নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মৃত কালপুরুষ
  • মাইকেল অপু মন্ডল
  • ড. লজিক্যাল বাঙালি
  • সুবর্ণ জলের মাছ
  • দ্বিতীয়নাম

নতুন যাত্রী

  • অনুপম অমি
  • নভো নীল
  • মুমিন
  • মোঃ সোহেল রানা
  • উথোয়াই মারমা জয়
  • শাহনেওয়াজ রহমানী
  • জিহাতুল
  • আজহারুল ইসলাম
  • মোস্তাফিজুর রহম...
  • রিশাদ হাসান

আপনি এখানে

সিপিবির সাম্প্রতিক একটা ঘটনা প্রসঙ্গে আমার কিছু কথা



ফেসবুকের ওয়ালে একটা ছবি, কমরেড মোহাম্মদ ফরহাদের মাজারে কমরেড ফরহাদের রুহের মাগফেরাত কামনারত কয়েকজন কমিউনিস্টের ছবি। মার্কেট খাচ্ছে খুব ছবিটা। তথাকথিত নাস্তিকদের জন্য একেবারে হটকেক। কয়েকজন অতি উৎসাহী 'বিপ্লবের শুভাকাঙ্ক্ষীদের' দেখলাম 'বিপ্লবের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা', 'শ্রমিকশ্রেণীর সাথে প্রতারণা' ইত্যাদি পোস্ট কমেন্ট ইত্যাদি করে বিপ্লবকে ত্বরান্বিত করছেন। হেটাররা বলবে কমিউনিস্ট পার্টি আর গণসংগঠনগুলো যখন বিভিন্ন সময় বিভিন্ন দাবীর পক্ষে আন্দোলন সংগ্রাম করে এই সকল তথাকথিত নাস্তিক, অতি উৎসাহী বিপ্লবীরা তখন কোথায় থাকেন? তারা কি দেখেন না ধর্ম নয় বরং ধর্মকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে যারা শ্রমিক কৃষকদের শোষণ করে তারাই মানুষের প্রকৃত শত্রু? হেটাররা আরো প্রশ্ন করবে শ্রমিক কৃষকের কথা বলে কি হিট খাওয়া যায়?

হেটাররা যা খুশি বলুক, আসি আমার কথায়। আমি কমিউনিস্ট নই বা আমি কমিউনিস্ট পার্টির সভ্য নই। কিন্তু আমি বিপ্লবে বিশ্বাসী। আমি বিশ্বাস করি বিপ্লবে নেতৃত্ব দেবে এই সিপিবি তথা বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টিই। প্রাসঙ্গিক মনে করায় সমালোচনা করতে বসলাম।

মার্ক্সবাদ একটা রাজনৈতিক মতবাদ, সমাজ পরিবর্তনের শ্রেষ্ঠতম পাথেয় শুধু নয়, মার্ক্সবাদ একটি দর্শনও বটে। দ্বান্দ্বিক বস্তুবাদের প্রায়োগিক চর্চা পার্টি সভ্যগণ তার নিজ নিজ গণসংগঠনগুলোতে করে থাকেন। এভাবে চর্চার মধ্য দিয়ে একজন পার্টিসভ্য মার্ক্সবাদী হয়ে ওঠেন, বিপ্লবের স্বপ্নে বিভোর হয়ে নয় বরং বিপ্লবকেই আল্টিমেট ডেস্টিনেশন নিয়ে বিপ্লবের পথে এগিয়ে চলেন।

বিপ্লবই চূড়ান্ত লক্ষ্য। বিপ্লবে নেতৃত্ব দেবেন স্বশ্রেণীচ্যুত প্রলেতারিয়েতরা, অর্থাৎ পার্টি নেতৃবৃন্দ, স্বশ্রেণীতে অধিষ্ঠিত মধ্যবিত্ত পেটি বুর্জোয়া সুবিধাবাদীরা নয়। মধ্যবিত্ত পেটি বুর্জোয়া সুবিধাবাদীদের কেউ কেউ বিপ্লবে প্রচুর সাহায্য করবে, কেউ কেউ বিরোধিতা করবে। কিন্তু বিপ্লব মূলত করবে শ্রমিকশ্রেণী। বিপ্লব সফল হবে শ্রমিকের সাথে কৃষকের মেলবন্ধনে। ধর্মের আফিমে বুঁদ হয়ে থাকা শ্রমিক বা কৃষক নিজেরা সংগঠিত হয়ে নিজ অধিকার আদায়ে বিপ্লবে ঝাঁপিয়ে পড়বে না। শ্রমিক কৃষকদের সংগঠিত করার প্রাথমিক দায়িত্বের বেশিরভাগটা কিন্তু আবার সেই পেটি বুর্জোয়া শহুরে শিক্ষিত মধ্যবিত্তদের একটা অংশের উপরই বর্তায়। এই অংশ হল যারা বিভিন্ন গণসংগঠনের সচেতন প্রতিনিধিত্ব করেন। এই অংশটাই প্রতিনিয়ত পুঁজিবাদী অন্ধ সমাজের পারিপার্শ্বিকতা ও ভোগসর্বস্বতার বিরুদ্ধে নিজের সাথে প্রতিনিয়ত লড়াইয়ের মাধ্যমে নিজ শ্রেণীকে ত্যাগ করে সর্বহারার প্রতিনিধিত্ব করতে চান। এরাই শ্রমিকশ্রেণির অগ্রবর্তী অংশ। এরাই শ্রমিকশ্রেণীকে বিপ্লবের পথে টেনে আনবেন।

একজন স্বশ্রেণিচ্যুত সর্বহারা কমিউনিস্ট বিপ্লবী মাত্রই নিরেশ্বরবাদী বা সোজা বাংলায় নাস্তিক। মার্ক্সবাদী দর্শনের এই ব্যাপারটা দারুণ ডগমাটিক। সমাজ পরিবর্তনের সাথে সাথে মার্ক্সবাদের পরিবর্তন আসবে। শোষণমুক্তির পথে মার্ক্সবাদ উন্নত থেকে উন্নততর হবে। কিন্তু দর্শনের পরিবর্তন ঘটবে না। দ্বান্দ্বিক বস্তুবাদ অপরিবর্তনীয়। এর আগে কেউ এই কথা বলেছে কিনা জানি না, বা সত্যি কিনা তাও জানি না, আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি দ্বান্দ্বিক বস্তুবাদের পরিবর্তন সম্ভব নয়। বিপ্লবের স্বার্থে, শ্রমিকশ্রেণীকে সংগঠিত করার স্বার্থে পার্টি বিভিন্ন কৌশল গ্রহণ করবে, দরকার হলে শ্রমিকদের সাথে, কৃষকদের সাথে জামাতে নামাজ পড়বে। কিন্তু বিপ্লব বা শ্রমিক আন্দোলনের সাথে সম্পর্কহীন এমন ধর্মীয় লোকাচারে কমিউনিস্ট বিপ্লবীরা সম্মিলিতভাবে অংশগ্রহণ করবেন না। এটা হবে বস্তুতই মার্ক্সবাদী দর্শনের সাথে চরম বেঈমানি। সেই সাথে যেসকল পেটি বুর্জোয়া শিক্ষিত মধ্যবিত্ত বিভিন্ন গণসংগঠনের মধ্যে থেকে পার্টির স্বার্থে তথা বিপ্লবের স্বার্থে কাজ করে যাচ্ছেন, তাদের সাথে বেঈমানী।

কমরেড ফরহাদের মাজার জিয়ারতে শ্রমিক আন্দোলন বা বিপ্লবে আপাত কোন ব্যাঘাত ঘটছে না, কিন্তু একটা অবক্ষয় টের পাচ্ছি। এই টের পাওয়ার ব্যাপারটা বেদনাদায়ক, হতাশাব্যাঞ্জক। পার্টি কমরেডরা যেভাবে লোকাচার, সামাজিকতা, কৌশল ইত্যাদি বলে এই ঘটনা জাস্টিফাই করার চেষ্টা করছেন সেটা আরো অনেক বেশি কষ্টদায়ক। ভুলকে ভুল বলার সাহস একজন পার্টি কমরেডের থাকবে। কমিউনিস্টরা সত্য গোপন করতে ঘৃণা করে, আর নিজ পার্টির সমালোচনা করতে পারবে না? সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে না হোক, পার্টির বিভিন্ন ফোরামে প্রশ্ন করার সাহস রাখতে হবে। পার্টি অন্তিম লক্ষ্য বিপ্লব সাধন, মানুষের মন যুগিয়ে সংসদে একটা দুটো সীট পাওয়া নয়। যেসব যুক্তি উদাহরণ পার্টি কমরেডরা দেখাচ্ছেন তার চেয়ে বরং চুপ থাকাটাই ঢের শ্রেয় ছিল। পার্টির কুল-মান বাঁচাতে পার্টিজানদের এইরকম অন্ধত্ব ভবিষ্যত বিল্পবের অন্ধকারাচ্ছন্ন দিনই নির্দেশ করে।

কমরেডস, ৯০% মুসলমানের দেশে ধর্মীয় কুসংস্কার মেনে চলা যদি লোকাচার, সামাজিকতা বা কৌশল হয়, ৯৯% শোষিতের দেশে বিপ্লব তো শ্রেফ আনুষ্ঠানিকতা। কবে হবে সে অনুষ্ঠান? ফেসবুক আর বিছানা ছেড়ে আমিও যোগ দিব সেই মহান অনুষ্ঠানে। অপেক্ষায় রইলাম কমরেড!

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

বন্ধু অন্তু
বন্ধু অন্তু এর ছবি
Offline
Last seen: 4 দিন 12 ঘন্টা ago
Joined: মঙ্গলবার, ডিসেম্বর 2, 2014 - 2:50অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর