নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 3 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • নুর নবী দুলাল
  • লিটমাইসোলজিক
  • কিন্তু

নতুন যাত্রী

  • আমজনতা আমজনতা
  • কুমকুম কুল
  • কথা নীল
  • নীল পত্র
  • দুর্জয় দাশ গুপ্ত
  • ফিরোজ মাহমুদ
  • মানিরুজ্জামান
  • সুবর্না ব্যানার্জী
  • রুম্মান তার্শফিক
  • মুফতি বিশ্বাস মন্ডল

আপনি এখানে

শিক্ষা কে সার্টিফেকেটে আবদ্ধ রাখতেই শাসকগোষ্ঠীর শিক্ষা বাজেটে বরাদ্দ কম


শিক্ষা হলো সভ্যতার রূপায়ন। একটি দেশ ও জাতির উন্নয়নের পূর্বশর্ত। শিক্ষা মানুষের অধিকার। ছয়টি মৌলিক অধিকার অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা ও কাজ; রাষ্ট্রের মূল লক্ষ্য থাকে এগুলো পূরণ করা। এই মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হলে তাকে মানবিক রাষ্ট্র বলা যায় না।আর একটা দেশের সরকার কাদের সার্থ রক্ষা করছে তা বোঝা যায় বাজেট এর খাত ওয়ারী বরাদ্দ দেখে।

একটি দেশের মানব সম্পদ সৃষ্টির প্রধান খাত শিক্ষা ও স্বাস্থ্য। এবার বাজেটে শিক্ষা ও প্রযুক্তি খাতে বরাদ্দ পেয়েছে জিডিপি'র মাত্র ২ দশমিক ৯ শতাংশ; যা চলতি বছর থেকে ০.২ শতাংশ বেশি। চলতি বছর ছিল ২ দশমিক ৭ শতাংশ ।

শিক্ষা খাত বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় খাতের মধ্যে অন্যতম। প্রায় ১৭ লাখ শিক্ষক-কর্মচারী; ২ লাখের মতো প্রাইমারি, মাধ্যমিক, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, মাদ্রাসা, ভোকেশনাল ও ডিপ্লোমা প্রতিষ্ঠান; ৪ কোটির মতো শিক্ষার্থী।আর বাজেটে এই খাতে ২৫ শতাংশ বরাদ্দের দাবী ছাত্র-শিক্ষক-অভিবাবক সকলের।

নতুন বাজেটে শিক্ষা ও প্রযুক্তি খাতে ৬৫ হাজার ৪৪৪ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে, যা বাজেটে মোট বরাদ্দের ১৬ দশমিক ৪০ শতাংশ।

চলতি অর্থবছরে (২০১৬-১৭) শিক্ষা ও প্রযুক্তি খাতে ৫২ হাজার ৯১৪ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছিল; যা ছিল মোট বরাদ্দের ১৫ দশমিক ৫৩ শতাংশ। তবে সংশোধিত বাজেটে তা কমিয়ে ৫০ হাজার ২৯২ কোটি টাকা করা হয়।

এবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুকূলে ২২ হাজার ২১ কোটি টাকা, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগকে ২৩ হাজার ১৪৭ কোটি টাকা, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগকে ৫ হাজার ২৭১ কোটি টাকা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়কে ১১ হাজার ৩৮ কোটি টাকা এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগকে ৩ হাজার ৯৭৪ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

২০১৬-১৭ অর্থবছরের বাজেটে শিক্ষা ও প্রযুক্তি খাতে সর্বোচ্চ ১৫ দশমিক ৫৩ শতাংশ বরাদ্দ রাখা হয়েছিল। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জন্য ২৬ হাজার ৮৪৮ কোটি, প্রাথমিক ও গণশিক্ষায় ২২ হাজার ১৬০ কোটি, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের জন্য ২ হাজার ৬৯ কোটি এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের জন্য ১ হাজার ৮৩৫ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল।

প্রস্তাবিত বাজেট বক্তৃতায় শিক্ষা বাজেট সম্পর্কে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, 'শিক্ষাকে দারিদ্র্য বিমোচন ও উন্নয়নের অন্যতম প্রধান কৌশল হিসেবে বিবেচনা করে এ খাতকে সরকার সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে আসছে। দিন বদলের সনদ ও রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নের লক্ষ্যকে সামনে রেখে প্রণীত জাতীয় শিক্ষানীতি আমরা ধাপে ধাপে বাস্তবায়ন করছি। আমরা প্রথমেই চেষ্টা করেছি শিক্ষার সুযোগ সম্প্রসারণে। পরবর্তী অগ্রাধিকার হচ্ছে প্রশিক্ষিত শিক্ষক গড়ে তোলা।'

এই অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত গত ৩০ মার্চ ঢাকার শেরেবাংলা নগরে এনএসি সম্মেলন কেন্দ্রে এনজিও প্রতিনিধিদের সাথে প্রাক-বাজেটে উচ্চ শিক্ষায় টিউশন ফি পাঁচ গুণ বৃদ্ধির কথা বলেছিলেন। অর্থমন্ত্রী বেশ জোড় দিয়েই বলেছিলেন, “উচ্চ শিক্ষায় অর্থাৎ সরকারি কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিক্যাল কলেজসহ স্নাতক পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি পাঁচ গুণ বৃদ্ধি করা হবে, দেখি কি হয়।” এমন কি শিক্ষার উপর ভ্যাট বসিয়েছিলেন।

বিগত সাত বছরের শিক্ষা বাজেটে গড় বরাদ্দ ছিল মোট বাজেটের ১৩.৭%। অন্যদিকে গত দুই দশকে জিডিপি’র মাত্র ২% শিক্ষা খাতে ব্যয় হয়েছে। অথচ ইউনেস্ক’র পরামর্শ অনুযায়ী শিক্ষা বাজেটে বরাদ্দ জাতীয় বাজেটের নূন্যতম ২৫ শতাংশ এবং মোট জিডিপি’র নূন্যতম ৬ শতাংশ হওয়া উচিত। উচ্চশিক্ষাখাতে অর্থায়নের বিষয়টি আরো অপর্যাপ্ত এবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা শিক্ষা মিলে ২৩ হাজার ১৪৭ কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে । বাংলাদেশ মঞ্জুরী কমিশনের তথ্য অনুযায়ী শিক্ষাখাতের সমগ্র ব্যয়ের মাত্র ১১% ব্যয় করা হয় উচ্চশিক্ষা অর্থাৎ বিশ্ববিদ্যালয় খাতে প্রতিবছর, যা জিডিপি’র মাত্র ০.১২%।উচ্চশিক্ষার আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো গবেষণা কার্যক্রম, শিক্ষার এই খাতে খুবই লজ্জাজনক। দেশে জিডিপি’র ধারাবাহিক প্রবৃদ্ধি সত্ত্বেও শিক্ষাখাতে রাষ্ট্রীয় ব্যয়ে ১৬১টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান প্রায় শেষের দিকে।

অন্যদিকে স্বাস্থ্য ও কৃষি খাতে বাজেট না বাড়লেও বেড়েছে প্রতিরক্ষা খাতে।প্রস্তাবিত এ বাজেটে কৃষি খাতে ৬ দশমিক ১ শতাংশ ও স্বাস্থ্য খাতে ৫ দশমিক ২ শতাংশ। প্রস্তাবিত বাজেটে (২০১৭-২০১৮) প্রতিরক্ষা খাতে দুই হাজার ৫৪৪ কোটি টাকা বরাদ্দ বেড়েছে।এবার এ খাতে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ২৫ হাজার ৭৫৬ কোটি টাকা যা মোট বাজেটের ৬ দশমিক ৪ শতাংশ । গত অর্থবছরে এ খাতে সংশোধিত বরাদ্দ ছিল ২৩ হাজার ২১২ কোটি টাকা।

শিক্ষা নিয়ে গর্ব দেশ শেখ হাসিনার বাংলাদেশ আর এই শেখ হাসিনার বাংলাদেশে উন্নয়নের ‘মহাসড়কে’ দেশকে আরও এগিয়ে নেওয়ার স্বপ্ন সামনে রেখে নতুন অর্থবছরে ৪ লাখ ২৬৬ কোটি টাকা ব্যয়ের যে ফর্দ অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত জাতীয় সংসদের সামনে উপস্থাপন করলেন তা শুধুমাত্র পুঁজিবাদী সমাজব্যবস্থার স্বার্থ রক্ষাকা্রীই নয় জনস্বার্থ বিরোধী।কারণ জনবহুল শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে পর্যাপ্ত বাজেট বরাদ্দ না করে উন্নয়নের ‘মহাসড়কে’ দেশকে এগিয়ে নেওয়া যায় না।
আল আমিন হোসেন মৃধা (লেখক ও রাজনৈতিক কর্মী)

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

আল আমিন হোসেন মৃধা
আল আমিন হোসেন মৃধা এর ছবি
Offline
Last seen: 1 দিন 14 ঘন্টা ago
Joined: রবিবার, এপ্রিল 2, 2017 - 11:30অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর