নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • সৈকত সমুদ্র
  • জিসান রাহমান
  • নরসুন্দর মানুষ
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • আকিব মেহেদী

নতুন যাত্রী

  • আদি মানব
  • নগরবালক
  • মানিকুজ্জামান
  • একরামুল হক
  • আব্দুর রহমান ইমন
  • ইমরান হোসেন মনা
  • আবু উষা
  • জনৈক জুম্ম
  • ফরিদ আলম
  • নিহত নক্ষত্র

আপনি এখানে

নারীকে বেধড়ক পিটানোর মধ্যেই আছে নারীর প্রতি মহা সম্মান দেখানোর তরিকা



মোল্লা মৌলভিরা ওয়াজ , টিভি সর্বত্র একটা বানী খুব প্রচার করে , তা হলো ইসলাম নারীকে দিয়েছে মহা সম্মান। মোল্লারা বলে - হাদিসে আছে ,মা- এর পায়ের নীচে সন্তানের বেহেস্ত। । কিন্তু তারা এটা বলে না স্বামীর কাছে নারীর অবস্থা কি। কোরান বা হাদিস উভয়ই বলেছে , স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে মারধর করার মধ্যেই আছে নারীর প্রতি মহা সম্মান দেখানোর তরিকা। এ বিষয়ে কিঞ্চিত বর্ননা করা হবে।

স্বামী ইচ্ছা করলেই তার স্ত্রীকে বেধড়ক পিটাতে পারবে।
সম্ভবত: দুনিয়াতে ইসলামই একমাত্র ধর্ম যা বিধিবদ্ধভাবে স্বামীকে অধিকার দেয় যে সে যে কোন তুচ্ছ কারনে তার স্ত্রীকে কুত্তার মত পিটাতে পারবে। তবে সভ্য জগতে ইদানিং কুত্তাদেরকে পিটানো আইন বিরোধী কাজ। কোরানের যে বিধান দ্বারা স্বামীরা তার স্ত্রীকে পিটানোর অধিকার পেয়েছে সেটা হলো -

সুরা নিসা - ৪: ৩৪: পুরুষেরা নারীদের উপর কৃর্তত্বশীল এ জন্য যে, আল্লাহ একের উপর অন্যের বৈশিষ্ট্য দান করেছেন এবং এ জন্য যে, তারা তাদের অর্থ ব্যয় করে। সে মতে নেককার স্ত্রীলোকগণ হয় অনুগতা এবং আল্লাহ যা হেফাযতযোগ্য করে দিয়েছেন লোক চক্ষুর অন্তরালেও তার হেফাযত করে। আর যাদের মধ্যে অবাধ্যতার আশঙ্কা কর তাদের সদুপদেশ দাও, তাদের শয্যা ত্যাগ কর এবং প্রহার কর। যদি তাতে তারা বাধ্য হয়ে যায়, তবে আর তাদের জন্য অন্য কোন পথ অনুসন্ধান করো না। নিশ্চয় আল্লাহ সবার উপর শ্রেষ্ঠ।

কোরানের উক্ত বিধান অনুসরন করেই আমাদের নবী মুহাম্মদ নিজেই তার স্ত্রীকে পিটাতেন , তার সাহাবীরাও তাদের স্ত্রীদেরকে পিটিয়ে আলু ভর্তা করতেন। যেমন ---

জানাযার বিবরন ::সহিহ মুসলিম :: খন্ড ৪ :: হাদিস ২১২৭
আব্দুল্লাহ ইবনে কাসির ইবনে মুত্তালিব থেকে বর্নিত। তিনি মুহাম্মাদ ইবনে কায়েস (রা)কে বলতে শুনেছেন, আমি আয়েশা (রা) কে বর্ননা করতে শুনেছি। তিনি বলেন, আমি কি তোমাদের নবী রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে ও আমার তরফ থেকে হাদিস বর্ননা করে শুনাবো না?--------------আমি বললাম, ইয়া রাসুলুল্লাহ, আপনার উপর আমার মাতা-পিতা কুরবান হোক। এরপর তাকে ব্যপারটা জানিয়ে দিলাম। তিনি বললেন, তুমিই সেই কালো ছায়াটি যা আমি আমার সামনে দেখেছিলাম। আমি বললাম, জী হ্যা। তিনি আমার বুকে একটা থাপ্পর মারলেন, যাতে আমি ব্যাথা পেলাম। -----------------(অনেক বড় হাদিস তাই সংক্ষিপ্ত আকারে দেয়া হলো)।

কুরান ও নবী মুহাম্মদের আদর্শ অনুসরন করেই , তার সাহাবীরাও তাদের স্ত্রী বা কন্যাদেরকে বেধড়ক পিটাতো --

কাফের ও ধর্মত্যাগী বিদ্রোহিদের বিবরন অধ্যায় ::সহিহ বুখারী :: খন্ড ৮ :: অধ্যায় ৮২ :: হাদিস ৮২৮
ইয়াহইয়া ইব্ন সুলঅয়মান (র) … আয়েশা (রা) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, একদা আবূ বকর (রা) এলেন ও আমাকে খুব জোরে ঘুষি মারলেন এবং বললেন, তুমি লোকদেরকে একটি হারের জন্য আটকে রেখেছ। আমি রাসূলুল্লাহ (সা) এর অবস্থানের দরুন মৃত সদৃশ ছিলাম। অথচ তা আমাকে ভীষল যন্ত্রণা দিয়েছে। সামনে অনুরূপ হাদীস বর্ণনা করেছেন।

সুনান আবু দাউদ :: বিবাহ অধ্যায় ১২, হাদিস ২১৪৬
ইবন আবূ খালফ ও আহমাদ ইবন আমর ইবন সারহ্ -ইয়াস ইবন আবদুল্লাহ্ ইবন আবূ যুবরা হতে বর্নিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ্ (সাঃ) ইরশাদ করেন, তোমরা আল্লাহর দাসীদেরকে প্রহার করবে না। তখন উমার (রা) রাসূলুল্লাহ্ (সাঃ) - এর খিদমতে উপস্থিত হয়ে বলেন, স্ত্রীরা তাদের স্বামীদের সাথে অবাধ্যতা করছে। তখন তিনি তাদেরকে হালকা মারধর করতে অনুমতি প্রদান করেন। অতঃপর রাসূলুল্লাহ্ (সাঃ) - এর পরিবারের নিকট অনেক মহিলা এসে তাদের স্বামীদের সম্পর্কে অভিযোগ পেশ করে। তখন নবী করীম (সাঃ) ইরশাদ করেনঃ আলে ১ মুহাম্মদের নিকট অসংখ্য মহিলা এসে তাদের স্বামীদের ব্যাপারে অভিযোগ পেশ করছে। যারা তাদের স্ত্রীদের মেরেছে তারা তোমাদের মধ্যে উত্তম নয়।

তার মানে দেখা যাচ্চে কুরানের বিধানকে যখন নবী মুহাম্মদ নিজেই বাস্তবে রূপদান করছেন , ও করার জন্য তার উম্মতদেরকে অনুমতি দিচ্ছেন , তখন সবাই কারনে অকারনে তার স্ত্রীদেরকে পিটাচ্ছে যেমনটা আমরা রাস্তার কুত্তাদেরকে মাঝে মাঝে পিটাই। এক্ষেত্রে হযরত ওমর একটা দারুন কাজ করেন। যেমন --

মুয়াত্তা মালিক :: দুধপান সম্পর্কীত অধ্যায় ৩০, হাদিস ১২৮৮
আব্দুল্লাহ ইবনে দীনার (র) হইতে বর্ণিত-তিনি বলিয়াছেন: আব্দুল্লাহ ইবনে উমর (রা)-এর বলিলেন: এক ব্যক্তি উমর ইবনে খাত্তাব (রা)-এর নিকট আসিয়া বলিলেন, আমার এক দাসী ছিল। আমি উহার সহিত সঙ্গম করিতাম- আমার স্ত্রী ইচ্ছাপুর্বক উহাকে দুধ খাওয়াইয়া দেয়, তারপর আমি সেই দাসীর নিকট (সঙ্গমের উদ্দেশ্যে) প্রবেশ করিলাম, আমার স্ত্রী বলিল, থাম ! উহার সাথে সংগত হইও না আল্লাহর কসম, আমি উহাকে দুধ পান করাইয়াছি। উমর (রা) বলিলেন : তোমার স্ত্রীকে প্রহার করো, তারপর দাসীর নিকট গমন কর, দুধ পান করানো () ছোটদের বেলায় গ্রহণযোগ্য হইয়া থাকে।

অর্থাৎ স্ত্রী যদি তার স্বামীকে দাসী বান্দির সাথে যৌন ফুর্তি না করার জন্যে কোন ফন্দি ফিকির আটে , তাহলে সেই স্ত্রীকে ওমরের দেখানো পথে কঠিন ধোলাই দিতে হবে। আর ইহার মধ্যে আছে নারীর মহা সম্মান। অতি সামান্য কারনে উম্মত শ্রেষ্ঠ হযরত ওমর তার স্ত্রীকে কড়া মারধর করতেন। যেমন --

সুনানু ইবনে মাজাহ্ :: হাদিস ১৯৮৬, নিকাহ বা বিবাহ অধ্যায়
আশআস ইবনু কায়েস (রহ.) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি এক রাতে ‘উমার <-এর বাড়িতে মেহমান হলাম। মধ্যরাতে ‘উমার < তার স্ত্রীকে প্রহার করতে উঠলেন। আমি তাদের দু’জনের মাঝে প্রতিবন্ধক হলাম। অতঃপর ‘উমার < শয্যা গ্রহণ করে আমাকে বলেন, হে আশআস! তুমি আমার থেকে একটি বিষয় মনে রাখবে যা আমি রসূলুল্লাহ ﷺ -এর নিকট শুনেছি। স্বামী তার স্ত্রীকে প্রহার করলে এ ব্যাপারে জওয়াবদিহি করতে হবে না, বিত্র সলাত না পড়ে ঘুমাবে না। রাবী বলেন, আমি তৃতীয় কথাটি ভুলে গেছি। যঈফ, ইরওয়াহ ২০-৩৪, যঈফাহ ৩৭৭৬।
আবূ দাউদ ২১৪৭

কুরানের বিধান , নবী মুহাম্মদ ও তার শ্রেষ্ঠ উম্মত ওমরের দেখানো পথে বাকী উম্মতরা কিভাবে তার স্ত্রীদের পিটাতো তার একটা নমুনা নিচে দেখা যেতে পারে --

পোষাক-পরিচ্ছদ অধ্যায় ::সহিহ বুখারী :: খন্ড ৭ :: অধ্যায় ৭২ :: হাদিস ৭১৫
মুহাম্মদ ইব্ন বাশ্শার (রা)......। ইকরামা (রা) থেকে বর্ণিত। রিফা’আ তার স্ত্রীকে তালাক দেয়। পরে আবদুর রহমান কুরাযী তাকে বিবাহ করে। ‘আয়েশা (রা) বলেন, তার গায়ে একটি সবুজ রঙ্গের উড়না ছিল। সে ‘আয়েশা (রা)-এর নিকট অভিযোগ করলেন এবং (স্বামী প্রহারের দরুন) নিজের গায়ের চামড়ার সবুজ বর্ণ দেখালো। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) যখন এলেন, আর স্ত্রীলোকেরা একে অন্যের সহযোগিতা করে থাকে, তখন আয়েশা (রা) বললেন : কোন মু’মিন মহিলাকে এমনভাবে প্রহার করতে আমি কখনও দিখিনি।

আরও বলা হচ্ছে , নবী ও তার শ্রেষ্ঠ উম্মতদের দেখানো পথে স্ত্রীকে কুত্তা বিড়ালের মত মারধর করলেও তার জন্যে স্বামীকে কেয়ামতের মাঠে কোন জবাবদিহিতা করতে হবে না। আর ঠিক এই কারনেই মুসলিম দেশগুলোতে স্বামীর দ্বারা স্ত্রীকে নির্যাতন একটা অতি সাধারন বিষয় এবং এই ধরনের নির্যাতনের বিরুদ্ধে ইসলামী দেশ সমূহে কোন আইন প্রনয়ন করা যায় না , করতে গেলে সে দেশের মোল্লারা জিহাদের ডাক দেয় যাতে আপামর মুসলিম জনগন জেনে হোক বা না জেনে হোক , ঝাপিয়ে পড়ে। সেই কারনেই মুসলিম দেশ সমূহে , স্বামী কর্তৃক স্ত্রী নির্যাতনকে স্ত্রীরা নিজেরাই বেহেস্তে যাওয়ার চাবিকাঠি হিসাবে মেনে নিয়েছে।

সবাই বলুন , সুবহান আল্লাহ !

Comments

মিথুন এর ছবি
 

নিশ্চয় তোমার জন্য অপেক্ষা করছে জাহান্নামের লেলিহান শিখা Blum 3

মিথুন

 
তরুলতা এর ছবি
 

আপনি তো সেই আপনার নবী আর আল্লাহর মতো ভয় ভীতি দেখানো শুরু করেছেন! লেখায় কোন ভুল পেয়েছেন কী না সেটা বলুন নাকি আপ্নিও ওয়াজের হুজুরদের মত চোখ বন্ধ করে সব মেনে নিতে বলবেন?

 
মিথুন এর ছবি
 

হায়রে কপাল!! দেখুন নবী বা দেব দেবী বা আল্লাহ কোনটাই আমি মানি না। আমি জাস্ট ফ্যান করে কথাটা বলছি লাষ্ট ইমুটা খেয়াল করেন নি বোধহয়।আপনার লেখাটা দারুন ছিল।কিন্তু আপনি আমার অনুভুতিতে আঘাত হানছেন ভাই।আপনি জানেন আমার ঈশ্বর বা আল্লাহ কে?অযথা কাল্পনিক একটা দাঙ্গাবাজ কারেক্টারকে আপনি আমার আল্লাহ বললেন। আপনার নামে ৫৭ ধারায় মামলা করবো।হ্যাঁ বলে রাখি My parents are my God।

মিথুন

 
তরুলতা এর ছবি
 

 
মৃত কালপুরুষ এর ছবি
 

এখন কিভাবে হলো ???

-------- মৃত কালপুরুষ

 
তরুলতা এর ছবি
 

কিভাবে হলো তাতো জানিনা হয়তো ছবি আপ্লোড হতে অনেক টাইম লাগে। আমি দেরি দেখে বাকী দুটো লিংক ডিলিট করে দিয়েছিলাম

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

তরুলতা
তরুলতা এর ছবি
Offline
Last seen: 3 দিন 12 ঘন্টা ago
Joined: বুধবার, নভেম্বর 29, 2017 - 11:43অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর