নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 2 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • সাইয়িদ রফিকুল হক

নতুন যাত্রী

  • আদি মানব
  • নগরবালক
  • মানিকুজ্জামান
  • একরামুল হক
  • আব্দুর রহমান ইমন
  • ইমরান হোসেন মনা
  • আবু উষা
  • জনৈক জুম্ম
  • ফরিদ আলম
  • নিহত নক্ষত্র

আপনি এখানে

বিশ্বজিৎ দাস হত্যা মামলায় হাইকোর্টের রায়ঃ বিচার না খেলা?


গতকাল উচ্চ আদালত বহুল আলোচিত বিশ্বজিৎ দাস হত্যাকান্ডের রায় ঘোষনা করেন। এই রায়ে দেশের বেশিরভাগ মানুষের মতো আমিও হতাশ এবং সংক্ষুব্ধ। এই রায়ে নিম্ন আদালতে ফাঁসির দন্ড পাওয়া ৮ আসামির মধ্যে দুজনের ফাঁসির দন্ড বহাল রাখা হয়। ফাঁসির দন্ড পাওয়া বাকি আসামিদের মধ্যে চারজনের সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদন্ড এবং অপর দুই আসামিকে খালাস দেয়া হয়! নিম্ন আদালতে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রাপ্ত ১৩ জনের মধ্যে যে দুজন আপিল করেছিলেন, উচ্চ আদালত তাদের খালাস প্রদান করেছে!

যাবজ্জীবন সাজা পাওয়া বাকি ১১ জন আসামি পলাতক থাকায় এবং আপিল না করায় উচ্চ আদালত তাদের বিষয়ে কোন মন্তব্য করেন নি। অর্থাৎ তাদের পূর্বের সাজা বহাল রয়েছে। তবে তাঁরা আপিল করলে কি রায় হতো, এটা এখন কৌতুহল জন্ম দিচ্ছে। নিম্ন আদালতে সাজা পাওয়া এতো বেশি আসামির, উচ্চ আদালতে এসে খালাস পাওয়া কিংবা সাজা কমার ঘটনা নজিরবিহীন। এমন নজিরবিহীন রায়ের কারণেই মানুষের মধ্যে সন্দেহ আর ক্ষোভ জন্ম নিচ্ছে। কেননা আসামিরা সবাই ক্ষমতাসীন দলের ভ্রাতৃপ্রতীম ছাত্র সংগঠনের রাজনীতির সাথে যুক্ত (যদিও তাদের বহিষ্কার করা হয়েছে)।

এই মামলায় মোট ২১ জনকে অভিযুক্ত করা হয়। নিম্ন আদালত হত্যাকান্ডের সাথে সম্পৃক্ততার প্রমাণ পাওয়ায় ২১ জনকেই দন্ড প্রদান করেন। যেই দন্ডাদেশ হাইকোর্টে এসে বদলে গেলো। এই মামলায় প্রসিকিউশন (রাষ্ট্রপক্ষ) থেকে জোরালো সাক্ষ্য হিসেবে চারটি টেলিভিশনের ভিডিও চিত্র, জাতীয় পত্রিকার স্থির চিত্র এবং আসামীদের জবানবন্দী পেশ করে। উচ্চ আদালত এই সাক্ষ্যর সাথে ভিকটিমের সুরতহাল প্রতিবেদনের মধ্যে অসংগতি খুঁজে পান। এছাড়া শোনা যাচ্ছে পুলিশের দেয়া তদন্ত রিপোর্টে সাথেও সুরতহাল প্রতিবেদনের অসংগতি রয়েছে। এখন কথা হচ্ছে, আদালতের কাছে কোন সাক্ষ্যটি অধিকতর গ্রহণযোগ্য হবে, ভিডিও ও স্থির চিত্র নাকি ময়নাতদন্ত রিপোর্ট?

মিডিয়ার কল্যানে বিশ্বজিৎ হত্যাকান্ডের ভিডিও দেখেনি, এমন একটি মানুষও এদেশে খুঁজে পাওয়া যাবে না। এই ভিডিও চিত্র থেকে দেখা যায় অন্তত ১০-১২ জন সরাসরি হত্যাকান্ডের সাথে যুক্ত। যার মধ্যে কেউ চাপাতি দিয়ে বিশ্বজিতকে কোপাচ্ছে কিংবা কেউ লোহার রড দিয়ে তাকে পেটাচ্ছে। অথচ আদালত সাজা দিলো মাত্র ৬ জনকে! এই রায়কে কে বলবে ন্যায়বিচার? শুধু কুপিয়ে বা পিটিয়ে মারা নয়, যারা মুমূর্ষ বিশ্বজিতকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে বাঁধা দিয়েছিলো, তাদের প্রত্যেকেরই তো সাজা হওয়া উচিত ছিলো। এই মামলায় প্রসিকিউশনের পক্ষে একজন রিক্সা চালক সাক্ষ্য দিয়েছিলেন। যে বিশ্বজিতকে হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিলেন। তাঁর সাক্ষ্য কি আমলে নেয়া হয়েছিলো, নাকি সে ভুল সাক্ষ্য দিয়েছিলো। সে কি কোন আসামিকে চিহ্নিত করেনি?

যুদ্ধাপরাধী সাঈদীর ট্রাইবুনালের রায়ও আপিল বিভাগে এসে বদলে গিয়েছিলো। আদালত সেই রায়ে প্রসিকিশনের গাফিলতির কথা উল্লেখ্য করেন। বিশ্বজিৎ হত্যা মামলায়ও প্রসিকিউশন এবং তদন্তকারী অফিসারের গাফিলতি লক্ষ্য করা যায়। শত শত মানুষ এবং ডিউটিরত পুলিশের সামনে একটা যুবককে নৃশংসভাবে হত্যা করার পরও প্রত্যক্ষ সাক্ষ্যের উপর জোর না দেয়া ছিলো প্রসিকিউশনের সবচেয়ে বড় দুর্বলতা!

আদালত সাক্ষ্য দেখে রায় দিবে সেটা স্বাভাবিক। কিন্তু নিম্ন আদালতের রায়ের সাথে এতো পার্থক্যের রায় মেনে নেয়া কষ্টকর। একটা কথা স্মরণ করা জরুরি, বিশ্বজিৎ হত্যাকান্ডের পর হাইকোর্ট বিভাগই স্বঃপ্রণোদিত হয়ে এই ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিলো। এই ঘটানা ছাড়াও গত কয়েক বছরে দেশের সর্বোচ্চ বিচারালয়ের প্রতি মানুষের যে আস্থা তৈরি হয়েছিলো, বিশ্বজিৎ দাস হত্যা মামলার রায় সন্দেহাতীতভাবে মানুষের সেই আস্থায় চিড় ধরিয়েছে! বিশ্বজিতের ভাই উত্তম দাসের বক্তব্য এমন আশংকার যুক্তি তুলে ধরে। তিনি বলেছেন, এটা বিচার নাকি খেলা? সত্যিই, এটা বিচারের নামে খেলাই হয়েছে!

Comments

ড. লজিক্যাল বাঙালি এর ছবি
 

পড়লাম। ৫৭-ধারার কারণে কোন মন্তব্য করবো না।
==============================================
আমার ফেসবুকের মূল ID হ্যাক হয়েছিল ২ মাস আগে। নানা চেষ্টা তদবিরের পর গতকাল আকস্মিক তা ফিরে পেলাম। আমার এ মুল আইডিতে আমার ইস্টিশন বন্ধুদের Add করার ও আমার ইস্টিশনে আমার পোস্ট পড়ার অনুরোধ করছি। লিংক : https://web.facebook.com/JahangirHossainDDMoEduGoB

===============================================================
জানার ইচ্ছে নিজেকে, সমাজ, দেশ, পৃথিবি, মহাবিশ্ব, ধর্ম আর মানুষকে! এর জন্য অনন্তর চেষ্টা!!

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

কফিল উদ্দিন মোহাম্মদ
কফিল উদ্দিন মোহাম্মদ এর ছবি
Offline
Last seen: 1 দিন 20 ঘন্টা ago
Joined: রবিবার, মে 8, 2016 - 11:31পূর্বাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর