নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • ড. লজিক্যাল বাঙালি
  • মোমিনুর রহমান মিন্টু
  • রহমান বর্ণিল

নতুন যাত্রী

  • আদি মানব
  • নগরবালক
  • মানিকুজ্জামান
  • একরামুল হক
  • আব্দুর রহমান ইমন
  • ইমরান হোসেন মনা
  • আবু উষা
  • জনৈক জুম্ম
  • ফরিদ আলম
  • নিহত নক্ষত্র

আপনি এখানে

সামথিং টু পন্ডার অন


ভাইসব, ভাইসব
অতীব আনন্দের সহিত জানানো যাইতেছে যে "ক" মাদ্রাসায় প্রথম শ্রেণী হইতে নবম শ্রেণী পর্যন্ত ভর্তি চলিতেছে। আপনারা জানিয়া খুশি হইবেন যে উক্ত মাদ্রাসায় ধর্মীয় শিক্ষার সাথে বিজ্ঞান ভিত্তিক শিক্ষা দেওয়া হয়। কারণ আপনারা খুব ভালো করেই জানেন ধর্মীয় শিক্ষা ছাড়া ভালো মানুষ গড়িয়া তোলা সম্ভব না। আজকের দিনের অবস্থা দেখেন! অন্য মাধ্যমমের পোলাপানের অধ:পতন দেখেন। তাই আর দেরী না করিয়া আপনার সন্তানকে আজই "ক" মাদ্রাসায় ভর্তি করুন।

পুঙ্খানুপুঙ্খ ভাবে লিখতে পারিনি। দুঃখিত।

এখন আসল কথায় আসি। রাজধানীর পাশের জেলা শহরের চিত্র এটি। নিজ কানে শোনা, গতকাল।

কেন এমন?

এটা ব্র‍্যান্ডিং। ব্র‍্যান্ডিং যারা পড়েছেন খুব ভালো বুঝতে পারবেন। যারা পড়েন নি তাদের জন্য সামান্য বিস্তারিত

ব্র‍্যান্ডিং এর উদ্দেশ্যই হচ্ছে যে আপনার মনে বসে যাওয়া। ধরুন একটা প্রোডাক্ট ক্রয় করবেন আপনি, তো দোকানে প্রবেশ করার পর আপনি কিন্তু পরিচিত প্রোডাক্টটাই কিনবেন। নতুন কোন কোম্পানিরটা না। আবার ধরেন যে এই প্রোডাক্ট আগে কিনেন নি। তখন কী হবে? খেয়াল করে দেখবেন সাবান থেকে শুরু করে নুডলস, যে প্রোডাক্টই হোক না কেন, ক্রয় করতে গেলে ওই প্রোডাক্টের যে এ্যাডাভারটাইজিং দেখেছেন টিভিতে, সেটা রেজোনেট করে। আলিয়া ভাটকে দেখে মুগ্ধ হয়ে থাকলে লাক্স সাবান, বা মি.নুডলস। হোক না জিঙ্গেল্টা জঘন্য। কিন্তু জঘন্য হলেও ওই সহজপাচ্য জিঙ্গেল্টাই আপনার মস্তিষ্কে সেভড হয়ে গেছে।

মস্তিষ্ক সবসময় পরিচিত জায়গা খুজে, আশ্রয় খুজে। সেই ব্যাপারটাই ক্লেভার ব্র‍্যান্ডিং স্ট্র‍্যাটেজিস্ট কাজে লাগায়। খুব বাজে জিঙ্গেল দিয়ে যদি কোন প্রোডাক্টের এ্যাড বানানো হয়, বাসায় দেখার সময় আপনি নাক মুখ সিটকাবেন ঠিকই, কিন্তু সুপারশপে প্রবেশ করার পর খেয়াল করবেন যে ওই জিঙ্গেল্টাই মাথায় ঘুরছে, আর আপনি শত নাক সিটকানোর পর ও ওই প্রোডাক্টটাই কিনে ঘরে ফিরেছেন।

এখন আপনার কথা ছাড়েন। কল্পনা করেন যে এমন একজন মানুষের কথা যে ওতটা শিক্ষিত না, ওতটা জানাশোনা নেই, মস্তিষ্ক ওতটা কর্মক্ষম না। সে এই প্রলুব্ধ করা জিঙ্গেল এর প্রোডাক্টের বাইরে কিছু কিনতে পারবে? আপনিই যখন পারছেন না?

এখন আসেন,

চিন্তা করেন, মুসলমান পরিবারের এক বাচ্চাকে স্কুলে ভর্তি করানোর বয়স হয়েছে। তার পিতামাতা তেমন ধার্মিক না হলেও, ধরেন যে উপরে বর্ণিত মাইকের কথা তিনি শুনলেন। এখন বলেন, সে তার বাচ্চাকে কোথায় ভর্তি করাবে? ওই ব্র‍্যান্ডিং স্ট্র‍্যাটেজি মাথায় রেখে বলুন।

অবশ্যই মাদ্রাসায়, তাই না?

তাহলে তারা তো সফল।

এখন আসেন,

সব ধর্ম একটা মতবাদ। নাস্তিকতাও একটা মতবাদ। সংখ্যার উপর ভিত্তি করে এই এক মতবাদের হাত থেকে অন্য মতবাদের হাতে ক্ষমতা যাওয়ার পথে সংঘাত হবেই, হয়েই এসেছে। সেই প্যাগান, জোরোয়াস্ট্রিয়ান থেকে শুরু করে ইসলাম অবধি, যে মতবাদই পূর্বের মতবাদকে অবসোলিট করেছে, সংঘাতের পথেই। শুধু শুধু না। ইসলামের নামে তো খুন প্রচারকই শিখিয়ে দিয়ে গিয়েছেন, সেই প্র‍্যাক্টিস তো এখন ও চলছে। কোন। মতবাদই রক্তক্ষয় ছাড়া প্রতিষ্ঠিত হতে পারেনি। খ্রিস্টান, ইহুদী, বৌদ্ধ কেউ না। সংখ্যাগরিষ্ঠরা ক্ষমতা হারানোর পথে নির্মম হয়ে উঠবেই।

এখন আর ও একটু চিন্তা করেন। নাস্তিকতা প্রচলিত সব ধর্মককে অবসোলিট করার পথে। শুধু ইসলাম, হিন্দু না, সব। তাহলে বুঝতে পারছেন স্বীয় স্বীয় ক্ষেত্রে, স্বীয় ধর্ম, সংখ্যাগরিষ্ঠ থেকে সংখ্যালঘু, সবার থেকে কেমন একটা বাধার শিকার হতে হবে নাস্তিকদের? ক্ষমতা যখন আল্টিমেটলি হাতবদল হবে?

নাস্তিকদের কতল করার প্রবণতা, মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেওয়া থেকে কী আপনারা বুঝতে পারছেন না? এটা তো মাত্র মুসলিম দেশে দেখছেন, কিছুদিন পরই একই অবস্থা সব দেশেই হবে। কোন ক্ষমতাধর গোষ্ঠীই যুদ্ধ ছাড়া ক্ষমতা ছাড়বে না।

সেই পরিকল্পনায় তাদের সংখ্যা ভারী করার প্রক্রিয়া কী সামান্য ভাবায়? এই দেশের পারস্পেক্টিভে?

বিপরীতে আমরা কী করছি?

বলবেন যে আমরা তাদের মত ছোটলোকি করতে পারি না, ওইটা কোন কিছু হইলো নাকী, ওরা এমন করবে বলে আমরাও করবো নাকি ইত্যাদি ইত্যাদি।

নাচতে নামলে ঘোমটা দেওয়া যায়, না উচিত?

যতই পঁচান না কেন, ওদের স্ট্র‍্যাটেজিই কিন্তু সফল। ওরাই সফল। যুদ্ধে কোন যুক্তি নেই, সামহাউ ইউ মাস্ট উইন, দেন ইউ ক্যান রিরাইট দ্য হিস্টোরি ইভেন।

আমরা তাদের মত ওত নিচুতে না নামি। কিন্তু আদতে আমরা কী করছি?
মামলা হামলার ভয়ে ভীত বাঙ্গালি গৃহবন্দী হয়ে থাকলে কী আমরা স্বাধীনতা পেতাম? ভাষা শহীদের রক্ত বৃথা যেত না?

আমরা কী আমাদের অভিজিৎ দা'র মত ভাষা শহীদদের আত্মদান বৃথা যেতে দেবো?

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

সূর্যসন্তান
সূর্যসন্তান এর ছবি
Offline
Last seen: 1 week 23 ঘন্টা ago
Joined: রবিবার, নভেম্বর 5, 2017 - 2:09পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর