নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 6 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • ড. লজিক্যাল বাঙালি
  • সুবর্ণ জলের মাছ
  • দীব্বেন্দু দীপ
  • মো.ইমানুর রহমান
  • সাইয়িদ রফিকুল হক

নতুন যাত্রী

  • বিদ্রোহী মুসাফির
  • টি রহমান বর্ণিল
  • আজহরুল ইসলাম
  • রইসউদ্দিন গায়েন
  • উৎসব
  • সাদমান ফেরদৌস
  • বিপ্লব দাস
  • আফিজের রহমান
  • হুসাইন মাহমুদ
  • অচিন-পাখী

আপনি এখানে

সুইডেনে মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর আগমনে প্রশ্নবিদ্ধ সম্বর্ধনা অনুষ্ঠান


সুইডেনের সিটি কনফারেন্স হলে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী ১৫ই জুন স্থানীয় সময় সন্ধ্যে ৬ টা ৩০ মিনিটে সুইডেন আওয়ামী লীগ আয়োজিত একটি সমাবেশে প্রায় সোয়া এক ঘণ্টা বক্তব্য রাখেন | ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা উক্ত সভাই উপস্থিত ছিলেন | জয় বাংলা শ্লোগানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানানো হয় , সেই সাথে উপস্থিত ছিলেন মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী |

সুইডেনের প্রধানমন্ত্রী স্টিফেন লোফেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান, আজ ১৫ই জুন সকাল থেকেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাঁর কর্মব্যস্ত দিন শুরু করেন সুইডেনের সাথে বর্ধিত বাণিজ্যের সুযোগ সহ সুইডেন ও বাংলাদেশের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আলোচনায় আলোচিত হয়। দুজন সরকার প্রধান ক্রমবর্ধমান বৈশ্বিক শ্রমবাজারে কাজের শর্তাবলী এবং উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির গুরুত্ব, সেই সাথে গ্লোবাল ডীলের উদ্যোগও আলোচনা উঠে আসে ।

সুইডেন সফরকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সহযোগিতা ও জলবায়ু ও উপ-প্রধানমন্ত্রী ইসাবেলা লোভি এবং অভিবাসন মন্ত্রী মরগান জোহান্সসনের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন । তিনি প্রথম ডেপুটি স্পিকার টোবাক্স বিলস্ট্রোমকেও সাক্ষাত করেন | রাজার আমন্ত্রণে সুইডেনের রাজ প্রাসাদে রাজা ও রানীর সাথে সৌজন্য মূলক সাক্ষাৎ করার সুযোগ পান | সুইডেনের ব্যবসায়িক সংগঠন দ্বারা আয়োজিত একটি সমাবেশেও তিনি যোগদান করবেন |

প্রবাসে একজন বঙ্গবন্ধু সৈনিক জানতে পারে তাঁর দলের প্রধান প্রধানমন্ত্রীর আগমন ঘটবে তখন প্রবাসীদের মাঝে আনন্দ আর গর্বের সীমা থাকে না, প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য শোনার আগ্রহ নিয়ে অনেকেই সমাবেশ ও অনুষ্ঠানে যাবার সাহসিকতা পোষণ করেন না তাঁর শুধু মাত্র কারণ ইউরোপের প্রতিটি দেশেই আওয়ামী লীগের নামে কোন্দল, মারামারি ও রেষারেষি |

সন্ধ্যাকালীন সময়ে আওয়ামী লীগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে শুধু মাত্র ইউরোপের আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের ভিড় পরিলক্ষিত হয়, অনুষ্ঠান সঞ্চালক অনুষ্ঠানের শুরুতেই প্রধান মন্ত্রীর আগমনে আকাশ বাতাস মুখরিত করে জয় বাংলা স্লোগান দিতেই উপস্থিত হলের সকলেই উল্লাস করে ওঠে | অনুষ্ঠান পর্বের শুরুতে কোরান ও গীতা থেকে অংশ বিশেষ পাঠ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দীর্ঘ জীবন কামনা করা হয় | মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়ন ও শিক্ষা ব্যবস্থার অগ্রগতি নিয়ে আলোকপাত করেন, বিগত দিনে বি এন পি সরকারের অপকর্ম ও দুনীতি উপস্থিত আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীদের নতুন করে মনে করিয়ে দেন , বর্তমান সময়ে বন্যায় হাওরে ধানের ক্ষতিপূরণের জন্যে দ্রুততম সময়ে চাল আমদানির কোথাও উল্লেখ করেন | মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে বি এন পি শাসন আমলের দুর্নীতি ও দুঃশাসনের কথা স্থানীয় সরকারী প্রতিনিধিদের অবগত করার জন্যে প্রবাসী দলীয় কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান, তিনি তাঁর বক্তব্যে আরও জানান “দুর্নীতি করে এতিমের টাকা যারা চুরি করে খেয়েছে। আর মামলা মোকাবিলা করতে ভয় পায়। ১৪০ বার সময় নিয়ে ১৫০ বার উচ্চ আদালতে রিট করে হেরে যায়। দুঃসময়টা তাদের। বাংলাদেশের না।” | প্রধানমন্ত্রী দীর্ঘ সময় বি এন পি চেয়ারম্যান পারসন খালেদা জিয়া ও তার সন্তানদের কু কর্মের বর্ণনা দিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের প্রবাসে সজাগ থাকার বিষয়ে উত্সাহিত করেন | তিনি এ বিষয়ে বক্তব্যের খালেদা জিয়ার সমালোচনার মধ্যে তার স্বামী জিয়াউর রহমান ও ছেলে তারেক রহমানের প্রসঙ্গও আসে প্রধানমন্ত্রীর কথায়। “সে যেমন ম্যাট্রিক ফেল, অবশ্য জিয়াউর রহমান ম্যাট্রিক পাস, আর তার ছেলে কদ্দুর পাস তা আর আমি বলতে চাই না। আপনারাই ভাল জানেন। কাজেই এই হল তাদের অবস্থা” | খালেদা জিয়ার সমালোচনায় উত্সাসী হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বলেন “খালেদা জিয়া নিজেও কম যান না। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট, আরও একটা কেসে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়। সেই মামলায় ১৪০ বার কোর্টে সে সময় নেয়।… এদিকে মিটিং করে বেড়ায়, সাজুগুজু করে দাওয়াতও খান। ওদিকে অসুস্থতার কথা বলে কোর্টে যেতে পারেন না।… পলায়নপর মনোবৃত্তি।” |

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে ডঃ ইউনুসকেও এক হাত নিতে ভুল করেননি , ডঃ ইউনুস সম্পর্কে তিনি বলেন, “আমার একটা প্রশ্ন ছিল, একজন নোবেল লরিয়েট হয়ে গেছেন, তিনি (ইউনূস) একটা এমডি পদের জন্য লালায়িত কেন? আসল মোজেজাটা এখন ধীরে ধীরে বের হচ্ছে। কত টাকা তিনি ট্যাক্স ফাঁকি দিয়েছেন ?”, “বিদেশে তার ইনভেস্টমেন্ট করা, বিদেশে তার টাকা দেওয়া। ক্লিনটন ফাউন্ডেশনে টাকা দেওয়া… কোথা থেকে কীভাবে ওই টাকাগুলো তিনি দিলেন? এগুলো এখন প্রশ্ন এসেছে।” , “দুর্নীতির অভিযোগ তুলে পদ্মা সেতু প্রকল্পে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়ন বন্ধ করার পেছনেও যে ‘তাদের হাত আছে’- সে বিষয়ে ‘কোনও সন্দেহ নেই” |

সব চাইতে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি উঠে আসে মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী জনাব আবুল হাসান মাহমুদ আলীর বক্তব্যে, তিনি জানান সুইডিশ রেডিওতে বাংলাদেশের রেবের একজন কর্মকর্তার বক্তব্যে রেবের কুকর্মের কথা প্রচার করা হয়, ঘটনার প্রতিবাদ সরূপ তিনি উক্ত রেব কর্মকর্তার নাম জানতে চেয়েছেন , কারণ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সরকার বদ্ধপরিকর | সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানে সঞ্চালক মন্ত্রীর নাম ভুল ভাবে উপস্থাপন করাতে মন্ত্রী তার নিজের নামটিকে সঠিক ভাবেই উপস্থাপন করেন, মন্ত্রী বলেন “আমার নামের পেছনে চৌধুরী নাই থাকলে বেশ ভালই হতো”, মন্ত্রী আরও জানান কানাডার আদালতে বাংলাদেশের বিএনপিকে একটি সন্ত্রাসী দল হিসেবে চিহ্নিত করে, প্রবাসী আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের প্রতি এই বিষয়টি স্থানীয় সরকারী ও রাজনৈতিক প্রতিনিধিদের অবগত করার অনুরোধ জানান |

সুইডেন আওয়ামী লীগের ব্যানারের নাগরিক সম্বর্ধনা নাম অনুষ্ঠানের আয়োজন করলেও সুইডেনের স্থানীয় বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ব্যবসায়ী , চিকত্সক, শিক্ষক, গবেষক, সমাজে প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তিদের তেমন উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়নি , পুরো সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানটি দেখতে অনেকটা দলীয় কার্যক্রমের মতই মনে হয়েছে , অনুষ্ঠানে ছাত্র লীগ যুব লীগ স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাদের বক্তব্য দেবার সুযোগ থাকলেও সুইডেনে প্রতিষ্ঠিত স্থানীয় রাজনৈতিক, সমাজ কর্মী প্রবাসীদের উপস্থিতি একেবারেই লক্ষ্য করা যায়নি, স্বাধীনতা ও বাংলাদেশের পক্ষে যে সব সংগঠন এ সমাজে দীর্ঘদিন সক্রিয় ভূমিকায় আছে যেমন:- ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি সুইডেন শাখা, মুক্তিযুদ্ধ সংহতি পরিষদ, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন ও গণজাগরণ মঞ্চ কমিটির উপস্থিতি না থাকাতে সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানটি প্রশ্নবিদ্ধ, স্টকহোল্ম শহরের প্রায় ১৭ থকে ১৮ হাজার প্রবাসী বাঙালিদের মাঝে উক্ত সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত সমগ্র ইউরোপের আওয়ামী লীগের নেতা কর্মী ও স্থানীয় প্রবাসীদের মিলিয়ে সংখ্যা ছিল শুধু মাত্র তিন শত থেকে সর্বোচ্চ তিন শত পঞ্চাশ জনের মত |

অনেকের মতো আমারও আশা ছিল গত ১৩ই জুন চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড় ধ্বসে সেনা কর্মকর্তা সহ ১৫০ জনের মৃত্যুতে সুইডেন প্রবাসীদের কাছে সমবেদনা জানিয়ে পাহাড় কাটা রোধ করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কোন বক্তব্য দেবেন অথবা ১ দিনের শোক দিবস পালনের ঘোষণা দেবেন কিন্তু সেটার শোনার আশা আমার মত অনেকেরই পূরণ হয়নি |

আমার সবাই জানি ইউরোপে আওয়ামী কোন্দল এক ভয়াবহ পর্যায়ে চলে গেছে, প্রায় প্রতিটি দেশেই আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা দলে বিভক্ত হয়ে কোন্দলে লিপ্ত, সুইডেনও তাঁর ব্যতিক্রম কিছু নয় | দেশের প্রধানমন্ত্রীকে সেই দেশের অভিবাসীদের পক্ষ থেকেই সম্বর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করলে বিষয়টি দৃষ্টিকটু হবার সুযোগ ছিলনা কারণ অভিবাসীদের কাছে একজন দলীয় প্রধানের চাইতে প্রধানমন্ত্রীর আগমন অনেক বেশী আনন্দময় | প্রবাসে বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলের সমর্থক থাকাতে কোনই বাধা থাকার কথা না তথাপি প্রবাসে বাংলাদেশের কোন রাজনৈতিক দলের শাখা থাকার বিধান থাকে না, এ ক্ষেত্রে সুইডেন আওয়ামী লীগের ব্যানারে নাগরিক সম্বর্ধনার নামে অনুষ্ঠানটি উদ্ভোদন করেন বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক জনাব ড. আব্দুল সোবহান গোলাপ যা কিনা দলীয় গঠনতন্ত্র বিরোধী প্রবাসে দলীয় কার্যক্রম পরিচালনা করা | প্রবাসে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সফর দলীয় প্রধানের সফরের চাইতেও গুরুত্বপূর্ণ |

একজন প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে একটি অনুষ্ঠান পরিচালনা করা বা সঞ্চালক নির্ধারণ করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, প্রমিত বাংলা, শব্দচয়ন, উচ্চারণ গ্রহণযোগ্য পর্যায়ের না হলে অনুষ্ঠানের মান নিয়ে প্রশ্ন থেকে যায়, এ ক্ষেত্রে সঞ্চালক দ্বারা মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নাম ভুল বলা বা তার উপস্থিতিকে প্রধানমন্ত্রীর পাশে অগ্রাহ্য করা অতীব দুঃখজনক | ডজন খানেক প্রাক্তন সভাপতিকে উপেক্ষা করে অনুষ্ঠানে কোন নির্দিষ্ট প্রাক্তন সভাপতিকে প্রধানমন্ত্রীর পাশে মঞ্চে আসন গ্রহণের অগ্রাধিকার দেয়ার মানেই হচ্ছে প্রবাসে আওয়ামী লীগের নামে সুবিধাবাদীদের আশ্রয় প্রশ্রয় প্রদান করা | বিশিষ্ট কোন মুক্তিযোদ্ধা ও ৭১ এর মুক্তিযোদ্ধা সংগঠকের নাম পরিচিতি পর্বে উল্লেখ না করার মানেই হচ্ছে মহান মুক্তিযুদ্ধকে অতি চতুরতার সাথে অপমান করা যা কিনা অমার্জনীয় অপরাধ, বিশেষ করে ৭১ এ মুক্তিযুদ্ধে স্বাধীন হওয়া রাষ্ট্র প্রধানের উপস্থিতিতেই |

/// মাহবুব আরিফ কিন্তু

বিভাগ: 

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

কিন্তু
কিন্তু এর ছবি
Offline
Last seen: 3 ঘন্টা 35 min ago
Joined: শুক্রবার, এপ্রিল 8, 2016 - 5:41অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর