নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 2 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • সুব্রত শুভ

নতুন যাত্রী

  • মহক ঠাকুর
  • সুপ্ত শুভ
  • সাধু পুরুষ
  • মোনাজ হক
  • অচিন্তা দত্ত
  • নীল পদ্ম
  • ব্লগ সার্চম্যান
  • আদি মানব
  • নগরবালক
  • মানিকুজ্জামান

আপনি এখানে

রাষ্ট্রের মৌলবাদীনীতিঃ মুক্তিযুদ্ধের চেতনার উল্টো পথে বাংলাদেশ


জঙ্গিবাদ আর মৌলবাদী রাজনীতি মোকাবেলায় সাংস্কৃতিক বিকাশের বিকল্প নেই। অথচ আমরা দেখছি তার উল্টো! দেশ জুড়ে বাউল গানের আসর বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে, যাত্রাপালাকে অশ্লীলতা আর জুয়ার আসর বানিয়ে অনেক আগেই বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের একটা জায়গায় সন্ধ্যা থেকে লালনের গান হতো। সেটা বন্ধ করা হয়েছে নিরাপত্তার দোহায় দিয়ে। নিরাপত্তার কথা বলে ছবির হাটের আড্ডা বন্ধ করা হয়েছিলো। যদিও ছবির হাটে যারা আড্ডা দিতো, আমার জানা মতে তারা কেউই দেশের নিরাপত্তার জন্য হুমকি ছিলো না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি-তে রাত আটটার পর সকল কার্যক্রম বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিলো। অবশ্য শুভ বুদ্ধির উদয় হওয়ায়, পরে সেই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করা হয়েছে। সবশেষ নিরাপত্তার অযুহাত দিয়ে, ভেন্যু বরাদ্দ না দেয়ায় বন্ধ হয়ে গেছে উপমহাদেশের সবচেয়ে বড় শাস্ত্রীয় সংগীতের উৎসব।

পক্ষান্তরে আমরা দেখি, দেশে ধর্মীয় ওয়াজ – মাহফিলের নামে বিদ্বেষ ছড়ানো অনুষ্ঠানের আয়োজন দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। নারী এবং ভিন্ন ধর্মের লোকদের প্রতি হিংসার বাণী ছড়ানোর পরও, রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এর বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় না। বরঞ্চ অনেক জায়গায় রাষ্ট্রীয়ভাবে এসব অনুষ্ঠান আয়োজনে পৃষ্ঠপোষকতা দেয়া হয়!

ছাত্র – ছাত্রীদের অসাম্প্রদায়িক শিক্ষা দেয়ার পরিবর্তে, তাদের মাঝে সাম্প্রদায়িকতার বিষ ছড়ানো হচ্ছে। সুক্ষ্মভাবে শিশুমনে ধর্মীয় উন্মদনা প্রবেশ করানো হচ্ছে, যা আমরা সর্বোশেষ প্রণীত পাঠ্যপুস্তকেও দেখেছি। দুঃখের বিষয় হচ্ছে, যে মৌলবাদীদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের লড়াই করার কথা ছিলো, যে মৌলবাদীদের রাষ্ট্র হতে বিতাড়িত করার কথা ছিলো, সেই মৌলবাদীদের দাবির ভিত্তিতে, তাদের কাছে নতিস্বীকার করে, পাঠ্যপুস্তকে পরিবর্তন আনা হয়েছিলো। এই মৌলবাদীদের জন্যই নারীনীতিতে পরিবর্তন আনার কথা শোনা যাচ্ছে।
যে রাষ্ট্রের সংবিধানে রাষ্ট্রের সকল নাগরিককে ধর্মীয় স্বাধীনতার অধিকার দেয়ার কথা বলা আছে, সেই রাষ্ট্রে সংখ্যালঘিষ্ঠ ধর্মীয় সম্প্রদায়ের উপর ক্রমশ সাম্প্রদায়িক হামলা চালানো হচ্ছে। আর রাষ্ট্র নির্বিকার ভূমিকা পালন করছে। কোথাও কোথাও রাষ্ট্র সংখ্যাগরিষ্ঠের কর্মকান্ডে মদদ যোগাচ্ছে। সাংবিধানিকভাবে কাউকে ধর্মীয় আচার পালনে বাধ্য করার এখতিয়ার কারো নেই। সেখানে রমজান মাসে খাবারের দোকানে হামলা চালিয়ে, রোজা না রাখা মানুষদের অধিকার খর্ব করা হচ্ছে। দেশের একটি পৌরসভা এলাকায় নামাজের সময় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়ার হুকুম জারি করা হয়েছে। অথচ এর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় প্রশাসন কোন পদক্ষেপ গ্রহণ তো দূরে থাক, কোন আইন বলে এমন ঘোষনা জারি হয়েছে, সেই কারণ দর্শানোরও প্রয়োজনীয়তা বোধ করেনি। এসব কিছু প্রমাণ করে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রটি মৌলবাদী আর সাম্প্রদায়িকতানীতি গ্রহণ করেছে। রাষ্ট্রীয় এই মৌলবাদীনীতি যে সামনের দিকে অগ্রসর হচ্ছে, তার প্রমাণ সর্বশেষ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র। চারুকলা অনুষদের মতো একটা অনুষদের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে, ‘কোন গ্রন্থ (ধর্মগ্রন্থ) সর্বশ্রেষ্ঠ’ এমন প্রশ্ন থাকে কি করে? এছাড়া আরেকটি প্রশ্ন ছিলো, ‘রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর মিয়ানমার সেনাবাহিনী এবং বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা হামলা চালায় কবে'। এটা এক ধরনের সাম্প্রদায়িক উষ্কানীমূলক প্রশ্ন!

এগুলো যে পরিকল্পিত, সেটা বলার প্রয়োজন নেই। দুঃখের বিষয় রাষ্ট্রের যা করার কথা, রাষ্ট্র সেটা করছে না। যে দেশ হওয়ার কথা ছিলো, সাম্প্রদায়িকতা আর মৌলবাদী ধ্যান ধারনা মুক্ত। যে রাষ্ট্র মৌলবাদীদের জন্য নরকসম হওয়ার কথা ছিলো, সেটা আজ মৌলবাদ আর সাম্প্রদায়িক রাজনীতির উর্বরভূমি, মৌলবাদীদের জন্য এই ভূখন্ড আজ স্বর্গের নামান্তর! এগুলো ‘৭১ এর চেতনার পরিপন্থী, মহান মুক্তিযুদ্ধের বিপরীতমুখী! রাষ্ট্রের এমন আচরণ বলে দেয়, রাষ্ট্র আজ পাকিস্তান আর আফগানিস্তানের দিকে ধাবিত হচ্ছে। রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত দল যতই বলুক তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষের শক্তি, তাদের কর্মকান্ড কিন্তু বলে দিচ্ছে, রাষ্ট্র আজ মুক্তিযুদ্ধের চেতনার উল্টো পথে চলছে।
হে বাংলাদেশ, উল্টো পথ ছেড়ে সোজা পথে চলো।

Comments

জ্যোতির্ময় এর ছবি
 

কমরেড অামাদের শ্লোগান হতে হবে এমন,রাষ্ট্র তুমি কতহুলো ছবির হাট অার টি এস সি বন্ধ করবে? অামরা দেশের সব গলিতে সব মহল্লায় টি এস সির অার ছবির হাটের মত প্রগতির অাসর খুলে বসবো।

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

কফিল উদ্দিন মোহাম্মদ
কফিল উদ্দিন মোহাম্মদ এর ছবি
Offline
Last seen: 2 দিন 7 ঘন্টা ago
Joined: রবিবার, মে 8, 2016 - 11:31পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর