নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • জলের গান
  • নুর নবী দুলাল
  • আকাশ সিদ্দিকী

নতুন যাত্রী

  • সুমন মুরমু
  • জোসেফ হ্যারিসন
  • সাতাল
  • যাযাবর বুর্জোয়া
  • মিঠুন সিকদার শুভম
  • এম এম এইচ ভূঁইয়া
  • খাঁচা বন্দি পাখি
  • প্রসেনজিৎ কোনার
  • পৃথিবীর নাগরিক
  • এস এম এইচ রহমান

আপনি এখানে

কুরআন অনলি কুইক রেফারেন্স: (৪) ‘আরবি ভাষায়’ কুরআন কাদের জন্য?


আজ এই অক্টোবর ২০১৭ সালে বর্তমান পৃথিবীর প্রায় ৭৬০ কোটি জনসংখ্যার মাত্র ৪২ কোটি আরবি ভাষী, বাঁকি ৭১৮ কোটি (সাড়ে ৯৪ শতাংশ) অন্যান্য ভাষাভাষী মানুষ। মুসলমানদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কুরআন অবতীর্ণ হয়েছে আরবি ভাষায়, যে ভাষাটি বর্তমান পৃথিবীর মাত্র সাড়ে পাঁচ শতাংশ লোক ব্যাবহার করেন। প্রশ্ন হলো 'আরবি ভাষায়' এই কুরআন কাদের জন্যে অবতীর্ণ? এটা কি শুধু আরবি ভাষাভাষী লোকদের জন্যে অবতীর্ণ? নাকি এই ভাষায় কুরআন সর্বকালের সকল মানুষদের জন্য অবতীর্ণ? এ বিষয়ে আল্লাহর রেফারেন্সে মুহাম্মদের বানী অত্যন্ত স্পষ্ট। আর তা হলো,

মুহাম্মদের ভাষায়: [1][2]

১২:২ (সূরা ইউসূফ)- "আমি একে আরবী ভাষায় কোরআন রূপে অবতীর্ণ করেছি, যাতে তোমরা বুঝতে পার।"

৪৩:৩ (সূরা যুখরুফ)- "আমি একে করেছি কোরআন, আরবী ভাষায়, যাতে তোমরা বুঝ।"

৪৪:৫৮ (সূরা আদ দোখান)- "আমি আপনার ভাষায় কোরআনকে সহজ করে দিয়েছি, যাতে তারা স্মরণ রাখে।"

১৯:৯৭ (সূরা মারইয়াম)– "আমি কোরআনকে আপনার ভাষায় সহজ করে দিয়েছি, যাতে আপনি এর দ্বারা পরহেযগারদেরকে সুসংবাদ দেন এবং কলহকারী সম্প্রদায়কে সতর্ক করেন।"

৬:৯০-৯২ (সূরা আল আন-আম) "--- এটি সারা বিশ্বের জন্যে একটি উপদেশমাত্র। -- এ কোরআন এমন গ্রন্থ, যা আমি অবতীর্ন করেছি; বরকতময়, পূর্ববর্তী গ্রন্থের সত্যতা প্রমাণকারী এবং যাতে আপনি মক্কাবাসী ও পাশ্ববর্তীদেরকে ভয় প্রদর্শন করেন।"

>>> আজকের পৃথিবীর তথাকথিত মোডারেট (ইসলামে কোন কোমল, মোডারেট ও উগ্রবাদী শ্রেণীবিভাগ নেই, নেই কোন পলিটিকাল ইসলাম বা শান্তিপূর্ণ ইসলাম জাতীয় শ্রেণী বিভাগ; ইসলাম একটিই আর তা হলো মুহাম্মদের ইসলাম) ইসলাম বিশ্বাসীদের যখন কুরানের কোন স্পষ্ট অনৈতিক, অমানবিক, নৃশংস ও উদ্ভট বর্ণনার বিষয়ে আলোকপাত করা হয়; তখন তাদের অনেকেই দাবী করেন যে, "আরবি না জানলে কুরআনের আসল অর্থ বোঝা যায় না!" তাদের এই দাবীটি একেবারেই উদ্ভট, অবাস্তব ও সর্বোপরি তা মুহাম্মদের 'আল্লাহর' ওপরে বর্ণিত দাবী ও শিক্ষার সম্পূর্ণ পরিপন্থী। ইসলাম একান্ত প্রাথমিক ও মৌলিক শিক্ষা হলো, “কুরআনের শিক্ষা সর্বকালের সকল মানুষের জন্য প্রযোজ্য।” সর্বকালের সকল মানুষের জন্য প্রযোজ্য এমন একটি জীবন-বিধান সৃষ্টিকর্তা এমন একটি ভাষায় নাজিল করেছেন যার মর্মার্থ উদ্ধার পৃথিবীর শতকরা সাড়ে ৯৪ ভাগ লোকের পক্ষে অসম্ভব, এমন দাবী একেবারেই হাস্যকর ও 'নো-সেন্স (no-sense)'! আর এই বিশাল সংখ্যক জনগুষ্টি 'আরবি ভাষায় বিশারদ' হয়ে এই তথাকথিত সর্বকালের সকল মানুষের জন্য প্রযোজ্য গ্রন্থটির মর্মার্থ উদ্ধার করে তবেই শুধুমাত্র এই গ্রন্থটির বিষয়বস্তু ও শিক্ষার বিষয়ে আলোচনা-সমালোচনা করতে পারবেন, নতুবা তা গ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হবে না, এমন দাবী আরও বেশী হাস্যকর ও একেবারেই 'নন-সেন্স (Non-sense)'!

লক্ষণীয় বিষয় এই যে, ওপরে উল্লেখিত মুহাম্মদের সবগুলো সুরাই মক্কায় অবতীর্ণ, যেখানে তার চারি পাশের সমস্ত মানুষই ছিলেন আরবি ভাষাভাষী; যাদের উদ্দেশ্যে তিনি এই বানীগুলো প্রচার করেছিলেন। 'আমি একে আরবি ভাষায় অবতীর্ণ করেছি যাতে তোমরা বুঝতে পার (১২:২); -- যাতে তোমরা বুঝ (৪৩:৩); আপনার ভাষায় সহজ করে দিয়েছি, যাতে তারা স্মরণ রাখে (১৯:৯৭)"; ইত্যাদি বানীগুলো যদি কোন আরবি ভাষাভাষী লোকদের উদ্দেশ্যে প্রচার করা হয়, তবে তা হয় অর্থবহ। কিন্তু তা না করে, যখন কোন ইসলাম বিশ্বাসী পণ্ডিত ও অপণ্ডিতরা দাবী করেন যে কুরআনে বর্ণিত মুহাম্মদের ওপরে বর্ণিত বানীগুলো আরবি ভাষায় অভিজ্ঞ লোকদের জন্যই শুধু নয়, তা সমস্ত পৃথিবীর মানুষদের জন্যই প্রযোজ্য; কিংবা দাবী করেন, 'মক্কাবাসী ও পার্শ্ববর্তীদের’ বোঝাতে আল্লাহ পাক এখানে সমগ্র বিশ্বের মানুষদের বোঝাতে চেয়েছেন, তবে তা হয় এক অর্থহীন গোঁজামিল! যাকে বলা যেতে পারে ত্যানা-প্যাঁচানো যুক্তি বা অজুহাত!

জাপানী ভাষায় অজ্ঞ কোন ব্যক্তি বা গুষ্টিকে 'জাপানী ভাষায়' কোন কিছু প্রচার করে যদি ঘোষণা করা হয়, ''একে জাপানি ভাষায় অবতীর্ণ করা হয়েছে, যাতে তোমরা বুঝতে পারো", চাইনিজ ভাষায় অজ্ঞ কোন ব্যক্তি বা গুষ্টিকে চাইনিজ ভাষায় কোন কিছু প্রচার করে যদি ঘোষণা দেওয়া হয়, “এটি চাইনিজ ভাষায় অবতীর্ণ করা হয়েছে, যাতে তা তোমাদের জন্য সহজ হয়", ইত্যাদি, ইত্যাদি; তবে তা হবে যেমন একবারেই হাস্যকর, মুহাম্মদের ওপরে বর্ণিত বানীগুলো ও ঠিক তেমনই।

ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, মুহাম্মদ তার সুদীর্ঘ ১২-১৩ বছরের (৬১০ সাল-সেপ্টেম্বর, ৬২২ সাল) মক্কায় নবী জীবনের প্রাণান্তকর প্রচেষ্টায় ১৫০ জন (সঠিক সংখ্যা স্পষ্ট নয়, মতভেদে ১০০-১৫০ জন) লোকের বেশী মানুষকে তার দলভুক্ত করতে পারেন নাই। এই সময়ে আবু বকর ইবনে কুহাফা, উমর ইবনে খাত্তাব ও উসমান ইবনে আফফান ছাড়া আর কোন বিশিষ্ট মক্কাবাসী তার দলভুক্ত হয়েছিলেন বলে জানা যায় না। মক্কায় তার অধিকাংশ অনুসারীই ছিলেন সমাজের নিম্ন শ্রেণীভুক্ত ও ক্রীতদাস-দাসী। মক্কার এই সুদীর্ঘ নবী জীবনে তার স্ত্রী খাদিজা বিনতে খুয়ালিদ, তার কন্যা ও তার নিজ হাশেমি বংশের একমাত্র চাচা হামজা ইবনে আবদুল মুত্তালিব ও চাচাতো ভাই জাফর ইবনে আবু তালিব ছাড়া তার নিজস্ব পরিবারের আর কোন প্রাপ্তবয়স্ক সদস্যই তাকে নবী হিসাবে স্বীকার করেন নাই। চাচাতো ভাই আলী ইবনে আবু তালিব যখন মুসলমান হন, তখন আলীর বয়স ছিল মাত্র নয় বছর (মতান্তরে ১১বছর)। আলী তখন যে শুধু অপ্রাপ্তবয়স্কই ছিলেন তাইই নয়, তিনি ছিলেন মুহাম্মদের ওপর নির্ভরশীল (dependent)। সর্বাবস্থায় সাহায্যকারী মুহাম্মদের চাচা আবু তালিব ইবনে আব্দুল মুত্তালিব (আসল নাম 'আবদে মানাফ') ছিলেন মক্কার এক অতি সম্ভ্রান্ত গোত্র প্রধান। তার ছিল বৃহৎ পরিবার, ছিল পারিবারিক অভাব ও অসচ্ছলতা। খাদিজাকে বিবাহ করার পর মুহাম্মদ তখন সচ্ছল। আবু তালিবের অসচ্ছল পরিবার-কে সাহায্যের জন্য ভাতিজা মুহাম্মদ তার এক ছেলে আলী-কে তার পরিবারে ও তার আর এক ছেলে জাফর-কে ভাই আল-আব্বাস নিয়ে যান তাদের নিজ নিজ পরিবারে, এই দুই বালকের পোষণের দায়িত্ব নিয়ে। দাদা আব্দুল মুত্তালিবের বিশাল পরিবারের একমাত্র ‘হামজা’ ছাড়া তার অন্যান্য ছেলেরা (মুহাম্মদের চাচা), যেমন: আবু-তালিব, আল-যুবায়ের, আল-আব্বাস, আবু-লাহাব, আল-হারিথ - ইত্যাদি কেহই তাকে নবী হিসাবে স্বীকার করেন নাই। তারা যে শুধু তাকে অবিশ্বাস করেছিলেন তাইই নয়, সক্রিয় বিরোধিতা করেছিলেন তাদের অনেকে। কুরাইশ ও মুসলমানদের মধ্যে প্রথম রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বদর যুদ্ধে (মার্চ, ৬২৪) মুহাম্মদের নিজস্ব পরিবারের যে সকল সদস্যরা তার বিরুদ্ধে প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ করেছিলেন তারা হলেন:

১) আল-আব্বাস ইবনে আব্দুল মুত্তালিব – নিজের চাচা,
২) তালিব ইবনে আবু তালিব - চাচাত ভাই,
৩) আকিল ইবনে আবু তালিব - চাচাতো ভাই,
৪) নওফল ইবনে আল-হারিথ বিন আব্দুল মুত্তালেব - চাচাত ভাই,
৫) আবু আল-আস ইবনে আল রাব্বি – জামাই (মেয়ে জয়নাবের স্বামী)
৬) আবু লাহাব ইবনে আব্দুল মুত্তালিব - নিজের চাচা, তিনি নিজে অংশ গ্রহণ করেন নাই, তার নিজস্ব লোক পাঠিয়েছিলেন।

তালিব বিন আবু তালিব (আবু তালিবের বড় ছেলে, আলীর বড় ভাই) বদর যুদ্ধে অংশ নেয়ার জন্য কুরাইশদের সঙ্গে মক্কা থেকে রওনা হয়েছিলেন। কিন্তু পথিমধ্যে যাত্রা পরিবর্তন করে তিনি নিরুদ্দেশ হন। [3] এই যুদ্ধে মুহাম্মদ আল-আব্বাস, আকিল, নওফল ও আবু আল-আস কে বন্দী করে মদিনায় ধরে নিয়ে আসেন। পরবর্তীতে একমাত্র জামাতা আবু আল-আস ছাড়া আর সবার কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায়ের মাধ্যমে তাদেরকে ছেড়ে দেন। [4] [5] এমত পরিস্থিতিতে, মুহাম্মদের পক্ষে তার মতবাদ প্রচারের ক্ষেত্র ‘মক্কা ও তার আশে পাশের লোকদের’ ছাড়া বড় কিছুর চিন্তা করা সম্ভব ছিল না।

সংক্ষেপে, অল্প সংখ্যক আরবি ভাষাভাষী জনগোষ্ঠী ছাড়া বিশ্বের কোটী কোটী অন্যান্য ভাষাভাষী মানুষের জন্য ‘আরবি ভাষায়’ কুরআন বোঝা ও তার মর্মার্থ উদ্ধার করা অসম্ভব। তাই, এই ভাষায় অজ্ঞ আজকের বিশ্বের সাড়ে ৯৪ শতাংশ মানুষদের জন্য মুহাম্মদের এ সকল বানী সার্বজনীন হওয়াও অসম্ভব।

(চলবে)

তথ্যসূত্র ও পাদটীকা:
[1] কুরআনেরই উদ্ধৃতি ফাহাদ বিন আবদুল আজিজ কর্তৃক বিতরণকৃত তরজমা থেকে নেয়া। অনুবাদে ত্রুটি-বিচ্যুতির দায় অনুবাদকারীর।
http://www.quraanshareef.org/
[2] কুরানের ছয়জন বিশিষ্ট ইংরেজি অনুবাদকারীর ও চৌত্রিশ-টি ভাষায় পাশাপাশি অনুবাদ: https://quran.com/

[3] “তারিক আল রসুল ওয়াল মুলুক”- লেখক: আল-তাবারী (৮৩৮-৯২৩ খৃষ্টাব্দ), ভলুউম ৭, ইংরেজী অনুবাদ: W. Montogomery Watt and M.V. McDonald, নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি প্রেস, ১৯৮৭, ISBN 0-88706-344-6 [ISBN 0-88706-345-4 (pbk)], পৃষ্ঠা (Leiden) -১৩০৮
https://onedrive.live.com/?authkey=%21AJVawKo7BvZDSm0&cid=E641880779F327...

[4] Ibid আল তাবারী-পৃষ্ঠা (Leiden) ১৩৪৪-১৩৪৫,

[5] “সিরাত রসুল আল্লাহ”- লেখক: ইবনে ইশাক (৭০৪-৭৬৮ খৃষ্টাব্দ), সম্পাদনা: ইবনে হিশাম (মৃত্যু ৮৩৩ খৃষ্টাব্দ), ইংরেজি অনুবাদ: A. GUILLAUME, অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস, করাচী, ১৯৫৫, ISBN 0-19-636033-1, পৃষ্ঠা - ৩১২-৩১৩
http://www.justislam.co.uk/images/Ibn%20Ishaq%20-%20Sirat%20Rasul%20Alla...

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

গোলাপ মাহমুদ
গোলাপ মাহমুদ এর ছবি
Offline
Last seen: 1 দিন 4 ঘন্টা ago
Joined: রবিবার, সেপ্টেম্বর 17, 2017 - 5:04পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর