নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 4 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • সাজ্জাদুল হক
  • শঙ্খচিলের ডানা
  • তাকি অলিক
  • ইকরামুল শামীম

নতুন যাত্রী

  • মোমিত হাসান
  • সাম্যবাদ
  • জোসেফ স্ট্যালিন
  • স্ট্যালিন সৌরভ
  • রঘু নাথ
  • জহিরুল ইসলাম
  • কেপি ইমন
  • ধ্রুব নয়ন
  • সংগ্রাম
  • তানুজ পাল

আপনি এখানে

মুহাম্মদের মৃত্যুই আমাকে বাধ্য করল স্রষ্টায় বিশ্বাস করতে


মুহাম্মদের মৃত্যূ আমাকে বাধ্য করেছে স্রষ্টায় বিশ্বাস করতে।নবী মুহাম্মদের কিভাবে মৃত্যু হয়েছিল সে ব্যাপারে কোন আলেম কিছু বলে না , কোন ওয়াজেও এ সম্পর্কে কিছু বলা হয় না। কারন কি ? মুহাম্মদের মৃত্যু কি তাহলে ভীষণ অপমানকর ও মর্মান্তিক ছিল ? প্রথমেই জানা উচিত মুহাম্মদ মারা যান মাত্রই ৬২/৬৩ বছর বয়েসে,স্বাভাবিক ভাবে সেটা মৃত্যুর কোন বয়স না। যা্ইহোক , মুহাম্মদ নিজেই তার নবূয়ত্ত্ব সম্পর্কে চ্যালেঞ্জ করেছিলেন -

সূরা আল হাক্কা-৬৯:৪৩-৪৬:এটা বিশ্বপালনকর্তার কাছ থেকে অবতীর্ণ।সে যদি আমার নামে কোন কথা রচনা করত, তবে আমি তার দক্ষিণ হস্ত ধরে ফেলতাম, অতঃপর কেটে দিতাম তার গ্রীবা(ঘাড়)।

অর্থাৎ মুহাম্মদ নিজেই কোরানের মাধ্যমে চ্যালেঞ্জ করে বললেন – কোরানের কথা যদি তার নিজের বানান হয় , স্রষ্টার কাছ থেকে না আসে , তাহলে স্রষ্টা তার ধড় থেকে গর্দান আলাদা করে দেবে। সুতরাং এবার দেখতে হবে ,মুহাম্মদের মৃত্যু কিভাবে হয়েছিল, সেটা ধড় থেকে গর্দান আলাদা হওয়ার মত কোন ঘটনা কি না।

কিতাবুস সালাম অধ্যায় ::সহিহ মুসলিম :: বই ২৬ :: হাদিস ৫৪৩০
আনাস (রা) বর্ণনা করেন, এক ইহুদী নারী রাসূলুল্লাহ্(সা) কাছে বিষ মিশানো বকরীর গোশত নিয়ে আসল। তিনি তা থেকে খেলেন। অতঃপর সেই স্ত্রীলোকটিকে রাসূলুল্লাহ্(সা) এর কাছে হাযির করা হল। তিনি তাকে এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করলেন। সে বলল, আমি আপনাকে হত্যা করতে চেয়েছিলাম। তিনি বললেন, আল্লাহ তোমাকে এই শক্তি দেননি। আলী (রা) কিংবা সাহাবীগণ বললেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ! আমরা কি একে হত্যা করব? তিনি বললেনঃ না, বর্ণনাকারী বলেন, আমি সবসময়ই রাসূলুল্লাহ্(সা) এর মধ্যে এই বিষের প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করেছি।

উপহার প্রদান, তার ফজিলত::সহিহ বুখারী :: খন্ড ৩ :: অধ্যায় ৪৭ :: হাদিস- ৭৮৬
আবদুল্লাহ ইব্ন আবদুল ওয়াহাব (রঃ) ......... আনাস ইবন মালিক (রাঃ) থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, জনৈক ইয়াহূদী মহিলা নবী (সাঃ) এর খিদমতে বিষ মিশানো বকরী নিয়ে এলো। সেখান থেকে কিছু অংশ তিনি খেলেন এবং (বিষক্রিয়া টের পেয়ে) মহিলাকে হাযির করা হল। তখন বলা হল, আপনি কি একে হত্যার আদেশ দিবেন না ? তিনি বললেন, না। আনাস (রাঃ) বলেন নবী (সাঃ) এর (মুখ গহবরের) তালুতে আমি বরাবরই বিষ ক্রিয়ার আলামত দেখতে পেতাম।

সেই সময় বিষক্রিয়ায় তাঁর দৈহিক অবস্থা কেমন ছিল সেটা একটু দেখা যাক—

আযান অধ্যায় ::সহিহ বুখারী :: খন্ড ১ :: অধ্যায় ১১ :: হাদিস ৬৩৪
ইব্রাহীম ইবন মূসা (র.)............ আয়িশা (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ্‌ (সা) যখন একেবারে কাতর হয়ে গেলেন এবং তাঁর রোগ বেড়ে গেল, তখন তিনি আমার ঘরে সেবা-শুশ্রূষার জন্য তাঁর অন্যান্য স্ত্রীগণের কাছে সম্মতি চাইলেন। তাঁরা সম্মতি দিলেন। সে সময় দু’জন লোকের কাঁধে ভর দিয়ে (সালাতের জন্য) তিনি বের হলেন, তাঁর দু’পা মাটিতে হেঁচড়িয়ে যাচ্ছিলো। তিনি ছিলেন আব্বাসা (রাঃ) ও অপর এক সাহাবীর মাঝখানে। (বর্ননাকারী) উবায়দুল্লাহ (র.) বলেন, আয়িশা (রাঃ) এর বর্ণিত এ ঘটনা ইবন আব্বাস (রাঃ) এর নিকট ব্যক্ত করি। তিনি আমাকে জিজ্ঞাসা করলেন, তুমি কি জান, তিনি কে ছিলেন, যার নাম আয়েশা (রাঃ) বলেন নি? আমি বললাম, না। তিনি বললেন, তিনি ছিলেন আলী ইবন আবু তালিব (রাঃ)।

তার মানে তিনি এতটাই দুর্বল হয়ে পড়েছিলেন যে তার দাড়ানোর ক্ষমতা ছিল না , তাকে টেনে হেচড়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। দ্বীন দুনিয়ার কথিত সর্বশ্রেষ্ট নবীর কি করুণ অবস্থা বিষ মাখা গোস্ত খেয়ে। বিশ্বাসই হয় না। তাই না ? তবে বিষ মাখা গোস্ত তিনি বেশী খান নি , ফলে তিনি সাথে সাথে মারা যান নি। কিন্তু তার শরীরে যেটুকু বিষ ঢুকে গেছিল , সেই কালে তো আর কোন চিকিৎসা ছিল না , তাই , ধীরে ধীরে মুহাম্মদ ভুগতে শুরু করেন, যেমনটা slow poisoning এ হয়ে থাকে। দীর্ঘ দুই ভছর ভোগার পর তার যন্ত্রনা ও দুর্ভোগ মারাত্মক রকম বৃদ্ধি পায় আর তাকে মৃত্যুশয্যায় পতিত হতে হয়। আর তখনই তার এই করুন পরিণতি।

তবে তার চাইতে বিস্ময়কর বর্ননা আছে আর একটা সহিহ হাদিসে , এবার সেটা দেখা যাক ---

মাগাজী অধ্যায় ::সহিহ বুখারী :: খন্ড ৫ :: অধ্যায় ৫৯ :: হাদিস ৭১৪
আয়শা বর্ণিত : রাসুল(সা) যখন মৃত্যু শয্যায় যে রোগে তিনি মৃত্যুবরন করেন, তখন প্রায়ই বলতেন- “ আমি এখনও খায়বারে যে বিষ মিশান খাবার আমাকে দেয়া হয়েছিল তার জন্যে তীব্র যন্ত্রনা অনুভব করছি এবং আমার মনে হচ্ছে , আমার গ্রীবাদেশ যেন সেই বিষক্রিয়ায় কাটা যাচ্ছে”।

তার মানে বিষক্রিয়ায় মুহাম্মদ মৃত্যুশয্যায় এতটাই যন্ত্রনাবোধ করছিলেন যে তার মনে হচ্ছিল যে তার দেহ থেকে মাথা আলাদা হয়ে যাচ্ছে। মানুষের মাথায় কোন কারনে যখন তীব্র যন্ত্রনা বোধ হয় , তখন অনেক মানুষই এরকম বোধ করে থাকে। বিষক্রিয়ার দীর্ঘ প্রতিক্রিয়ার ফলে মুহাম্মদেরও ঠিক একই রকম প্রতিক্রিয়া হচ্ছিল।

এবার তাহলে স্মরন করা যেতে পারে কি বলছে সুরা হাক্কার সেই ৪৬ নং আয়াত –

সূরা হাক্কা- ৬৯: ৪৬: অতঃপর কেটে দিতাম তার গ্রীবা(ঘাড়)

সুতরাং এখন কি বোঝা গেল ? বোঝা গেল , মুহাম্মদ নিজেই নিজের চ্যালেঞ্জে হেরে গেছেন। অর্থাৎ মুহাম্মদ চ্যালেঞ্জ করে প্রমান করতে চেয়েছিলেন তিনি সত্য নবী , কিন্তু স্রষ্টা নিজেই প্রমান করে দিলেন যে মুহাম্মদ কোনভাবেই সত্য নবী ছিলেন না, কারন তার মৃত্যুটা মুহাম্মদের নিজের কাছেই এমন মনে হয়েছিল যেন তার মাথা ধড় থেকে আলাদা হয়ে যাচ্ছে।মুহাম্মদের বলা কথা যদি সত্যি সত্যি স্রষ্টার কাছ থেকে আসত তাহলে কখনই মুহাম্মদের এমন অনুভূতি হতো না , এমন করুন যন্ত্রনাময় অপমানকর মৃত্যু হতো না। সেই সাথে এটাও প্রমানিত হলো কোরানের আল্লাহ কোনভাবেই স্রষ্টা না। যদি তাই হতো , তাহলে সে মুহামম্দকে রক্ষা করত। কিন্তু মুহাম্মদের রক্ষা হয় নি।

আর এই ঘটনাই আমাকে স্রষ্টার প্রতি বিশ্বাস আনতে বাধ্য করল।

সূত্র: https://sunnah.com/bukhari/64

Comments

শাফিয়া আননূর এর ছবি
 

সার্কুলার রেফারেন্স হয়ে গেল না। মহম্মদকেও মিথ্যেবাদী বললেন, আবার মহম্মদের কোরাণেরই রেফারেন্স দিলেন...

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

কাঠমোল্লা
কাঠমোল্লা এর ছবি
Offline
Last seen: 11 ঘন্টা 21 min ago
Joined: শুক্রবার, এপ্রিল 8, 2016 - 4:48অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর