নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 9 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • দিন মজুর
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • গোলাম মোর্শেদ হিমু
  • আব্দুল্লাহ আল ফাহাদ
  • রুদ্রমঙ্গল
  • নুর নবী দুলাল
  • এফ ইউ শিমুল
  • জহিরুল ইসলাম
  • অন্ধকারের শেষ প...

নতুন যাত্রী

  • অন্ধকারের শেষ প...
  • রিপন চাক
  • বোরহান মিয়া
  • গোলাম মোর্শেদ হিমু
  • নবীন পাঠক
  • রকিব রাজন
  • রুবেল হোসাইন
  • অলি জালেম
  • চিন্ময় ইবনে খালিদ
  • সুস্মিত আবদুল্লাহ

আপনি এখানে

নরসিংদীতে নিরীহ ও নিরপরাধ হিন্দু-কিশোর ভয়ংকরভাবে পুলিশীনির্যাতনের শিকার


নরসিংদীতে নিরীহ ও নিরপরাধ হিন্দু-কিশোর ভয়ংকরভাবে পুলিশীনির্যাতনের শিকার
সাইয়িদ রফিকুল হক

বাংলাদেশ মাইনোরিটি ওয়াচ নামক প্রতিষ্ঠানটি দীর্ঘদিন যাবৎ দেশের সংখ্যালঘুসম্প্রদায়ের জন্য কাজ করছে। এর বর্তমান সভাপতি (প্রেসিডেন্ট) অ্যাডভোকেট রবীন্দ্র ঘোষ। তিনি সংখ্যালঘুসম্প্রদায়ের মানবাধিকারের পক্ষে কাজ করেন। সম্প্রতি তিনি নরসিংদীর একটা পুলিশ অফিসার মোস্তাক আহমেদ কর্তৃক হিন্দু-যুবক প্রীতম ভৌমিকের শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত হওয়ার পর তার পক্ষে কথা বলতে গিয়ে নরসিংদী-জেলার পুলিশ সুপার আমেনা বেগমের হুমকি পেয়েছেন।

বামে দীপ্তি রাণী নিহত হওয়ার পর সর্বস্তরের সাধারণ মানুষের ভিড়। ডানে দীপ্তি রাণীর রক্তাক্ত বিছানার একাংশ।

ঘটনার বিবরণে প্রকাশ:
গত ০৮/০৭/২০১৭ তারিখ দিনদুপুরে দীপ্তি রাণী ভৌমিক-নাম্নী একজন হিন্দু-রমণী নিজবাসায় খুন হয়েছেন। তাকে কে বা কারা তার বাসার ভিতরে দিনদুপুরে গলাকেটে খুন করেছে। কেউ বলেছে, এটি ডাকাতি—আবার কেউ বলেছে, এটি অন্যকিছু। ঘটনার পর দীপ্তি ভৌমিকের স্বামী প্রদীপ ভৌমিক (মতান্তরে, দীপ্তি ভৌমিকের মেয়ের জামাই নয়ন সাহা) বাদী হয়ে স্থানীয় থানায় একটি মামলাদায়ের করেছেন। কিন্তু পুলিশ প্রকৃত আসামীদের ধরা বাদ দিয়ে নিহত দীপ্তি ভৌমিকের একমাত্র পুত্র স্কুলপড়ুয়া প্রীতম ভৌমিককে আসামী বানানোর জন্য তাকে ধরে থানায় নিয়ে যায়। অথচ, দীপ্তি ভৌমিক যখন খুন হন তখন তদীয় একমাত্র পুত্র স্থানীয় হাইস্কুল (সাটিরপাড়া কালিকুমার উচ্চবিদ্যালয়)-এর দশমশ্রেণীর ছাত্র প্রীতম ভৌমিক স্কুলে প্রাকনির্বাচনীপরীক্ষায় মগ্ন ছিল। বিনা ওয়ারেন্টে পুলিশ মাতৃশোকে আকুল প্রীতম ভৌমিককে থানায় নিয়ে ৫দিন প্রায় অভুক্ত-অনাহারে রেখে শারীরিকভাবে অমানুষিক নির্যাতন চালায়। আর এর মূলহোতা হচ্ছে নরসিংদী মডেল থানার পুলিশ অফিসার (এসআই) মো. মোস্তাক আহমেদ। একইসঙ্গে এই মোস্তাক আহমেদ এই মামলার সাক্ষী তিতন সাহাকেও ৫দিন হেফাজতে নিয়ে একইভাবে অমানুষিক নির্যাতন করেছে। প্রীতম ভৌমিকের উপর এই অমানুষিক ঘটনার পরে (পুত্রের এই নির্যাতিত হওয়ার ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে) ‘নির্যাতন এবং হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইন’ ২০১৩-এর ১৩/১৫ ধারায় নরসিংদীর জেলা ও দায়রা-জজ-আদালতে মামলাদায়ের করেছেন দরিদ্র প্রদীপ ভৌমিক। মামলা-নং—০২/২০১৭।

এসআই মোস্তাক আহমেদের বিরুদ্ধে আনীত সঠিক ও প্রমাণিত অভিযোগসমূহ:

১. সে প্রীতমকে অস্বাভাবিক মারধর করেছে।
২. মাতৃহত্যার স্বীকারোক্তিআদায়ের জন্য সে প্রীতমের দুই হাতের কব্জি ও বামহাতের আঙ্গুলে ইলেকট্রিক শক দিয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় নিপীড়ন চালিয়েছে।
৩. সবশেষে সে প্রীতমকে ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে তাকে ১৬৪ধারায় জবানবন্দি দিতে বাধ্য করে।
৪. সে এই মামলার বাদীকে (নয়ন সাহাকে) ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়েছে।

একপর্যায়ে পুলিশ-কর্তৃক প্রীতমের উপর এই অমানুষিক নির্যাতনের ঘটনা প্রকাশিত হলে বাংলাদেশ মাইনোরিটি ওয়াচের প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট রবীন্দ্র ঘোষ প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন। তিনি প্রীতম ঘোষের পক্ষে কথা বলেছেন। এটা জেনে ২৫/০৮/২০১৭ তারিখ নরসিংদী মডেল থানার কার্যক্রম তদন্ত করতে গিয়ে উর্ধ্বতন-কর্মকর্তা হিসাবে পুলিশ সুপার আমেনা বেগম পুলিশ-কর্তৃক প্রীতমের উপর অমানুষিক নির্যাতনের ঘটনাটি ধামাচাপা দিয়ে অহেতুক ভারতের প্রসঙ্গ টেনে রবীন্দ্র ঘোষকে মোবাইলফোনে হুমকিধমকি দিয়ে বলে, ভারতে মুসলমান নির্যাতিত হচ্ছে—সুতরাং সংখ্যালঘুদের পক্ষে এখানে এতো মানবাধিকারের কথা না বলাই ভালো! এখানেই শেষ নয়—এই আমেনা বেগম প্রীতমের উপর পুলিশ-কর্তৃক অমানুষিক নির্যাতনের কথা জেনেও এখনও পর্যন্ত কোনোকিছুই করেনি। আর প্রীতমের এই নির্যাতিত হওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রীতমের বাবা প্রদীপ ভৌমিকের দায়ের করা মামলার কার্যক্রমও বর্তমানে অচল হয়ে পড়েছে। এরা আদালতের নির্দেশও মানছে না। এই মহিলা পুলিশ সুপার আরও বলেছে, প্রীতমের উপর নির্যাতনের ঘটনা তদন্ত করতে আইজিপি’র অনুমতি লাগবে! অথচ, ডাক্তারি পরীক্ষাতেও বলা হয়েছে প্রীতমের শরীরে ৪টি আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। কথিত মাতৃহত্যার অভিযোগে নির্দোষ কিশোর প্রীতমের উপর যখন নির্মম অত্যাচার-নির্যাতন চালানো হয়েছে তখন আইজিপি’র অনুমতি লাগেনি! আর এখন এই ঘটনার বিরুদ্ধে তদন্ত করতে আইজিপি’র অনুমতি লাগবে? এই হলো একটা জঙ্গি আমেনার পুলিশগিরি।

দীপ্তি ভৌমিককে হত্যা করেছে একটি নরপশুগোষ্ঠী। অথচ, পুলিশ ষড়যন্ত্রমূলকভাবে মামলাটিকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার জন্য নিহতের একমাত্র পুত্রকে এই মামলার প্রধান আসামী বানিয়ে তার উপর অকথ্য নির্যাতন চালিয়েছে। এই ঘটনার প্রতিবাদে নরসিংদী-জেলার বিভিন্নস্থানে তথা প্রেসক্লাবের সামনে সাধারণ মানুষজন মানববন্ধন ও বিভিন্নরকম প্রতিবাদ-সমাবেশ করেছেন। তারা পুলিশীনির্যাতন থেকে প্রীতম ভৌমিককে রক্ষার জন্য আকুল আবেদন জানিয়েছেন। কিন্তু পুলিশ এতে কোনো কর্ণপাত করছে না। তারা নিজেদের স্বার্থে প্রশাসনিক ক্ষমতা ব্যবহার করছে।

ছেলের উপর নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরে অসহায় প্রীতম ভৌমিকের অসহায় বাবা প্রদীপ ভৌমিক নরসিংসী-প্রেসক্লাবে সাংবাদিকসম্মেলন করে বলেছেন, তার পুত্র নিরপরাধ। তিনি আরও জানিয়েছেন, পুলিশ বিনা মামলায়, বিনা ওয়ারেন্টে, বিনা দোষে তার ছেলে প্রীতমের উপর অমানুষিক নির্যাতন চালানোর পর ঘটনাটি আদালতে জেলা-জজকে জানালেও তিনি তার পুত্রের জামিন নামঞ্জুর করেন! এই হলো আমাদের দেশের মহামান্য আদালত!

বাংলাদেশের পুলিশবাহিনীর কোনো সদস্য এরকম সাম্প্রদায়িক কথা বলতে পারে—তা কেউ ভাবতেও পারবেন না। কিন্তু ঘটনাটি সত্য। এই পুলিশ সুপার (আমেনা বেগম) তার চোখের সামনে একজন হিন্দু-কিশোরকে সীমাহীন নির্যাতনের শিকার হতে দেখেও রাজনৈতিক নেতাদের মতো অহেতুক ভারতের প্রসঙ্গ তুলে চরম সাম্প্রদায়িক কথা বলার ধৃষ্টতা দেখিয়েছে। এরপরও তার চাকরি অক্ষুণ্ন রয়েছে। ভবিষ্যতে হয়তো তার প্রমোশনও হবে! এদের জন্যেই বাংলাদেশে বারবার সংখ্যালঘুনির্যাতন হচ্ছে। আর আমেনা বেগমের মতো পুলিশ সুপাররাই এদেশের সংখ্যালঘুনির্যাতনের অন্যতম পৃষ্ঠপোষক। এরাই এদেশের রাজনৈতিক অপশক্তির সঙ্গে হাতমিলিয়ে বারবার দেশের সংখ্যালঘুদের জীবন ও শান্তি বিপন্ন করে তুলছে। আর এদেরই প্রশাসনিক চাপে সংখ্যালঘুরা দেশত্যাগে বাধ্য হচ্ছে। মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশে এইরকম রাজাকারদের পুলিশবাহিনীতে চাকরি হয় কীভাবে? প্রশাসনের অভ্যন্তরে ঘাপটিমেরে থাকা এরা কারা? আর এরা কাদের প্রতিনিধি?

বাংলাদেশের যেকোনো জঙ্গির চেয়ে বড় জঙ্গি এই পুলিশ সুপার আমেনা বেগম। কারণ, আজ পর্যন্ত একাত্তরের রাজাকাররাও প্রকাশ্যে এভাবে সাম্প্রদায়িক কথা বলার দুঃসাহস দেখায়নি। কিন্তু একটা আমেনা বেগম প্রশাসনিক ক্ষমতাবলে বাংলাদেশের সংখ্যালঘুনির্যাতনের পক্ষে নগ্নভাবে কথা বলার ধৃষ্টতা দেখিয়েছে। এরকম পুলিশ অফিসার কীভাবে জঙ্গিদমন করবে? সে নিজেই তো জঙ্গি। জাতির বৃহত্তর স্বার্থে এইজাতীয় সাম্প্রদায়িক পুলিশসহ প্রশাসনের অভ্যন্তরে ঘাপটিমেরে থাকা সকল স্তর থেকে জঙ্গিমনা, জঙ্গিভাবাপন্ন ও সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে অনতিবিলম্বে অপসারণ করা হোক। এটাই জাতির প্রত্যাশা।

সূত্র-লিংক: http://thenewse.com/?p=71909

সূত্র: (অনলাইনভিত্তিক দৈনিক)
১. দি নিউজ, ০৭/০৯/২০১৭ খ্রিস্টাব্দ
২. অল নিউজ সাইট, ০৮/০৭/২০১৭ খ্রিস্টাব্দ
৩. বাংলা ট্রিবিউন ০৭/০৮/২০১৭ খ্রিস্টাব্দ
৪. অন্যান্য

সাইয়িদ রফিকুল হক
পূর্বরাজাবাজার, ঢাকা,
বাংলাদেশ।
০৭/০৯/২০১৭

http://thenewse.com/?p=71909

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

সাইয়িদ রফিকুল হক
সাইয়িদ রফিকুল হক এর ছবি
Online
Last seen: 5 min 43 sec ago
Joined: রবিবার, জানুয়ারী 3, 2016 - 7:20পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর