নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 6 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • জয়বাংলা ১৯৭১
  • মোগ্গালানা মাইকেল
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • ড. লজিক্যাল বাঙালি
  • সুবর্ণ জলের মাছ
  • দীব্বেন্দু দীপ

নতুন যাত্রী

  • বিদ্রোহী মুসাফির
  • টি রহমান বর্ণিল
  • আজহরুল ইসলাম
  • রইসউদ্দিন গায়েন
  • উৎসব
  • সাদমান ফেরদৌস
  • বিপ্লব দাস
  • আফিজের রহমান
  • হুসাইন মাহমুদ
  • অচিন-পাখী

আপনি এখানে

পক্ষে গেলে মানি, পক্ষে না গেলে চুতমারানিঃ প্রসঙ্গ সংবিধানের সংশোধনী


আওয়ামীলীগের নেতারা মনে হয় এটা ভুলে গেছে যে, সংসদ কেবল সংবিধান প্রণয়ন করতে পারে, সংবিধানের সংরক্ষণের দায়িত্ব সংসদের নয়, আদালতের। আদালত হচ্ছে সংবিধানের হেফাজতকারী।

সংসদে কিছু অরাজনৈতিক ব্যবসায়ীক লোক জনপ্রতিনিধিরূপে ঘাপটি মেরা বসেছে, যাদের রাজনৈতিক জ্ঞান নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। যাদের কাজ হচ্ছে প্রভুভক্ত প্রাণীর মতো মনিবের নির্দেশ পালন করা। এই জনপ্রতিনিধিরা(!) সংসদে নিজের দলের আনীত বিলের উপর বিরোধী মত প্রকাশে অক্ষম! তাই দুই - তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার জোরে, এই প্রাণীগুলোকে ব্যবহার করে যে কোন সরকারই সংবিধানে পরিবর্তন আনতে পারে।

কিন্তু সংসদ কতৃক সংবিধান সংশোধন হলেই যে তা সহি হবে এমন নয়। সংবিধানের মৌলিক কাঠামোর সাথে সাংঘর্ষিক হলে, কিংবা সংবিধানের মূলনীতি বিরোধী কোন সংশোধনী আনা হলে, সংবিধানের হেফাজতকারী সেই সংশোধনী বাতিলের ক্ষমতা রাখেন। সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে এই আওয়ামীলীগ সরকারই সংবিধানের ৫০ টি অনুচ্ছেদকে সংবিধানের মৌলিক কাঠামো বলে স্বীকৃতি প্রধান করে। সেই হিসেবে এই ৫০ টি অনুচ্ছেদ অপরিবর্তনীয়। সংবিধানের ৯৬ অনুচ্ছেদ সেই ৫০ অনুচ্ছেদের একটি। সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের বিষয়ে এটা ছিলো আদালতের অন্যতম প্রধান যুক্তি। আওয়ামীলীগ সরকার মাত্র তিন বছরের মাথায় তার নিজের নেয়া সিদ্ধান্ত থেকেই সরে এসেছে।আদালতের মতে এটা অযৌক্তিক মনে হয়েছে (সকল বিবেকবানের কাছেই তা অযৌক্তি মনে হবে), অথচ বেকুবের দল না বুঝেই ম্যাঁও ম্যাঁও করছে!

সংসদ কতৃক পাস হওয়া সংশোধনী আদালত কতৃক বাতিলের ঘটনা এবারই প্রথম নয়। ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের পূর্বেও সংবিধানের পঞ্চম, সপ্তম এবং ত্রয়োদশ সংশোধনী সর্বোচ্চ আদালত কতৃক বাতিল হয়েছিলো। কাকতালীয়ভাবে এই সবগুলো সংশোধনী বাতিলের ঘটনায় সবচেয়ে বেশি খুশি হয়েছিলো আওয়ামীলীগ! তখন তারা এই ঘটনাগুলোতে আদালতকে ধন্যবাদ দিতে দিতে মুখে ফেনা তুলেছিলো। ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের পর বিএনপি যেমন সরকারের মুন্ডুপাত করছে, একসময় আওয়ামীলীগও এমন করেছিলো। এই যে বছর কয়েক আগে, এই আওয়ামীলীগ সরকারের সময়েই আদালত যখন ত্রয়োদশ সংশোধনী বাতিল করেছিলো, আওয়ামীলীগ তখন আদালতের প্রতি সেকি শ্রদ্ধাশীল ছিলো! কারণ এই সংশোধনী বাতিল হওয়ার ফলেই তো আওয়ামীলীগ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করতে পেরেছিলো। যদিও বিএনপি কতৃক আনীত ত্রয়োদশ সংশোধনী পাস করা হয়েছিলো আওয়ামীলীগের প্রায় চার মাসের টানা আন্দোলনের ফলে, আওয়ামীলীগের দাবি অনুযায়ী তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা চালু করার জন্য!

ইতিহাস স্বাক্ষী, আওয়ামীলীগ কখনোই নিজের কথায় স্থির ছিলো না। নিজের প্রয়োজনে নিজেই নিজের কথার বরখেলাপ করেছে। এই যেমন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা আওয়ামীলীগের নিজের দাবির ফলেই সংবিধানে যুক্ত হয়েছিলো, আবার আওয়ামীলীগ নিজেই নিজের প্রয়োজনে সংবিধান থেকে এই বিধান বাতিল করেছিলো। আওয়ামীলীগ ’৯৬ থেকে ২০০১ পর্যন্ত সময়ে ক্ষমতা থাকাকালে, তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির সাথে ওয়াদা করেছিলো, তারা আর কখনও হরতাল ডাকবে না। অথচ ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত সময়ে আওয়ামীলীগ প্রায় ১৬০ দিনের মতো হরতাল পালন করে! আওয়ামীলীগ যে মুনাফিক সংগঠন, আওয়ামীলীগ যে বেঈমান সংগঠন, তাতো বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর ১৯৮৬ সালের নির্বাচনের সময়েই প্রমাণিত হয়েছিলো। পুরো জাতি যখন স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েছে, সেই সময় চট্টগ্রামের লালদীঘির ময়দানে শেখ হাসিনা বলেছিলেন, এরশাদের অধিনে যারা নির্বাচনে যাবে, তারা জাতীয় বেঈমান! কয়েকদিন পরেই জাতীয় বেঈমান হয়ে আওয়ামীলীগ এরশাদের অধীনে নির্বাচন করে!

‘পক্ষে গেলে মানি, পক্ষে না গেলে চুতমারানি’ – এই নীতি আওয়ামীলীগের বহু পুরনো। ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করার ঘটনা আওয়ামীলীগের সেই চরিত্র জাতির সামনে আবারও উন্মোচিত করলো। অবশ্য শুধু আওয়ামীলীগই নয়, জাতির সামনে বিএনপি'র স্বরূপও উন্মোচিত। আজ যেমন আদালতের প্রতি শ্রদ্ধায় তারা গদগদ, আজ যেমন এই রায়ে তারা আনন্দে পাছায় তালি মারছে, অথচ ক্ষমতায় থাকার সময় এরাই আবার বর্তমান আওয়ামীলীগের ন্যায় আচরণ করেছিলো। তাই এদের সবার প্রতি কেবল ঘৃণা!!

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

কফিল উদ্দিন মোহাম্মদ
কফিল উদ্দিন মোহাম্মদ এর ছবি
Offline
Last seen: 1 দিন 8 ঘন্টা ago
Joined: রবিবার, মে 8, 2016 - 11:31পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর