নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • ড. লজিক্যাল বাঙালি
  • মোমিনুর রহমান মিন্টু
  • রহমান বর্ণিল

নতুন যাত্রী

  • আদি মানব
  • নগরবালক
  • মানিকুজ্জামান
  • একরামুল হক
  • আব্দুর রহমান ইমন
  • ইমরান হোসেন মনা
  • আবু উষা
  • জনৈক জুম্ম
  • ফরিদ আলম
  • নিহত নক্ষত্র

আপনি এখানে

বাঙ্গালী মুসলমান মানেই সুবিধাবাদী এবং ক্ষমতা লোভী: ইকরামুল শামীম


মাটি দিয়ে তৈরি করলে মূর্তি, পাথর দিয়ে ভাস্কর্য, হাতে কিংবা ক্যামেরায় স্থীর চিত্র।

বাংলাদেশের কওমী মাদ্রাসা ব্যাতীত প্রতিটি মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল তথা বড় আলেমের কক্ষে সরকার দলের নেতা নেত্রীর ছবি, বড় বড় রেস্তোরাঁর দেওয়ালে বিভিন্ন প্রাণীর আঁকা চিত্র, হুজুরেরা যে টাকা নিয়ে ঘুরছে তাতেও ছবি আছে। ইসলাম ধর্মে স্পষ্ট নিষেধ আছে এবং বলাও আছে, যে ঘরে প্রাণী কিংবা কারো ছবি থাকে সে ঘরে রহমতের ফেরেস্তা প্রবেশ করে না। এমনকি নামাজ পড়লেও নামাজ হবে না। তাহলে কিভাবে মৌলভীরা ছবি তুলে, টিভির পর্দায় কিংবা খবরের শিরোনাম হয় আমার বোধগোম্য হচ্ছে না।

ছোটবেলায় যখন মোক্তবে পড়তাম তখন শুক্রবারে আমরা বিটিবিতে সিনেমা দেখতাম, কিন্তু পরেরদিন হুজুরের বেত্রাঘাতও সইতে হয়েছে। এমনকি ঘরের ভিতর টিভি নিয়ে কত কথা শুনতে হয়েছে, কারণ টিভি দেখা হারাম। আর এখন হুজুরদেরই টিভির ভিতর দেখা যায়। ইসলাম ধর্মে বলা আছে, প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে কোনো বেগানা নারীকে পুরুষ এবং কোনো পুরুষকে নারী দেখা হারাম, তাহলে মৌলভীরা কিভাবে টিভি চ্যানেলগুলোতে অনুষ্ঠান করেন?

পবিত্র কোরআন শরীফে স্পষ্ট বলা আছে যে, সুদ খাওয়া হারাম। কিন্তু বাংলাদেশের ব্যাংকগুলোতে সুদের রমরমা ব্যবসা চলছে, কিন্তু কোনোদিন তো গ্রামীন ব্যাংকগুলোর মত কোনো ব্যাংকগুলোর বিরুদ্ধে ইসলামীদল আন্দোলন করেনি।

যেনাকারী কখনো বেহেস্তে যাবে না, তাহলে বাংলাদেশের বড় বড় হোটেলগুলোতে এমনকি চলচিত্রে যে পরিমানের যেনা হচ্ছে, কখনও তা নিয়েও কোনো ইসলামী দল আন্দোলন করা হয়নি।

সূরা নিসায় স্পষ্টভাবে বলা আছে, নারীর নেতৃত্ব হারাম, যার কারণে হযরত আয়েশা (রাঃ) খেলাপত গ্রহন করতে পারেননি বলে সর্বপ্রথম খলিফা হয়েছে আবু বক্কর সিদ্দিক (রাঃ)। দুই নেত্রীর ছত্রছায়া থেকে ইসলামী দলগুলো রাজনীতি করছে, কিন্তু কোনোদিন স্লোগান তুলেনি এই বলে "হটাও নারী নেতৃত্ব"।

ছোটবেলায় শুনেছি, একটা ছবি তুললে মহাপাপ। আর এখনতো ফেইসবুকে মৌলভীদের ছবি ছড়াছড়ি। পত্রিকা খুললেই বিভিন্ন দেশের বড় বড় মহিলা নেত্রী কিংবা নায়িকাদের ছবি দেখা যায়, তা নিয়েও তাদের কোনো মাথা ব্যাথা নেই।

যখন বিএনপি ক্ষমতায় ছিলো, প্রতিটি মন্ত্রনালয়ে মন্ত্রীদের বসার চেয়ারের উপর বেগম জিয়ার ছবি ছিল। ইসলামী দলের মন্ত্রীরা কিভাবে বেগানা নারীর ছবিকে মাথার উপর ঝুলিয়ে তার নিচে টুপি আর দাঁড়ি নিয়ে বসতেন?

বড় বড় শহরে বিলবোর্ড ছিলো, যেখানে নারী দিয়ে বিজ্ঞাপনের প্রচার হয়েছে কিংবা হচ্ছে, কোনোদিন তো শুনি নাই বিলবোর্ড সরানোর জন্য আন্দোলন হতে।

আমরা ক্ষমতা লোভী মুসলমান। ইসলামের দোহাই দিয়ে চলি কিন্তু সুক্ষ বিষয়গুলোকে জটিল করে তুলি।

রমজানে মাসে বিভিন্ন জায়গায় দেখা যায় দোকানগুলোতে কাপড় দিয়ে ঘেরাও করে হাজার হাজার মুসলমান সিয়াম সাধনার অবমাননা করছেন, কখনও তা বন্ধ করার জন্য তো কোনো মুসলিম রাজ পথে নামতে দেখি না।

ইসলামে শুধু নামাজ পড়তে বলে নাই, নবীর সুন্নত পালনের মাধ্যমে নামাজ আদায় করতে বলেছে। হাদীস শরীফে আছে, দাঁড়ি রাখলে এক মুঠোম সমপরিমান রাখতে, এক মুঠোর নিচে রেখে কাটলে নাকি নবী (সঃ) গলায় চুরি দিয়ে আঘাত করার সমান, কিন্তু এখন ইসলামী দলের কর্মীরা ফ্যাশন করে দাঁড়ি রাখে, আমি মুসলমান।

আমরা হচ্ছি ক্ষমতা লোভী মুসলমান। ইসলামের দোহাই দিয়ে ত্রাস সৃষ্টি করা কি ইসলামে আছে?

আপনারা গ্রীক ভাস্কর্য সরানোর জন্য বলছেন, তবে জানেন কি? বাংলাদেশের প্রচলিত আইনের সিংহভাগই গ্রীক এবং রোমান ল' থেকে উৎপত্তি।

দুর্নীতি করা ইসলামে জায়েজ, তাই না? যদি তা না'ই বা হয়, তাহলে একবার,দুইবার, তিনবারের পর কেনো আন্দোলন করেননি "হটাও দুর্নীতিবাজ সরকার"? যদি করতেন তবে বাংলাদেশ দুর্নীতিতে পাঁচবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলো কিভাবে? অথচ জোটে জামাতি ইসলামী দল ছিলো কিন্তু কোনো মাথা ব্যথা ছিলো না।

নিজের অন্তর ঠিক করুন, ইসলামের বাণীতে হিংসা-বিদ্বেষ জালিয়ে ফেলুন। প্রথমে পরিবার, তারপর একে একে সমাজ, গ্রাম, উপজেলা, জেলায় ইসলাম বিরোধীর কাজ বন্ধ করুন, তারপর না হয় পুরো রাষ্ট্র নিয়ে চিন্তা করবেন।

অহেতুক বিষয় নিয়ে মনগড়া আন্দোলন করে ইসলাম সম্পর্কে অন্য ধর্মের মানুষদের নিকট ছোট করবেন না। কারণ, ইসলাম হচ্ছে শান্তির ধর্ম; ত্রাস সৃষ্টি করা নয়, জঙ্গীবাদ নয় তবুও বাঙ্গালী হিংস্র মুসলমন এই শান্তির ধর্মকে জঙ্গী মৌলবাদীত্বে পরিণত করেছে যার ফলে বিশ্বের কাছে আজ ইসলাম মানেই অশান্তি। তাই সহজভাবে ইসলাম সম্পর্কে আগে জানুন তারপর ধর্মের নীতিতে চলুন।

ইকরামুল শামীম
আইনজীবী
এমএসএস (রাষ্ট্রবিজ্ঞান) এলএলবি,
ভিক্টিমলজি & রেস্ট্রোরেটিভ জাস্টিস

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

ইকরামুল শামীম
ইকরামুল শামীম এর ছবি
Offline
Last seen: 1 দিন 19 ঘন্টা ago
Joined: বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর 7, 2017 - 7:42অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর