নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 8 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • বিজ্ঞানী ইস্বাদ
  • আমি অথবা অন্য কেউ
  • বিজয়
  • সৈয়দ মাহী আহমদ
  • রাজিব আহমেদ
  • কিন্তু
  • নাগিব মাহফুজ খান
  • পৃথু স্যন্যাল

নতুন যাত্রী

  • শেষ যাত্রী
  • নীলা দাস
  • উর্বির পৃথিবী
  • গোলাম মাহিন দীপ
  • দ্য কানাবাবু
  • মাসুদ রুমেল
  • জুবায়ের-আল-মাহমুদ
  • আনফরম লরেন্স
  • একটা মানুষ
  • সবুজ শেখ

আপনি এখানে

সব রোগের একমাত্র ঔষধ হল বিয়ে


সব রোগের একমাত্র ঔষধ হল বিয়ে। আরও ভালোভাবে বললে পৃথিবীর সব সমস্যার সমাধান লুকিয়ে আছে 'বিয়ে দিয়ে ফেলা'কথাটার মধ্যে। যৈবতী কন্যার উচাটন মন বশে আনার একমাত্র উপায় চাঁদ সওদাগর এর মত হাট্টাকাট্টা পুরুষের সাথে বিয়ে। স্কুল -কলেজ পড়ুয়া মেয়েকে দেখে রাস্তায় বা পাড়ার মোড়ে বখাটে ছেলেরা চটুল কোন গান গেয়ে ওঠে? সমাধান সুন্দরী মেয়েকে বিয়ে দিয়ে ফেলা।
পড়াশুনায় অমনোযোগী মেয়ে বা মেয়ের গায়ের রং টেনেটুনে শ্যামলায় ফেলা না গেলে একটাই উপায় আছে - যত দ্রুত পার মেয়ের বিয়ে দিয়ে ফেল।
আমাদের সমাজের প্রচলিত কথা- মেয়েদের বিয়ে দেওয়া হয় আর ছেলেরা বিয়ে করে বউ ঘরে আনে। তবে ছেলেদের জন্য ও বিয়ে দিয়ে ফেলা বা বিয়ে করিয়ে দেওয়া কখন ও কখনও মহৌষধ। যেমনঃ

১. ছেলে পাড়মাতাল হয়ে ঘরে ফেরে সূয্যি মামা জাগার কিছু আগে ,
২. হেরোইন-ফেন্সিডিল-গাজাখোর নেশাখোর ছেলে,
৩. ভাদাইম্মা কিসিমের ছেলে যার আয়-
রোজগারে কোন আগ্রহ নাই,
৪. পাগল অথর্াৎ মানসিক প্রতিবন্ধী ছেলে,
৫. শারীরিক সমস্যা বা বাবা হওয়ার সক্ষমতা নিয়ে সন্দেহ থাকলে - এক এবং একমাত্র সমাধান ছেলেকে বিয়ে করিয়ে দেওয়া। চারিদিকে খোঁজ খোঁজ রব পড়ে যায় একটি সুন্দরী সুলক্ষনা মেয়ের জন্য। সেই কণের বয়স যত কম হবে ততই সে ছেলের মন ভোলাতে পারবে। মেয়েটি যত কম পড়াশুনা জানবে কিংবা মেয়ের বাবার বাড়ির আথির্ক অবস্থা যত নড়বড়ে হবে ততই ভালো; ওই মেয়ে অনন্যোপায় হয়ে তখন স্বামী-সংসারে মাথা কুটে মরবে। বাবা-মা, আত্মীয় পরিজন, কোন কোন ক্ষেত্রে ডাক্তার ও যখন ফেইল মেরে যায় তখন কিশোরী বা সদ্য তরুণী মেয়েটির কাঁধে বর সংশোধনের সব দায়িত্ব দিয়ে আমরা আমাদের দায় মেটাই।

তবে এখানে উল্লেখ্য যে ভাদাইম্মা কিসিমের বেকার ছেলেদের জন্য টাকাপয়সাওয়ালা শ্বশুরের মোটা, বেটে, কালো মেয়ে পছন্দের তালিকায় উপরের দিকে থাকে। যৌতুকের জন্যই শুধু বিয়ে করলেও, ওই মেয়েটার যে একটা গতি করা হয়েছে এই ভেবে এই নব্য সমাজ সংস্কারকরা নিজেদের ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর মনে করে আনন্দিত হয়।
কালো, মোটা, বেটে হওয়া তো কারো নিজের দোষ নয়। কিন্তু এই কারণে নিজেকে ছোট বা অযোগ্য মনে করা বা করতে দেওয়া গুরুতর দোষের। শুধু চেহারার কারণে মেয়েকে যৌতুক দিয়ে কোনরকমে অন্যের ঘাড়ে গছিয়ে দেওয়ার ধারনাটাই দোষের।
তেমনিভাবে খুব রূপবতী হওয়াটা ও কারো নিজের কৃতিত্ব নয়।সৌন্দযর্ বা শারীরিক গড়ন পুরোটাই জেনেটিক। তাই কারো শুধু রূপের প্রশংসা করা কিংবা শুধু চেহারা ভালো হওয়ার কারণে ভালো বিয়ে হওয়া ওই মেয়েটির ব্যক্তিত্বর অপমান, তার গুণের কোন কদর না করা।
মোদ্দাকথা, রূপবতী বা রূপহীন যেমনই হোক, মেয়ে যেন হয় মানুষ, মেয়ে যেন হয় সাবলম্বী। সবর্ রোগের একমাত্র ঔষধ বিয়ে দিয়ে ফেলা নয়।

Comments

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

ফারজানা সুমনা
ফারজানা সুমনা এর ছবি
Offline
Last seen: 2 ঘন্টা 6 min ago
Joined: শুক্রবার, এপ্রিল 21, 2017 - 7:39অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর