নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • বিকাশ দাস বাপ্পী
  • রসিক বাঙাল
  • এলিজা আকবর

নতুন যাত্রী

  • সাতাল
  • যাযাবর বুর্জোয়া
  • মিঠুন সিকদার শুভম
  • এম এম এইচ ভূঁইয়া
  • খাঁচা বন্দি পাখি
  • প্রসেনজিৎ কোনার
  • পৃথিবীর নাগরিক
  • এস এম এইচ রহমান
  • শুভম সরকার
  • আব্রাহাম তামিম

আপনি এখানে

শঙ্খচিল : "তুমি নির্মল কর মঙ্গল করে মলিন মর্ম মুছায়ে"


"আবার আসিব ফিরে ধানসিঁড়িটির তীরে - এই বাংলায় হয়তো মানুষ নয় - হয়তো বা শঙ্খচিল শালিকের বেশে, হয়তো ভোরের কাক হয়ে এই... ... রূপসার ঘোলা জলে হয়তো কিশোর এক সাদাছেঁড়া পালে ডিঙ্গা বায় - রাঙ্গা মেঘে সাঁতরায়ে অন্ধকারে আসিতেছে নীড়ে, দেখিবে ধবল বক; আমারে পাবে তুমি ইহাদের ভীড়ে"। হ্যাঁ জীবনানন্দের এ শঙ্খচিলের খোঁজেই গিয়েছিলাম কোলকাতার গৌতম ঘোষ পরিচালিত শঙ্খচিল দেখতে। রাজনৈতিক বিভাজনে বলিপ্রাপ্ত সীমান্তের লাখো মানুষের দু:খগাঁথা নিয়ে নির্মিত ২০১৬ সনের ছবি শঙ্খচিল দেখলাম গতরাতে। যেখানে বাংলাদেশের কিশোরি রূপসা আর রাজস্থানের বিএসফ সদস্যের মানবিকতার দিকটি তুলে ধরা হয়েছে অনেকটা রবীন্দ্রনাথের কাবুলিওয়ার মত।

ছবির শুরুতে দেখা যায়, বিজিবি কর্মকর্তার সঙ্গে এক সাংবাদিক ভারত-বাংলাদেশের সীমানা নিয়ে ঠাট্টা করছেন। বিএসএফের গুলিতে নিহত কাঁটাতারে ঝুলতে থাকা বাংলাদেশির খবর সংগ্রহে এসেছেন ভারতীয় সাংবাদিকরা। কর্মকর্তার জবানিতে এ হত্যাকাণ্ডের কারণ হলো ‘ব্লাডি হিস্ট্রি’, মানে ব্রিটিশ ইন্ডিয়ার ভাগাভাগি। শঙ্খচিলে দুটো মৃত্যুর দৃশ্য দেখানো হয়। একটি অসংস্কৃত গরিবের সন্তানের কাঁটাতারে ঝুলে মরা। অন্যটি বিনা ভিসায় ভারতে চিকিৎসা নিতে যাওয়া সংস্কৃতিমনা শিক্ষকের একমাত্র কন্যার মৃত্যু।

শঙ্খচিল বলছে, দুই মৃত্যুর কারণ ব্রিটিশ ইন্ডিয়ার ভাগাভাগি। কখন বলছে? বলছে ভারত-পাকিস্তানের ৬৯ বছর ও বাংলাদেশ জন্মের ৪৫ বছর গত হওয়ার পর। উল্লেখ্য, শঙ্খচিল মুক্তির চতুর্থ দিনেও কুড়িগ্রাম সীমান্তে একজন নিহত হন, সে বাঙালি ও বাংলাদেশি। এ চলচ্চিত্র নিহত ওই ব্যক্তির জন্য নয়, বরং ব্রিটিশ ইন্ডিয়া না থাকার বাস্তবতায় যাঁরা বাংলাদেশকে দেখেন, তাঁদের জন্য। ৬৯ বছর পরও যাঁরা তাদের জন্য নদীর ঐ পাড়ে তাকিয়ে থাকেন। আর যাঁরা বিএসএফকে দায়মুক্তি দেন।

শঙ্খচিল দেশের দক্ষিণ দিকের সীমান্তবর্তী গ্রামের মানুষের গল্প। আসলে এ গল্প পুরো বাংলাদেশ সীমান্তের কষ্টজীবনের কথামালা। গল্পটি শুনে ভীষণ জটিল বিষয় মনে হবে। বিষয় জটিলই, তবে পরিচালক গৌতম ঘোষ জটিল গল্প সরল করে বলায় দক্ষ। ছবি নির্মাণে তাঁর বিষয় বেছে নেওয়া দেখেও অবাক হতে হয়। বিষয়ে বৈচিত্র্য থাকে বরাবরই। সে বৈচিত্র্যে সৃষ্টি হয় প্রথম মুগ্ধতা। দেশভাগ, ধর্ম, হিন্দু-মুসলমান, সীমান্ত সবই দুধারি তলোয়ারের মতো। এ রকম বিষয় নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণে শত রকমের ঝুঁকিতে পূর্ণ। দুটো দেশ, দুটো ধর্ম, আবেগ, অন্ত্যমিল, বিরোধ সবই উঠে এসেছে এ চলচ্চিত্রে। উঠে এসেছে মন্দ-ভালো অত্যন্ত সরল প্রবাহে। সে মন্দ-ভালোতে আনন্দ লাভ ও বেদনা বোধ জাগ্রত হয়। পীড়িত করে কিন্তু মনে সামান্য আক্রান্তর অনুভব তৈরি করে না। ছবির শেষ পর্যন্ত এ অসাধারণত্ব অটুট থাকে। শঙ্খচিল, গৌতম ঘোষ—উভয়ই এত সব কারণেই বিশেষ।

স্কুলমাস্টার মুনতাসীর চৌধুরী বাদল সিনেমাটির মূল চরিত্র। এ চরিত্রে অভিনয় করেন কলকাতার প্রসেনজিৎ। যিনি বাংলাদেশ-ভারতের ম্যাপ ঠিকঠাক আঁকতে না পারলেও, অসাধারণ দক্ষতায় পাখির ছবি আঁকেন, যে পাখিরা সীমানা মানেনা! অবশ্য এখানে গৌতমের দর্শন স্পষ্ট নয়। বরং তাঁর চাওয়া পুরোটাই আড়াল থাকে। যেভাবে অনেক কিছুই আড়াল করে বিএসএফ জওয়ানের সঙ্গে বাদলের মেয়ের বন্ধুত্ব। বাদল সংস্কৃতিমান, তাঁর স্ত্রী-কন্যাও। হুটহাট রবীন্দ্রনাথ গাইতে থাকেন সপরিবারে। ভারতে গেলে সুদীপ্ত নামে একজনের আশ্রয় লাভ করেন বাদল। ভাঙা জমিদার বাড়িতে থাকা সুদীপ্তও দুঃখী। গান-বাজনা ও মদে কাটে দিন। উদার অসাম্প্রদায়িক।

বাংলাদেশ ভারতের মানবিক দীর্ঘশ্বাসের এক করুণ পুনরুত্থান হলো শঙ্খচিলে। যার লেখক ও নির্মাতা কলকাতার সায়ন্তনী পুততুন্ড। এ সিনেমায় কাঁটাতারের ফেলানীর কথা বলেনা। যৌথ প্রযোজনায় তাকে মাটিচাপা দেয়া গেলেও রূপসাকে সম্ভব নয়। বিচ্ছেদি রাজনীতির ভেতর ভারতে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশকারী বলেই হিন্দু সাজতে বাধ্য হয় মুসলিম শিক্ষক পরিবার। রূপসাও আবার মাছ-মাংস খেতে চায় না, নিখাদ নিরামিষভোজী। মুসলমানের ঘরে অন্য রকম সন্তানের জন্ম। তার মৃত্যুরই সুযোগ নিলেন পরিচালক গৌতম। কিন্তু মা-বাবা কি সত্য গোপনে দাহ করতে পারেন তাকে কোলকাতাতে? নাকি জেলে গিয়ে তার মুসলিম লাশ পাঠাবেন বাংলাদেশের মাটিতে কবর দিতে!

এ সিনেমায় বাংলাদেশ-ভারতের সম্পর্কের ভারসাম্যহীনতাকে চমৎকার দ্যোতনায় তুলে ধরেছেন নির্মাতা। তাই এখানে দাঙ্গা মানে নিষ্ঠুর মুসলমান; এমনকি কলকাতায় যে লোক ‘বাংলাদেশি চোর’ বলে বাদলকে গালি দিচ্ছেন, তিনিও মুসলমান। না মেনে উপায় নেই ব্রিটিশ ইন্ডিয়া ভাগে ধর্মের একটা ভূমিকা আছে। সবটাই কি তা-ই! তারপরো শঙ্খচিল ভারত-বাংলাদেশে সীমান্ত মানুষের কষ্টবাতাসে দলিত জীবনে ওড়ার গল্প শোনায় মানবিক নিপুণতায়। প্রসেনজিৎ ছাড়াও এ ছবিতে কুসুম শিকদার, উষশী চক্রবর্তী, অরিন্দম শীল, অনুম রহমান খান দীপংকর দে, প্রিয়াংশু চট্টোপাধ্যায়, মামুনর রশীদ চমৎকার অভিনয় করে মানুষের বোধকে নাড়া দিয়েছেন বারবার! চোখে জল না আনলেও বুকের ব্যথাটা জাগাতে পেরেছে এ ছবি!

২০১৭-তেও একই বাংলার বিভাজিত সীমান্তে পুষ্পিত পথের বাঁকে বাঁকে কত না লালনীল রক্তাভ ক্ষত জমাট বেঁধে আছে, তা ঝঙ্কৃত হয়েছে শঙ্খচিলে। হৃদয়ে ভালবাসাময় পাঁচিলঘেরা অলিন্দে হাঁটা নাম না জানা দুখকথা এবং তার চতুরতার কিসসা বর্ণিত হয়েছে শঙ্খচিলে। ক্লাসিক জীবন কিংবা শিল্প এবং বৌধ্যিক স্লোগানের শৈল্পিকতায় ভরপুর মনে হয়েছে ছবিটিকে আমার। হৃদযন্ত্রের প্লাবনে ডোবা অসহায় বালিকার ত্রিতাল জীবনোধের মত জাগ্রত বোধের নামই আসলে শঙ্খচিল। যা কখনো করুণ রবে রোদ আকাশে দ্যোতনা তোলে, কিংবা কখনো সেলুলয়েডে দাঁড়ায় উষশী চক্রবর্তীর রোগকাতর অবয়বে। এবং এ শঙ্খচিলকে মনে হয়ে নষ্টা ব্রোথেল রমণীর সুনিপূণ বক্ষের কৃত্রিম মেকআপের গন্ধে ভরা কোলকাতার বাণিজ্যিক রাজপথ, যার দুখবাতাস উড়ে-উড়ে দু:খগাঁথার কিসসা শোনায় চুয়ান্নোটি অবিভাজিত বাংলাদেশ-ভারতের নদী এবং তার ক্লেদাক্ত জলকে! আসলে "সুজলাং সুফলাং, মলয়জ শীতলাং, শস্যশ্যামলাং" বিভক্ত বাংলার জীবনবোধের ঋণাত্মকতার জীবনচিত্রণের নামই "শঙ্খচিল"!

Comments

ড. লজিক্যাল বাঙালি এর ছবি
 

ধন্যবাদ!

===============================================================
জানার ইচ্ছে নিজেকে, সমাজ, দেশ, পৃথিবি, মহাবিশ্ব, ধর্ম আর মানুষকে! এর জন্য অনন্তর চেষ্টা!!

 
সুবর্ণ জলের মাছ এর ছবি
 

খুব সুন্দর যৌক্তিক লেখাটা!

 
ড. লজিক্যাল বাঙালি এর ছবি
 

ধন্যবাদ

===============================================================
জানার ইচ্ছে নিজেকে, সমাজ, দেশ, পৃথিবি, মহাবিশ্ব, ধর্ম আর মানুষকে! এর জন্য অনন্তর চেষ্টা!!

 
ড. লজিক্যাল বাঙালি এর ছবি
 

ধন্যবাদ

===============================================================
জানার ইচ্ছে নিজেকে, সমাজ, দেশ, পৃথিবি, মহাবিশ্ব, ধর্ম আর মানুষকে! এর জন্য অনন্তর চেষ্টা!!

 
সুবর্ণ জলের মাছ এর ছবি
 

Nice write up

 
সুবর্ণ জলের মাছ এর ছবি
 

Nice write up

 
সুবর্ণ জলের মাছ এর ছবি
 

বাহ। চমৎকার লেখা!

 
সুবর্ণ জলের মাছ এর ছবি
 

বাহ। চমৎকার!

 
ড. লজিক্যাল বাঙালি এর ছবি
 

!

===============================================================
জানার ইচ্ছে নিজেকে, সমাজ, দেশ, পৃথিবি, মহাবিশ্ব, ধর্ম আর মানুষকে! এর জন্য অনন্তর চেষ্টা!!

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

ড. লজিক্যাল বাঙালি
ড. লজিক্যাল বাঙালি এর ছবি
Offline
Last seen: 6 ঘন্টা 50 min ago
Joined: সোমবার, ডিসেম্বর 30, 2013 - 1:53অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর