নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • লিটমাইসোলজিক
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • কাঠমোল্লা
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • জহিরুল ইসলাম

নতুন যাত্রী

  • আদি মানব
  • নগরবালক
  • মানিকুজ্জামান
  • একরামুল হক
  • আব্দুর রহমান ইমন
  • ইমরান হোসেন মনা
  • আবু উষা
  • জনৈক জুম্ম
  • ফরিদ আলম
  • নিহত নক্ষত্র

আপনি এখানে

আদর্শ ব্যাক্তিঃ বঙ্গবন্ধু ও নবী মুহাম্মদ


ষষ্ঠ শ্রেণীতে যখন পড়ি, বাংলা দ্বিতীয় পত্রে রচনা আসছিলো "তোমার আদর্শ ব্যাক্তি বা প্রিয় ব্যাক্তিত্ব "।তখন 12 নম্বর প্রশ্নে পাঁচটি রচনার মধ্যে একটির উত্তর দিতে হতো। মুখস্থ করার অভ্যাস আমার কখনোই ছিলো না, সভাবতই আমি আমার মত করে আদর্শ ব্যাক্তি রচনা টি লিখেছিলাম। পাঠ্যবইয়ের বাইরে বই পড়া কি জিনিস বুঝতাম না। মায়ার (মা) কাছ থেকে যতটুকু যুদ্ধ আর বঙ্গবন্ধুর কাহিনী শুনতাম তাতে মনের অজান্তেই বঙ্গবন্ধু আমার কাছে প্রিয় ব্যাক্তি হয়ে ওঠে। আমিও স্বপ্নের নায়ক বঙ্গবন্ধু কে আদর্শের স্থানটি দিয়ে "আদর্শ ব্যাক্তি " রচনা টি সম্পন্ন করি।

আমাদের স্কুলে একটা নিয়ম ছিলো, পরীক্ষার খাতা দেখার পর টিচাররা ক্লাসে সবার নাম্বার ঘোষণা করতো আর সবার হাতে যার যার খাতা দেওয়া হতো নিজের ভুলটা পরখ করার জন্য। যদিও এখন আতঙ্কিত হই এই ভেবে - ক্লাসে সবার সামনে প্রাপ্ত নম্বর ঘোষণা করা, ফেল করা বা কম নম্বর পাওয়া ছাত্রটির মনে কতটা লজ্জা বা বিব্রতবোধ সৃষ্টি করে। আমি যেহেতু নম্বর মোটামুটি ভালই পেতাম তাই হয়তো এই বোধটি মাথায় আসেনি। বরং বলদের মত মনে মনে গর্বিত হতাম।

আমাদের বাংলা টিচার আর ইসলাম শিক্ষা টিচার একজনই ছিলেন।নম্বর ঘোষণা করার পর মনে হলো এত খারাপ পরীক্ষা আমি দেইনি। যদিও নম্বর দিকে বেশী নজর আমার ছিলো না।প্রথম বার বঙ্গবন্ধু কে নিয়ে রচনায় কত পেলাম সেটাই মুখ্য। খাতাটা হাতে নিয়ে শেষের পৃষ্ঠা চলে গেলাম। নম্বর বিশে আট।। কষ্ট পেলাম ! অনেক কনফিডেন্ট ছিলাম আমি ভালো লিখেছি।

তারপর যেটা হয় আরকি। যার সাথে কম্পিটিশন তার খাতা দেখা। ক্লাস সিক্সে তো আর রোল নম্বরের কোন দাম থাকে না যে আগে ভর্তি হয় তার রোল আগে। তবে আমাদের প্রাইমারী স্কুল থেকে যারা হাইস্কুলে যেত তাদের মধ্যেই রোল এক, দুই হতো। আমিও আমার কাজিনের খাতাটি দেখতে লাগলাম৷ কারণ প্রাইমারিতে আমরাই এক, দুই রোল ভাগাভাগি করতাম।

আশ্চর্য হয়ে লক্ষ্য করলাম সে ও " আদর্শ ব্যাক্তি " রচনা টি লিখেছে। তবে ব্যাক্তির জায়গাটি ভিন্ন। ওর আদর্শ ব্যাক্তি হচ্ছে হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)। ওর সাথে যখন আমার আগে থেকেই নম্বরের কম্পিটিশন হয় ভেবেছিলাম ও হয়তো আমার চেয়ে ভালো লিখেছে। কিন্তু লক্ষ্য করলাম ক্লাসের সবাই রচনায় আমার চেয়ে বেশি নম্বর পেয়েছে। (যারা আদর্শ ব্যাক্তি হিসেবে মুহাম্মদের নাম লিখেছে)।
মনে মনে ইতস্ততঃ বোধ করতে লাগলাম৷ আমি নবীর নাম লিখি নাই। এই গুনাহর মাফ নাই।

স্যার আমার কাছে এসে আস্তে করে বললেন - মুসলমানদের আদর্শ ব্যক্তি মুহাম্মদ ছাড়া আর কেউ হতে পারে না। মুহাম্মদকে আদর্শ মানা সকল মানুষের কর্তব্য।
স্যার চলে যাবার পর স্যারের কথা গুলো আবারো মনে হতে লাগলো। কেন জানি আমি লজ্জিত না হয়ে নিজেকে প্রশ্ন করতে লাগলাম আদর্শ ব্যাক্তি মুহাম্মদ না লিখে আমি ভুল করেছি, কিন্তু অন্য সকলের চেয়ে আমার রচনা লিখাটা খারাপ হয়নি অন্তত যারা আমার চেয়ে সবসময় কম নম্বর পেতো। স্যার আমার লিখাটার জন্য অন্তত নম্বর দিতে পারতো। যথারীতি ক্লাস সেভেনের প্রথম সাময়িক পরীক্ষায় ও এই রচনা টি এসেছিল অনিচ্ছা সত্যেও দ্বিতীয় বার আর ভুল করিনি। নম্বর ও বেশি পেয়েছিলাম, একই টিচার।

ষষ্ঠ শ্রেণীর ইসলাম শিক্ষা বইয়ে মুহাম্মদ সম্পর্কে যতটুকু জানা গেছে তাতে মুহাম্মদ আমার প্রিয় হয়ে ওঠতে পারিনি আবার ফেলে দেওয়ার মত ছিলো না যেহেতু সে নবী ছিলো।তখন মনে মনে প্রতিজ্ঞা করি নবী সম্পর্কে জানতে হবে, এটা ভীষণ অন্যায়, পাপ।নবীকে জানতে আমি সময় নিয়েছিলাম আর সেটা অনার্স লেভেলে। কোরআন, হাদীস,তাফসীর, সীরাতুন্নবী থেকে যতটুকু জানলাম এতে মুহাম্মদ কে কোন সচেতন ব্যাক্তি আদর্শ হিসেবে মানতে পারে না।

-বঙ্গবন্ধু একটা নিপীড়িত, শোষিত জাতির মুক্তির জন্য ডাক দিয়েছে। বাঙালির যুদ্ধ ছিলো পাকিস্তানি শোষকের বিরুদ্ধে। অন্য দিকে মুহাম্মদ তার নিজস্ব মত প্রতিষ্ঠা করার জন্য শান্তির কথা বলে অনেক গোত্র আক্রমণ করেছে, সত্তরের অধিক যুদ্ধ । তাদের মালামাল লুট করেছে, নারীদের গনিমতের কথা বলে ভোগ করেছে। নির্বিচারে নাভির নিচে চুল দেখে হত্যা করছে।
-বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে বেগম ফজিলাতুন্নেসা প্রতি উনার ভালবাসা দেখে আমি আপ্লুত হই। অপর দিকে মুহাম্মদের 13 টা বউ, একেক দিন একেক ঘরে রাত কাটানো, নয় বছরের শিশু আয়েশাকে বিয়ে, পুত্র বধূ কে বিয়ে, অসংখ্য দাসীদের সাথে মেলামেশা।আমি বিস্মিত হই, এরকম নারীলোভী ও আদর্শ হতে পারে !
-মুহাম্মদ সারা পৃথিবীতে ইসলামী শাসনের কথা বলে গেছে যার ফলশ্রুতিতে আজ আল -কায়েদা, তালেবান,আইএসআই এর মত জঙ্গি সংঘটনের উত্থান হচ্ছে।

আমি আপনাকে বঙ্গবন্ধু কে আদর্শ হিসেবে মানতে বলছি না , মুহাম্মদের থেকে অন্তত পক্ষে বঙ্গবন্ধু কর্মকান্ড ভালো ছিলো এটাই বলতে চাচ্ছি।
সমস্ত যুক্তিবোধকে তুড়ি মেরে একমাত্র অন্ধ নির্বোধ ব্যাক্তিই কেবল মুহাম্মদকে আদর্শ মানতে পারে।

আমি এখনো বুঝতে পারিনি আমার ক্লাসমেটদের কাছে মুহাম্মদ কিভাবে আদর্শ ব্যাক্তি হয়ে ওঠে!

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

তায়্যিব
তায়্যিব এর ছবি
Offline
Last seen: 3 দিন 7 ঘন্টা ago
Joined: বুধবার, ফেব্রুয়ারী 10, 2016 - 12:31অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর