নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 8 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • বাপ্পার কাব্য
  • নীল কষ্ট
  • মুফতি মাসুদ
  • অনন্য আজাদ
  • নরসুন্দর মানুষ
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • কফিল উদ্দিন মোহাম্মদ
  • সংশপ্তক শুভ

নতুন যাত্রী

  • আদি মানব
  • নগরবালক
  • মানিকুজ্জামান
  • একরামুল হক
  • আব্দুর রহমান ইমন
  • ইমরান হোসেন মনা
  • আবু উষা
  • জনৈক জুম্ম
  • ফরিদ আলম
  • নিহত নক্ষত্র

আপনি এখানে

সংখ্যালঘু নির্যাতনের আড়ালে যারা মুখ লুকিয়ে হাসে!


রংপুরে হিন্দুদের বসতভিটা যখন পুড়ছিল তখন রসরাজকে ভারতে পাঠিয়ে, শ্যামলকান্তিকে জেলের ঘানি টানিয়ে মাদার অব হিউম্যানিটি অশ্রু বিসর্জন করছিলেন। না, তিনি নিরোর মত বাঁশি বাজাচ্ছিলেন না। তিনি সত্যিই কাঁদছিলেন, তবে শান্তিতে নোবেলের জন্য।
নাসিরনগর ট্র্যাজেডীর বিচারহীনতার ধারাবাহিকতায় আবারো রংপুরে সংখ্যালঘু হিন্দুদের বসতবাড়িতে আগুন দিয়েছে সংখ্যাগুরু মুসলিমরা। ইন্টারনেটের যুগে এই সংবাদটি বিস্তারিত বর্ণনার প্রয়োজন নেই। আমি বরং লিখতে এসেছি এই ঘটনা পরবর্তী সৌদি অর্থায়নে পরিচালিত বিশেষ কিছু মুসলিম আইডি, পেজ এবং তাদের জুতা লেহনকারীদের ইতরামির জবাব দিতে।

প্রত্যাশিতভাবেই এবারো সৌদি অর্থায়নে লালিত কুকুরের দল এবং তাদের সর্দাররা ভিক্টিম ব্লেইমিং এর পথ বেছে নিয়েছে।নীপীড়িত গৃহহারা সংখ্যালঘু সম্প্রদায় নয় বরং তাদের কলমে উঠে এসেছে নীপীড়নকারী সন্ত্রাসীদের জন্য বেদনা। সংখ্যালঘু পরিবারগুলোর বসতভিটা পুড়িয়ে তাদের গৃহহীন করার সমান্তরালে(!) তারা এই ঘটনায় মারা যাওয়া দুইজন মুসলিম সন্ত্রাসীর জন্যও ব্যথিত। কিছু সংবাদমাধ্যম অবশ্য সেই দুজনকে উৎসুক সাধারণ জনতা হিসেবে অ্যাখায়িত করছে কিন্তু তারা ভুলে যাচ্ছে যে যারা আগুন দিয়েছে তারাও সাধারণ জনতা এবং আগুনটা তারা দিয়েছে উৎসাহেরই সহিত। কাজেই সেই দুজনকে উৎসুক সাধারণ লোক হিসেবে আলাদা করার কিছু নেই। আর যেসব সৌদি গেলমানরা এই পয়েন্টটি নিয়ে ইতরামি করছেন তারা কোন কিছুই প্রমাণ করতে পারছেন না শুধুমাত্র নিজেদের ইতর থেকে ইতরশ্রেষ্ঠ হিসেবে প্রমাণ করা ছাড়া। কারণ একই রকম ভিক্টিম ব্লেইমিং আপনারা নাসিরনগরের ক্ষেত্রেও করেছেন যদিও তখন মুসলিম কেউ মারা যায়নি। ইতোমধ্যেই রংপুরেরর এই ঘটনায় মাওলানা হামিদী নামে এক মুসলিমের সম্পৃক্ততার কথা উঠে এসেছে। তবে আমি জানি এক্ষেত্রেও ঐ সৌদি গেলমানরা কোন না কোন অজুহাত বের করবেই। সেই অপেক্ষায় থাকলাম।

সৌদি গেলমান সর্দাররা আবার এই ঘটনায় যেন মুসলিমদের দায়ী করা না হয় তার জন্য বেশ তৎপর। ইসলাম বিদ্বেষীরা নাকি এই ঘটনায় মুসলিমদের দায়ী করার জন্য পাকা পায়খানা অফার পেয়ে থাকে। পাকা পায়খানার প্রসঙ্গে পরে আসি। তার চাইতে গুরুত্বপূর্ণ একটা প্রশ্ন হলো যে রোহিঙ্গাদের মারার জন্য যদি বৌদ্ধদের দায়ী করা যায়, গুজরাট দাঙ্গার জন্য যদি হিন্দুদের দায়ী করা যায় তাহলে নাসিরনগর বা রংপুরের জন্য কেন মুসলিমদের দায়ী করা যাবে না। 'মুসলিম বিজ্ঞানী' যদি থেকে থাকে, 'মুসলিম প্রধানমন্ত্রী' যদি থেকে থাকে, 'মুসলিম মেয়র' যদি থেকে থাকে তাহলে 'মুসলিম সন্ত্রাসীও' অবশ্যই আছে। আর উনাদের জ্ঞাতার্থে বলতে চাই যে এখন 'ইসলাম বিদ্বেষী' টার্মটি মূল্যহীন হয়ে গেছে। এটা দিয়ে আর পশ্চিমা বামপন্থীদের সহানুভূতি অর্জন করা যায় না। বরং ইসলাম যেভাবে ভিন্নমত এবং ভিন্নমতাবলম্বীদের প্রতি ঘৃণা ও বিদ্বেষ ছড়ায় তাতে ইসলাম নিজেও পালটা বিদ্বেষ ডিজার্ভ করে। আর এদেশের প্রগতিশীল ধর্মনিরপেক্ষ লেখকরা তাদের সহলেখক বন্ধুদের ইসলামের হাতে কচুকাটা হতে দেখেছেন। আমার তো মনে হয় এদেশের ধর্মনিরপেক্ষ লেখকদের তাই ইসলাম বিদ্বেষীতে পরিণত হওয়াটা খুবই স্বাভাবিক এবং যৌক্তিক। বরং সেটা না হওয়াটাই তাদের মৃত সহযাত্রীদের প্রতি অবিচার।

কেন মেয়েটি অত রাতে বাহিরে গিয়েছিল, কেন তার বুকে ওড়না ছিল না, কেন লেখক ধর্ম নিয়ে লিখতে গেলেন, কেন পশ্চিমারা নাইটক্লাবে গিয়েছিলো- এসবই গত কয়েক বছর ধরে আমাদের কাছে অতি পরিচিত প্রশ্ন। এর সাথে নতুন একটি সংযোজন- কেন টিটু রায় বা রসরাজ নবী অবমাননামূলক পোস্ট শেয়ার করলো! ৯০ ভাগ মুসলিমের দেশে বসবাস করে সে এত বড় সাহস পেল কি করে! ভীষণ ঝাঁঝালো একটি প্রশ্ন বটে,যারা উত্তরটি জানেননা তাদের মাথা নিচু করে চুপ করে থাকা ছাড়া উপায় নেই। একইরকম প্রশ্ন আমরা অনলাইন লেখক বিশেষত যারা অমুসলিম পরিবার থেকে এসেছেন তাদের ক্ষেত্রেও শুনতে পাই- তিনি একজন অমুসলিম হয়ে কোন সাহসে ইসলামের বিরুদ্ধে লিখতে গেলেন! যেসব মুসলিম বা তাদের গেলমেনরা এই প্রশ্নটি করেন তারা কি কখনো নিজেদের প্রশ্ন করেছেন যে, জাকির নায়েক বা মুফতি রাজ্জাকরা মুসলিম হয়ে কোন সাহসে হিন্দু ধর্ম বা ক্রিশ্চিয়ানিটির বিরুদ্ধে কথা বলে। নাকি মুসলিম হলে সব করার বৈধতা পাওয়া যায়। একইভাবে প্রশ্নের পর প্রশ্ন করা যায় যে বিলাল ফিলিপ্স বা তারিক রামাদানরা ক্রিশ্চিয়ানদের দেশে বসবাস করে কোন সাহসে ক্রিশ্চিয়ানিটির বিরুদ্ধে কথা বলে। এবং তাদের এই ভয়াবহ অপরাধের(!)জন্য কেন সেদেশের মুসলিমদের উপর নাসিরনগর বা রংপুরের মত তান্ডব চালানো যৌক্তিক হবে না? মুসলিম এবং তাদের গেলমানদের বলবো সবার আগে আপনারা এই প্রশ্নগুলোর উত্তর দিন।

এই দুমুখো সৌদি গেলমানদের আরএসএস, শিবসেনা নিয়ে চিন্তার অন্ত নেই। তাদের সর্দাররা সবকিছুতে এমনকি এদেশের সংখ্যালঘুদের উপর চালানো নির্যাতনের পেছনেও শিবসেনার হস্তক্ষেপ খুঁজে পায়। অথচ এরা আরএসএস, শিবসেনা, জায়োনিস্টদের নিয়ে যত চিন্তিত তার সিকিভাগও যদি আইএস, আলকায়েদা, বোকোহারাম, লস্কর-ই-তৈয়বা, আনসারুল্লাহ নিয়ে চিন্তিত হত তাহলে হয়তো শিবসেনাদের জন্মই হতো না। শিবসেনাই বলেন আর জায়োনিস্টই বলেন এদের তৎপরতা একটি নির্দিষ্ট অঞ্চলের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে, অন্যদিকে ইসলামিক মৌলবাদী গোষ্ঠীগুলো পুরো বিশ্বজুড়ে তৎপর। শিবসেনাদের জন্ম হয় লস্কর-ই-তৈয়বা, ইন্ডিয়ান মুজাহিদীনদের মৌলবাদের জন্যই। এই কারণে আমরা শিবসেনাদের মৌলবাদের রেকর্ড কেবল ভারতেই খুঁজে পাই, কিন্তু আইএস, আলকায়েদার মৌলবাদের সুনাম পুরো বিশ্বজুড়ে। এখন যদি আইএস, আলকায়েদার সদস্যদের সহি মুসলিম হিসেবে উনাদের মানতে আপত্তি থাকে তাহলে আশা করি শিবসেনার সদস্যদেরও সহি হিন্দু হিসেবে মানতে উনাদের আপত্তি উঠার কথা। আমার আশার মুখে ছাই পড়ুক! এ যে হবার নয়। উনারা ভারতে সংখ্যালঘু নির্যাতিত হলে হিন্দুদের হাত আবিষ্কার করবেন, মায়ানমারে হলে বৌদ্ধদের হাত আবিষ্কার করবেন। কিন্তু বাংলাদেশ বা কোন মুসলিম দেশে সংখ্যালঘু নির্যাতনের ঘটনা ঘটলে উনারা দুর্বৃত্তদের নাম আবিষ্কার করবেন, শিবসেনাদের যোগসাজশ খুঁজে পাবেন শুধু ভাশুরের নামটি মুখে নিবেন না। আমরাও চাই না যে উনারা ভাশুরের বিরাগভাজন হউন।

উনাদের আরো একটা সমস্যা হলো উনারা হিন্দুত্ববাদ, জায়নবাদকে দুচোখে সহ্য করতে পারেন না। সবকিছুর পিছনে যেমন, এদেশের প্রগতিশীল ধর্মনিরপেক্ষ লেখকরা মৌলবাদ, সংখ্যালঘুদের পক্ষে লিখছে তার পিছনে তারা হিন্দুত্ববাদী, জায়নবাদীদের অফারকৃত কাল্পনিক পাকা পায়খানাকে আবিষ্কার করেন। অথচ এই পাকা পায়খানাটা যে কি ধাতব বস্তুতে তৈরি তা তারা ব্যাখ্যা করতে অক্ষম। এদেশের পায়খানা আর পশ্চিমাদের পায়খানাদের মধ্যে আমি তো কোন তফাৎ দেখি না। অপরদিকে শুনেছি সৌদি রাজপুত্রদের পায়খানাগুলো নাকি সোনায় মোড়ানো। সৌদিদের সাথে তো আর ধর্মনিরপেক্ষ লেখকদের দহরম-মহরম নেই, আছে উনাদের। কাজেই কারা সোনায় মোড়ানো পাকা পায়খানার জন্য লেখে তা জানার জন্য কি এখন আমাদের জ্যোতিষীর প্রয়োজন আছে! হিন্দুত্ববাদ, জায়নবাদ নিয়ে উনাদের এত এলার্জী দেখলেও কখনো খিলাফতবাদ বা বৈশ্বিক জিহাদের বিরুদ্ধে উনাদের টু শব্দ করতে দেখি না। এর কারণও কি সেই সোনায় মোড়ানো পাকা পায়খানা?

বিভাগ: 

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

আরমান অর্ক
আরমান অর্ক এর ছবি
Offline
Last seen: 3 weeks 3 দিন ago
Joined: বৃহস্পতিবার, মে 4, 2017 - 12:48অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর