নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 16 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • পৃথু স্যন্যাল
  • বিজয়
  • রাজিব আহমেদ
  • নীল কষ্ট
  • জেন রসি
  • নুর নবী দুলাল
  • সার্জিন শরীফ
  • মূর্খ চাষা
  • তায়্যিব
  • সৈয়দ মাহী আহমদ

নতুন যাত্রী

  • গোলাম মাহিন দীপ
  • দ্য কানাবাবু
  • মাসুদ রুমেল
  • জুবায়ের-আল-মাহমুদ
  • আনফরম লরেন্স
  • একটা মানুষ
  • সবুজ শেখ
  • রাজদীপ চক্রবর্তী
  • নাজমুল-শ্রাবণ
  • চিন্ময় ভট্টাচার্য

আপনি এখানে

প্রবাসের অখ্যাত গল্প-৫


উত্তর মেরুর দেশ সুইডেনের গ্রীষ্মকালটা যদি প্রকৃতি সহায় থাকে তবে টেনেটুনে তা মাস তিনেক, দিনের বেশিরভাগ সময়টাই থাকে আলোকোজ্জ্বল মনে হয় সূর্যটাকে কেউ যেন দড়ি দিয়ে মধ্য আকাশে বেধে রেখেছে, আলোর যন্ত্রণায় রাতে ঘুমাতে খুবই অসুবিধা হয় |

এই সময়টায় এখানকার মানুষ যেন ফুলের নতুন কুড়ির মত জেগে ওঠে, গাছে গাছে নতুন পাতা আর ফুল ফোটে সমগ্র দেশটা যেন কচি সবুজ রঙে ছেয়ে যায় সেই সাথে মানুষগুলো তাদের ভালোবাসা আনন্দ প্রেম সব কিছুই উজাড় করে একে অপরের সাথে বিলিয়ে দিতে থাকে, পুরো দেশটাই যেন ভালোবাসার সাগরে ভাসে বেড়ায়, পথে ঘাটে পার্কে বেঞ্চে তরুণ তরুণীরা একে অপরের সাথে যেন লেপ্টে থাকে, যা দেখে প্রথম দিকে খুবই ধাক্কা খেতাম একবার এক বান্ধবীকে খুব ভাল লেগে গেল, চিত্তে তখন তারুণ্যের উচ্ছলতা উপচে পরছে আর তা প্রকাশ করতে গিয়েই যত বিপত্তি, কিছুতেই মুখ ফুটে বান্ধবীকে বলতে পারছি না যে তাকে আমার কতটুকু ভাল লেগেছে, ইচ্ছে হচ্ছে একটা ট্রাকের উপর দাড়িয়ে মাইক লাগিয়ে পল্টনের জনসভার মত ভাষণের সুরে চীৎকার করে তাকে এই ভাল লাগার কথাটা জানাবো কিন্তু বুকে সেই সাহসটা জোগাড় করতে পারছিনা |

আজ যদি আমার বুকে সেই সাহস থাকতো তবে আমার ইউরোপীয় হতে বিন্দুমাত্র দেরী হতো না | শত হলেও আমি বাঙালী আমাদের স্বভাবটাই হচ্ছে প্রেম করতে হয় লুকিয়ে, মনের ভাষা প্রকাশ করতে হয় চিঠিতে তাও আবার সেটা প্রকাশ করতে বেশ বেগ পেতে হয় কারণ চিঠি লিখতে গেলেই সাহিত্যিক কোন বন্ধুর হাত পা ধরে একটা প্রেমের চিঠি লিখিয়ে নিয়ে সেটাকে অন্তত তিনজন সাহিত্যিক বন্ধুদের দিয়ে এডিট করিয়ে তবেই চিঠিটা প্রেমিকার কাছে পৌছাতে হয়, চিঠি পৌঁছানোটাও আবার আরেক ঝক্কির বিষয়, বান্ধবীর ছোট কোন ভাই বোন না থাকলে ডাক পিওন খুঁজতে মাঠে নামতে হয় | এতসব ঝামেলা পোহাতে পোহাতে, মানে প্রেমের চিঠি প্রেমিকার হাতে পৌঁছাবার আগেই প্রেমিকার বিয়ে ঠিক হয়ে যায়, পাত্র প্রেমিকার বাবার বড়লোক বন্ধুর বড় ছেলে | এ রকম ঘটনা যে আমার জীবনে ঘটেনি তা বলছিনা, যাই হোক সুইডেনে এসে একজন স্বর্ণকেশী বান্ধবীর পাশে বসে গল্প গুজব করতে পারছি আড্ডাও দেয়া হচ্ছে শুধু মাত্র মনের কোনে জমে থাকা ঐ ভালোলাগা বিষয়টাই তাকে জানাতে পারছি না, খুব চেষ্টা করে একদিন বান্ধবীকে বললাম চলো আগামীকাল একটা সিনেমা দেখতে যাই, যেমন কথা তেমন কাজ বান্ধবী সানন্দে রাজী হয়ে গেল, আমিও মনে মেনে স্থির করে নিলাম আজ দেশীয় কায়দায় সিনেমা হলের অন্ধকারে বান্ধবীর হাতটা হাতের উপর নিয়ে সুপ্ত বাসনাটা তাকে জানিয়ে দেবো, পরদিন আমার মনে আনন্দের ফোয়ারা বয়ে গেল, রাতে ভালো ঘুম যদিও হয়নি তবুও শরীরে যেন ক্লান্তি নেই, বুকের ভেতরে শুধুই একটি আশা, আমি সেই স্বর্ণকেশী বান্ধবীকে আমার মনের কথা জানাবো, কথা ছিল আমরা বিকেল চারটা তিরিশ মিনিটে স্টকহোল্ম শহরে ভসা সিনেমা হলে দেখা করবো আমি আগে থেকেই টিকেট কিনে রাখবো কথা দিয়েছিলাম, কিন্তু বান্ধবী রাজী হয়নি কারণ এদেশে হিজ হিজ হুজ হুজ মানে যার যার খরচ তার তার, প্রেমিক প্রেমিকার খাবারের বিল দিয়ে দেবে নিয়মটা এইসব দেশে চালু নেই | আমি বিকেল তিনটা তিরিশে এসেই সিনেমা হলের আসে পাশে ঘুরাঘুরি করছি, মনের মাঝে যে কি খুশীর বন্যা যাচ্ছে তা বলেও বোঝাতে পারছিনা, মনের মাঝে সেই চির চেনা গানের সুরটা বার বার বেজে উঠছে “তারা দেখেও দেখেনা তারা শুনেও শুনেনা ..তারা দেখিতে না পায়... আহা আজই এ বসন্তে কত ফুল ফোটে... কত পাখী গায়....” | সময় যেন ফুরাতে চায়না ঘড়ির কাটা যেন আজ আমার সাথে বিদ্রোহ ঘোষণা করেছে, দূর থকে দেখতে পেলাম বান্ধবী সাথে অন্য একজন মেয়েকে সাথে নিয়ে সিনেমা হালের দিকে এগিয়ে আসছে, আমাকে দেখতে পেয়ে একটা হাই দিয়ে একটু সোহাগ করে জড়িয়ে ধরে অভিনন্দন বিনিময়ে করলো, এবার সাথে থাকা মেয়েটিকে পরিচয় করিয়ে দেবার পালা, খুব আনন্দ চিত্তে সাথের মেয়েটিকে তার পার্টনার মানে জীবন সঙ্গিনীকে আমার সাথে পরিচয় করে দিতেই আমার অন্তরের ভেতরে এক ঝড় বয়ে গেল, চোখে মুখে একটু অন্ধকার দেখতে পাচ্ছি, মনে হচ্ছে পৃথিবীটা একটু ঘুরছে | আমার সব স্বপ্ন নিমিষেই এক দমকা বাতাসে ভেঙ্গে চৌচির হয়ে গেল | আমি যা স্বপ্নেও কল্পনা করতে পারিনি এই মুহূর্তে ঠিক তাই শুনলাম মানে, সাথের মেয়েটি তার সঙ্গিনী আর তারা একসাথেই লিভিং টু-গেদার করছে আজ দু’বছর, সামনের গ্রীষ্মে তারা বিয়ে করতে যাচ্ছে, ঠিক করেছে | এরকম একটা সংবাদ একটা বাঙালী ছেলের জন্যে কতটা দুর্যোগপূর্ণ কতটা মর্মান্তিক তা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না, আমার মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়লো, সিনেমা হালের ভেতরে ঢুকে নিজেকে যতই সামাল দেবার কথা চিন্তা করছি ততই যেন ভেঙ্গে পরছি, আমি আর আমার সেই মেয়ে বান্ধবী পাশাপাশি বসে সিনেমা দেখছি, কিছুক্ষণ পর বান্ধবী প্রশ্ন করলো - “ হওয়াই ইউ আরে সো কোয়াইট”, আমি খুবই মেকী একটা হাসি দিয়ে দিয়ে উত্তর দিলাম – ওহ নো নট এট অল, জাস্ট এন্জয়িং দা মুভি, আমি কোনদিনই তাকে আর বলতে পারবো না তাকে আমার কতটা ভালো লেগেছিল | মনে মনে ভাবছি আসলে আমার ইউরোপে আসাটাই ভুল হয়েছে, যা আমি কোনদিন স্বপ্নেও কল্পনা করিনি বা প্রস্তুত ছিলাম না আজ তা শুনতে পেলাম যে একজন মেয়ে অপর একজন মেয়ে কে বিয়ে করবে স্থির করেছে | নিজেকে খুবই অসহায় লাগছে, অজ পাড়া গায়ের এক বাঙালী ছেলে ইউরোপে এসে ইউরোপীয় সাজার বৃথাই চেষ্টা করে যাচ্ছি | ভাবছি কেনই বা আমি কাক হয়ে ময়ূরের পুচ্ছ লাগিয়ে আকাশে ওড়ার বৃথা চেষ্টা করছি | আসলে বাস্তবতা থেকে আমি যে কতটা দুরে তা বোঝার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছিলাম কারণ দুঃখ পেয়ে বা দুঃখকে সাথী করে মনের এই চাপানো কষ্টকে পুষে রেখে কি লাভ, মানুষের মাঝে সম অধিকার, ভালোবাসার সম অধিকার, একটি মেয়ে আর একটি মেয়েকে বা একটি ছেলে অপর একটি ছেলেকে ভালোবাসার সম অধিকার বিষয়টি বুঝতে আমার অনেকদিন লেগে গেছে | সুইডেনের গ্রীষ্ম কলটাও কিছুদিন পর শেষ হয়ে যাবে দিনের বেশীর ভাগ সময়টা অন্ধকারে ছেয়ে যাবে, সূর্যটাও বেশিক্ষণ আলো দেবে না, মনের ভেতরে সেই হাহাকার ভাবটা আমার থেকেই গেল |

সেবার খুব ইচ্ছে থাকা সত্যেও আমার এক বন্ধুর আসন্ন বিয়ের অনুষ্ঠানে দাওয়াত পাওয়ার পরও ইব্রাহিম সাহেবকে সাথে করে নিয়ে যাওয়া হয়ে ওঠেনি, কারণ বন্ধুটি কোন একজন মেয়েকে বিয়ে করছেনা, বিয়ে করছে একজন ছেলেকে, মানে সোজা কথায় যাকে বলে, বন্ধু-যুগল সমকামী, আর সেই বিয়ে বাড়ীতে ইব্রাহিম সাহেবকে সাথে করে নিয়ে যাওয়া মানেই নেহায়েত কোন দুর্ঘটনা ঘটে যাওয়া, এত বড় মানসিক ধকল উনি হয়তো সইতে পারবেন না |
ধর্মপ্রাণ মোহাম্মদ ইব্রাহিম সাহেব কিছুদিন আগেই সস্ত্রীক সরকারী শিক্ষা সফরে সুইডেন এসেছেন, থাকবেনও বেশ কিছুদিন | দিনকাল বেশ ভালই কেটে যাচ্ছে ইব্রাহিম সাহেবের এই সুন্দর দেশ, সুন্দর মানুষজন দেখে সময় বেশ ভালই কেটে যাছে কিন্তু মনের মাঝে নানান প্রশ্নের উদয় হচ্ছে, এর আদ্যোপান্ত তিনি কিছুই বুঝে উঠতে পারছেন না | লক্ষ্য করলাম গ্রীষ্ম কালে সূর্যের প্রখরতা বাড়ার সাথে সাথে তিনার দোয়া দরুদের গতিও বেড়ে চলে , পার্কে বেড়াতে গেলে সূর্যস্নান রত রমণীদের দেখলেই তিনি বেশ জোরে জোরেই দোয়া দরুদ পড়া শুরু করে দেন, এইসব কাণ্ড কারখানা দেখে আমি বেশ বিপাকেই পরে যাই | মোহাম্মদ ইব্রাহিম সাহেব সমুদ্র পাড়ে যাবার খুব প্রবল ইচ্ছা প্রকাশ করেন, একদিন উনার পিড়াপিড়িতে বাধ্য হয়ে উনাকে সমুদ্র পাড়ে বেড়াতে নিয়ে যাই, তিনিও গো ধরলেন গোসল করবেন, বিচে পৌঁছেই উনার চোখের ছানা বড় হয়ে গেলো, অর্ধ নগ্ন ছেলে মেয়েদের ভীরে মোহাম্মদ ইব্রাহিম সাহেবকে গোসল করতে নামতে হবে এটা শুনেই মোহাম্মদ ইব্রাহিম সাহেবের গায়ে জ্বর এসে গেল, উনি হয়তো ভেবেছিলেন ছেলের একটা পেন্ট হলেই চলে কিন্তু মেয়েদের অন্তত বক্ষ বন্ধনী থাকবে কিন্তু এখানে এসে বক্ষ বন্ধনী হীন নারীদের সমুদ্র সৈকতে দেখবেন ঠিক এতটা আশা করেননি, আমাকে কানে কানে খুব আস্তে আস্তে বললেন আমি যেন সমুদ্র পাড়ে গোসলের কথাটা তিনার সহধর্মিণীর কাছে চেপে যাই | আমি মোহাম্মদ ইব্রাহিম সাহেবকে বললাম চলেন আমার বরং কোন সুইমিংপুলে চলে যাই, সুইমিংপুলে গিয়ে মোহাম্মদ ইব্রাহিম সাহেবের হার্টফেল হবার দশা, গোসলের আগে সব্বাইকে গোসল করে শরীরকে পরিষ্কার করে সাতার কাটার নিয়ম তাই গোসল করার সময় সব্বাইকে সম্পূর্ণরূপে উলঙ্গ হয়েই গোসল করতে হয়, বিষয়টা এখানকার প্রথা অনুযায়ী খুবই স্বাভাবিক | সেইদিন সুইমিংপুলে আমার সাতার কাটার ইচ্ছে নাই বিধায় মোহাম্মদ ইব্রাহিম সাহেবকে সুইমিংপুলে ঢুকিয়ে দিয়ে আমি বাইরে অপেক্ষারত, হঠাৎ দেখি মোহাম্মদ ইব্রাহিম সাহেব হন্ত দন্ত ভাবে দৌড়াতে দৌড়াতে বাইরে চলে এসে বেশ হাঁপাচ্ছেন আর দোয়া দরুদ পড়ছেন , আমি কারণ জিজ্ঞাস করতেই তিনি বেশ করুণ সুরে বলে উঠলেন -"ভেতরের অবস্থা খুবই খারাপ, লোকজন সব পাগল হয়ে গেছে, সব্বাই একই সাথে উলঙ্গ হয়ে গোসল করছে " | আমি অনেক চেষ্টা করেও উনাকে বোঝাতে পারছিনা যে এরা কেউই পাগল হয়ে যায়নি, এখানে সবাই সুইমিংপুলে গোসল করতে গেলে নিজেদের ঘর্মাক্ত শরীরকে পরিচ্ছন্ন করে নিতে যে যার মত একই সাথে উলঙ্গ হয়ে গোসল করাটা একটা স্বাভাবিক নিয়ম, কেউ কারো দিকে তাকিয়ে থাকেনা | যাই হোক এখন আর ভাববার সময় কম তাই আমি নিজেও মোহাম্মদ ইব্রাহিম সাহেবের সাথে সুইমিংপুলে ঢুকে পরলাম, ইব্রাহিম সাহেব বিড়বিড় করে দোয়া দরুদ পড়েই যাচ্ছেন | গোসলের পর sauna (বাষ্পস্নান) মানে স্টিম বাথ করা এখানকার একটি প্রথা আর সেখানে ছেলে, মেয়ে, বৃদ্ধ, বৃদ্ধা, যুবক, যুবতী সবাই এক সাথেই স্টিম বাথ করে থাকে যদি ছেলে মায়েদের আলাদা কোন জায়গা না থাকে, তবে একই সাথে স্টিম বাথ করতে কোনই অসুবিধা হয় না, কারণ কেউ কারুর দিকে যৌনতার দৃষ্টি নিয়ে তাকিয়ে থাকে না |

ইব্রাহিম সাহেব তো এখানকার মেয়েদের প্রায় পতিতাদের সাথেই তুলনা করে ফেললেন, সেক্স ফ্রি দেশে নিয়ে একটা লম্বা বক্তৃতাও ঝেড়ে দিলেন , আমি অনেক চেষ্টা করেও ইব্রাহিম সাহেবকে বোঝাতে পারিনি যে ফ্রি সেক্স দেশ (free sex country) মানেই এদেশে সবাই পকেটে কনডম নিয়ে ঘোরাঘুরি করে না কিম্বা মেয়েরা প্রবাসী ছেলেদের অপেক্ষায় ছাতা নিয়ে এয়ার পোর্ট এ দাড়িয়ে থাকেনা, বিষয়টির উপর আপনার ধারনাটা খুবই ভুল, পতিতাবৃত্তি এ দেশে সম্পূর্ণ ভাবেই নিষিদ্ধ, অপ্রাপ্ত বয়স্কদের সাথে যৌন আচরণ কঠিন তম অপরাধ, ধর্ষণকারীদের এদেশে কঠিন সাজা দেয়া হয়, মুক্ত যৌন আচরণ মানেই সবাই এদেশে উলঙ্গ হয়ে ঘোরাঘুরি করেনা, একজন মেয়ে তার মেয়ে সাথীকে নিয়ে রাস্তায় গা ঘেঁষে হেটে যাওয়ার সময় কেউ তাদের দিকে হা করে তাকিয়ে থাকার প্রয়োজন বোধ করেনা, কারুর ব্যক্তি স্বাধীনতাকে খর্ব করা ঘোরতর অপরাধ | এদেশে জাত, ধর্ম, গোত্র ও বর্ণ বিভেদে কাউকে অপদস্থ করার কোনই সুযোগ নাই |

গোসল এর পর মোহাম্মদ ইব্রাহিম সাহেবকে জিজ্ঞাস করলাম একটু স্টিম বাথ করে নিলে কেমন হয় তিনিও সম্মতি প্রকাশ করলেন, যেই না স্টিম বাথ করার জন্যে ছোট্ট ঘরটাতে প্রবেশ করলাম বুঝতে পারলাম মোহাম্মদ ইব্রাহিম সাহেব খুব জোরে জোরে কাঁপছেন বিড়বিড় করে কি সব দ্রুত পড়ে যাচ্ছেন , তিনি আমার দিকে অসহায়ের মতো তাকিয়ে থেকে আস্তে আস্তে আমার ঘাড়ে মাথা রেখে অনেকটা অচৈতন্য অবস্থায় ঢোলে পরলেন, আমার কয়েকজন ধরা ধরি করে উনাকে একটা টেবিলের উপর শুইয়ে দিয়ে মাথায় পানি ঢালতে থাকলাম | কিছুক্ষণ পর মোহাম্মদ ইব্রাহিম সাহেব চোখ খুলে আমার দিকে ফেলে ফেল করে তাকিয়ে রইলেন , আমি জিজ্ঞাস করলাম মোহাম্মদ ইব্রাহিম সাহেব এখন কেমন বোধ হচ্ছে ? তিনি আমাকে প্রথম প্রশ্ন করলেন "মাগরিবের টাইম কি হয়ে গেছে" !
--- মাহবুব আরিফ কিন্তু

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

কিন্তু
কিন্তু এর ছবি
Offline
Last seen: 1 দিন 8 ঘন্টা ago
Joined: শুক্রবার, এপ্রিল 8, 2016 - 5:41অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর