তাদের ওপর তার স্বামীর কর্তৃত্ব আল্লাহর বিধান। তারা এটাও মেনে নেয় যে স্বামীরা মাঝে মাঝে তাদেরকে পিটাবে , সেটাই স্বাভাবিক। মুমিনারা নিজেদেরকে স্বামীর দাসী মনে করে সারাক্ষন ব্যস্ত থাকে কিভাবে স্বামীর মনোরঞ্জন করবে। সুতরাং আপনার এই ধরনের পোষ্টের কোন আবেদন মুমিনাদের কাছে নেই। মুমিনারা নিজেকে স্বামীর দাসী হিসাবে মেনে নিয়েই ইসলাম পালন করে , মরার পরও সেই স্বামীর ৭২ হুরের সর্দারনী হতে সারাক্ষন উদগ্রীব।

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

রূপালীনা
রূপালীনা এর ছবি
Offline
Last seen: 2 months 3 weeks ago
Joined: বৃহস্পতিবার, আগস্ট 3, 2017 - 3:01পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর