নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 5 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • মোগ্গালানা মাইকেল
  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • ড. লজিক্যাল বাঙালি
  • সুবর্ণ জলের মাছ
  • দীব্বেন্দু দীপ

নতুন যাত্রী

  • বিদ্রোহী মুসাফির
  • টি রহমান বর্ণিল
  • আজহরুল ইসলাম
  • রইসউদ্দিন গায়েন
  • উৎসব
  • সাদমান ফেরদৌস
  • বিপ্লব দাস
  • আফিজের রহমান
  • হুসাইন মাহমুদ
  • অচিন-পাখী

আপনি এখানে

রাকেশ রায়, একজন ধর্মানুভূতির গিনিপিগের পরিহাস ও যৌক্তিকতা



.
আব্দুল আজিজ নামের জঙ্গীহুগুর হিন্দুদের নিয়ে ফেসবুক কমেন্টে করা হুমকীটা কিছুদিন আগে প্রচুর হিন্দু স্ক্রীনশটটা শেয়ার করে, কিন্তু কেউ মামলা করতে সাহস পায়নি।
রাকেশ রায়ের অপরাধ হলো সে সাহস করে আব্দুল আজিজের বিরুদ্ধে মামলা ঠুকে দিয়েছে, যার ফলে আব্দুল আজিজকে জেলে যেতে হয়েছে। এই ঘটনার পর থেকেই রাকেশ রায়ের বিরুদ্ধে শত্রু বাড়তে থাকে, তিনি চিন্তায় থাকতেন তাকে ফাসাতে কেউ ফেক আইডি খুলে উলটাপালটা লিখে কিনা, তিনি বুঝতে পেরেছিলেন এরা তার কোন না কোন ক্ষতি করবেই, তাই বার বার সে ফেসবুকে আগাম সতর্কতা দিয়েছেন, এমন কি প্রধানমন্ত্রীর কাছেও সাহায্য চেয়ে লিখেছে। শেষ রক্ষা আর হলো না, আজ সকালে তাকে ধর্মীয় অন্যভূতিতে আঘাতের অভিযোগে গ্রেফতার করা হলো সাথে ৪ দিনের রিমান্ড।
.

.
খবরটা দেখে অবাক হয়েছি, আমি গত কয়েকদিন আগেও তার কথা শুনে তার ফেসবুক একাউন্টে ঘুরে এসেছি, তার সব লেখাগুলো পড়েছি, এমন হবে জানলে সেসব পোস্ট স্ক্রিনশট তুলে রাখতাম, একাউন্ট ডিএকটিভেট করে দেয়া হয়েছে, নয়তো সবাই দেখতে পারতেন, তবুও তার প্রোফাইলের ছবির একটা স্ক্রিনশট নিয়েছিলাম যা এখানে দিয়েছি।
.

.
তার বিরুদ্ধে অভিযোগের কোন কমতি নেই, প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকী, ইসলাম নিয়ে কটুক্তি, নবী রাসুল নিয়ে কটুক্তি, একেবারে ৫৭ ধারায় বুক বরাবর তিনটা গুলি করা হলো, একটা মিসহলে আরেকটা লাগবেই। ভেবে দেখুন রাকেশ রায় একজন কৃষকলীগের নেতা, মনে প্রাণে আওয়ামী সেনা, তার ছবিও মুজিবকোট পরা, যে কথায় কথায় শেখ হাসিনার উপর ভরসা রাখার কথা বলে, যার প্রতিটি লেখার শেষে সব সময় জয়বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু লিখে শেষ করে, সে দেবে শেখ হাসিনাকেই হত্যার হুমকী!! খালেদা জিয়াকেও নয়, এরশাদকেও নয়! এটা বেশি বাড়াবাড়ি রকমের হাস্যকর শোনায় না??
.

.
একটা প্রতিষ্ঠিত হিন্দু করবে নবী রাসুলকে নিয়ে কটুক্তি তাও কোন কারণ ছাড়া একথা কতটা বিশ্বাসযোগ্য? আসলে হিন্দুরা কি তা করতে পারে?
এদেশে পান থেকে চুন খসলেই হিন্দুর বাড়ি হামলা হয়, লুটপাট দখল হয়। সেখানে একজন হিন্দুই সাফারার, সে জানে কিছু বললে সবার আগে তার বাড়িটাই ভাঙ্গা হবে, আগুনে পোড়ানো হবে, সে কোন শক্তিতে এই ধরণের কথা বলবে যেখানে ভুক্তভোগীই হবে সে।
হ্যা যদি এমন কিছু কেউ বলে তবে হয়তো ফেক আইডি খুলেই এসব বলতো, নিজের বহুল পরিচিত আইডি থেকে বলে কোন পাগলে মুমিনদের খেপাবে বলতে পারেন?
.

.
আসুন হিসেব মিলাই,
১৯৪৬, নোয়াখালী দাঙ্গার সূত্রপাত করে গোলাম সরোয়ার, শিখ সম্প্রদায় দিয়ারা শরীফ আক্রমণ করেছে বলে গুজব ছড়িয়ে সে লোক জড়োকরে দাঙ্গা শুরু করে।
.
১৯৯০, বাবরী মসজিদ ভেঙে ফেলা হয়েছে এই গুজবে বিশাল দাঙ্গার সূত্রপাত করে হু মু এরশাদের উস্কানিতে, বাবরী মসজিদ ভাঙা হলো ১৯৯২ তে।
.
২০১২, কক্সবাজারের রামুতে বৌদ্ধ মন্দির ধ্বংস করার প্রয়োজনে ব্যাবহার করা হলো উত্তম বড়ুয়ার ফেসবুককে, ছবি পোস্ট করে কটুক্তি ধর্ম অবমাননার অভিযোগ এনে ১২ টি বৌদ্ধ বিহার ও মন্দির এবং বৌদ্ধদের চল্লিশটি বাড়িতে আগুন দেয়া ও লুটপাট করা হয়েলো।
.

.
২০১৬, নাসিরনগরের হিন্দু বসতি দখলের উদ্দেশ্যে একদম একই কাজের কপি করা হলো, জেলে রসরাজের নামে ফেসবুকে ছবি পোস্ট করলো জাহাঙ্গীর। ফলাফল ৩০০ হিন্দু পরিবারের ঘর, ১৫ মন্দির ধ্বংস ও লুট্পাট। রসরাজের অকারণ জেল হলেও ফাসির দাবী হলেও, সারাদেশ ক্ষোভে ফেটে পড়লেও জাহাঙ্গীর শোনার পর ফাসির দাবী শোনা যায়নি।
.

.
রোহিঙ্গা ঘটনার পর চাকমাদের উচ্ছেদ করতে সাগর হোসেন ইন্দোনেশিয়ার একটি ছবি "আঁধারে দ্বীনের আলো" নামের একটি পেজে একটি ছবি পোস্ট করে যাতে লেখা "পার্বত্য জেলা রাঙ্গামাটি পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সেক্রেটারি সন্ত্রাসী কুনেন্টু চাকমা পবিত্র কোরআন শরীফে পা দিয়ে ছবি উঠিয়ে ফেসবুকে দিয়েছে"। এই ঘটনায় সাপ্রদায়িক বিদ্বেষ ছড়ানোর আগেই সাগরকে গেফতার করা হয় ও ছবিটি সরিয়ে নেওয়া হয়েছিলো।
.
২০১৭, কুমিল্লার দাউদকান্দিতে মক্তবের পাশে হিন্দু এলাকা হামলার উদ্দেশ্য হাবিবুর রহমান ১৬ টি কিতাবে মল লেপন করেছে। হাবিবুরের ফাসির দাবি আর হয়নি।
.
ক'দিন আগে শ্যামল কান্তি স্যারকে কটুক্তির অভিযোগে ফাসানো হয়েছিলো, ধোপে টিকবে না ভেবে সাথে ঘুষের মামলাও দিলেন মোর্শেদা বেগম।
.

.
আজ আব্দুল আজিজের নামে কেস করায় রাকেশ রায়কেও ফাসতে হলো, এদেশে কোন হিন্দু কখনোই কোন অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে পারবেনা, কে করবে? যেই আজ প্রতিবাদ করবে তাকেই কাল নবী রাসুলের অবমাননার অভিযোগ এনে ফাঁসানো হবে।
এটা এমনই এক হাতিয়ার, যে হাতিয়ারে সকল প্রতিবাদীকে কাবু করা সহজ।
.
হে হিন্দু ভাইয়েরা,
আপনারা তোষামোদ করুন, তেল ঢেলে ভাসিয়ে দিন, হাওয়ায় ফুলিয়ে দিন, আপনার ঘর পুড়ুক, মন্দির ভাঙুক, ধর্ম নিয়ে কটুক্তি করে ভাসিয়ে দিক, তবুও প্রতিবাদ করতে যাবেন না। যেই প্রতিবাদ করবেন, তাকেই ঠুকে দেওয়া হবে ধর্মানুভূতিতে আঘাত আর কটুক্তির অভিযোগ, এই অভিযোগ ক্যান্সারের মত, আপনি পালাবেন কোথায়??
.
.
.
.
.
হৃদয় মজুমদার,
মহারাজাপুর, ঢাকা।।

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

হৃদয় মজুমদার
হৃদয় মজুমদার এর ছবি
Offline
Last seen: 4 দিন 21 ঘন্টা ago
Joined: বুধবার, নভেম্বর 23, 2016 - 5:13অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর