নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 17 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • বিজয়
  • রাজিব আহমেদ
  • পৃথু স্যন্যাল
  • নীল কষ্ট
  • জেন রসি
  • নুর নবী দুলাল
  • সার্জিন শরীফ
  • মূর্খ চাষা
  • তায়্যিব
  • সৈয়দ মাহী আহমদ

নতুন যাত্রী

  • গোলাম মাহিন দীপ
  • দ্য কানাবাবু
  • মাসুদ রুমেল
  • জুবায়ের-আল-মাহমুদ
  • আনফরম লরেন্স
  • একটা মানুষ
  • সবুজ শেখ
  • রাজদীপ চক্রবর্তী
  • নাজমুল-শ্রাবণ
  • চিন্ময় ভট্টাচার্য

আপনি এখানে

প্রবাসের অখ্যাত গল্প-৪


সুইডেনে আমার গতবারের সাথে এবারের অভিজ্ঞতার বিস্তর দূরত্ব | ইউরোপে চলে আসার পর মনের মাঝে যে স্বপ্নটা ছিল “আমাকে ইউরোপীয় হতেই হবে” সেটা থেকে আমি বিন্দু মাত্র সরে আসিনি, ইতিমধ্যে নিজেকে আধুনিকতার সাজে বাস্তবায়নের জন্যে আমার সকল প্রচেষ্টা সঠিক ভাবেই এগিয়ে চলছে |

চুলের বাহার পরিবর্তন করে যাকে বলে একেবারেই মাথার এক পাশ চেঁছে অন্য পাশে চুলের রঙটাই অর্ধেক সাদা বানিয়ে ফেলেছি, বান্ধবী জিন্সের একজোড়া প্যান্টে বেশ কিছু তালি লাগিয়ে দিল যা কিনা সময়ের সাথে খুবই আধুনিক, ছোটবেলা বাবা’র মুখে শুনেছি when you are in greece be a greek কথাটার মহত্ত্ব আগে বুঝতে না পারলেও এখন এর গুরুত্ব বুঝতে মোটেই অসুবিধা হচ্ছেনা | নিয়মিত ডিস্কতে যাওয়া আসা হচ্ছে, সুইডিশ ছেলেমেয়েদের সাথে ইংরেজি বলতে মোটেই বেগ পেতে হচ্ছে না বরং এ দেশের ছেলে মেয়েদের ইংরেজি ভাষার উপর কিছুটা দুর্বলতাও আছে বৈকি | সচ্ছল আর সাংস্কৃতিক পরিবারে জন্ম তাই গান বাজনা, সাহিত্য, ইংরেজি গান ও আধুনিক সমাজে বিচরণ সেই ছোটবেলা থেকেই | বাসায় সব সময় reader's digest , TIMES ম্যাগাজিন, National Geographic পত্রিকাগুলো নিয়মিতই রাখা হতো, যাকে বলে আধুনিক হবার যাবতীয় উপকরণ বলতে যা বোঝায় সেই পরিবেশটা হাতের নাগালেই ছিল | প্রবাসে এসেই আমাকে হুট হাট করে আধুনিক সাজতে হয়নি, পরিবেশের সাথে বেশ মানিয়ে নিয়েছি | মাঝে মাঝেই দেশ থেকে মা বাবার কাছ থেকে টাকা পয়সা পাই বটে তবে প্রবাসে এই আধুনিক সৌখিনতা সামাল দিতে গিয়ে অর্থকষ্ট কিছুটা হচ্ছে বটে, কোন রকমে সামাল দিয়ে চলেছি , বান্ধবী থাকাতে অর্থকষ্টটা কিছুটা লাঘব হয়েছে | বন্ধু বান্ধব জোগাড় হয়েছে প্রচুর, তবে নিজেকে যতটাই আধুনিক ভাবি না কেন মানসিকতা ও দৃষ্টি ভঙ্গির পরিবর্তন করতে না পারলে ইউরোপে এসেও শত চেষ্টা করেও ইউরোপীয় হওয়া যায় না, অপর দিকে আমি একজন বাঙালী তাই নিজের কৃষ্টি, সংস্কৃতি আর ভাষাকে অন্তরের গহীন থেকে কেউই বিসর্জন দিতে পারেনা, রাতের বেলা বাসায় ফেরার পথে এই সুন্দর শহরের রাস্তার মাঝখান দিয়ে হেটে যাবার সময় গাইতে ইচ্ছে করে রবি ঠাকুরের একটি গান “ আমি কেবলই স্বপনও করেছি বপনও, বাতাসে আমি ই..ই , তাই আকাশও কুসমও করিনু চয়নও হতাশে আমি কেবলই স্বপনও করেছি বপনও.....” | এতো কিছুর মাঝেও দেশের টানে অন্তরের অন্তঃস্থলে গভীর শূন্যতা অনুভব করি, মনে হয় এ জীবনটা খুবই একাকীত্বের, আবার মনের ভেতরে শক্তির সঞ্চয় হয় সেই রবি ঠাকুরের গানেই “ জয় করে তবু ভয় কেন তোর হায়, হায় ভীরু প্রেম, জয় করে তোর ভয় ........আশার আলোয় তবু ভরসা পাইনা , হায় ভীরু প্রেম ... “ |
আস্তে আস্তে বুঝতে পারছি ভৌগোলিক কারণে মানুষে মানুষে অনুভূতিতে কোনই পার্থক্য নেই, দুঃখটা দেখতে সবার হৃদয়ে একি রকম, সুখের চরম আনন্দে সবার চোখেই জল আসে, পার্থক্য শুধু দৃষ্টি ভঙ্গির আর সেটা বুঝতে পেরেই মেয়েদের সাথে বেল্লেপনাটা দেখতে সব সমাজেই দৃষ্টিকটু, ব্যক্তিত্ব বান মানুষের সমাদর সব দেশে সব সমাজে একি রকম | ইউরোপে আধুনিক হয়েছি বটে ব্যক্তিত্বকে বিসর্জন দিয়ে নয় | আজ সহজে বুঝতে পারি নগ্নতা ও সেক্সকে ভিন্ন দৃষ্টি ভঙ্গি নিয়ে দেখতে হয়, এই আধুনিক সমাজে নগ্নতা মানেই অশ্লীলতা নয়, একজন সুদর্শন পুরুষের বা মহিলার নগ্নতাও প্রকৃতির সুন্দর সৃষ্টি একে ভিন্ন দৃষ্টি নিয়ে দেখতে হয়, সুন্দর সৃষ্টিকে সুন্দর দৃষ্টি নিয়ে দেখার মানসিকতা তৈরি করতে হয় যে শিক্ষাটা আমার সমাজ আমার পরিবেশ আমাকে দিতে পারেনি, সে ক্ষেত্রে আমি সত্যি দুর্ভাগা, তাই ধর্ষণ, শিশু ধর্ষণ, স্কুলের শিক্ষক দ্বারা ছাত্র ছাত্রী ধর্ষণ বিষয়গুলোর সাথে এরা কত অপরিচিত, সুইডিশরা যখন শোনে বাংলাদেশের কোন এক শহরে আট বছরের শিশু ধর্ষিতা হবার পর বিচার না পেয়ে বাবা ও শিশু লজ্জায় চলন্ত ট্রেনের সামনে ঝাপ দেয়, অবাক হয়ে প্রশ্ন ছুড়ে দেয়, “তোমাদের সমাজ কি কারণে মধ্য যুগীয় বর্বরতা থেকে বেড়িয়ে আসতে পারেনি “ ! আমি লজ্জিত হই, অপমানে আমার মাথা হেট হয়ে আসে | দিনের আলো রাত এগারোটা বাজলেও শেষ হতে চায়না, সূর্যটা ফেল ফেল করে তাকিয়ে থাকে, সুইডেনের গ্রীষ্ম কালটা আসে খুবই অল্প সময়ের জন্যে তাই সুইডিশরা এই সময়টাকে ও প্রকৃতিকে অন্তর থেকে উপভোগ করে, প্রকৃতির অপরূপ সৌন্দর্য্যকে আর সূর্যের তাপে শরীরে তামাটে রং ধারণ করাটা সুইডিশদের চির-চারিত স্বভাব | প্রবাসে বাঙালী পরিবেশে চলা ফেরা একদম যে নাই তা বলবো না, দু একজনের সাথে যোগাযোগ আছে বৈকি, বাংলাদেশ থেকে সদ্য আগত আমারই সম বয়সী একজন ছাত্রের সাথে পরিচয় হয়, ছুটির দিন সকালের দিকে তিনি ফোন করে আমার সাথে দেখা করার আহ্লাদ প্রকাশ করলেন, আমি আর বান্ধবী দুজনে মিলে স্টকহোল্ম শহরের অদূরে একটি মুক্ত সমুদ্র সৈকতে যাবার প্রস্তুতি নিচ্ছি মাত্র, এখানে মুক্ত সৈকত বলতে যেটা বোঝায় সেটা হচ্ছে সম্পূর্ণ নগ্ন হয়ে যে সৈকতে সূর্য স্নান করা যায় এমন একটি জায়গা | বাসায় আমাদের যাবার প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন এমন সময় বাংলাদেশ থেকে সদ্য আগত ছাত্র সুমন চলে আসতেই আমারা সবাই একত্রে সৈকত অভিমুখে রওনা দিলাম, ভদ্রলোক সাথে করে আমাদের জন্যে টাঙ্গাইলের সন্দেশ নিয়ে এসেছেন, এতদিন পর এই প্রবাসে টাঙ্গাইলের সন্দেশ হাতে পাওয়া মানে পুরো বাংলাদেশটাই আমার অন্তরের ভেতরে চলে এলো, অন্তর থকেই সুমনকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করলাম | ট্রেনে যেতে যেতে আমার বান্ধবী সুমনকে বাংলাদেশ সম্পর্কে নানান প্রশ্নে ব্যস্ত রাখছে, বান্ধবীকে জিজ্ঞাস করলাম আসার সময় ফ্রিজ থেকে ঠাণ্ডা বিয়ার গুলো সাথে নিতে ভুলে যায়নি তো আবার ? কারণ সমুদ্র সৈকতে সূর্যের তাপ যখন প্রখর ঠাণ্ডা বিয়ারের স্বাদটাই আলাদা, আমাদের মাঝে কথোপকথন সুমনের কারণে ইংরেজিতেই হচ্ছিলো পাছে সুমন আবার নিজেকে অনাহুত না ভেবে বসে তাই | লক্ষ্য করলাম, বান্ধবীকে বিয়ারের বিষয়ে প্রশ্নটা করতেই সুমনের মুখটা কেমন যেন দুঃচিন্তার কালো মেঘে ঢেকে গেল | নিজেকে খুবই অপরাধী মনে হলো, ট্রেনটা প্রায় মাঝ পথে চলে এসে এসেছে হঠাৎ সুমন প্রশ্ন করে বসলো আছরের নামাজের সময়ে হয়ে গেছে কিনা, আমি প্রচণ্ড একটা ধাক্কা খেলাম, মথার উপর আকাশ ভেঙ্গে পড়লো, মনে হচ্ছে এ আমি কি করেছি, আমি সুমনকে নিয়ে কোথায় চলেছি, কেন চলেছি, এরপর পরিস্থিতি কি হবে, এসব নানা চিন্তায় আমি প্রায় দিশে হারা | ট্রেনটা সালসেবোডেন স্টেশনে এসে থেমে গেল এখান থেকে হেটে কিছুদূর মুক্ত সমুদ্র সৈকত, এই অল্প সময়ে সুমনকে আমি কি করে বোঝাই সূর্য স্নান কি, নগ্নতা কি, সুইডিশরা এই গ্রীষ্মের প্রখর সূর্যের তাপে কেন সূর্য স্নান করে, আমার মাথায় কিছুই ঢুকছে না | ইতিমধ্যে সুমন আরও একবার নামাজের কখন জানতে চেয়েছে, কিছুতেই বলতে পারছিলাম না যে নামাজের সময় আমার জানা নাই, সুমনের ধর্ম কর্মকে সম্পূর্ণ ভাবেই শ্রধ্যা করি বলেই তাকে বলে বসলাম – আপনার সৈকতে যাওয়া ঠিক হচ্ছে না, আপনি বরং কোথাও একটা গাছের নীচে আছরের নামাজটা পরে বাসায় ফিরে যান, মনে মনে নিজের এই মূর্খতার জন্যে নিজেকে ধিক্কার দিচ্ছি, সুমন নাছোড়বান্দা সৈকতে সে যাবেই | আমারও সৈকতে এসে গেছি, ইতি মধ্যে আমিও শত চেষ্টা করেও আমরা যে নগ্ন ভাবে সমুদ্র সৈকতে সূর্য স্নান করতে যাচ্ছি বিষয়টি বোঝাতে গিয়েও বোঝাতে পারিনি | হয়তো সেটা আমার অক্ষমতা, সেদিনের পর থেকে সুমনের সাথে আমার দেখা হয়নি | আমার প্রতি প্রচণ্ড ঘৃণার মনোভাব নিয়ে মনে এক নিদারুণ কষ্ট নিয়ে সমুদ্র সৈকত থেকে ফিরে গেল | আজও সুমনের প্রতি আমার অনিচ্ছাকৃত ভুলের জন্যে অনুতপ্ত |
/// মাহবুব আরিফ কিন্তু

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

কিন্তু
কিন্তু এর ছবি
Offline
Last seen: 1 দিন 8 ঘন্টা ago
Joined: শুক্রবার, এপ্রিল 8, 2016 - 5:41অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর