নীড়পাতা

টিকিট কাউন্টার

ওয়েটিং রুম

এখন 7 জন যাত্রী প্লাটফরমে আছেন

  • রাজর্ষি ব্যনার্জী
  • ড. লজিক্যাল বাঙালি
  • সুবর্ণ জলের মাছ
  • দীব্বেন্দু দীপ
  • মো.ইমানুর রহমান
  • সাইয়িদ রফিকুল হক
  • নুর নবী দুলাল

নতুন যাত্রী

  • বিদ্রোহী মুসাফির
  • টি রহমান বর্ণিল
  • আজহরুল ইসলাম
  • রইসউদ্দিন গায়েন
  • উৎসব
  • সাদমান ফেরদৌস
  • বিপ্লব দাস
  • আফিজের রহমান
  • হুসাইন মাহমুদ
  • অচিন-পাখী

আপনি এখানে

ইসলামি সংস্কৃতি কোনটা আর ইসলামিক ঐতিহ্যই বা কি?



যে কোন অনুষ্ঠান আসলেই ইসলামি মোল্লারা মাতম শুরু করে, ইহা ইসলামি সংস্কৃতির সাথে সাংঘর্ষিক, উহা ইসলামি ঐতিহ্যের সাথে মানানসই না। তারপর তো আরো আছে, এমন করলে শিরক হবে, অমনটা করলে আমার ধর্মানুভূতিতে লাগবে। কিন্তু আমার মনে আসলে প্রায়ই প্রশ্ন জাগে ইসলামি সংস্কৃতি আসলে কি? কি কি করা যায় সেখানে? ইসলামি ঐতিহ্যটাই বা কেমন?

তার আগে একটু বোঝার চেষ্টা করি, সংষ্কৃতি আর ঐতিহ্যের আভিধানিক অর্থ কি। যে কেউ কষ্ট করে একটু গুগল করলেই পেয়ে যাবে শব্দ দুটির সংক্ষিপ্ত বা বিস্তৃত ইতিহাস। ইংরেজিতে সংষ্কৃতির প্রতিশব্দ হচ্ছে culture। এর অর্থ the arts and other manifestations of human intellectual achievement regarded collectively. মানুষ সমষ্টিগতভাবে শৈল্পিক বা অন্যান্য যেসব বুদ্ধিবৃত্তিক কর্মকান্ড করে থাকে, তাই তার সংস্কৃতি। সংস্কৃতি নানা নিয়ামক দ্বারা প্রভাবিত। নির্দিষ্ট অঞ্চলের মানুষের সংস্কৃতি ঐ এলাকার জলবায়ু, ভৌগোলিক অবস্থানের, জীবনযাত্রার মান এসবের উপর ভিত্তি করে গড়ে ওঠে। উর্বর ভূমি, মরু অঞ্চল, মেরু অঞ্চল, পাহাড়ি অঞ্চলের সংস্কৃতি অবশ্যই আলাদা আলাদা হবে। ধর্ম আর একটা নিয়ামক। বর্তমান সময়ে আরও নানা অনুষঙ্গ যোগ হয়েছে, যা আমাদের সংস্কৃতিকে প্রভাবিত করতে পারে। এই যে ব্যাপক সংখ্যক মেয়েরা গার্মেন্টসে কাজ করছে, এটা কিন্তু বাংলাদেশের সংস্কৃতিতে বিরাট ভূমিকা রাখছে। ইন্টারনেট, আমরা যতই গরীব দেশ হইনা কেন, বিরাট ভূমিকা রাখছে আমাদের সমাজ- সংস্কৃতিতে। এই পরিবর্তনগুলো কিন্তু সব সময় যে পজিটিভ ভূমিকা রাখে, তা কিন্তু নয়। অনেক সময় খারাপ ভূমিকাও রাখে। কালের বিবর্তনে মানুষ্য সমাজ সে সংস্কৃতি বিসর্জন দেয়। খারাপ সংস্কৃতির প্রভাবে অনেক সভ্যতা ধ্বংসও হতে দেখি আমরা ইতিহাসে। এই বিশ্ব ব্রহ্মান্ড যেমন স্থির না, তেমনি মানুষের সভ্যতা-সংস্কৃতিও স্থির না। সদা পরিবর্তনশীল।

এবার আসি, ঐতিহ্যর কথাতে। ইরেজিতে বলে tradition. ইংরেজি অর্থঃ the transmission of customs or beliefs from generation to generation, or the fact of being passed on in this way. মানে দাড়ায়, যে সব রীতিনীতি বা কর্মকান্ড মানুষ প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে পালন করে আসছে। ঐতিহ্যও কিন্তু খারাপ হতে পারে এবং তা পরিবর্তশীল। অস্ট্রেলিয়ানরা প্রচুর বিয়ার খায়। এটা তাদের ঐতিহ্য। কিন্তু অতিরিক্ত বিয়ার সেবন তো স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ।

ইসলামিক সংস্কৃতি কি, এটা বোঝার চেষ্টা বেশ জটিল, কষ্টসাধ্য এবং সীমাহীন একটা প্রক্রিয়া। সে চেষ্টা করার ধৃষ্টতা বা যোগ্যতা আমার নেই। তবে আমাদের দেশের তথাকথিত ইসলামিক সংস্কৃতি বোঝা অপেক্ষাকৃত বেশ সহজ। যা কিছু এদেশীয়, যা কিছু স্থানীয় তা নাকচ করাই এদেশের ইসলামিক সংস্কৃতি। বলা যায়, কিছু না করে সারাদিন এদেশের মানুষের কোন কোন কাজ ইসলাম সমর্থন করে না তার লিস্টি করা। এ উপমহাদেশের যে কোন মোল্লারে জিজ্ঞেস করেন, ইসলামি ঐতিহ্য কি? বলবে ধর্মকর্ম করাই ইসলামি ঐতিহ্য। মুখে নীতি নৈতিকতা পালনের কথা বলবে। কিন্তু বাস্তবে তার কোন চিহ্নটি পাওয়া যাবে না। আর মেয়েদেরকে কতভাবে হেয় করা যায়। এ উপমহাদেশের হুজুরকুলের সমস্যা কি? এমনকি যে আরব জাতির নাম না জপে তারা ঘুমাতে যান না, তারাও কিন্তু প্রাক-ইসলামিক অনেক কিছু ইসলামে গ্রহণ করেছেন। পূর্ব পুরুষকে একেবারে মুছে ফেলতে পারেননি। সেটাই স্বাভাবিক। এই যে, এ অঞ্চলে ইসলামের আগমণ যে সুফি ভাবধারার উপর ভর করে, তা কিন্তু স্থানীয় সংস্কৃতির সাথে একেবারে বিলীন হয়ে গিয়েছিল। তা হলে দেখা যাচ্ছে, ইসলামও অনেক কিছু গ্রহণ করেছে। তাহলে আজকে এই যে কিছুই গ্রহণ না করার নামে, মানব সভ্যতার স্বাভাবিক অগ্রগতিকে অস্বীকার করে, কোন ইসলাম প্রতিষ্ঠা হতে চলেছে? কারাই বা এমনটা করতে চাচ্ছে? তাদের উদ্দেশ্যই বা কি?

আমি কোন সমাজ বিশ্লেষক নই, নই কোন সমাজ বিজ্ঞানী। তবে প্রশ্নগুলো আমাকে ভাবাচ্ছে। আমরা কি ভয়ানক কোন পরিনতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছি? খ্রিষ্টানরা আজ পরিবর্তনের গান গাইছে, ইহুদীরাও তাদের ধর্মকে সরিয়ে রেখে কত না এগিয়ে গিয়েছে। পশ্চিমে কত না পরিবর্তন! একটা ধর্ম নিজে পাল্টাবে না, সাথে আর কাউকেও বদলাতে দিবে না! এমনকি নুন্যতম লজ্জাটুকুও নেই এদের। মানব সভ্যতার সমস্ত সুবিধা নিচ্ছে, অথচ এতটুকুও ফেরত দিচ্ছে না।

তবে এরা কি চায়, কেউ চিন্তা না করুক? কেউ গান না গাক? কেউ ছবি না আঁকুক? তাতে ওদের কি লাভ? মানুষ তবে কি নিয়ে থাকবে? মানুষকে অথর্ব করে দিয়ে কার লাভ? শাসকগোষ্ঠীর। যে দেশেই গণতন্ত্র নেই, সেখানেই এ মোল্লাদের চড়া গলা। বিশ্বাস হতে চায় না যে, শেখ হাসিনা ক্ষমতার লোভে এদের সাথে হাত মিলিয়েছেন! মানুষ পথে নামুন, যদি বাঁচতে চান, পথে নামুন...

Comments

শ এর ছবি
 

আরে মালউনের বাচ্চা তোরা সভ্যতার কোন বাল বুঝছ তোরা নারীদেরকে জীবন্ত পুরিয়ে মারতি আমরা তোদের শিখিয়েছি এটা মানবতবিরুদি কাজ, আর ইউরোপিয়ান খাটাশ গুলিত গোসল করত জীবনে দুইবার আমর তাদেরকে শিখিয়েছি এটা অসভ্যতা,তোরাতো এখন সভ্য!আরে মাদারফাকার মুইত্তা যে পানি লইতে হয় তাওতো তোরা জানস না,চুইদ্দা যে গোসল করতে হয় সেটা তোর বাপ দাদাও জানত না

 
জংশন এর ছবি
 

ওরে মুসলমানের বাচ্চা! তোর মহানবীর বংশধরেরা যে এখনও উটের মুত দিয়ে গোছল করে!

স্বপ্নের জংশন এখানেই...

 
 

এরা চায় আল্লার নির্দেশ কায়েম করতে , আল্লা কি বলছেন কেউ চিন্তা করুক? কেউ গান গাক? কেউ ছবি আঁকুক?
এ অঞ্চলে সুফি ভাবধারার উপর ভর করে যে ইসলামের আগমণ তা কি সহি ইসলাম?ইসলামের শেষ নবীর সময় কি সুফি ভাবধারার কোন ইসলাম ছিল ?
গণতন্ত্র থাকা না থাকার সাথে মোল্লাদের চড়া গলা বা নিচু গলা নির্ভর করে না। এটা নির্ভর করে পবিত্র কেতাবের কি নির্দেশের উপর।

 

Post new comment

Plain text

  • সকল HTML ট্যাগ নিষিদ্ধ।
  • ওয়েবসাইট-লিংক আর ই-মেইল ঠিকানা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই লিংকে রূপান্তরিত হবে।
  • লাইন এবং প্যারা বিরতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে দেওয়া হয়।
CAPTCHA
ইস্টিশনের পরিবেশ পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য আপনাকে ক্যাপচা ভেরিফিকেশনের ধাপ পেরিয়ে যেতে হবে।

বোর্ডিং কার্ড

জংশন
জংশন এর ছবি
Offline
Last seen: 3 weeks 8 ঘন্টা ago
Joined: সোমবার, এপ্রিল 6, 2015 - 11:42অপরাহ্ন

লেখকের সাম্প্রতিক পোস্টসমূহ

কু ঝিক ঝিক

ফেসবুকে ইস্টিশন

SSL Certificate
কপিরাইট © ইস্টিশন.কম ® ২০১৬ (অনলাইন এক্টিভিস্ট ফোরাম) | ইস্টিশন নির্মাণে:কারিগর