নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 7 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মোমিনুর রহমান মিন্টু
  • নকল ভুত
  • মিশু মিলন
  • দ্বিতীয়নাম
  • আব্দুর রহিম রানা
  • সৈকত সমুদ্র
  • অর্বাচীন স্বজন

নতুন যাত্রী

  • সুমন মুরমু
  • জোসেফ হ্যারিসন
  • সাতাল
  • যাযাবর বুর্জোয়া
  • মিঠুন সিকদার শুভম
  • এম এম এইচ ভূঁইয়া
  • খাঁচা বন্দি পাখি
  • প্রসেনজিৎ কোনার
  • পৃথিবীর নাগরিক
  • এস এম এইচ রহমান

আপনি এখানে

আমার নাস্তিক হওয়ার গল্প।


আমিই মনে হয় একমাত্র মুসলিম পরিবারে জন্ম বা বাংলাদেশি যে কিনা পরিবারের সবাইকে বলেছিলাম আমি নাস্তিক,আমি ইসলাম ধর্ম এবং আল্লাহ বিশ্বাস করি না।কিন্তু আমি এমন একটা পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছি যারা আর দশটা পরিবার থেকে অনেক বেশি ধার্মিক।আমি এমন বাবা,মা এবং ভাই বোন পেয়েছি যারা আমি নাস্তিক জেনেও আমাকে আমার মত থাকতে দিয়েছে।এবং আম্মু বলে-বাবা তুমি ধর্ম মান না এইটা তোমার ব্যক্তিগত ব্যাপার। যার যার কর্মফল তার নিজস্ব। তুমি আমাদের কে বেহেশত নিতে পারবে না এবং আমরাও তোমাকে বেহেশত নিতে পারব না।তার কর্ম অনুযায়ী ফল ভোগ করবে।আমি মা হিসাবে তোমার কাছে অনুরোধ হল তোমার বিশ্বাস তোমার মধ্যে রাখ।তা মানুষকে বলার প্রয়োজন নেই।তুমি ধর্ম বিশ্বাস কর না তোমার নিজস্ব ব্যাপার কিন্তু এই গুলি মানুষের কাছে প্রকাশ করে কেন নিজের জীবনকে হুমকির মুখে ফেলে দিচ্ছ।

এখন আমি শুরুর কিছু ঘটনা বলতে চাই।প্রথমে আমি নাস্তিকতা নিয়ে ফেইসবুকে লিখালিখি শুরু করি।এতে আমার কাছের বন্ধুরা খুব রাগ করে।এবং তাদের সাথে প্রায় আমার যুক্তি তর্ক চলত।এই ভাবে কিছুদিন যাওয়ার পর একদিন বন্ধুরা আমার বাসায় যায় এবং আম্মুকে বলে আপনার ছেলে ফেইসবুকে ধর্মনিয়ে কি সব আজেবাজে লিখা লিখে।দেখুন এইভাবে লিখলে আপনার ছেলেকে মেরে ফেলবে।আপনি কি আপনার ছেলেকে লাশ দেখতে চান। আমারা বন্ধু হিসাবে তার ভাল চাই এইজন্য আপনার কাছে অনুরোধ করতে আসলাম।আমরা অনেক বুঝিয়েছি আমাদের কথা শুনে না।তাই আপনি যদি বলেন তাহলে আপনার কথা শুনবে।আমার প্রিয় বন্ধুরা কিছু নিউজ আর ভিডিও ফুটেজ আম্মুকে দেখায় শুরুতে যারা নাস্তিকতার জন্য খুন হয়েছিল উনাদের।এবং তাদের ক্ষতবিক্ষত ছবি গুলি ও দেখায়।তখনই আম্মু আমাকে ফোন করে কথা গুলি বলেছিল।এখনো আমি আম্মুর কান্নার এবং হাহাকারের শব্দ শুনতে পাই।যদি আমি আম্মুর কাছে থাকাম তাহলে উনি আমাকে জড়িয়ে ধরে কান্নাকাটি করতেন আর লিখালিখি না করার জন্য।আমাকে আরও বলেছিল তোমার বন্ধুদের কথা শুনে মনে হয়েছে যদি তারাও তোমাকে হাতের কাছে খুঁজে পায় তাহলে খুন করতে পারত।এত কিছু শুনার পর সারারাত কান্না করেছিলাম।তখন নিজের প্রতি ঘৃর্না শুরু হয় কেন যে লিখতে গেলাম।যে আম্মু আমাকে এত ভালবাসে।আমার লেখার জন্য এত কষ্ট পেয়েছে।আমি আল্লাহ বিশ্বাস করি না এতে উনার কষ্ট নেই কিন্তু আমাকে জবাই করে দিবে এই জন্য উনার কষ্ট।তিনি এই একটা বিষয় মেনে নিতে পারেন নাই।

আমার পরিবার এবং আমার সম্পর্কে কিছু আলোচনা করে নেই।
আমাদের পরিবারে আমি সবার ছোট।আমার বড় বোনের জন্মের ৮ বছর পর আমার জন্ম হয়।আর এইজন্য আনন্দের বন্যা ভয়ে গিয়েছিল সবার মাঝে।আমার নানা ছিল বড় একজন মাওলানা। আমার খবর শুনে সব কিছু নিয়ে আমাদের বাড়িতে চলে আসেন।তিনি এখন থেকে এখানেই থাকবে।নানা আমার নাম রেখেছিল একজন বিখ্যাত খলিফার নামে।তিনি নাম রাখার পর সবাইকে বলেছিল আমার নাতি বড় হয়ে উনার থেকেও অনেক বড় মাওলানা হবে।যখন আমার আট বছর বয়স তখন মক্তবে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছি কারন হিসাবে হুজুর খুব মারে।এর পর এক বছর মক্তবে যাওয়া বন্ধ ছিল।আশের পাশের সবাই স্কুলে যায়।তাদের সাথে আমিও স্কুলে যাওয়া শুরু করি।আমার দুই বোন আবার মাদ্রাসায় পড়ে এবং আমার আব্বুও একই মাদ্রাসার শিক্ষক। আর এই জন্য সবাই চাচ্ছিল আমিও মাদ্রাসা পড়ি।কিন্তু আমি পড়ব না মাদ্রাসায়।আর এই জন্য আব্বু বলল তাহলে বাসায় হুজুর রেখেই আরবি পড়াবে। মাদ্রাসা যেহেতু অনেক দূরে তাই কয়েক বছর পর মাদ্রাসা দিবে।হুজুর আসার একমাস এর মধ্যেই সব গুলি সূরা,সিফারা এবং খুব ভাল ভাবে কোরআন পড়তেও শিখে গিয়েছি।সবাই মহা খুশি নানাও এই কথা শুনে অনেক খুশি।তখন আবার স্কুল থেকে এনে মাদ্রাসা ভর্তি করিয়ে দিয়েছে।খুব ভালই চলছিল সব কিছু।কিন্তু হঠাৎ করে ২০০৪ দাখিল এর পর আমি আর মাদ্রাসা পড়ব না। অনেক ঝামেলার পর আমি কলেজে ভর্তি হই।এইচ এস সি পর খুব ইচ্ছে ছিল চারুকলায় লেখা পড়া করব বলতে পারেন আমার একমাত্র স্বপ্ন ছিল আর্টিস্ট হওয়া।অনেক চেষ্টার পরেও আমাকে বাসায় থেকে দিবেনা চারুকলায় পড়া লেখা করতে।আবার সেই মাদ্রাসা ভর্তি হলাম কিন্তু একবছর পর আবার অনার্সে কলেজে ভর্তি হয়েছি তাও বিষয় ছিল হিস্ট্রি।কলেজের সব বন্ধুরা ভাল ভাল বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি হয়েছে।সবাই আমাকে বলে ৫ বছর সময় নিয়ে ইতিহাস পড়ে কি হবে।বন্ধুদের বুদ্ধি শুনে আবার একটা প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি হয়েছি।কিন্তু চার বছর লেখা পড়া করার পরেও অনার্সের থার্ড ইয়ার শেষ করতে না পেরে লেখা পড়া বন্ধ করে দিয়েছিলাম।কিন্তু এই ভাবে কত দিন ঘুমিয়ে এবং আড্ডা দিয়ে থাকা যায়।এক সময় জীবনের উপর খুব অতিষ্ঠ হয়ে গিয়েছিলাম।হতাশা, কিছু না পারার দুঃখ সব মিলিয়ে জীবন নরকে পরিণীত হয়েছিল।তখন একবন্ধুর বুদ্ধিতে স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে বিদেশে গিয়ে আবার পড়া লেখা শুরু করার ইচ্ছে হয়।পাশি পাশি জব ও করতে পারব।পকেট খরচ এর জন্য আর আম্মুর সাথে প্রতিদিন ঝগড়া হবে না।নিজের টাকায় নিজে চলব এবং স্বাধীন জীবন।সব কিছু ছেড়ে, মা বাবা, বোন সবাইকে ফেলে দেশের বাহিরে চলে আসলাম।জীবন ভালই চলছিল।লেখা পড়া পাশাপাশি জব এই ভাবে অনেক ভাল চলছিল সব কিছু।তখন ফেইসবুকে মাঝে মাজে কয়েকজন নাস্তিক এবং ইসলামের সমালোচকদের লেখা পড়ি।এবং অনেক সময় তাদের সাথে খুব যুক্তিতর্ক চলত।যেহেতু ইসলামিক জ্ঞান খুব ভালছিল তাই তাদের সাথে যুক্তিতর্ক ভালই চলতে থাকে।আমিও আবার নতুন করে হাদিস এবং কোরআন এর অর্থসহ পড়া শুরু করি।এবং ভিবন্ন ইসলামিক হিস্ট্রি পাশাপাশি বড় বড় মাওলানাদের ওয়াজ সংগ্রহ করি।বিশেষ করে ওয়াশকুর বাবুর লিখা বেশি পড়ি এবং উনার সাথে বেশি ডিফেন্স হয়।আবার কিছু মানুষ উগ্রভাবে ইসলামকে আঘাত করে লিখে তাদের সাথেও যুক্ততর্ক হয়।তাদের সাথেই প্রতিদিন তর্ক চলতে থাকে।একদিন হঠাৎ করে শুনি বাবুকে কুপিয়ে হত্যা করেছে।টাইমলাইন এ উনার রক্তাক্ত ছবি দেখে খুব কষ্ট পেয়েছি।আমার কান্না চলে এসেছিল উনার ক্ষতবিক্ষত শরীর দেখে।তখন একটা প্রশ্নই মাথার মধ্যে উনাকে কেন হত্যা করল।আমার তখন মনে হয়েছিল যে আমার আসলে আরও জানা দরকার।তখন এক এক করে উনার সব লেখা পড়েছিলাম।আমি ধর্মের আমল জানি কিন্তু ধর্ম কী তাই জানিনা, ধর্মের উদ্দেশ্য কী তাও জানিনা।আমার জানা দরকার শুধু নিজ ধর্ম নিয়ে না, সব ধর্ম নিয়ে। তখন আমি কুরানের বাংলা অর্থ, হাদীসের মূল বই গুলো, ধম্মপদ, বাইবেল, রামায়ন, মহাভারত সহ ধর্ম সম্পর্কিত প্রচুর বই পত্র পড়া শুরু করেছিলাম। এবং অনলাইন,ব্লগে যারা লিখে সবার লিখা পড়া শুরু করেছিলাম।পাশাপাশি কয়েক জন লেখকের বই ও পড়িছিলাম।আর তখনই আমার সত্যিকারের মুক্তি ঘটেছিল, বুঝেছিলাম মানুষের প্রকৃত ধর্ম একটাই- 'মানবতা'।বাবুর লিখার মধ্যে সবচ্ছে ভাল লেগেছিল।আর লিখব না ধর্মনিয়ে লেখাটা।তখন আর ইসলামের সমালোচনা লেখা গুলি পড়লে অনুভূতিতে আগের মত আঘাত লাগে না।
আর তখনই নিজের মিধ্যে একটা পরিবর্তন লক্ষ করেছিলাম।সমাজের সবার হয়ে কথা বলতে চাই।সামাজিক বিভিন্ন অন্যায়ের এবং মুক্তচিন্তা ব্লগাদের হত্যার প্রতিবাদ শুরু করি।হিন্দু, বৌদ্ধ সবাইকে আপন মনে হয়।তাদের সমস্যাকে ও আমার নিজের সমস্যা মনে হয়।তাদের উপর অন্যায়ের প্রতিবাদ করি।তখন মনে প্রানে নাস্তিকতা চর্চা শুরু করি।সব মুক্তমনাদের লেখা আমার ওয়ালে শেয়ার করি।আমার ও ব্যক্তিগত মতামত দিয়ে ধর্মের সমালোচনা করে পোষ্ট করি।যেহেতু ফেইসবুকের সাথে পরিবার,এলাকার ভাই এবং বন্ধুবান্ধবরা সম্পৃক্ত তাই সহেজেই সবাই জেনে যায় আমি ধর্মের বিরুদ্ধতা করে লেখালিখি করি।এক সময় আমার বাবা, মায়ের কানে চলে যায় আমি নাস্তিক।এলাকাতে ধার্মিক পরিবার হিসাবে আমাদের পরিবারের অনেক সম্মান।আমার বাবাও একটি মাদ্রাসা শিক্ষকতা করেন।যখন এলাকার সবাই বলাবলি করে হুজুরের ছেলে নাস্তিক।তখন তারা সামাজিক ভাবে মানুষের কাছে বিভিন্ন ভাবে অপমানিত হচ্ছে।তার মধ্যে বন্ধুরা বাসায় গিয়ে আম্মুকে সব কিছু বলে আসে।তিনি অনেক কষ্ট পেয়েছিল বন্ধুদের কথায়।এই জন্য আম্মু বার বার অনুরোধ করে।আমি ধর্ম বিশ্বাস করি না তা যেন মানুষের কাছে না বলি।আম্মুর জন্য অনেক কষ্ট হয়।তখন আম্মুকে বলি আমি আর লিখব না ধর্ম নিয়ে।সব লিখা ডিলেট করে দিয়েছিলাম।এই ভাবে খুব ভালই চলতে থাকে।কিন্তু মৌলবাদীরা আর আমাকে ভাল থাকতে দিল না।এক এক করে সব মুক্তমনাদের নিঃসংশ ভাবে হত্যা শুরু করল। তখন প্রতিবাদ না করতে পেরে নিজের মধ্যে হাহাকার শুরু হল।তখন মনে হল এই একটা দিন আমার জন্যও হয়ত অপেক্ষা করছে।চুপ করে থাকা মানে অন্যায়কারীকে সুযোগ করে দেওয়া বেশি অন্যায় করার জন্য।এই অমানুষ গুলি আরও শক্তিশালী হয়ে আঘাত হানবে।এক সময় ভাল কথা বললেও হত্যা করবে।এখনি সময় তাদের সব অনুভূতিকে রক্তাক্ত করে দেওয়ার।যত বেশি অনুভূতিতে লাগবে ততই শক্তিশালী আঘাত আনতে হবে।এই উদ্দেশে আবার নতুন করে শুরু করি।আবার নতুন নামে,নতুন পরিচয় শুরু করি।যুক্তির জবাব যুক্তি দিয়ে দিতে যত দিন শিখবে না ততদিন তাদের অনুভূতিকে রক্তাক্ত করে যাব।

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

নষ্ট নীড়
নষ্ট নীড় এর ছবি
Offline
Last seen: 2 দিন 13 ঘন্টা ago
Joined: বুধবার, অক্টোবর 25, 2017 - 12:44পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর