নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 8 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • কাঠমোল্লা
  • নুর নবী দুলাল
  • বিকাশ দাস বাপ্পী
  • চিত্রগুপ্ত
  • মৃত কালপুরুষ
  • অ্যাডল্ফ বিচ্ছু
  • নরসুন্দর মানুষ

নতুন যাত্রী

  • আদি মানব
  • নগরবালক
  • মানিকুজ্জামান
  • একরামুল হক
  • আব্দুর রহমান ইমন
  • ইমরান হোসেন মনা
  • আবু উষা
  • জনৈক জুম্ম
  • ফরিদ আলম
  • নিহত নক্ষত্র

আপনি এখানে

দীপিকা পাডুকোন ও বানসালীর মাথার মুল্য এখন পাঁচ কোটি রুপি।



সম্প্রতি ভারতে “সঞ্জয় লীলা বানসালী” পরিচালিত চলচ্চিত্র “পদ্মাবতী” বানানোর জন্য রাজস্থানের জয়পুর, যোধপুর, উদেয়পুরের রাজপরিবারের এক হিন্দু রাজপুত পরিচালক “সঞ্জয় লীলা বানসালী” ও জনপ্রিয় অভিনেত্রী “দীপিকা পাডুকোন” এর মাথার দাম ধার্য করেছে ৫ কোটি রুপি। কেউ যদি এদের কাউকে শিরোচ্ছেদ করতে পারে তাহলে তাকে এই ৫ কোটি রুপি দেওয়া হবে। রাজস্থানের রাজ পরিবারের দাবী রানী পদ্মাবতীর যে ইতিহাস সমস্ত ভারতের মানুষ জানে সেই ইতিহাস নাকি এই চলচ্চিত্রের মাধ্যমে বিকৃত করা হয়েছে। আসলে আমরা এখন পর্যন্ত কেউ জানি না আসলে সঞ্জয় লীলা বানসালী আমাদের পদ্মাবতী চলচ্চিত্রে কি দেখাতে যাচ্ছে, কারন এই ছবি চলতি ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে মুক্তি পাবার কথা থাকলেও এই হিন্দু রাজপুতের আন্দোলনের কারনে শোনা যাচ্ছে আগামী বছর জানুয়ারী মাসের আগে তা মুক্তি পাবে না। রানী পদ্মাবতীর ইতিহাস ও চিতর কেল্লা ট্রাজেডি ইতিহাসে হিন্দু ও মুসলিম জাতির পরিচয় বহন করে থাকে বলে অনেকের ধারনা। হিন্দুরা বর্তমানে এটা ভেবে থাকে তাদের ধর্মের যে একটি বর্বর অধ্যায় ছিলো যা ১৮২৯ সালে ব্রিটিশরা আইন করে বন্ধ করেছিলো সেই সতীদাহ প্রথা এই রানী পদ্মাবতী ও চিতর কেল্লা থেকেই শুরু হয়েছে যদিও তারও হাজার হাজার বছর আগেও হিন্দু ধর্মে এই প্রথার সন্ধান পাওয়া গেছে। আবার অনেকেই মনে করে এই প্রথাটি হিন্দু ধর্মে অনেক আগেই বিলুপ্ত হয়ে গিয়েছিলো। কিন্তু পরে আবার ১৩০৩ খ্রিস্টাব্দের দিকে দিল্লির মুসলিম শাসক আলাউদ্দীন খিলজির অত্যাচার ও নারী লোভী মনোভাবের কারনে এই রানী পদ্মাবতী দ্বারা আবার চালু হয়েছিলো। তাই রাজস্থান সহ সমস্ত ভারতবর্ষে ও হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে এই রানী পদ্মাবতী দেবী একটি স্পর্সকাতর চরিত্র হয়ে আছে।

ইতিহাস যাই হোক, এটা নিয়ে একটি চলচ্চিত্র তৈরি করা হয়েছে তাতে এই রাজাস্থানবাসির স্বাগত জানানো উচিত ছিলো। আর যদি সঞ্জয় লীলা বানসা্লী রানী পদ্মাবতীর ইতিহাস বিকৃত করেই থাকে তাহলে তাকে হুমকি ধামকি না দিয়ে এবং অভিনেত্রীদের মাথা না কাটতে চেয়ে উচিত ছিলো তার বিপক্ষে প্রকৃত সত্য জানিয়ে আরেকটি ছবি বানিয়ে তার জবাব দেওয়া। কিন্তু রাজপুতের এই আচরন আসলে প্রমান করে হিন্দু ধর্মের মধ্যেও মুসলিম জিহাদি মৌলবাদীদের মতো আচরন আছে যা কোন অংশেই কম নয়। মুসলিমরা যেমন তাদের নবী বা ধর্ম নিয়ে কথা বললে মানুষের মাথা কাটতে চায় হিন্দুরাও ঠিক তেমনই করতে চায়। তারাও মুক্তভাবে মত প্রকাশ করতে দিতে চায়না। তাই যদি না হতো তাহলে এই “পদ্মাবতী” চলচ্চিত্রের জের ধরে এই হত্যা হুমকি ও মাথার মুল্য ধার্য না করে সারা ভারতবর্ষের নির্যাতিত হিন্দু জাতিদের জন্য কাজ করতো। বাংলাদেশে যে প্রতিনিয়ত হিন্দুদের ওপরে নির্যাতন হচ্ছে তার বিপক্ষে কথা বলতো এই হিন্দু রাজপুতেরা। অথবা এই “পদ্মাবতী” চলচ্চিত্র বর্জন করে তার জবাব দিতে পারতো, কিন্তু সেটা না করে তারা তাদের ক্ষমতার অপব্যাবহার করছে। বিশাল রাজপুত কিংডম নামে পরিচিত বর্তমান ভারতের রাজস্থানের পুরাটায় এই রাজপুতদের দখলে থাকায় ভারতের মোদী সরকারও মনে হয় এদের কাছে কিছুটা অসহায়। আর যদি তাই হয় তাহলে জনগনের নিরাপত্তা না দিতে পারার কারনে এই সরকারের পদত্যাগ করা উচিত বলে মনে করি।

আসলে যে রানী পদ্মাবতীকে নিয়ে এতো কাহিনী তার ইতিহাস পড়লে যেমন চোখে পানি চলে আসবে ঠিক তেমনই আবার প্রমান করে দেওয়া যাবে এই রানী পদ্মাবতী বলে কেউ ছিলোই না। পদ্মাবতীর অস্তিত্ব নিয়েও অনেক প্রশ্ন আছে ইতিহাসে। তবে মুসলিম শাসক বর্বর আলাউদ্দীন খিলজীর ইতিহাস নিয়ে কোন সমস্যা নেই এখন পর্যন্ত। তবে রানী পদ্মাবতী বর্তমান ভারতবর্ষের একটি মর্মস্পর্শী ইতিহাস যা এখন পর্যন্ত টাটকা হয়ে আছে হিন্দু জাতিদের কাছে। তাইতো তাদের এই নিয়ে এতো অনুভূতি দেখা যাচ্ছে। তবে দুঃখের বিষয় এই রাজপুতেরা সেই ইতিহাস কতটুকু জানে আর সঞ্জয় লীলা বানসালীর মতো পরিচালকেরাইবা কতটুকু জানে। আমি হিন্দু ধর্মের বর্বর প্রথা সতীদাহ নিয়ে একটি লেখাতে এই এই পদ্মাবতি ট্রাজেডির কথা একবার উল্লেখ করেছিলাম। কারন এই ইতিহাসের সাথে সতীদাহ প্রথাটি জড়িত আছে। সেটা অন্য আলোচনা তবে এখানে পদ্মাবতী ট্রাজেডির কিছু ইতিহাস যেমন চিতর কেল্লা, রানী পদ্মাবতী ও আলাউদ্দীন খিলজীর কিছু সংক্ষিপ্ত পরিচয় না দিলে মনে হয় আধুরী থেকে যাবে।

প্রাপ্ত ইতিহাস অনুযায়ী আমরা জানতে পারি মুসলিম শাসক আলাউদ্দিন খিলজি তার আপন চাচা ও খিলজি বংশের প্রতিষ্ঠাতা জালালউদ্দিন খিলজিকে হত্যা করে ১২৯৬ খ্রিস্টাব্দে দিল্লির সিংহাসন দখল করেন অর্থের বিনিময়ে । তিনি ১২৯৬ খ্রিস্টাব্দ থেকে ১৩১০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত রাজত্ব করেন । ইলবেরি তুর্কি আমলে ভারতে দিল্লিতে মুসলিম সুলতানির যে ভিত্তি স্থাপিত হয়েছিল, আলাউদ্দিন খিলজির সময় তা পরিপূর্ণ রূপ গ্রহন করেছিল । উত্তর ও দক্ষিণ ভারতের বিস্তৃত এলাকা জুড়ে সাম্রাজ্য স্থাপনের সঙ্গে সঙ্গে শাসনতান্ত্রিক সংস্কার চালু করে নিজ কর্তৃত্ব সুদৃঢ় করতে তিনি সচেষ্ট হয়েছিলেন এই শাসক । এই দিক দিয়ে বিচার করলে তাঁকে সুলতানি আমলের শ্রেষ্ঠ সম্রাট বলা যেতে পারে । তবে প্রকৃত এই আলাউদ্দীন খিলজি ছিলো একজন মাতাল ও লম্পট টাইপের মানুষ। তার বাইসেক্সুয়ালিটি অভ্যাস ছিলো। তার বৈধ স্ত্রীর সংখ্যা ছিলো শতাধিক। তা বাদেও তার হারেমে প্রায় ৭ হাজার এর মতো নারী, শিশু ও বালক ছিলো। এই আলাউদ্দীন খিলজির তারপরেও এমন অভ্যাস ছিলো যে, যদি কোন যায়গায় কোন সুন্দরী রমনীর কথা শুনতো বা সন্ধান পেতো তাহলে তাকে নিজের বশে না আনা পর্যন্ত সে ক্ষান্ত হতো না এবং এর জন্য সে যেকোন কিছু করতে রাজি থাকতো। খিলজি রাজবংশ ছিল তুর্কি বংশোদ্ভুত মুসলিম রাজবংশ যারা পরবর্তিতে তুর্কিতে ইসলামের দোহায় দিয়ে প্রায় ১৫ লক্ষ আর্মেনীয়কে হত্যা করেছিলো প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময়। ১২৯০ থেকে ১৩২০ সাল পর্যন্ত সময়ের মধ্যে এই রাজবংশ দক্ষিণ এশিয়ার বিরাট অংশ শাসন করে। জালালউদ্দিন ফিরোজ খিলজি এই রাজবংশের পত্তন করেন। এটি দিল্লি সালতানাত শাসনকারী দ্বিতীয় রাজবংশ। আলাউদ্দিন খিলজির সময় খিলজিরা সফলভাবে মোঙ্গল আক্রমণ ঠেকাতে সক্ষম হয়।

তার শাসনামলে দিল্লি থেকে সব থেকে কাছের রাজ্য বর্তমান রাজস্থানের চিতরের রাজা ছিলেন হিন্দু রতন সিং। আর এই রতন সিং এর স্ত্রী ছিলেন রানী পদ্মাবতী। রানী পদ্মাবতী এতই সুন্দরী ছিলেন যে আশেপাশের দশ রাজ্যে তার নাম মানুষ জানতো বলে প্রচার ছিলো। তবে অনেক ইতিহাসবিদের মতে খিলজির শাসনামলে রানী পদ্মাবতী ছিলো না। সে যাই হোক, রানী পদ্মাবতীর রুপ আর সৌন্দর্যের কথা এই আলাউদ্দীন খিলজি যে কোন ভাবে জানতে পারে। কিভাবে জানতে পারে তা নিয়েও অনেক ইতিহাস আছে তা আর এখানে তুলছি না। আলাউদ্দীন খিলজী রানী পদ্মাবতীর রুপের কথা শুনে পাগল হয়ে যায়। শোনা মাত্র সে তার বিশাল সৈন্য বাহিনী নিয়ে রাজস্থানের চিতর আক্রমনের উদ্দেশ্য ১৩০৩ সালের ২৮ জানুয়ারী বেরিয়ে পড়ে। যখন সে চিতরের কেল্লার কাছে আসে তখন দেখতে পায় চিতর কেল্লার নিরাপত্তা খুবই মুজবুত যা ভেঙ্গে ভেতরে যাওয়া একেবারেই অসম্ভব। তাই সে মতলব আটে এবং রাজা রতন সিং এর কাছে তার দুত পাঠায় এই বলে যে, সে রানী পদ্মাবতীকে তার বোনের মতো জানে তাই তাকে একবার দেখে সে আবার দিল্লি চলে যাবে। তার কোন প্রকারের যুদ্ধ করার ইচ্ছা নেই। এই শুনে রানী পদ্মাবতী তার প্রজাদের দিকে তাকিয়ে লম্পট আলাউদ্দীন খিলজিকে দেখা দেবেন বলে রাজি হন। তবে শর্ত থাকে সে আয়নাতে তার চেহারা দেখতে পারবেন। এই আয়নাটি নিয়েও অনেক ইতিহাস আছে কারন এই ঘটনা যখন ঘটেছিলো তখন আমরা আয়না বলে যাকে জানি তা আসলে ছিলো না। তবে সোনা, রুপা, তামা, পিতল বা কাসার তৈরি আয়নার চল ছিলো তখন। অনেকের মতে এই আয়না আলাউদ্দীন খিলজি দিল্লি থেকেই নিয়ে এসেছিলো।

আলাউদ্দীনের আয়না সাথে নিয়ে আসার কারন ছিলো। সে জানতো যে হিন্দু রাজপরিবারের রাজরানীদের কোন বাইরের পুরুষের সামনে যাওয়ার চল তখন ছিলোনা। যখন আলাউদ্দীন রানী পদ্মাবতীকে আয়নায় দেখতে পান তখন তার মাথা আরো খারাপ হয়ে যায়। সে পদ্মাবতী সম্পর্কে যা শুনেছিলেন আর ভেবেছিলেন তার থেকেও অনেকগুন বেশি সুন্দরী ছিলো এই রানী পদ্মাবতী। সাথে সাথে তার মত পাল্টে ফেলেন লম্পট আলাউদ্দীন খিলজি এবং সুযোগ খুজতে থাকেন কিভাবে রানী পদ্মাবতীকে তার দখলে নিবেন। তার বিদায়ের সময়ে সৌজন্য রক্ষা করতে রাজা রতন সিং আলাউদ্দীনকে কে কিছুদূর এগিয়ে দেবার জন্য কেল্লার বাইরে আসেন। এই সুযোগ হাতছাড়া করেননি লম্পট আলাউদ্দীন খিলজি। রাজা রতন সিং কে বন্দি করে রাখেন কেল্লার বাইরে। আর খবর পাঠান রানী পদ্মাবতীর কাছে, যদি সে স্বইচ্ছায় তার কাছে চলে যায় তাহলে সে রাজা রতন সিং কে জীবিত ছেড়ে দেবে এবং কোন ক্ষতি না করে আবার দিল্লি ফিরে যাবে। এই কথা শুনে রানী পদ্মাবতী রাজী হয়ে আলাউদ্দীনকে জানায় যেহেতু সে রানী তাই একা যাবে না তার ৭০০ দাস দাসী তার সাথে যাবে সেবা করার জন্য। এতেও লম্পট আলাউদ্দীন খিলজি রাজী হয়ে যান। রানী পদ্মাবতী ৭০০ পালকিতে করে তার বাছাই করা সৈন্য বাহিনী পাঠান। এবং তারা কৌশলে রাজা রতন সিং কে উদ্ধার করে আবার চিতর কেল্লাতে নিয়ে আসেন।

এতে করে আলাউদ্দীন ক্ষিপ্ত হয়ে চিতর দখল করার সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু চিতরের কেল্লা এমন ভাবে তৈরি করা ছিল যা ভেদ করে ভেতরে যাওয়ার কোন উপায় খুজে না পেয়ে চারদিক থেকে অবরোধ করে রাখেন। তার পরিকল্পনা মতো অল্প কিছুদিনের মধ্যেই কেল্লার ভেতরে খাবারের সংকট দেখা দেয়। তখন রাজা রতন সিং বাধ্য হয়ে আলাউদ্দীন খিলজির বিশাল বাহিনীর সাথে যুদ্ধে লিপ্ত হন এবং মারা যান। এরপরেও সে কেল্লার ভেতরে প্রবেশ করতে পারে না। এরকম অবস্থায় রানী পদ্মাবতী সহ সকল নারীরা তাদের সতীত্ব রক্ষা করার জন্য জীবন্ত আগুনে পুড়ে আত্তহননের সীদ্ধান্ত নেন। কেল্লার ভেতরে তৈরী করা বিশাল চিতার আগুনে রানী পদ্মাবতী তার সতীত্ব রক্ষা করার জন্য হিন্দু ধর্মের সতীদাহ প্রথা অনুযায়ী নিজেকে পুড়িয়ে ফেলেন। সেই সাথে তাকে অনুসরন করে সমস্ত রাজবধু ও দাসীরা প্রায় ছয়শো থেকে সাতশো নারী একসাথে আত্তাহুতি দেন। লম্পট আলাউদ্দীন খিলজি যখন কেল্লার ভেতরে প্রবেশ করে তখন দেখতে পায় আগুনের ভেতরে শুধুই হাড়্ গোড় পড়ে আছে। এতে সে ক্ষিপ্ত হয়ে সমস্ত রাজপুত সৈন্যদের হত্যা করে এবং চিতর দখলে নেয়।

এটা ছিলো রানী পদ্মাবতী ও চিতর কেল্লার রাজপুতদের ট্রাজেডির একটি সংক্ষিপ্ত ধারনা। আসলে রানী পদ্মাবতীর ইতিহাস যে বিস্তর ভাবে ভারতবর্ষে ছড়িয়ে আছে আর কথিত আছে তা নিয়ে লিখলে ঘন্টার পর ঘন্টা লেখা যাবে তারপরও শেষ হবে না এই ইতিহাস। আমি এখানে লেখাটা সংক্ষিপ্ত করতে গিয়ে অনেক গুরুত্বপুর্ণ বিষয় বাদ দিয়েছে যা এই ঘটনার সাথে সুক্ষভাবে জড়িত। এই ইতিহাসকে যদি বিশ্বের দরবারে তুলে ধরে ভারতের কোন পরিচালক তা নিয়ে চলচ্চিত্র বানিয়ে থাকে তাহলে রাজস্থানের রয়েল ফ্যামিলির উচিত হবে তাদেরকে অভিবাদন জানানো তাদের মাথা কাটতে চাওয়া না। অভিনেত্রী “দীপিকা পাডুকোন” এর আগেও “রাম লীলা” ছবি করে হুমকির শিকার হয়েছিলেন। রাজস্থানের ইতিহাসের বড় অংশ জুড়ে থাকা সম্রাট আকবরের ইতিহাস নিয়ে “যোধা আকবর” চলচ্চিত্র করতে গিয়েও পরিচালক “আসুতোষ” এই রাজপুতদের বাধায় পড়ে তাদের মনগোড়া কিছু ইতিহাস ঢুকিয়েছিলেন সেই চলচ্চিত্রে। কিন্তু একই কাজ আবার এরা “সঞ্জয় লীলা বানসালি”র সাথে করতে না পেরে এখন হয়তো ক্ষিপ্ত হয়ে এই ছবি মুক্তি না দেওয়ার জন্য আন্দোলন করছেন এবং তার ও দীপিকার মাথার দাম তুলে দিয়েছেন তাদের হত্যা করার জন্য। এখন আমাদের ভেবে দেখতে হবে সেই মধ্যযুগে আলাউদ্দীন যা করেছিলো তার সাথে এই বর্তমান যুগের রাজপুতদের পার্থক্য কি থাকলো। তবে বাকি থাকলো “পদ্মাবতী” চলচ্চিত্র দেখা, দেখার পরে না হয় আরেকটা রিভিউ লেখা যাবে।

---------- মৃত কালপুরুষ
১৮/১১/২০১৭

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

মৃত কালপুরুষ
মৃত কালপুরুষ এর ছবি
Online
Last seen: 1 ঘন্টা 18 min ago
Joined: শুক্রবার, আগস্ট 18, 2017 - 4:38অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর