নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • শ্মশান বাসী
  • আহমেদ শামীম
  • গোলাপ মাহমুদ

নতুন যাত্রী

  • নীল মুহাম্মদ জা...
  • ইতাম পরদেশী
  • মুহম্মদ ইকরামুল হক
  • রাজন আলী
  • প্রশান্ত ভৌমিক
  • শঙ্খচূড় ইমাম
  • ডার্ক টু লাইট
  • সৌম্যজিৎ দত্ত
  • হিমু মিয়া
  • এস এম শাওন

আপনি এখানে

চলচ্চিত্র: What’s Eating Gilbert Grape



What’s Eating Gilbert Grape, ১৯৯৩ সালে মুক্তি পাওয়া হলিউডের এই চলচ্চিত্রটা অন্যতম সেরা কাজ বলে আমার মনে হয়েছে। সিনেমার পরিচালক লাসে হালস্ত্রোম। লেখক পিটার হেজেসের এ নামে রচিত উপন্যাসটির কাহিনীই চলচ্চিত্র আকারে নির্মীত হয়েছে।ছবিটির মূল দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন জনি ডেপ ও লিওনার্দো ডিক্যাপরিও। দুজনই অসাধারণ অভিনয় করেছেন।

সিনেমার কাহিনী শুরু হয় হয় শান্ত-নিরিবিলি গ্রামে বসবাস করা একটি পরিবারকে নিয়ে।এই পরিবারে বাবা আত্মহত্যা করেছে। অতি স্থূলকায় ও অসুস্থ মা নড়াচড়া করতে অক্ষম। পরিবারে দুই ভাই ও দুই বোন। এরমধ্যে ছোট ভাইটি মানসিক প্রতিবন্ধী। পরিবারের বড় ভাই ‘গিলবার্ট গ্রেপ’ চরিত্রে অভিনয় করে জনি ডেপ। পুরো সংসারের বোঝা তরুণ এই ছেলের কাঁধে।আর প্রতিবন্ধী ভাই ‘আর্নি’ চরিত্রে অভিনয় করে ডিক্যাপরিও (ডিক্যাপরিও কিশোর ছিলো তখন)।প্রতিবন্ধী ভাইকে সামলানো, ছোট বোনদের চাহিদা মেটানো, অসুস্থ মায়ের সেবা করা, আর্থিক প্রয়োজনে বাইরে কাজ করা ইত্যাদি মিলিয়ে গিলবার্ট নিজের জন্য ভাববার অবকাশ পায় না। পরিবারের জন্য নিজের সমস্ত আরাম-আয়েশ ত্যাগ করে চলছে গিলবার্ট। অনেক বিপদে, হতাশাতেও বাবার মতো আত্মহত্যা করে পালিয়ে যেতে পারবে না- এই দায়বোধ তাকে জীবনযুদ্ধে থামতে দেয় না।

গ্রামের আর দশটা তরুণের মতো তার জীবন হাসি-আনন্দের নয়, বরং প্রচণ্ড সংগ্রাম করে নিজের ও পরিবারের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে হয় তাকে। অনেকটা ঋত্বিক ঘটকের ‘মেঘে ঢাকা তারা’ সিনেমার ‘নীতা’ চরিত্রটির মতোই ‘গিলবার্ট’ চরিত্রটি। তবে পার্থক্য হলো, নীতাকে জীবনযুদ্ধে হার মানতে হয়েছিলো, কিন্তু গিলবার্টকে বিজয়ী হতে দেখা গিয়েছে শেষ অবধি।

গিলবার্ট গ্রেপের যে জীবন সিনেমাতে তুলে আনা হয়, সেটা নিতান্তই সাদামাটা। প্রতিবন্ধী ভাই আর্নির উদ্ভট সব কর্মকাণ্ড, দুই ভাইয়ের হাসি-খেলা, কিশোরী বোনের নানা বিষয়ে উৎকণ্ঠা, যাযাবর প্রেমিকা, পাড়ার বন্ধুদের আলোচনা, প্রতিবেশীদের অবস্থা- এমন আরও নানা ছোট-বড় ঘটনাগুলো এতো সূক্ষ্মভাবে ফুটিয়ে তুলেছে সিনেমায় যে পরিচালকের মুন্সিয়ানার তারিফ না করে পারা যায় না।
টান টান উত্তেজনা নেই সিনেমায়, কিন্তু সিনেমা শেষ করার পর মনে হবে- কি দারুণ একটা সিনেমা!

Comments

সোহেল ইমাম এর ছবি
 

ছবিটা অনেক আগে কোন একটা চ্যানেলে দেখে ছিলাম। ডি-ক্যাপ্রিওকে এই ছবিটা থেকেই চিনি। এটাকি ক্যাপ্রিওর প্রথম ছবি?
আলোচনাটা আরেকটু বিস্তৃতি পেলে ভালো হতো। Good

----------------------------------------------------
কে লেখে, কারা লেখে দেয়ালের আঁকিবুকি দাগ
সময়ের স্মৃতি রেখে বাকী অর্থ খ’সে পড়ে যাক

 
ফাহিমা কানিজ লাভা এর ছবি
 

না, এটা ক্যাপরিওর প্রথম ছবি না। প্রথম ছবি Critters 3 ।

বিপ্লব অথবা মৃত্যু।

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

ফাহিমা কানিজ লাভা
ফাহিমা কানিজ লাভা এর ছবি
Offline
Last seen: 2 দিন 7 ঘন্টা ago
Joined: বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 16, 2014 - 2:55অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

কপিরাইট © ইস্টিশন ব্লগ ® ২০১৮ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর